X
সোমবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ৩ মাঘ ১৪২৮
সেকশনস

হিলিতে হঠাৎ কমেছে ধানের দাম, বিপাকে কৃষক

আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০২১, ২৩:০৩

চলতি মৌসুমে আমন ধানে নানা রোগ ও পোকামাকড় আক্রমণ করলেও ভালো ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় খুশি হয়েছিলেন কৃষকরা। কিন্তু হঠাৎ ধানের দাম মণ প্রতি ৫০-১০০ টাকা করে কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা। ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ধানের দাম কমিয়েছেন, এমন দাবি কৃষকের। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ধান কেনা বন্ধ করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

হিলির বিভিন্ন এলাকায় মাঠজুড়ে চলছে এখন ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ। ইতোমধ্যেই তিন ভাগের দুভাগ বেশি জমির ধান কাটা শেষ হয়েছে। বাকিটা অল্প কিছু দিনের মধ্যেই শেষ হবে। বর্তমানে হিলির বিভিন্ন হাটগুলোতে ধান বেচাকেনা চলছে। বর্তমানে প্রতি মণ গুটিস্বর্ণা ৯৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা আগে এক হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছিল। আর স্বর্ণা জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে একা হাজার টাকায়। যা আগে ছিল ১১০০ টাকা।

হিলির দক্ষিণ বাসু দেবপুরের কৃষক মফিজ উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘একেতো এবারে আমন ধান লাগানোর সময় থেকেই আমাদের বিপদ। বৃষ্টিপাত না হওয়ায় সেচের মাধ্যমে ধান আবাদ করতে হয়েছিল। পরে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত হওয়ায় সময়মতো সার কীটনাশক দেওয়ায় ধানের গাছ ভালো হয়েছিল। কিন্তু পরে যখন শীষ বের হবে তখন দেখা দেয় মাজরা, কারেন্টসহ বিভিন্ন পোকার আক্রমণ। নিজের অভিজ্ঞতা ও কৃষি অফিসের পরামর্শে কীটনাশক ব্যবহার করার ফলে সেই আক্রমণ থেকে রক্ষা পায়। তবে অন্যান্যবার এক থেকে দুবার কীটনাশক প্রয়োগ করলেও এবারে ৪-৫ দিতে হয়েছিল। ফলে খরচ কিছুটা বাড়তি হয়েছে। তবে ধান কাটা মাড়াই শেষে দেখা যায়, ধানের ফলন বেশ ভালো হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সম্প্রতি তেলের দাম বাড়ায় ধানের মাড়াই ও কাটার খরচ বেড়ে গেছে। এতে সবমিলিয়ে বিঘা প্রতি ২/৩ হাজার টাকা লাভ হতো। কিন্তু হঠাৎ আবার ধানের দাম দ্রুত কমতে শুরু করেছে। যে স্বর্ণা ধানের দাম ১১০০ টাকায় উঠেছিল, এখন তা কমে এক হাজারে নেমেছে। আর গুটিস্বর্ণার দাম সাড়ে ৯০০ টাকায় নেমেছে। ধানের দাম এভাবে কমতে থাকলে আমাদের লোকসানে পড়তে হবে।’

হিলির ছাতনি চারমাথা মোড়ের ধানের আড়তদার তোফাজ্জল হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘গত কয়েকদিনের তুলনায় ধানের দাম বর্তমানে কিছুটা কমছে। এর মূল কারণ, ক্রেতা সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা ধান কিনে যেসব মোকামে সরবরাহ করতাম সেগুলোতে এখন কেনা বন্ধ। কয়েকদিন আগে ধান কাটা ও মাড়াই শুরুর পরপর বিভিন্ন মোকামে ধান কিনতে শুরু করেছিল। বিশেষ করে সিটি গ্রুপ প্রচুর পরিমাণে ধান কিনেছিল। দিনে তারা ৩০০-৪০০ ট্রাক ধান কিনছিল। কিন্তু সম্প্রতি তাদের মিলে আগুন লাগার কারণে ধান কেনা বন্ধ রেখেছে। আপাতত কিছুদিন ধানের বাজার এমন থাকবে, পরে দাম বাড়বে।’ 

/এফআর/
সম্পর্কিত
হিলির দুই মাদ্রাসাছাত্রকে ৪ ঘণ্টা পর ফেরত দিলো বিএসএফ
হিলির দুই মাদ্রাসাছাত্রকে ৪ ঘণ্টা পর ফেরত দিলো বিএসএফ
হিলি সীমান্ত থেকে ২ মাদ্রাসাছাত্রকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ
হিলি সীমান্ত থেকে ২ মাদ্রাসাছাত্রকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
হিলির দুই মাদ্রাসাছাত্রকে ৪ ঘণ্টা পর ফেরত দিলো বিএসএফ
হিলির দুই মাদ্রাসাছাত্রকে ৪ ঘণ্টা পর ফেরত দিলো বিএসএফ
হিলি সীমান্ত থেকে ২ মাদ্রাসাছাত্রকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ
হিলি সীমান্ত থেকে ২ মাদ্রাসাছাত্রকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ
বাস ওভারটেকের সময় অটোরিকশায় ধাক্কা, প্রাণ গেলো ২ জনের
বাস ওভারটেকের সময় অটোরিকশায় ধাক্কা, প্রাণ গেলো ২ জনের
© 2022 Bangla Tribune