X
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
১১ আশ্বিন ১৪২৯

পদ্মা সেতুর ব্যয় বেড়েছে তিনগুণ

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০৯ ডিসেম্বর ২০২০, ২০:৩৮আপডেট : ১০ ডিসেম্বর ২০২০, ০০:০১

পদ্মা সেতু (ছবি: ফোকাস বাংলা) স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণের সময় ও ব্যয় দুটোই বেড়েছে। শুরুতে এর ব্যয় ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা ধরা হলেও সর্বশেষ তা তিনগুণ বেড়ে এর ব্যয় আপাতত দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকায়। অপরদিকে নকশা প্রণয়ন শুরুর পর ২০১৩ সালে সেতু চালুর ঘোষণা থাকলেও নানা জটিলতায় তা বারবারই পেছাতে হয়েছে। অবশেষে স্বপ্নের এই সেতু জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২২ সালের মার্চে। অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, ২০০৭ সালে ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা সেতু প্রকল্প একনেকে অনুমোদন পেলেও বর্তমানে এটির ব্যয় ৩০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। সূত্র জানায়, ২০০৭ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি একনেকে শুরুতে পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নের পর ২০১৩ সালে সেতু চালুর ঘোষণা থাকলেও পরবর্তীতে নির্মাণের ঠিকাদার নিয়োগের পর ২০১৮ সালের মধ্যে চালুর সিদ্ধান্ত হয়। সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে ২০২১ সালের ডিসেম্বরেও সেটি হচ্ছে না। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, ২০২২ সালের মার্চে পদ্মা সেতু জনসাধারণের যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, ২০১১ সালে প্রথম প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধনের পর পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় দাঁড়ায় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে এ প্রকল্পটি সংশোধন না করে ব্যয় বাড়িয়ে করা হয় ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা। চলতি ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত মূল সেতুর অগ্রগতি ৯১ ভাগ, নদী শাসন ৭৬ আর সার্বিক অগ্রগতি ৮২ দশমিক ৫ শতাংশ।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৪ সালে। এরপর প্রথম স্প্যান বসানো হয়েছিল ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। এরপর নানা চ্যালেঞ্জ নিয়ে ধাপে ধাপে স্প্যান বসতে থাকে। শুরুর দিকে একেকটি স্প্যান বসানো হয়েছে কয়েক মাসের ব্যবধানে। পরে অবশ্য দ্রুতই বসতে থাকে সেতুর স্প্যান। পাশাপাশি অভিজ্ঞতাও বাড়তে থাকে প্রকৌশলীদের। এ কারণেই শেষ দিকের স্প্যান বসাতে সময় কম লেগেছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ২০০৭ সালে একনেক ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পটি অনুমোদন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে কয়েক দফা নকশা পরিবর্তনে এর দৈর্ঘ্য ও ব্যয় বাড়তে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকার উন্নীত করে এর সংশোধিত প্রকল্প একনেকে অনুমোদন পায়। ২০১৬ সালে আবারও ৮ হাজার ২৮৬ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ে। এর ফলে প্রকল্পের মোট ব্যয় দাঁড়ায় ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। সর্বশেষ আরও ১৪শ কোটি টাকা বেড়ে তা ৩০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

সেতু বিভাগ জানিয়েছে, প্রকল্পের মূল ডিপিপি’তে ১ হাজার ৫৩০ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণের জন্য ব্যয় ধরা ছিল ১ হাজার ২৯৯ কোটি টাকা। কিন্তু মোট ভূমি অধিগ্রহণ করতে হয়েছে ২ হাজার ৬৯৮ হেক্টর। অতিরিক্ত জমি বাবদ মোট ব্যয় প্রয়োজন হয়েছে ২ হাজার ৬৯৯ কোটি টাকা। এসব কারণেই পদ্মা সেতু প্রকল্পে ভূমিসহ অধিগ্রহণ বাবদ আরও এক হাজার ৪০০ কোটি টাকা প্রয়োজন হয়েছিল।

এদিকে পঞ্চমবারের মতো সময় বাড়ানোর কারণে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে বিজয়ের ৫০তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে উদ্বোধন সম্ভব হচ্ছে না। তাই নতুন উদ্বোধন লক্ষ্য ২০২২ সালের মার্চে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে। করোনা, বন্যা, পাইলিং জটিলতাসহ নানা কারণে সেতুটির নির্মাণ সময় ৫ দফা বেড়েছে। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর প্রথম স্প্যান বসলেও পুরো ৪১টি স্প্যান বসানোর কাজ শেষ করতে সময় লাগলো ৩ বছর তিন মাস।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, কয়েক দফা নকশা পরিবর্তনের ফলে সেতুর দৈর্ঘ্য বেড়েছে। এতে ব্যয় বেড়েছে। অপরদিকে শেষ দিকে সেতুর জন্য বাড়তি কিছু জমি অধিগ্রহণ করতে হয়েছে। তাতেও বেড়েছে সেতুর নির্মাণ ব্যয়। আর নকশা পরিবর্তন হলে সেতুর দৈর্ঘ্য বাড়লে সময় তো বাড়বেই। এছাড়া এ বছর করোনোর কারণেও সেতুর কাজ অনেকটাই বাধাগ্রস্ত হওয়ায় সময় বেড়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

/এসআই/এমআর/এমওএফ/
সম্পর্কিত
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
রঙিন খোয়াব দেখে লাভ নেই, বিএনপিকে ওবায়দুল কাদের
রঙিন খোয়াব দেখে লাভ নেই, বিএনপিকে ওবায়দুল কাদের
পারমাণবিক ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগের দাবি রাশিয়ার
পারমাণবিক ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগের দাবি রাশিয়ার
ড্যাপ নিয়ে অসত্য তথ্য দিলে নিন্দা জানাবে রাজউক
ড্যাপ নিয়ে অসত্য তথ্য দিলে নিন্দা জানাবে রাজউক
অক্টোবর থেকে কলড্রপে টকটাইম ফেরত
অক্টোবর থেকে কলড্রপে টকটাইম ফেরত
এ বিভাগের সর্বশেষ
ড্রাইভিং লাইসেন্স দিতে দীর্ঘসূত্রিতা, সংসদীয় কমিটির অসন্তোষ
ড্রাইভিং লাইসেন্স দিতে দীর্ঘসূত্রিতা, সংসদীয় কমিটির অসন্তোষ
রোহিঙ্গা ইস্যুতে সহায়তা করবে চীন
রোহিঙ্গা ইস্যুতে সহায়তা করবে চীন
বিদেশি পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুললো বাংলাদেশ
বিদেশি পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুললো বাংলাদেশ
সাজেদা চৌধুরীর আসনে ভোট ৫ নভেম্বর
সাজেদা চৌধুরীর আসনে ভোট ৫ নভেম্বর
ই-নামজারিতে কেন ৭২ দিন লাগছে জানতে চায় সরকার
ই-নামজারিতে কেন ৭২ দিন লাগছে জানতে চায় সরকার