রেকর্ডভাঙা বৃষ্টিতে প্লাবিত রংপুর বিভাগ (ফটো স্টোরি)

Send
বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক
প্রকাশিত : ০১:৫১, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৬:২৫, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

রংপর শহরে এমন পানি জমে যে বাস চলে নৌকার মতো।

বাংলাদেশের মানচিত্রে রংপুর বিভাগই সবচেয়ে উঁচু এলাকা। দিনাজপুর, পঞ্চগড়, লালমনিরহাট সবচেয়ে উঁচু হলেও বাকি জেলাগুলোর গড় উচ্চতাও দেশের অন্য জেলাগুলো থেকে বেশি। বর্ষা পেরিয়ে হঠাৎই তুমুল বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এই বিভাগের জনজীবন। টানা এক সপ্তাহের বৃষ্টিতে বিভাগের আটটি জেলার মানুষই ঘরবন্দি ছিল দিনের বেশিরভাগ সময়। তবে গত শনিবার রাত থেকে রবিবার সকাল ৯টা পর‌্যন্ত এই বৃষ্টির মাত্রা ছিল ভয়াবহ বেশি। বিশেষ করে রংপুর জেলায় এসময়ে বৃষ্টিপাত হয়েছে গত ১০০ বছরের মধে সর্বোচ্চ। শহরের ৬০টি পাড়া-মহল্লা ডুবে গেছে হাঁটু থেকে কোমর পানির নিচে। ঠাকুরগাঁওয়ের আবহাওয়া অফিসের তথ্য অনুযায়ী এই বৃষ্টি ছিল গত ১০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। নীলফামারী ও গাইবান্ধাতেও হয়েছে একদিনের হিসেবে বছরের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত। বৃষ্টি হয়েছে কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড়, লালমনিরহাট ও দিনাজপুরেও। তবে পানি বন্দিদশা ভয়াবহ ছিল রংপুর, নীলফামারী, গাইবান্ধা ও ঠাকুরগাঁওতেই।

রংপুর শহরে বৃষ্টিপাতে তৈরি হয়েছে শহরজুড়ে জলাবদ্ধতা।

(ওপরে) রংপুর শহরের একটি রাস্তা, নিচে রংপুর শহরর একটি ঘরের ভেতর থেকে সেঁচে বের করা হচ্ছে ঢুকে পড়া বৃষ্টির পানি। যে শহরে এক রাতে ৪৩৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয় সেখানে ঘরের ভেতরে পানি ঢোকার ঘটনায় আতঙ্ক তৈরি হয় এলাকাজুড়ে।

রংপুরে বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়ে ঘরের ভেতরে।

রংপুরের একটি মহল্লায় এমনই পানি ঢুকেছে যে খাটের পায়া ডুবে গেছে, শুধু বিছানা ডোবা বাকি। বাধ্য হয় বাড়ি-ঘর ফেলে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন ঘরের বাসিন্দারা।

রংপুরে এমন বৃষ্টি হয়েছে যে নিচু এলাকাগুলোর ঘরে হাঁটু পানি জমে গেছে। আরেকটু পানি বাড়লেই ডুবে যাবে খাট।

গাইবান্ধায় শহর না ডুবলেও দিনভর বৃষ্টি ভোগান্তিতে ফেলে জেলাবাসীকে। (নিচের ছবি)

গাইবান্ধায় মুষলধারে বৃষ্টির কারণে সড়কগুলো ফাঁকা

নীলফামারীর বাবু পাড়া মহল্লায় জমে গেছে বৃষ্টির পানি।

নীলফামারী শহরের বাবুপাড়া সড়কে জমে গেছে পানি।

নীলফামারীর সৈয়দপুরের নিচু এলাকাগুলোতে পানি জমে ঢুকে পড়েছে ঘর-বাড়িতে। অবস্থা এমন যে পানি নামার আগে গরু-বাছুর রাখার শুকনো জায়গা মেলানো দায় হয়ে পড়ে। ভীষণ ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ কৃষকরা। 

সৈয়দপুরে গরু-বাছুর রাখা যাবে এমন শুকনো জায়গা পাওয়াই কঠিন হয়ে পড়েছে।

এত বৃষ্টি যে ডুবে গেছে টিউবওয়েলের পাইপের অংশ।

সৈয়দপুরে পানি জমেছে বাসা বাড়ি ও লোকালয়ে। ডুবে আছে নলকূপের গোড়া।

ঘর-বাড়িতে পানি ঢোকায় দুর্বিষহ সময় পার করেন সৈয়দপুরের এলাকাবাসী।

সৈয়দপুরে রাস্তাসহ বাড়ি ঘরে ঢুকে গেছে পানি।

পানি ঢুকে গেছে নীলফামারী ফায়ার সার্ভিস অফিসের নিচেও।

সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিস অফিসেও জলাবদ্ধতা

ঠাকুরগাঁওয়ে বৃষ্টি হয়েছে ১০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। শনিবার জেলা সদরে ৮৬ মিলিমিটার। পানিবন্দি হয়ে গেছে পুরো এলাকা। (নিচের ছবি)

ঠাকুরগাঁওয়ে অতি বর্ষণে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ঘরবাড়ি

কারও কোমর, কারও গলা ডুবে গেছে পানিতে। ঠাকুরগাঁওয়ে এমন বৃষ্টিতে ভীষণ কষ্টে সাধারণ মানুষ। 

ঠাকুরগাঁওয়ে অতি বর্ষণে ডুবে গেছে পথঘাট। মানুষ চলাফেরা করছে ভয়াবহ বিপদকে সঙ্গে নিয়ে।

প্রবল বর্ষণে মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে। এখানে মাটিচাপা পড়ে মারা যান একই পরিবারের ৪ জন।

প্রবল বর্ষণে মাটি চাপা পড়ে একই পরিবারের ৪ জন নিহত হয় দিনাজপুরের পার্বতীপুরে

প্রবল বৃষ্টির সঙ্গে ভারত থেকে নামছে পাহাড়ি ঢল। ভয়াবহ পরিস্থিতি আবারও শুরু হয়েছে ধরলায়। নদীতে পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয়েছে ভাঙন।

কুড়িগ্রামের ধরলা পাড়ে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে বেড়েছে নদীর পানি, শুরু হয়েছে ভাঙন।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