করোনা: ঈদের ছুটিতেও জানা যাবে পজিটিভ না নেগেটিভ

Send
জাকিয়া আহমেদ
প্রকাশিত : ০৭:৫১, মে ২৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০০, মে ২৭, ২০২০




করোনা পরীক্ষাদেশে করোনা পরিস্থিতির দিন দিন অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিনই হাজারের ওপর রোগী শনাক্ত হচ্ছে, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। এ অবস্থায় ঈদের ছুটি বা সরকারি যেকোনও ছুটি এবং সাপ্তাহিক বন্ধের দিনেও দেশের সব করোনাভাইরাস পরীক্ষার ল্যাবরেটরি খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গত ১৯ মে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এক নির্দেশনায় বিষয়টি জানানো হয়। সেখানে বলা হয়, ঈদের ছুটি, সরকারি যেকোনও ছুটি এবং সাপ্তাহিক বন্ধের দিনেও যাতে নমুনা সংগ্রহ ও তা ল্যাবরেটরিতে পাঠানো এবং পরীক্ষার ব্যবস্থা অব্যাহত থাকে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

দেশে শুরুতে রোগ তত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) কেবল কোভিড-১৯ টেস্ট করা হলেও, দিন যত গড়াচ্ছে ততই ল্যাবরেটরির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে সারাদেশে ৪৭টি ল্যাবে কোভিড-১৯ পরীক্ষা হচ্ছে। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকার ভেতরে সরকারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে ২৪টি, আর ঢাকার বাইরে ২৩টি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে রবিবার (২৪ মে) জানানো হয়, এ পর্যন্ত দেশে দুই লাখ ৪৩ হাজার ৫৮৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, আর শনাক্ত হয়েছেন ৩৩ হাজার ৬১০ জন।

এ অবস্থায় ঈদের ছুটির সময়ে করোনা পরীক্ষার কেন্দ্র অর্থ্যাৎ ল্যাবরেটরি বন্ধ থাকা না থাকা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছিল জনমনে। কিন্তু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কোনোভাবেই করোনা টেস্টের ল্যাব বন্ধ রাখার সুযোগ নেই, যেকোনও ছুটিতে ল্যাব খোলা থাকবে। মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে দ্বিমত করেননি ল্যাব সংশ্লিষ্টরাও। তারা বলছেন, দেশের এ পরিস্থিতিতে কেউ চায় না, কোনও ল্যাব বন্ধ থাকুক। সেটা ঈদের দিন হোক বা অন্য কোনও সরকারি ছুটি।

কারণ, এখানে যারা পরীক্ষা করাতে আসেন, সেটা তাদের নিজেরসহ পরিবার এবং আশপাশের মানুষের জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। একটা পজিটিভ-নেগেটিভের সঙ্গে জড়িয়ে থাকে অনেককিছু। তাই ল্যাব সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মানসিকভাবে তাদের প্রস্তুতি আগে থেকেই ছিল, তারা কেউ ঈদের ছুটির জন্য আবেদনও করেননি।

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. জাহিদুর রহমান বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে করোনা পরীক্ষার ল্যাব একদিনের জন্যও বন্ধ রাখার সুযোগ নেই। মেশিন নষ্ট, কিট স্বল্পতা, কনটামিনেশন, ইত্যাদি সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া শুধু ছুটি কাটানোর জন্য কিংবা লোকবলের অভাব, এই অজুহাতে কোনও প্রতিষ্ঠানে টেস্ট না করা হলে সেটি অমানবিক এবং অনৈতিক হবে।’

ঈদের ছুটি শুধু নয়, আমাদের আসলে কোনও ছুটি নেই বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. নুসরাত সুলতানা। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নমুনা সংগ্রহ হবে-পরীক্ষা হবে, সবই হবে। ল্যাব বন্ধ থাকবে না, বন্ধ রাখার কোনও সুযোগও নেই।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের ল্যাবে ১০ জন ভাইরোলজিস্ট আছেন। সিনিয়র দু’জনকে বাদ দিয়ে বাকি আট জনই ল্যাবে কাজ করছেন। তারা রোস্টার অনুযায়ী চার জন করে প্রতিদিন কাজ করছেন, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত।

