X
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
২০ আষাঢ় ১৪২৯
যুক্তরাষ্ট্রে শতভাগ স্কলারশিপে পিএইচডির সুযোগ

আজমের গল্পটা যেন ছবির মতো

আপডেট : ২৪ জুন ২০২১, ২০:২২

অদম্য ইচ্ছাশক্তির সঙ্গে পরিশ্রম আর একমুঠো একাগ্রতা; স্বপ্নজয়ের ফর্মুলা এটাই। আর এর সুবাদেই প্রশংসায় ভাসছেন হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ১৪তম ব্যাচের মৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থী মো. গোলাম আজম।

দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ থানার রণগাঁও ইউনিয়নের পুরাতন পাড়া গ্রামের কৃষক পরিবারে জন্ম নেওয়া এই শিক্ষার্থী মাস্টার্স শেষ না করতেই যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পূর্ণ স্কলারশিপে পেয়েছেন পিএইচডি করার অফার। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো- লুইসিয়ানা স্টেট ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ওকলাহোমা ও টেক্সাস টেক ইউনিভার্সিটি।

তিনটি থেকে আজম বেছে নিয়েছেন ইউনিভার্সিটি অব ওকলাহোমা। চলতি বছরের আগস্টেই পাড়ি জমাবেন পিএইচডি করতে। গবেষণার বিষয় ডেভেলপমেন্ট জিনেটিক্স। আজমের মুখেই শোনা যাক সফলতার বৃত্তান্ত-

যখন আমার জন্ম তখন গ্রামের অর্ধেকেরও বেশি পরিবার ছিল দিনমজুর। তিনবেলা খেতে পারাই ছিল বিশাল ব্যাপার। বাবা কৃষক, মা ঘর সামলান। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে আমি তৃতীয়।

আমার পড়াশোনায় হাতেখড়ি রেজিস্টার্ড প্রাইমারি স্কুলে। স্কুল বলতে বড় হলঘরের মতো একটা রুম। কঞ্চির বেড়া দেওয়া সেই স্কুলের ছাদ টিনের। ঝড়ে প্রায়ই উড়ে যেত সেই চাল। স্যারদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আমরাও সেগুলো মেরামত করতাম। একটি রুমেই প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস হতো। আমাদের বাড়িঘরও ছিল তেমন। ছিল না বিদ্যুৎ। পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত কুপি আর হারিকেন জ্বালিয়ে পড়েছি।

পরে ভর্তি হলাম গ্রামের অপর প্রান্তের মহেশপুর আদিবাসী উচ্চ বিদ্যালয়ে। এলাকায় আদিবাসীদের সংখ্যা বেশি বলেই এমন নাম। সাঁওতালরা ছিল বেশি। শিক্ষকদের অর্ধেকই ছিলেন আদিবাসী। তাদের কথা এখনও মনে পড়ে। স্কুলে যাওয়াটা ছিল মজার একটা কাজ। পরীক্ষায় ফার্স্ট হতাম বলে স্যারদের অন্যরকম অ্যাটেনশন পেতাম। কিন্তু বেশি মজা পেতাম সহপাঠীদের সঙ্গে ক্ষেতের আইল ধরে হেঁটে স্কুলে যেতে।

ইন্টারে ভর্তি হলাম উপজেলার সেতাবগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে। বুয়েট, কুয়েট বা চুয়েটে পড়বো এমন স্বপ্ন দেখব কী, ঠিকমতো নামই শুনিনি। খেয়াল ছিল মেডিক্যালের দিকে। দিনাজপুর শহরে গেলাম কোচিং করতে। কিন্তু চান্স পেলাম না।

এরপর সুযোগ পাই হাজী দানেশের মৎস্যবিজ্ঞান অনুষদে। তখনও বিদেশে উচ্চশিক্ষার বিস্তারিত জানতাম না। সেকেন্ড ইয়ারের দিকে এক সিনিয়রের কাছে ধারণা পেলাম। নিজেই তথ্য সংগ্রহ করলাম। আগ্রহ জন্মালো গবেষণায়। কারণ ছিল দুটি। ছোটবেলা থেকেই বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ ছিল। আর বিজ্ঞানী ও গবেষক পরিচয়টাকে অন্যসব কিছুর চেয়ে বড় মনে হতো।

নিজ বিভাগের সামনে আজম

পথ দেখানোর কাজটি করলেন আমাদের মৎস্যবিজ্ঞান অনুষদেরই রাশিদুল ইসলাম স্যার। আগ্রহ দেখে স্যার আমাকে ল্যাবে কাজ করার সুযোগ দিলেন। স্যারের সঙ্গে কাজ করতে করতেই মনে হচ্ছিল জীবন মোড় নিচ্ছে নতুন দিকে।

