X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

দ্বীপের নাম ‘চর মুজিব’

আপডেট : ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ৮ ডিসেম্বরের ঘটনা।)

 

নোয়াখালী জেলার উপকূলবর্তী চর এলাকার জনগণ একটি চরের নাম বদলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামানুসারে রাখে ‘চর মুজিব’। বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভালোবাসা শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা নিদর্শনস্বরূপ তারা এ নামকরণ করেছে বলে জানায়। চরের গুচ্ছগ্রামের জনগণ এ নামকরণ করতে পেরে আনন্দিত।

উল্লেখ্য, এ বছরের প্রথম দিকে গুচ্ছগ্রামের আটশ’ ভূমিহীন কৃষকের মধ্যে জমি বণ্টন করা হয়। সবাই পেয়েছে আড়াই একর করে। এতে থাকবে বাড়ি, পুকুর, সাধারণ খেলার মাঠ, গোচারণভূমি, মসজিদ ও জরুরি আশ্রয় কেন্দ্র। আরও উল্লেখ্য যে, সে বছর গ্রামের ফসলের ভালো ফলনও হয়েছিল।

 

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে রুশ প্রস্তাব গৃহীত

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে একটি সোভিয়েত প্রস্তাব গৃহীত হয়। প্রস্তাবটিতে শান্তি পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য রাষ্ট্রকে তাদের সামরিক বাজেট শতকরা দশভাগ হ্রাস করার এবং এতে যে অর্থ বাঁচবে তার একটি অংশ উন্নয়নশীল দেশগুলোকে অর্থনৈতিক সাহায্য দান বাবদ ব্যয় করার আহ্বান জানানো হয়।

চীন ও আলবেনিয়া প্রস্তাবটির বিপক্ষে ভোট দেয়। এর আগে সাধারণ পরিষদে প্রস্তাব দিলে তার ওপর আলোচনার সময় চীনের প্রতিনিধি প্রস্তাবের নিন্দা করে বলেন এটা একটা ধাপ্পাবাজি এবং ভন্ডামি।

প্রস্তাবটির ওপর ভোট গৃহীত হওয়ার পর সোভিয়েত প্রতিনিধি অভিযোগ করেন, চীনের বিরোধিতা থেকে এটাই প্রমাণিত হয় যে, পিকিং উন্নয়নশীল দেশগুলোর স্বার্থের বিরুদ্ধে। অথচ উন্নয়নশীল দেশগুলো নিজেদের স্বার্থের কথা ভেবেই সোভিয়েত প্রস্তাবটিকে সমর্থন করেছে।

দৈনিক বাংলা, ৯ ডিসেম্বর ১৯৭৩

আকস্মিক সফরে বঙ্গবন্ধু দেখেন কোটি টাকার সামগ্রী অযত্নে

বন্দরনগরে আকস্মিক সফরে গিয়ে বঙ্গবন্ধু দেখেন কোটি টাকার সামগ্রী অযত্নে ফেলে রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু দেশের সশস্ত্র বাহিনীর হাতে চট্টগ্রাম বন্দর এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্বভার হস্তান্তরের নির্দেশ দেন।

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই দিন সকালে এক আকস্মিক সফরে চট্টগ্রাম বন্দর পরিদর্শন করেন।

রাজধানী ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু চট্টগ্রাম বন্দরে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিশেষ হেলিকপ্টারে। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ছিলেন যোগাযোগমন্ত্রী মনসুর আলী, তথ্য ও বেতার প্রতিমন্ত্রী তাহেরউদ্দিন ঠাকুর এবং সেনা ও নৌবাহিনীর প্রধানরা। বঙ্গবন্ধু চট্টগ্রাম বন্দর এলাকা থেকে চোরাচালানে মাল পাচার এবং চুরি সম্পর্কে ব্যাপক ও চুলচেরা তদন্তের নির্দেশ দেন দুর্নীতি দমন বিভাগ ও প্রধানমন্ত্রীর তদন্তকারী দলকে।

ডেইলি অবজারভার, ৯ ডিসেম্বর ১৯৭৩

ঢাকা থেকে আকস্মিক চট্টগ্রাম বন্দর পরিদর্শনে এসে বন্দরে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে তিনি দেখতে পান বৈদ্যুতিক জেনারেটরের মতো মূল্যবান মেশিনপত্র এবং কেবল খোলা অবস্থায় দীর্ঘদিন অযত্নে পড়ে আছে। বন্দর থেকে এসব মূল্যবান বৈদ্যুতিক জেনারেটর ট্রান্সফর্মার ও কেবল খালাস করে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব ছিল বিদ্যুৎ বোর্ড-এর একজন এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারের। বন্দর এলাকা থেকে বিদ্যুৎ বোর্ড-এর গুদামে সময়মতো সেসব জিনিস সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে উক্ত ইঞ্জিনিয়ারকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এ ছাড়া আরও কয়েকজন অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলেও এই দিনে পত্রিকায় খবর প্রকাশ হয়।

/এফএ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
যাত্রীর পেট থেকে বের হলো ৩ স্বর্ণের বার
যাত্রীর পেট থেকে বের হলো ৩ স্বর্ণের বার
গণকমিশনের আয়-ব্যয়ের অনুসন্ধান করতে হবে: জাপা মহাসচিব
গণকমিশনের আয়-ব্যয়ের অনুসন্ধান করতে হবে: জাপা মহাসচিব
অভিবাসী কর্মীদের নিরাপদ সঞ্চয়ের পথ তৈরি করতে হবে: প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী
অভিবাসী কর্মীদের নিরাপদ সঞ্চয়ের পথ তৈরি করতে হবে: প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী
ইসলামিক ফাউ‌ন্ডেশ‌নের উপপরিচালকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
ইসলামিক ফাউ‌ন্ডেশ‌নের উপপরিচালকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত