জামাতা আইসোলেশনে, শ্বশুরবাড়ির লোকজন কোয়ারেন্টিনে

Send
পাবনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:৪৫, মার্চ ২৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৯, মার্চ ২৮, ২০২০

পাবনাপাবনার বেড়া উপজেলায় শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়া এক যুবককে করোনা আইসোলেশন ইউনিটে পাঠিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। শুক্রবার দুপুরে জেলা পরিষদের কাশিনাথপুর ডাকবাংলো আইসোলশন সেন্টারে পাঠানো হয় ওই যুবককে। একইসঙ্গে তার শ্বশুরবাড়িতে শিশুসহ ১৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

ওই যবুকের বাড়ি নওগাঁ জেলায়। তিনি ট্রেনে হকার হিসেবে পণ্য বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয়রা জানান, গত ২৫ মার্চ ওই যুবক শরীরে জ্বর, গলা ব্যাথা নিয়েই শ্বশুরবাড়িতে আসেন। বাড়িটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায়। ওই যুবকের অসুস্থতার খবর স্থানীয় চেয়ারম্যান জানতে পারার সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা প্রশাসনকে জানান। খবর পেয়ে বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসিফ আনাম সিদ্দিকী ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মিলন মাহমুদ ঘটনাস্থলে যান। ওই যুবককে তারা আইসোলেশনে রাখার সিদ্ধান্ত নেন।

শুক্রবার দুপুরে ওই তরুণকে কাশিনাথপুরে জেলা পরিষদের ডাকবাংলোয় রাখা হয়। সেখানে তাকে তিন বেলা খাবার দেওয়া হবে। পাশাপাশি দিনে চার বার তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন চিকিৎসক। ওই যুবকের শ^শুড়বাড়ির শিশুসহ ১৬ জন সদস্য রয়েছে। প্রত্যেককে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতর। একই সঙ্গে তাদের ১০ কেজি চাল ও শুকনো খাবার সরবরাহ করা হয়েছে।

জাতসাখিনী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল হক বাবু বলেন, ‘স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করি। উপজেলা প্রশাসন ওই তরুণকে আইসোলেশনে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।’

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসিফ আনাম সিদ্দিকী বলেন, ওই যুবকের শরীরে জ¦র ও গলা ব্যথা রয়েছে। তবে আগে থেকে তার টনসিলের সমস্যা ছিল। টনসিলজনিত কারণে গলা ব্যাথা হতে পারে। তবুও তাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। এছাড়া তার শ^শুড় বাড়ির আরও ১৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে দেওয়া হয়েছে। শ্বশুরবাড়ির লোকজন অসচ্ছল হওয়ায় তাদের খাবারের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। ওই যুবকের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে।’

 

/এফএস/

লাইভ

টপ