‘ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে ভাইরোলজি বিভাগে কোভিড-১৯ পরীক্ষা শুরু হয় গত দুই এপ্রিল। তখন থেকে মানসিকভাবে আমাদের এ পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুতি নেওয়া ছিল এবং এপর্যন্ত কোনও সরকারি ছুটি কাটাইনি। আমরা ছুটির জন্য আবেদনও করিনি’, যোগ করেন ডা. নুসরাত।

রিপোর্ট পেতে দেরি হলে রোগীদের ভোগান্তি বাড়ে বলে মন্তব্য করে তিনি উদাহরণ দিয়ে আরও বলেন, ‘একজন ডায়ালাইসসিস বা আইসিইউর রোগীর জন্য নেগেটিভ-পজিটিভ যে রিপোর্টই হোক-সেটা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, রিপোর্টের ফল অনুযায়ী তার পরবর্তী ম্যানেজমেন্ট হবে।’

ঈদের আগের দিন রাতে (২৪ মে) যখন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন অ্যান্ড রেফারেল সেন্টারের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আরিফা আকরাম বর্নাকে টেলিফোন করা হয়, তখন তিনি ঈদের রান্নায় ব্যস্ত। কারণ, পরদিন সকাল থেকে তার ল্যাব ডিউটি। তার সঙ্গে আরেকজন মাইক্রোবায়োলজিস্ট ডা. সানজিদাও কাজ করবেন বলে জানান তিনি।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন অ্যান্ড রেফারেল সেন্টারের এই ল্যাবরেটরিতে চার জন ভাইরোলজিস্ট, তিন জন মাইক্রোবায়োলজিস্ট আর একজন ক্লিনিক্যাল প্যাথলজিস্ট মিলিয়ে প্রতিদিন আট জনের একটি টিম কাজ করে।

গত ৩১ মার্চ নমুনা পরীক্ষার জন্য অনুমতি পেয়ে, ২ এপ্রিল এ ল্যাবে কাজ শুরু হয়। শুরুর দিকে কিছুটা কম হলেও সম্প্রতি দিনে দুই হাজারের বেশি টেস্ট হয়েছে। গত ১০ দিন থেকে প্রতিদিনই এক হাজারের বেশি টেস্ট হচ্ছে ল্যাবটিতে।

ঈদের দিনেও বন্ধ নেই, এমনকি শুক্রবারেও ল্যাবে কাজ হচ্ছে জানিয়ে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রভাষক ডা. নাহরিন বলেন, ‘সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে এখানে।’

অধ্যাপক ডা. বুলবুল হাসানের উদ্যোগে এই ল্যাবে কাজ শুরু হয় জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘তখনই মানসিকভাবে আমাদেরকে প্রস্তুত করেছেন তিনি। তিনি বলেছিলেন, করোনা চলবে দীর্ঘদিন এবং আমাদের সবাইকে ফাইট করতে হবে। আমরাও জেনে গেছি, কাজ করতে হবে-তাই আর কোনও আক্ষেপ নেই।’

চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক (স্বাস্থ্য) হাসান শাহরিয়ার খান জানালেন, তার বিভাগের ল্যাবে ঈদের দিনসহ এ ছুটির সময়েও খোলা থাকবে। কোনও রোস্টার করা হয়নি, অন্যান্য দিনের মতো সব কার্যক্রম চলবে। কোথাও কিছুর ব্যত্যয় হবে না।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে কোথাও কোনও ল্যাব বন্ধ থাকবে না, সব চালু থাকবে।’ যারা এসব ল্যাবে কাজ করছেন তারাও মানসিকভাবে প্রস্তুত, তাই কোনও সমস্যা হবে না বলে জানান তিনি।

 

/টিটি/এপিএইচ/

লাইভ

টপ