ওষুধ প্রশাসনের অনুরোধে গণস্বাস্থ্যের ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল’ স্থগিত

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৪৩, মে ২৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০৯, মে ২৫, ২০২০

করোনা শনাক্তের কিটগণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গবেষকদের উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস শনাক্তে ‘জিআর র‌্যাপিড ডট ব্লট’ কিটের ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের’ জন্য মঙ্গলবার (২৬ মে) সময় নির্ধারণ করা হলেও এই কার্যক্রম স্থগিত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। সোমবার (২৫মে) ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের অনুরোধে তা স্থগিত করা হয় বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এদিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানান তিনি।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা আগামীকাল থেকে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সেভাবে প্রস্তুতিও ছিল। কিন্তু আজ ওষুধ প্রশাসনের অনুরোধে আমরা ট্রায়াল বাতিল করেছি। তারা আমাদের আজকে একটি চিঠি দিয়ে অনুরোধ করেছে। আমাদেরকে বলা হয়েছে, অনুগ্রহ করে এ পরীক্ষা বন্ধ করতে, আমরা তাদের অনুরোধ রেখেছি।’

তবে ওষুধ প্রশাসনের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমরা এটা বলতে চাই, গত বছর ডেঙ্গু আক্রমণ হয়, তখনও গণস্বাস্থ্যের ডেঙ্গু কিট অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল কোনও রকম পরীক্ষা ছাড়াই। এবছরও কোনও পরীক্ষা ছাড়াই সাতদিনে রেমডিসিভিরের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে আমাদের অনুরোধ থাকবে, আমরা কার্যক্রম স্থগিত করেছি। এরইমধ্যে বিএসএএমইউ তিনশ’ কিট পরীক্ষা করেছে। আমরা বিভিন্নসূত্রে জেনেছি, এই ট্রায়ালে কিটের কার্যকরিতা পেয়েছে। ফলে, প্রয়োজনে সেগুলোর রিপোর্ট নিয়ে আমাদের অনুমোদন দিতে পারেন। সাময়িকভাবেও হলেও তো দিতে পারেন। আমি জানি না, কেন তারা করছেন না।’

এরআগে, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে বলা হয়েছিল, করোনাভাইরাসের পরীক্ষায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিটের ট্রায়াল দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে আইনি বাধা নেই বলেও জানিয়েছেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি রবিবার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদ (বিএমআরসি)। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন হাসপাতাল তৈরির সময় নেওয়া হয়। এটা তো লিখিতভাবে গণস্বাস্থ্যের আছেই।’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী রাতে বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ওষুধ অধিদফতরের চিঠির জবাব সোমবার রাতেই দিয়েছি। বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ কিটের কার্যকরিতা পরীক্ষা করছে, তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই আমাদের কিটে করোনা পরীক্ষার অনুমোদন দিয়ে দিন। অন্ততপক্ষে সাময়িক অনুমোদন দেন আমাদের। আমরা এটাও বলেছি চিঠিতে, অন্যদেরকে পরীক্ষা ছাড়াই অনুমোদন দিয়েছেন, আর আমরা কার্যকরিতা প্রমাণ করলেও দিচ্ছেন না।’

প্রসঙ্গত, ১৭ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের পরীক্ষার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণায় কিট উৎপাদনের কথা জানায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। ১৯ মার্চ কিট উৎপাদনে যায় প্রতিষ্ঠানটি। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গবেষক ড. বিজন কুমার শীলের নেতৃত্বে ড. নিহাদ আদনান, ড. মোহাম্মদ রাঈদ জমিরউদ্দিন, ড. ফিরোজ আহমেদ এই কিট তৈরি করেন। ২৫ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিদের কাছে করোনা টেস্টের কিট হস্তান্তর করা হয়। বেশ কিছু দিন কিট পরীক্ষা নিয়ে বিতর্কের পর ৩০ এপ্রিল ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের থেকে বিএসএমএমইউ বা আইসিডিডিআর,বিতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য অনুমিত দেওয়া হয়। এরপর ২ মে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য বিএসএমএমইউ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. শাহীনা তাবাসসুমকে প্রধান করে ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।



/এসটিএস/টিটি/

লাইভ

টপ