X
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
১৭ মাঘ ১৪২৯

বজ্রাঘাতে প্রাণ হারানো ৫ জনের পরিবারে আহাজারি 

গাইবান্ধা প্রতিনিধি  
১১ অক্টোবর ২০২২, ২১:১৯আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২২, ২১:২৭

রংপুরের পীরগঞ্জে একটি ইটভাটায় বজ্রাঘাতের ঘটনায় পাঁচ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে চার জনই ইটটানা ট্রলি শ্রমিক ও একজন কৃষক। তাদের সবার বাড়ি গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ইদিলপুর ও ধাপেরহাট ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে। মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) বেলা ৩টার দিকে পীরগঞ্জ উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী চক শোলাগাড়ি বিটিসি মোড় এলাকার আদুরে বকুল মিয়ার বিইবি ইটভাটায় এই ঘটনা ঘটে। 

ঘটনার পরপরই মৃতদের মরদেহ স্বজনরা বাড়িতে নিয়ে গেছেন। এদিকে একইসঙ্গে পাঁচ জনের মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোক নেমে এসেছে। মৃতদের বাড়িতে চলছে মাতম। স্বজন হারিয়ে বাকরুদ্ধ অবস্থা পরিবারের সদস্যদের। এ ঘটনা কোনোভাবেই মানতে পারছেন না স্বজনরা।  

বজ্রাঘাতে প্রাণ হারান ভাটার ইটটানা শ্রমিক গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের তিলকপাড়া গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে নাজমুল ইসলাম (২০) এবং ইদিলপুর ইউনিয়নের চকনদি গ্রামের শিরুল মিয়ার ছেলে সিয়াম মিয়া (২৩), আলআমিনের ছেলে শাহাদত মিয়া (২২) ও আয়নাল মিয়ার ছেলে রাশেদুল ইসলাম (২৮) ও কবিলপুর সোনাতলা গ্রামের মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে আব্দুল জলিল (৬২)। 

মৃত নাজমুল ইসলামের ভাই আতোয়ার মিয়া বলেন, ভাটায় কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতো নাজমুল। প্রতিদিনের মতো ইটভাটায় কাজ করতে যায় সে। দুপুরের পর বজ্রাঘাতে তার মৃত্যু হয়। 

 রাশেদুল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম বলেন, স্বামীর রোজগারে কোনোরকমে চলতো সংসার। বাড়ি-ভিটে ছাড়া আমাদের কোনও জায়গা-সম্পদ নেই। এখন স্বামীকে হারিয়ে দুই শিশু সন্তান নিয়ে কীভাবে দিন চলবে, জানি না। 

এদিকে চক নদী গ্রামের আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, বজ্রাঘাতে এক সঙ্গে পাঁচ জনের মৃত্যুর ঘটনায় পুরো ইউনিয়নে শোক নেমে এসেছে। নিহত সবাই শ্রমজীবী মানুষ। তাদের একার আয়েই চলতো সংসার। পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তি হারিয়ে স্বজনরা এখন দিশেহারা। এ অবস্থায় অসহায় পরিবারগুলোর জন্য সরকারি সহায়তার দাবি জানান তিনি।
 
এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিরোদা রাণী রায় বলেন, বৃষ্টির সময় বিইবি ইটভাটায় চার শ্রমিক এবং ইটভাটায় ঘাস কাটতে আসা এক কৃষক টিন শেড ঘরে আশ্রয় নেয়। এ সময় বজ্রাঘাতে ঘটনাস্থলেই চার শ্রমিক এবং হাসপাতালে নেওয়ার পথে কৃষকের মৃত্যু হয়। তাদের সবার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলায়। 
 
 কাবিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম বলেন, ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গেই আমি ইটভাটায় যাই। খবর পেয়ে মৃতদের স্বজনরা আসেন। সেখানে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। স্বজনরা কাঁদতে কাঁদতে প্রিয়জনের লাশ নিয়ে যান। ঘটনাটি আমার ইউনিয়নের হলেও যারা মারা গেছেন তাদের সবার বাড়ি পাশের উপজেলা সাদুল্লাপুরে। আমি বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের জানিয়েছি।

এদিকে, সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রোকসানা বেগম বলেন, এ ঘটনার সংবাদ আমরা পেয়েছি। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা হয়েছে। মৃতদের দাফনের জন্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। মৃত পরিবারগুলোকে সরকারিভাবে সহযাগিতা করা হবে বলেও জানান তিনি। 

/টিটি/
সর্বশেষ খবর
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
ভাড়াটে খুনি দিয়ে ভাতিজাকে খুন করান সাইফুল
ভাড়াটে খুনি দিয়ে ভাতিজাকে খুন করান সাইফুল
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
শীতপ্রবণ তেঁতুলিয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প
শীতপ্রবণ তেঁতুলিয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প
সর্বাধিক পঠিত
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে প্রস্তুত ন্যাটো?
রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে প্রস্তুত ন্যাটো?
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে