X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

‘শাবি উপাচার্যের সঙ্গে সংহতি জানানো উপাচার্যরা পদত্যাগ করুক’

আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:২০

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি জানিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। তিনি বলেন, শাবি উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে যে আন্দোলন শিক্ষার্থীরা চালিয়ে যাচ্ছেন আমরা তার সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করছি। আমি চাই শাবি উপাচার্যের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে উপাচার্যরা পদত্যাগ করুক, তাদের ইচ্ছার বাস্তবায়ন হোক। 

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে জাবির শহীদ মিনারের পাদদেশে শাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন জাবির একদল শিক্ষক। ওই কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। 

এসময় জাবির সাধারণ শিক্ষার্থী ও বামপন্থী রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা শিক্ষকদের সঙ্গে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন।

তিনি আরও বলেন, যে সমস্যা সমাধানের দাবিতে শাবি শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করেছিল, তেমন সমস্যা দেশের  প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। এ সমস্যা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েও আছে। এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাইনিং হলের খাবার খেয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা যে পুষ্টি পায় তার মান ‘চরম দারিদ্র্য সীমার নিচে’। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি কমিশনের কাছে দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের যে ভূমিকা, বিশেষত ঠিকাদার প্রকল্পের ভূমিকায় উপাচার্যরা আসলেই কী কাজ করেছেন, শিক্ষার পক্ষে আর বিপক্ষে কী করেছেন, সেই চিত্রটাও মানুষের সামনে উপস্থিত করা প্রয়োজন। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আনোয়ারুল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, শাবির উপাচার্যকে টিকিয়ে রাখার জন্য শিক্ষামন্ত্রী বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছেন, অথচ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার মান, গবেষণা কীভাবে আন্তর্জাতিক মানের করা যায় সে বিষয়ে বর্তমান শিক্ষামন্ত্রীকে কখনও কিছু বলতে শোনা যায়নি। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বৈরতন্ত্র, দুর্বৃত্তায়ন, দুর্নীতি চলছে। এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী কোনও পদক্ষেপ নেননি।

শাবি শিক্ষার্থীদের লড়াকু মানসিকতার জয়ের জন্য প্রয়োজনে প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে বলে জানান তিনি।

নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মির্জা তাসলিমা সুলতানা বলেন, ১৬০ ঘন্টারও বেশি শাবি শিক্ষার্থীরা অনশন করেছেন, কেউ তাদেরকে হঠাতে পারেনি। কিন্তু রাষ্ট্রযন্ত্র যত ধরনের ভয়-ভীতি দেখানো দরকার সবই করেছে, তাও তাদেরকে কেউ হঠাতে পারেনি। সাবেক শিক্ষার্থীরা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সমর্থন জানিয়ে মাত্র এক হাজার করে টাকা দেওয়ায় পাঁচ জনকে আটক করা হয়েছে, তাও কেউ তাদের হঠাতে পারেনি। প্রতিটা আন্দোলনেই অর্থের প্রয়োজন হয়। স্বাধীনতা-স্বদেশি আন্দোলনেও অর্থের যোগান দেওয়া হয়েছিল, রাজনৈতিক সংগঠন চলার জন্যও অর্থের প্রয়োজন হয়। কিন্তু বর্তমান সরকার যে কোনও আন্দোলনে ভীত হয়ে পড়ে, তাই কীভাবে তাদের আটকানো যায় সব ধরনের চেষ্টাই চালায়।

নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, একটা সময় ছিল, যখন ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢুকতো, তখন উপাচার্যরা সরকারকে জানাতো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন-তখন পুলিশ ঢুকতে পারবে না। কিন্তু বর্তমানে দেখা যায়, উপার্যকে রক্ষা করার জন্য পুলিশ এবং সরকারের পেটোয়া বাহিনী ছাত্রলীগ সবার আগে থাকে। এতকিছুর পরও শাবির শিক্ষার্থীরা আন্দোলন জারি রাখতে পেরেছে এটাই সফলতা।

এ সময় নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান সুমন, নাটক ও নাট্যতত্ত¡ বিভাগের অধ্যাপক জীবন খন্দকার, অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শরমিন্দ নীলোর্মি প্রমুখ বক্তব্য দেন।

/টিটি/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
এসডিজি অর্জনে ‘মাই কনস্টিটিউয়েন্সি’ অ্যাপ কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে: স্পিকার
এসডিজি অর্জনে ‘মাই কনস্টিটিউয়েন্সি’ অ্যাপ কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে: স্পিকার
কারাগারে বন্দির সঙ্গে দেখা করতে এসে আটক নারী
কারাগারে বন্দির সঙ্গে দেখা করতে এসে আটক নারী
বঙ্গবন্ধু কেমিক্যাল মেট্রোলজি অলিম্পিয়াডে দেশসেরা শাবির রিফাত
বঙ্গবন্ধু কেমিক্যাল মেট্রোলজি অলিম্পিয়াডে দেশসেরা শাবির রিফাত
পিবিআই’র তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার নির্দেশ হাইকোর্টের
পিবিআই’র তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার নির্দেশ হাইকোর্টের
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় কঠোর ব্যবস্থা: জাবি ভিসি
র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় কঠোর ব্যবস্থা: জাবি ভিসি