যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বন্দি বিনিময়ে প্রস্তুত ইরান

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৭:১৫, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:২১, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

ওয়াশিংটন-তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা চললেও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বন্দি বিনিময়ে প্রস্তুত থাকার কথা জানিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ। সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক থিংকট্যাংক কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশন্সের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল আলাপচারিতায় একথা জানান তিনি। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ

ছয় বিশ্ব শক্তির সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র বের হয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল শুরু করলে দুই দেশের সম্পর্কে নতুন করে টানাপোড়েন শুরু হয়। তা সত্ত্বেও ইতোমধ্যে দুই দফা বন্দি বিনিময় করেছে দেশ দুটি। সম্প্রতি ইরানের ওপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে তা পুনর্বহাল করতে জোরালো প্রচেষ্টা শুরু করেছে ওয়াশিংটন। তারপরও বন্দি বিনিময়ে প্রস্তুত থাকার কথা জানালেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ওয়াশিংটন দীর্ঘদিন থেকে ইরানে আটক মার্কিন নাগরিকদের মুক্তি দাবি করে আসছে। এসব বন্দিদের মধ্যে রয়েছেন ইরানি বংশোদ্ভূত মার্কিন বাবা বাকের ও তার ছেলে সিয়ামাক নামজি। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি এদের সকলেই রাজনৈতিক বন্দি।

তবে রাজনৈতিক কারণে কাউকে বন্দি রাখার কথা অস্বীকার করে আসছে তেহরান। ইরানের কারাগারে আটক বহু বিদেশি নাগরিককে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য অভিযুক্ত করে আসছে দেশটি। তেহরানের দাবি, বহু ইরানি নাগরিককে অন্যায়ভাবে বন্দি রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। যদিও ওয়াশিংটনের দাবি এদের বেশিরভাগকে আটক করা হয়েছে ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের অভিযোগে।

পাল্টাপাল্টি এসব অভিযোগের মধ্যে সোমবার ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেন, ‘নিজ দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করতে প্রত্যাখ্যান করায় যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে বহু ইরানি নাগরিক বন্দি রয়েছে। আমরা সবার জন্য এবং কারাগারে থাকা সব বন্দিকে বিনিময় করতে প্রস্তুত। আমি আবারও বলছি আমরা সব বন্দি বিনিময় করতে পারি। পর্যায়ক্রমে।’

এর আগে এবছরের জুনে দেশে ফেরেন ২০১৮ সাল থেকে ইরানে আটক মার্কিন নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা মাইকেল হোয়াইট। এর বিনিময়ে তেহরানে ফেরার অনুমতি পান ইরানিয়ান-আমেরিকান চিকিৎসক মাজিদ তাহেরি। তাছাড়াও ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে আরেক দফা বন্দি বিনিময় করে ওয়াশিংটন ও তেহরান। সেসময় গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তিন বছর ধরে আটক মার্কিন নাগরিক জিউয়ে ওয়ানকে মুক্তি দেয় ইরান। আর বিনিময়ে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের অভিযোগে আটক ইরানি নাগরিক মাসুদ সোলাইমানিকে মুক্তি দেয় ওয়াশিংটন।

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