X
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪
১১ আষাঢ় ১৪৩১

কয়েকটি দেশেই আটকে আছে সম্ভাবনাময় শ্রমবাজার

সাদ্দিফ অভি
০৪ মে ২০২৪, ২২:৩০আপডেট : ০৪ মে ২০২৪, ২২:৩০

ঝিনাইদহের মনসুর আলী গত বছরের ডিসেম্বরে কাজের উদ্দেশে সৌদি আরব যান তথাকথিত ‘ফ্রি’ ভিসায়। তবে নগদ টাকায় ভিসা কিনে গেলেও কাজের সন্ধান পাননি এখনও। ভিসা কিনতে তার খরচ হয়েছে প্রায় ৬ লাখ টাকা। তিনি জানান, সৌদি আরবে ‘ফ্রি’ ভিসা কিনে কাজ পাচ্ছেন না, এমন অনেক বাংলাদেশি আছেন। মনসুর আলী বলেন,  দেশ থেকে প্রতি দিনই সৌদি আরবে আসছেন চাকরি প্রত্যাশীরা, কিন্তু কাজ নেই। তাদেরকে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। কেউ কেউ আবার দালাল ধরে অন্য দেশে পাড়ি দিচ্ছেন।

সরকারি তথ্যমতে, বিশ্বের ১৬৮টি দেশে বাংলাদেশি কর্মী যায়। তবে এর মধ্যে মাত্র ৮-১০টি দেশে নিয়মিত কর্মী যায়। জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) পরিসংখ্যান বলছে, বিদেশে পাঠানো মোট কর্মীর ৯৭ শতাংশ যান মাত্র ১০টি দেশে। গত পাঁচ বছরে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, কাতার, জর্ডান, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, ব্রুনাই, মরিশাস এবং ইউরোপের কয়েকটি দেশে কর্মী গেছেন অধিকহারে। 

বিদেশে বাংলাদেশি কর্মীর সংখ্যা কত, সেই হিসাব কারও কাছে না থাকলেও কতজন কর্মীকে বিদেশে কর্মসংস্থানের ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে— সেই হিসাব আছে জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) কাছে। বিএমইটির তালিকায় থাকা দেশের মধ্যে ১৬৮টি দেশের মধ্যে ৩১টি দেশে কোনও কর্মী যায়নি গত পাঁচ বছরে।

১৯৭৬ সাল থেকে বিদেশে কর্মী পাঠানোর তথ্য পাওয়া যায় বিএমইটি’র কাছে। গত ৪৮ বছরে ১ কোটি ৬০ লাখ ৭৫ হাজারেরও বেশি কর্মীর ক্লিয়ারেন্স ইস্যু করেছে সরকারি এই সংস্থাটি। এর মধ্যে শীর্ষে আছে সৌদি আরব। মোট কর্মসংস্থানের প্রায় ৩৬ শতাংশ গেছে দেশটিতে। কয়েক বছর ধরে এটি আরও বেড়েছে। সর্বশেষ গত পাঁচ বছরের তথ্য বলছে— দেশ ছেড়ে কাজে যাওয়া প্রায় ৫৫ শতাংশ কর্মীর গেছেন সৌদি আরবে। 

সৌদি আরবের পর বেশি সংখ্যক বাংলাদেশি গেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। মোট অভিবাসনের ১৬ শতাংশ গেছে এই দেশে। তৃতীয় অবস্থানে আছে ওমান এবং তারপরে আছে মালয়েশিয়া। বর্তমানে ওমানে কর্মী পাঠানো বন্ধ রয়েছে। তথ্য বলছে, বাংলাদেশি মোট অভিবাসীর মধ্যে  পাঁচ শতাংশ কর্মী গেছেন সিঙ্গাপুর এবং কাতারে।

বৈদেশিক কর্মসংস্থানের তথ্য বলছে, প্রতি বছর গড়ে ১০ হাজারের বেশি কর্মী গেছে এমন দেশ আছে ৮টি। এই দেশগুলো হচ্ছে— সৌদি আরব, ওমান, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সিঙ্গাপুর, কাতার, কুয়েত ও জর্ডান। এর মধ্যে ছয়টি দেশই মধ্যপ্রাচ্যের। এর বাইরে ইতালি ও রোমানিয়ায় দুই বছর ধরে কর্মী যাওয়া বেড়েছে। আর বছরে গড়ে পাঁচ হাজারের বেশি কর্মী পাঠানো হয়েছে, এমন দেশ আছে মোট ১৭টি। 

মধ্যপ্রাচ্যের কোনও দেশে অধিক হারে কর্মী যাওয়া কমে গেলেই জনশক্তি রফতানি খাতের ওপরে নেতিবাচক পড়ে।  বিগত টানা চার বছর বন্ধ থাকায় কোনও কর্মী যেতে পারেনি আরব আমিরাতে। গত দুই বছর ধরে দেশটিতে কর্মী যাওয়া বেড়েছে। ২০২৩ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশিদের জন্য ভিসা বন্ধের ঘোষণা দেয় ওমান। মালদ্বীপে এক সময় নিয়মিত কর্মী যেত। অবৈধ কর্মীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় দেশটির শ্রমবাজার বন্ধ করে দেওয়া হয় বিদেশিদের জন্য। ফলে গত চার বছর ধরে সেখানে নতুন করে বাংলাদেশি কোনও কর্মী পাঠানো যায়নি। চলতি বছর থেকে আবারও মালদ্বীপে কর্মী পাঠানো শুরু হয়েছে। তবে দুই বছর ধরে মালয়েশিয়ায় কর্মী যাচ্ছে। এর মধ্যে গত বছরই গেছে সাড়ে তিন লাখের বেশি। এর আগে টানা ২০১৮ সাল থেকে দেশটির শ্রমবাজার বন্ধ ছিল।

বিএমইটির পক্ষ থেকে ৫৩টি দেশের শ্রমবাজারে কর্মী পাঠানোর সম্ভাবনা নিয়ে একটি গবেষণা করা হয়েছে ২০১৮ সালে। যদিও অনেক বছর ধরে নতুন কোনও শ্রমবাজার তৈরি করতে পারছে না সরকার। গত দেড় দশকে ৯৭টি দেশ থেকে বাড়িয়ে ১৬৮টি দেশে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে সরকার। এর মধ্যে বেশিরভাগ দেশেই কর্মী যাচ্ছে হাতে গোনা। অভিবাসন খাত সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, নতুন সম্ভাবনাময় বাজার ধরতে না পারলে বড় ধরনের ঝুঁকিতে পড়বে দেশের অভিবাসন খাত।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) তথ্য বলছে, উপসাগরীয় দ্বীপ রাষ্ট্র বাহরাইনে ২০২০ সালের আগে বাংলাদেশ থেকে মাঝারি আকারে লোকবল নেওয়া হলেও ২০২৩ সালে তা কমে দাঁড়িয়েছে ১ জনে। এর ফলে দেশের রেমিট্যান্সের পরিমাণেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ২০১৬ সালে বাহরাইনে বাংলাদেশ থেকে অভিবাসীর গিয়েছিল ৭২ হাজার ১৬৭ জন, কিন্তু এরপর ধীরে ধীরে বাংলাদেশ থেকে বাহরাইনে অভিবাসন ব্যাপকভাবে হ্রাস পেতে শুরু করে। বিএমইটি-এর তথ্যমতে, দেশটিতে চাহিদাপত্র না থাকার ফলে অভিবাসন সম্ভব হচ্ছে না।

অভিবাসন বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশের দেড় কোটির বেশি মানুষ অভিবাসী হিসেবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বৈধভাবে স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদে কাজ করছেন। তাদের মধ্যে মাত্র শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ ইতালি ও শূন্য দশমিক ১৩ শতাংশ যুক্তরাজ্যে আছেন। বাকিদের মূল গন্তব্য মধ্যপ্রাচ্য ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশ। বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয় চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকের আওতায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ বৈধ পথে জনশক্তি পাঠাচ্ছে— যা সংখ্যার দিক থেকে নগণ্য। বাংলাদেশের সঙ্গে ইতালি ও গ্রিসের সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। রোমানিয়া, কসোভো ও বসনিয়ার সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনা চলছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, দ্বিপক্ষীয় চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক সই হলেও অনেক ক্ষেত্রে এর নানা শর্ত বাংলাদেশ পূরণ করতে পারছে না।

সেন্টার ফর মাইগ্রেশন স্টাডিজের সদস্য এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন সিকদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সরকারি-বেসরকারি খাতে বাংলাদেশের শ্রমবাজার নিয়ে দেশে ও বিদেশে যেসব গবেষণা হয়, তা প্রয়োজনের তুলনায় সামান্য। ফলে ইউরোপে বিভিন্ন খাতে দক্ষ বাংলাদেশি শ্রমিকদের চাহিদা ঠিক কতখানি এবং ভবিষ্যতে এই চাহিদার কোনও পরিবর্তন হবে কিনা, এ সম্পর্কে আমাদের কাছে পরিষ্কার কোনও ধারণা নেই।’

তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে আমাদের নিজস্ব গবেষণার বিকল্প নেই। ইউরোপের বাজারে দক্ষ শ্রমশক্তির ব্যাপক চাহিদা। প্রতিবেশী ভারত থেকে প্রচুর জনশক্তি ইউরোপের দেশগুলোতে গেলেও বাংলাদেশ থেকে এই সংখ্যা নগণ্য। কারণ, আমাদের রয়েছে দক্ষ জনশক্তির অভাব। আমাদের দেশে কারিগরি শিক্ষা ভালোভাবে গড়ে ওঠেনি বলে এই অবস্থা। আবার কারিগরি শিক্ষার প্রতি অভিভাবকদের দৃষ্টিভঙ্গিও অনেকাংশে দায়ী।’

ব্র্যাকের সহযোগী পরিচালক শরিফুল হাসান বলেন, ‘একটা দেশে নিয়মিতভাবে নির্দিষ্ট সংখ্যায় কর্মীরা গেলেই সে দেশকে শ্রমবাজার বলা যায়। সে হিসাবে মধ্যপ্রাচ্য এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া মিলে ১৫-২০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের শ্রমবাজার সীমাবদ্ধ।’

তিনি বলেন, ‘বছরের পর বছর ধরে কোয়ালিটির দিকে নজর না দিয়ে কর্মীর সংখ্যায় নজর দেওয়া হয়েছে। ইউরোপের কোনও একটা দেশে হয়তো ২০ লাখ লোক পাঠানো যাবে না। কিন্তু সেখানে যদি ২ লাখ কর্মী পাঠানো যায়, তাহলে সে দেশ থেকে যে প্রবাসী আয় আসবে, তা মধ্যপ্রাচ্যে ৭-৮ লাখ লোক পাঠানোর তুলনায় কম নয়।’

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রুহুল আমিন বলেন, ‘অভিবাসন একটি জটিল ইস্যু। এটা একক দেশের ওপর নির্ভর করে না। অনেক জটিলতা থাকলেও সেগুলো সুরাহা করে আমাদের কাজ করতে হয়। জর্ডানের সঙ্গে যেকোনও সময় এমওইউ সই হতে পারে বলে দুপক্ষই একমত হয়েছি। মরিশাসের সঙ্গেও প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে আছে, মাল্টার সঙ্গেও কার্যক্রম চলছে।’

রুহুল আমিন জানান, আপাতত এগুলো নিয়ে আমাদের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে গত তিন-চার মাসে। এছাড়া রাশিয়াতে দক্ষ কর্মী পাঠানো এরইমধ্যে সীমিত আকারে শুরু হয়েছে। আশা করছি, ভবিষ্যতে রাশিয়া আমাদের জন্য একটি ভালো বাজার হবে।’

