দেবীর আগমনে মণ্ডপে প্রাণ জেগেছে

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০০:২৬, অক্টোবর ০৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:৩৯, অক্টোবর ০৫, ২০১৯

দুর্গাষষ্ঠীতে দেবীর আগমনে প্রাণ জেগেছে মণ্ডপে মণ্ডপে। ভক্তরা দেবীর মর্ত্যলোকে আগমনকে গানে গানে এবং ঢাকের শব্দে ও উলুধ্বনিতে স্বাগত জানিয়েছে। শুক্রবার (৪ অক্টোবর) রাজধানীর কলাবাগান, খামার বাড়ি এবং কাওরানবাজার এলাকার পূজামণ্ডপে ঘুরে এমনটাই দেখা গেছে।
দেবী দুর্গার আগমনের বার্তা এসেছে মহালয়ার মাহেন্দ্রক্ষণ থেকেই। এরপর শুক্রবার বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হলো হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গা পূজা। সারাদেশে প্রায় ৩২ হাজার মণ্ডপে এবার পূজা অনুষ্ঠিত হবে। শুধু ঢাকা মহানগরীতেই পূজা হবে ২৩৭টি মণ্ডপে। মঙ্গলবার বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে এবারের দুর্গোৎসব শেষ হবে। একটি বছরের জন্য ‘দুর্গতিনাশিনী’ দেবী ফিরে যাবেন কৈলাসে দেবালয়ে।

বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বোধনের মাধ্যমে এবারের দুর্গোৎসবের আচার পর্ব শুরু হয়। শুক্রবার (৪ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টায় শুরু হওয়া বন্দনা পূজার সমাপন হয় বিহিত পূজায়। আবাহনের মাধ্যমে মূল মণ্ডপে দেবী আসীন হওয়ার পর সন্ধ্যায় দেবীর অধিবাস।

শুক্রবার সন্ধ্যা কলাবাগান মণ্ডপে হাজির হন ঢাকা ১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নুর তাপস। ফিতা কেটে ও প্রদীপ জ্বালিয়ে সেখানকার অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন তিনি। এ সময় তাকে মিষ্টি মুখ করিয়ে দেওয়া হয়। ফজলে নুর তাপস বলেন, খুব সুন্দর পরিবেশে এখানে পূজা উদযাপন করা হয়। আমি সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা আবারও বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এবং সবাই মিলে সব উৎসব সুন্দরভাবে করার পরিবেশ আমাদেরকে করে দিয়েছেন। এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। এ সময় কলাবাগান পূজামণ্ডপে দর্শকদের উপচেপড়া ভিড় দেখা যায়।

সন্ধ্যায় খামার বাড়ি পূজা মণ্ডপের উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এ সময় তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে পূজা উদযাপনের অগ্রগতি হয়েছে। আমরা যখন প্রথম ক্ষমতায় (২০০৮) আসি, তখন সারাদেশে পূজামণ্ডপ ছিল ২০ থেকে ২২ হাজার। কিন্তু এরপর থেকে বছরে অন্তত এক হাজার করে পূজামণ্ডপ বাড়ছে। সারাদেশে এখন ৩৩ হাজার মণ্ডপে পূজা উদযাপন হচ্ছে। ঢাকাতেও পূজামণ্ডপ বেড়েছে।

নিজ হাতে ঢাক বাজিয়ে এবং নেচে সার্বজনীন দুর্গা উৎসবে শামিল হয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। শুক্রবার রাতে রাজধানীর কাওরানবাজারে মিডিয়াপাড়া সার্বজনীন দুর্গা উৎসবে উপস্থিত হয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তিনি। মেয়র আতিক রাত সাড়ে ৯টায় কাওরানবাজারের পূজামণ্ডপে পৌঁছান। শুভেচ্ছা বিনিময়ের এক পর্যায়ে গানের তালে তালে নিজেই ঢুলির কাছ থেকে ঢাক চেয়ে নেন। গলায় ঢাক ঝুলিয়ে নিজেই গানের তালে তালে বাজাতে থাকেন। এ সময় সবাই তার এই উচ্ছাস দেখে বসা থেকে উঠে এসে তাঁর সঙ্গে আনন্দ উদযাপনে যুক্ত হয়।

উল্লেখ্য, শনিবার সকাল ১০টায় নবপত্রিকা প্রবেশ ও স্থাপনের পর শুরু হবে মহাসপ্তমীর পূজা। রবিবার মহাঅষ্টমী পূজা, সেদিন হবে সন্ধিপূজা। রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠে হবে কুমারী পূজা। সোমবার সকালে বিহিত পূজার মাধ্যমে হবে মহানবমী পূজা। মঙ্গলবার সকালে দর্পণ বিসর্জনের পর প্রতিমা বিসর্জনের মাধ্যমে শেষ হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা। সেদিন বিকাল ৩টায় রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দির থেকে বের হবে মূল শোভাযাত্রা। পরে নগরীর ওয়াইজঘাট, তুরাগ, ডেমরা, পোস্তগোলা ঘাটে হবে প্রতিমা বিসর্জন। সারাদেশে মঙ্গলবার রাত ১০টার মধ্যে নিরঞ্জন (প্রতিমা বিসর্জন) শেষ করার নির্দেশনা দিয়েছে পূজা উদযাপন পরিষদ।

এ বছর সারাদেশে ৩১ হাজার ৩৯৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন হয়েছে, যা গতবারের চেয়ে ৪৮৩টি বেশি। রাজধানীতে ২৩৬টিসহ ঢাকা বিভাগে ৭ হাজার ২৭১টি মণ্ডপে এবার পূজা হবে। এছাড়া চট্টগ্রামে ৪ হাজার ৪৫৬টি, সিলেটে ২ হাজার ৫৪৫টি, খুলনায় ৪ হাজার ৯৩৬টি, রাজশাহীতে ৩ হাজার ৫১২টি, রংপুরে ৫ হাজার ৩০৫টি, বরিশালে ১ হাজার ৭৪১টি, ময়মনসিংহে ১ হাজার ৬৩২টি মণ্ডপে এবার দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। ছবি: সাজ্জাদ হোসেন

/এসও/এমপি/

লাইভ

টপ