লালমনিরহাটে সরকারি ত্রাণ সহায়তা অপ্রতুল

Send
লালমনিরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৩:৩৫, এপ্রিল ০৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩১, এপ্রিল ০৭, ২০২০

লালমনিরহাট

লালমনিরহাটে গত ৫ এপ্রিল পর্যন্ত জেলাজুড়ে যে ত্রাণ বিতরণ হয়েছে তাতে সরকারি ত্রাণের তুলনায় ব্যক্তি উদ্যোগে সহায়তার পরিমাণই বেশি। সরকারিভাবে পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ না করায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। জানা গেছে, সরকারি ভাবে আরও ত্রাণ চেয়ে ঊধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে।

জানা গেছে, জেলার ৪৫টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় নিম্ন আয়ের ২২ হাজার ২৫০টি পরিবারের  মাঝে সরকারি ভাবে এ যাবত মোট ২৩২ দশমিক ৫০০ মেট্রিক টন চাল ও এবং ১৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

লালমনিরহাট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জমান সুজন বলেন, মানুষের চাপ সামলানো যাচ্ছে না। কর্মহীন মানুষের চাপে বাড়িতেই থাকা যাচ্ছে না। দ্রুত সরকারি পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা প্রয়োজন। এজন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ দরকার।

তবে সরকারি এই ত্রাণ তৎপরতার তুলনায় বেসরকারি পর্যায়ে ব্যক্তি উদ্যোগেই বেশি ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম চালানো হয়েছে বলে মাঠ পর্যায়ে তথ্য পাওয়া গেছে।

লালমনিরহাট জেলা ত্রাণ ও পুর্নবাসন অধিদফতর সূত্র জানায়, জেলার ৪৫টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় ১ লাখ ৭ হাজার ৩১৫টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের চাহিদার একটি তালিকা পাওয়া গেছে। ত্রাণ সামগ্রী চেয়ে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের উদ্যোগে কর্মহীন শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ৪শত পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হয়েছে। চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র সহসভাপতি কাজী নজরুল ইসলাম তপন ব্যক্তি উদ্যোগে শ্রমজীবীসহ ১৪শ’ পরিবারকে সহায়তা দিয়েছেন।

চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক রেজাউল করিম স্বপন পৌর এলাকায় জীবানুমুক্ত করার জন্য ট্রাকে করে পানি ছিটানোর পাশাপাশি এখন পর্যন্ত ৪ হাজার পরিবারের মাঝে চাল, আলু, মসুর ডাল, সাবান ও সয়াবিন তেল বিতরণ করেছেন।

চেম্বার অব কমার্সের অপর পরিচালক সাখাওয়াত হোসেন সুমন খান ৩ শ’ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের পক্ষ থেকে সদর উপজেলার শ্রমজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার ১৫শত পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

লালমনিরহাট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সুজন ও মিজানুর রহমান মিজানের উদ্যোগে ৫ শতাধিক পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

লালমনিরহাট জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সভাপতি জাবেদ হোসেন বক্কর শ্রমজীবী ও সাধারণ দুঃস্থ মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী ও মাস্ক বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল খালেক বাবু ও শহিদুল ইসলামের পক্ষ থেকেও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চালানো হয়েছে।

এছাড়া লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা স্বপনও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করছেন।

এদিকে, লালমনিরহাট সদর উপজেলার বাইরে লালমনিরহাট-২ আসনের (আদিতমারী-কালীগঞ্জ) সংসদ সদস্য ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের পক্ষ থেকে কালীগঞ্জ ও আদিতমারী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ১৫৬ পরিবারকে পুলিশ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে, লালমনিরহাট-১ আসনের (পাটগ্রাম-হাতীবান্ধা) সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক প্রতিমন্ত্রী মো. মোতাহার হোসেন ব্যক্তিগত উদ্যোগে শ্রমজীবী মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও আমদানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে শ্রমিকদের ৫ কেজি চাল, আধা কেজি সয়াবিন তেল, আধা কেজি মসুর ডাল বিতরণ করা হয়েছে। পাটগ্রাম উপজেলার এক ব্যক্তি ৫ শতাধিক পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন। এছাড়াও লালমনিরহাট সদর উপজেলায় বেশকিছু সংস্থা ও ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হলেও জেলার অপর চার উপজেলায় ব্যক্তি উদ্যোগে বা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার পক্ষ থেকে তেমন ত্রাণ তৎপরতার খবর পাওয়া যায়নি।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