X
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২
১৭ আশ্বিন ১৪২৯

বরেন্দ্র এলাকায় সেচ দিতে আড়াইশ’ কোটি টাকার প্রকল্প

শফিকুল ইসলাম
২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২১:২০আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:২৯

দেশের বরেন্দ্র এলাকায় খালে পানি সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। বরেন্দ্র এলাকায় সেচ কাজে ভূ-উপরিস্থ পানির ব্যবহার বাড়াতে একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, দেশের উত্তরাঞ্চলের রাজশাহী, নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৮টি উপজেলা এলাকায় সেচ কাজে ভূ-উপরিস্থ পানির ব্যবহার ১০ শতাংশ থেকে ১২ শতাংশ বাড়াতেই ‘বরেন্দ্র এলাকায় খালে পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে সেচ সম্প্রসারণ-২য় পর্যায়’ শীর্ষক ওই প্রকল্প গ্রহণ করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। ২৪৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। গত ১৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি একনেকে প্রকল্পটি অনুমোদন লাভ করেছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রায় ৩ হাজার ৪৯০ হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা বাড়বে। এলাকার খাল ও পুকুর পাড়ে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য উন্নয়ন করা সম্ভব হবে। সম্পূর্ণ জিওবির অর্থায়নে প্রকল্পটি ২০২৬ সালের জুন নাগাদ রাজশাহী, নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৮টি উপজেলায় বাস্তবায়িত হবে।

কৃষি মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, প্রকল্পের আওতায় ১৭ দশমিক ৮২ লাখ ঘনমিটার খাল, বিল ও পুকুর পুনঃখনন করা হবে। ১৩টি সাবমার্জড ওয়্যার নির্মাণ করা হবে। ১৩২ সেট সোলার পাম্প ক্রয় করে স্থাপন করা হবে। একটি পাইপ হোল্ডিং স্ট্রাকচার নির্মাণ  করা হবে। একটি বক্স কালভার্ট নির্মাণ ও ৫৩ দশমিক ১০ কিলোমিটার পাইপলাইন ডিসমেন্টলিং ও ২২০ দশমিক ৭০ কিলোমিটার পাইপলাইন নির্মাণ এবং ২ দশমিক ৩০ কিলোমিটার রাস্তা পুনর্নির্মাণ করা হবে।       

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানায়, প্রকল্পটি ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপিতে (বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি)  বরাদ্দবিহীন অননুমোদিত নতুন প্রকল্প তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল।

সরকারের ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় সেচ সাব-সেক্টরের অন্যতম উদ্দেশ্য টেকসই কৃষি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের সঙ্গে প্রকল্পটি সামঞ্জস্যপূর্ণ বলে জানিয়েছে পরিকল্পনা কমিশন।

একনেকে উপস্থাপনের যৌক্তিকতা তুলে ধরে পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে প্রকল্প এলাকায় ভূ-উপরিস্থ পানি সেচ কাজে ব্যবহার করে সেচ সুবিধা এবং কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। এ অবস্থায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতায় বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সম্পূর্ণ জিওবি অর্থায়নে বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাবিত ‘বরেন্দ্র এলাকায় খালে পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে সেচ সম্প্রসারণ-২য় পর্যায়’ শীর্ষক প্রকল্পটি জুলাই ২০২২ থেকে মার্চ ২০২৭ মেয়াদে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একনেকের অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, বছরের একটা সময় বরেন্দ্র এলাকায় পানির অভাবে কৃষিকাজ বাধাগ্রস্ত হয়। এতে ফসলের উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। খাদ্য নিরাপত্তার ঝুঁকি বাড়ে। এ কারণেই শুষ্ক মৌসুমে পানির সরবরাহ নিশ্চিত করতে এ প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছে। এতে দেশবাসী উপকৃত হবেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রায় ৩ হাজার ৪৯০ হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা বাড়বে।

/এমআর/এমওএফ/
সম্পর্কিত
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
মিডিয়া পাড়ায় দেবীর পদধ্বনি
মিডিয়া পাড়ায় দেবীর পদধ্বনি
টেকনাফ-সেন্টমার্টিন জাহাজ চলাচল বন্ধ
টেকনাফ-সেন্টমার্টিন জাহাজ চলাচল বন্ধ
ইউরোপীয় ইউনিয়নের ব্রেকফাস্ট মিটিংয়ে জিএম কাদের
ইউরোপীয় ইউনিয়নের ব্রেকফাস্ট মিটিংয়ে জিএম কাদের
মাহশা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে কানাডা-যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ
মাহশা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে কানাডা-যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ
এ বিভাগের সর্বশেষ
সীমান্তে ৫৮৮ কেজি বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার হয়েছে সেপ্টেম্বরে
সীমান্তে ৫৮৮ কেজি বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার হয়েছে সেপ্টেম্বরে
র‌্যাব সংস্কারের মধ্যেই আছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
র‌্যাব সংস্কারের মধ্যেই আছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
নির্বাচনকে টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার শঙ্কা কাদেরের
নির্বাচনকে টার্গেট করে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার শঙ্কা কাদেরের
প্রধানমন্ত্রী নিজস্ব অর্থে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা করে যাচ্ছেন : কৃষিমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী নিজস্ব অর্থে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা করে যাচ্ছেন : কৃষিমন্ত্রী
বাংলাদেশের প্রশংসায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি
বাংলাদেশের প্রশংসায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি