সাংবাদিক আরিফকে নির্যাতনমন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চিঠি

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০২:২০, মার্চ ১৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:২৫, মার্চ ১৬, ২০২০

 

 

সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম

বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রামের প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামকে মধ্যরাতে তুলে নিয়ে নির্যাতন ও মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে সাজা দেওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। একইসঙ্গে দায়ীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কাছে চিঠি দিয়েছে রাষ্ট্রীয় এই সংস্থাটি।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সচিবের চলতি দায়িত্বে থাকা আল মাহমুদ ফায়জুল কবীর স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘মধ্যরাতে সাংবাদিক আরিফুলকে তুলে নিয়ে গেলো মোবাইল কোর্ট’ শিরোনামে বাংলা ট্রিবিউনে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদের প্রতি জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখ করা হয় যে, ‘আরিফুল ইসলামকে তুলে নিয়ে গেছে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট। শুক্রবার (১৩ মার্চ) দিবাগত রাতে ডিসি অফিসের দু’তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট ১৫-১৬ জন আনসার সদস্যকে নিয়ে দরজা ভেঙে তার বাসায় প্রবেশ করে। এসময় আরিফুলের বাসায় আধা বোতল মদ ও দেড়শ গ্রাম গাঁজা পাওয়া গেছে বলে দাবি করেন তারা। পরবর্তীকালে জেলা প্রশাসকের অফিসে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়ে আরিফুল ইসলামকে কারাগারে পাঠানো হয়।’

চিঠিতে বলা হয়, ‘এই ঘটনায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। কমিশন মনে করে এই ঘটনা ও এটাকে কেন্দ্র করে বর্তমানে বিভিন্ন আলোচনার আঙ্গিকে নিচের বিষয়গুলোসহ এই ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া এবং এ বিষয়ে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অত্যাবশ্যক।’

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে লেখা চিঠিতে আরও বলা হয়, সাংবাদিক আরিফুল ইসলামের নামে ২০১৯ সালের ১৯ মে ‘কাবিখার টাকায় পুকুর সংস্কার করে ডিসির নামে নামকরণ’ সংক্রান্ত বাংলা ট্রিবিউন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ প্রতিবেদনের সঙ্গে গত ১৩ মার্চের মধ্যরাতের ঘটনা ও তাকে গ্রেফতারের কোনও যোগসূত্র আছে কিনা, জেলা প্রশাসন কর্তৃক ক্ষমতার অপব্যবহার করা হয়েছে কিনা, এই প্রেক্ষাপটে উপযুক্ত বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশিত হয়ে অনুরোধ করা হলো।

 

/জেইউ/এএইচ/

লাইভ

টপ