ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রক্রিয়া চলবে: হাউস স্পিকার

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৪:০২, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৬:১৬, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯

ক্ষমতার অপব্যহারের অভিযোগে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দায়িত্ব থেকে সরাতে তার বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রক্রিয়া চলবে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। জুডিশিয়ারি কমিটিকে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগের খসড়া (আর্টিকেল অব ইম্পিচমেন্ট) প্রস্তুতের নির্দেশনা দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের এই ডেমোক্র্যাট স্পিকার। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই ডেমোক্র্যাটরা ‘পাগল হয়ে গেছে’ বলে মন্তব্য করেন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। অভিশংসিত করতে চাইলে দ্রুত নেওয়ার তাগিদ দেন তিনি।যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি

সম্প্রতি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ট্রাম্পের ওই ফোনালাপ ফাঁস হলে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক অঙ্গনে ঝড় উঠে। ফাঁস হওয়া ফোনালাপে দেখা যায়, সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টকে রীতিমতো চাপ দিচ্ছেন ট্রাম্প। ওই ফোনালাপের ভিত্তিতে গোয়েন্দা সংস্থার একজন সদস্য আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করার পর ট্রাম্পের অভিশংসনের দাবি সামনে আসে। তাকে ক্ষমতা থেকে সরাতে তদন্ত শুরু করে ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদ। তদন্তের শুনানিতে অংশ নিতে ট্রাম্পকে ডেকে পাঠায় পরিষদের গোয়েন্দা কমিটি। তবে তাতে সাড়া দেননি তিনি। ওই তদন্তকে ন্যাক্কারজনক হিসেবে আখ্যায়িত করে ট্রাম্পের দাবি, তাকে অভিশংসনের ক্ষমতা বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেই।

গত ৩ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে প্রতিনিধি পরিষদের গোয়েন্দা কমিটি। প্রত্যক্ষদর্শীদের স্বাক্ষ্য, ঘটনাক্রম ও ফোনালাপের বিবরণ সম্বলিত ৩০০ পাতার ওই প্রতিবেদনে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও অভিশংসন তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়।

গোয়েন্দা কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশের পর বুধবার শুনানি শুরু করে প্রতিনিধি পরিষদের জুডিশিয়ারি কমিটি। এতে অংশ নিয়ে তিন জন সংবিধান বিশেষজ্ঞ তাদের স্বাক্ষ্যে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অভিশংসিত হওয়ার মতো কাজ করেছেন। তবে চতুর্থ আরেকজন প্রফেসর বলেছেন, ট্রাম্প যা করেছেন তা ভুল তবে অভিশংসিত হওয়ার মতো অপরাধ নয়।  

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেন, নিজের রাজনৈতিক স্বার্থে আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার বিনিময়ে প্রেসিডেন্ট ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। আর ওভাল অফিসে এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীর (জো বাইডেন) বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর ঘোষণার বিনিময়ে সামরিক সহায়তা দেওয়ার (ইউক্রেনকে) প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। পেলোসি বলেন, দুঃখজনক হলেও আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে তিনি চেয়ারম্যানকে অভিশংসন অভিযোগের খসড়া প্রস্তুতের নির্দেশনা দিয়েছেন।

স্বাক্ষ্য শোনার পর প্রতিনিধি পরিষদের জুডিশিয়ারি কমিটি লিখিতভাবে অভিশংসনের অভিযোগের খসড়া প্রস্তুত করবে। ধারণা করা হচ্ছে এই খসড়ায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, বিচারে বাধা ও কংগ্রেসের সিদ্ধান্ত ভঙ্গের অভিযোগ আনা হতে পারে।

জুডিশিয়ারি কমিটি অভিযোগের খসড়া প্রস্তুতের পর প্রতিনিধি পরিষদে এনিয়ে ভোটাভুটি হবে। ভোটাভুটিতে অনুমোদন পাওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিচার চালাতে বাধ্য হবে মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেট। সেখানে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় দোষী সাব্যস্ত হলে দায়িত্ব থেকে সরতে বাধ্য হবেন তিনি। তবে কংগ্রেসের এই কক্ষের নিয়ন্ত্রণ রিপাবলিকানদের হাতে থাকায় এক্ষেত্রে সেই আশঙ্কা কম বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ন্যান্সি পেলোসির মন্তব্যের কিছুক্ষণ পরই টুইটারে এর জবাব দেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এতে তিনি বলেন, ‘আপনারা আমাকে অভিশংসন করতে চাইলে, এখনই করুন, দ্রুত, যাতে সিনেটে আমরা একটা ন্যায় বিচার পাই আর আমাদের পুরো দেশ নিজের কাজে ফিরে যেতে পারে’।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, বছর শেষ হওয়ার আগেই ট্রাম্পের অভিশংসন নিয়ে প্রতিনিধি পরিষদে ভোটাভুটি আয়োজনে আগ্রহী ডেমোক্র্যাটরা। আর তা সম্ভব হলে আগামী বছরের জানুয়ারিতেই সিনেটে ট্রাম্পের বিচারের পথ খুলে যেতে পারে।

/জেজে/

লাইভ

টপ