তিনি বলেন, ‘ব্রুনেইয়ে অনেক দিন কর্মী পাঠানো বন্ধ থাকার পর আবার শুরু হচ্ছে। কর্মী পাঠাতে একটা চাহিদাপত্রও পেয়েছি। মরিশাসে বন্ধ থাকলেও সেটা চালু হবে। কুয়েতে কর্মী পাঠানো বন্ধ হয়ে গেছে। তবে নার্স পাঠানোর কার্যক্রম অনেকখানি এগিয়ে গেছে। তারা আমাদের কাছে নার্সের জন্য চাহিদা পাঠিয়েছে। আমরাও প্রয়োজনীয় উপাত্ত পাঠিয়েছি, যারা নার্সিংয়ে গ্র্যাজুয়েট কিংবা ডিপ্লোমা করা আছেন, তাদের মধ্যে যেতে যারা আগ্রহী, সরকারিভাবে স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সহযোগিতায় তাদের তথ্য আমরা পাঠিয়েছি। আশা করছি, কুয়েতে আমরা নার্স পাঠাতো পারবো।’

বিএমইটি’র তথ্য বলছে, ২০২৩ সালে বাংলাদেশ রেকর্ড ১৩ লাখের বেশি কর্মী বিদেশে গেছেন। এর মধ্যে দক্ষ কর্মী অভিবাসনের হার ছিল প্রায় ২৫ শতাংশ এবং অদক্ষ শ্রমিক প্রায় ৫০ শতাংশ। আগের বছর গেছেন ১১ দশমিক ৩৫ লাখ। তার মধ্যে দক্ষ কর্মী ছিল প্রায় আড়াই লাখ।

/এপিএইচ/
সম্পর্কিত
মালয়েশিয়া যেতে না পারাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে: সংসদে প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী
ফিরতি ২০ ফ্লাইটে দেশে ফিরেছেন ৭ হাজার ৪১৪ হাজি
হজ শেষে দেশে ফিরেছেন প্রায় ৪ হাজার হাজি
সর্বশেষ খবর
কেনিয়ায় বিক্ষোভ: পার্লামেন্টের ভেতর পুলিশের গুলিতে নিহত ১০
কেনিয়ায় বিক্ষোভ: পার্লামেন্টের ভেতর পুলিশের গুলিতে নিহত ১০
নারী-শিশুর স্বাস্থ্যসেবায় সহায়তা দেবে ইউনিসেফ ও ইউএনএফপি
নারী-শিশুর স্বাস্থ্যসেবায় সহায়তা দেবে ইউনিসেফ ও ইউএনএফপি
সরাসরি অলিম্পিকে জায়গা পাওয়া সাগরকে বিমানবন্দরে সংবর্ধনা
সরাসরি অলিম্পিকে জায়গা পাওয়া সাগরকে বিমানবন্দরে সংবর্ধনা
বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা
বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা
সর্বাধিক পঠিত
বানের পানির মতো আসছে রেমিট্যান্স, পাচারের অর্থও কি সঙ্গে আসছে?
বানের পানির মতো আসছে রেমিট্যান্স, পাচারের অর্থও কি সঙ্গে আসছে?
আছাদুজ্জামান মিয়ার তথ্য ফাঁস করায় পুলিশের এডিসি বরখাস্ত
আছাদুজ্জামান মিয়ার তথ্য ফাঁস করায় পুলিশের এডিসি বরখাস্ত
পরীমণিকাণ্ডে চাকরি হারাচ্ছেন পুলিশ কর্মকর্তা সাকলায়েন
পরীমণিকাণ্ডে চাকরি হারাচ্ছেন পুলিশ কর্মকর্তা সাকলায়েন
কোরবানির ১ লাখ ৭২ হাজার পশুর চামড়া গেলো কোথায়?
কোরবানির ১ লাখ ৭২ হাজার পশুর চামড়া গেলো কোথায়?
ইসরায়েলি অভিযান নিয়ে হিজবুল্লাহকে যে সতর্কবার্তা দিলো যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েলি অভিযান নিয়ে হিজবুল্লাহকে যে সতর্কবার্তা দিলো যুক্তরাষ্ট্র