এমনও হয়েছে টানা রাত ১২টা পর্যন্ত ল্যাবে কাজ করেছি। হলে গিয়ে ঘণ্টাখানেক পড়াশোনা করে তারপর ঘুম। পরদিন ভোর সাতটায় আবার কাজ। রাশেদ স্যারের তখন তিন থেকে চারজন মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ছিল। যেচে তাদের কাজগুলোও নিজের ঘাড়ে নিতাম। পরদিন সকালে হয়তো ক্লাস টেস্ট, সবাই পড়তে ব্যস্ত, আর আমি মাছের স্যাম্পল কালেকশন করতে গিয়েছি ৩০-৪০ কিলোমিটার দূরের বাজারে। যদিও ওই সেমিস্টারে সিজিপিএ-৪ পেয়েছিলাম।

দুই সম্বল
২০১৮ সালের জুনে গ্রাজুয়েশন শেষ করি। হাতে দুটো সম্বল- সিজিপিএ ৩ দশমিক ৯১ ও চারটি পাবলিকেশনস। ওই বছরের জুলাই থেকে পরের বছরের জানুয়ারি জিআরই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিই ঢাকায় এসে। পেলাম ২৯৯। হতাশ হলাম খানিকটা।

পরের বছর জানুয়ারিতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে এমএস ইন ফিশারিজ বায়োলজি অ্যান্ড জেনেটিক্স প্রোগ্রামে ভর্তি হই। প্রথম সেমিস্টার শেষ হলো জুনে। জুলাই মাস ফ্রি ছিলাম। ভাবলাম বসে না থেকে আইইএলটিএস করি। একমাসের প্রস্তুতিতে ৭ দশমিক ০ পেলাম। দ্বিতীয় সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হলো। সিজিপিএ পেলাম ৪। ওই সময় বাকৃবিতে একটি আন্তর্জাতিক সেমিনার ছিল। এমএস-এর থিসিসের কাজটা প্রেজেন্ট করার জন্য ওরাল প্রেজেন্টেশনের রেজিস্ট্রেশন করে রেখেছিলাম। ফাইনাল শেষে সবাই যখন ছুটি কাটাচ্ছে, তখন রাত জেগে প্রেজেন্টেশনের স্লাইড বানাচ্ছিলাম। জীবনের প্রথম সেমিনারে দ্বিতীয় সেরা ওরাল প্রেজেন্টেশন পুরস্কার পেয়েছিলাম।

ইচ্ছা ছিল ২০২০ সালের জুনে ডিফেন্স দিয়ে ইউএএ তে পিএইচডির আবেদনের প্রক্রিয়াটা শুরু করার। কিন্তু করোনা সেই প্ল্যান ভেস্তে দিল। ঘরবন্দি সময়টায় একমাস শুয়ে বসেই গেল।

পরের দুই মাস আবার জিআরই পড়া শুরু করলাম। এর মধ্যে শুনলাম মহামারির কারণে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় জিআরই স্কোরের চাহিদা তুলে দিচ্ছে। ২০২০-এর জুলাই থেকে প্রফেসরদের ইমেইল করা শুরু করলাম। রিপ্লাইও পেতে থাকলাম।

দুই মাসে ৮৫০ ইমেইল
জুলাই-আগস্ট দুই মাসে প্রায় ৮৫০ জন প্রফেসরকে ই-মেইল করেছি। গ্রামে নেটওয়ার্ক বেশ দুর্বল। কোনও প্রফেসর ভিডিও কলে কথা বলতে চাইলে এক কিলোমিটার দূরে অন্য কারও বাড়িতে যেতে হতো ওয়াইফাই কানেকশন পেতে। এমনকি বিদ্যুৎ না থাকায় একদিন লুইসিয়ানা স্টেট ইউনিভার্সিটির এক প্রফেসরের সঙ্গে ১০ কিলোমিটার দূরের শহরে গিয়ে কথা বলে আসতে হয়েছে।

চলতি বছর ফেব্রুয়ারির ২৪ তারিখে প্রথমেই ওই ইউনিভার্সিটি থেকে টিচিং অ্যাসিস্ট্যান্টশিপ-এর অফার পাই। এরপর অফার আসে ইউনিভার্সিটি অফ ওকলাহোমা ও টেক্সাস টেক থেকে। তিনটিতেই শতভাগ স্কলারশিপে পিএইচডি প্রোগ্রামের অফার। এখন গবেষণা করে দেশের জন্য কী করতে পারি, সেটার জন্যই মুখিয়ে আছি।’

/এফএ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
‘সিম আছে, তবে চালু হবে না’
‘সিম আছে, তবে চালু হবে না’
হ্যাকিংয়ের কবলে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ইউটিউব ও টুইটার অ্যাকাউন্ট
হ্যাকিংয়ের কবলে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ইউটিউব ও টুইটার অ্যাকাউন্ট
রাজশাহীতে ছুরিকাঘাতে কিশোর নিহত
রাজশাহীতে ছুরিকাঘাতে কিশোর নিহত
ইতালিতে হিমবাহে ধস, নিহত ৫
ইতালিতে হিমবাহে ধস, নিহত ৫
এ বিভাগের সর্বশেষ