X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

চিহ্নিত হয়নি ৬৮ বধ্যভূমি, নেই শহীদদের তালিকাও

আপডেট : ১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ১১:৩৮

স্বাধীনতার পর ৪৫ কেটে গেলেও এখনও চিহ্নিত হয়নি বরিশাল, ঝালকাঠি ও পিরোজপুরের ৭০ ভাগ বধ্যভূমি। এমনকি তৈরি হয়নি শহীদদের তালিকাও । তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগের গবেষকদের দাবি, বরিশালের ১০ উপজেলা,  পিরোজপুর ও ঝালকাঠীর বিভিন্ন অঞ্চলে সরেজমিনে অনুসন্ধান চালিয়ে অন্তত ৬৮টি বধ্যভূমির সন্ধান তারা পেয়েছেন।

এ অঞ্চলে ’জেনোসাইড স্টাডিজ’ প্রকল্পের গবেষক সুশান্ত ঘোষ জানিয়েছেন, বরিশাল অঞ্চলে ৬৮টি বধ্যভূমির মধ্যে বরিশাল জেলার সদরে ৩, গৌরনদীতে ৪, আগৈলঝাড়ায় ৬, বাকেরগঞ্জে ৩, বানারীপাড়ায় ৫, বাবুগঞ্জে ২, উজিরপুরে ৫, মুলাদীতে ২, মেহেন্দীগঞ্জে ৩টি সহ ৩৩ টি বধ্যভূমির সন্ধান পাওয়া গেছে। এছাড়া ঝালকাঠীতে ৯টি, পিরোজপুরে ২৬টি বধ্যভূমি চিহ্নিত করা গেছে।

তিনি বলেন, এই ৬৮টি বধ্যভূমিতে নিহতদের সম্ভাব্য সংখ্যা নিরূপণ করা মুশকিল।  তারপরেও প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা, স্মৃতিচারণ, ঘটনার বিবরণ বিশ্লেষণ করে শহীদের সম্ভাব্য সংখ্যা ১০-১৫ হাজার মতে পারে। এই বধ্যভূমির বাইরেও অসংখ্য মানুষ হানাদার বাহিনীর হত্যার শিকার হয়েছেন। এই শহীদদের সংখ্যা বধ্যভূমিতে নিহতের সংখ্যায় দ্বিগুণ বা তারও বেশি হতে পারে।

গবেষক সুশান্ত ঘোষ স্বাধীনতা-উত্তর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার  রিপোর্ট, সাংবাদিক বিধান সরকার ও বাপ্পী মজুমদারের করা গণহত্যা স্থলের জরিপ ও সাক্ষাৎকার এবং দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার বিবরণ প্রভৃতির ভিত্তিতে মনে করেন মুক্তিযুদ্ধের পরে  জেলাওয়ারী  গণহত্যার হিসেবে বরিশাল জেলায় শহীদের আনুমানিক সংখ্যা হবে ২৫ হাজার ।

এসব শহীদ ছাড়াও পরবর্তীতে আহত অনেকে মারা যান। ট্রমায় আক্রান্ত হয়েও অনেকের জীবন দীপ নিভে যায়।

এসব পর্যালোচনা করলে প্রকৃত শহীদের সংখ্যা দ্বিগুণ এমনকি তিনগুণ হওয়া অসম্ভব নয় বলে জানান সুশান্ত ঘোষ।

বরিশাল বিভাগের এসব বধ্যভূমির মধ্যে মাত্র দুটি বধ্যভূমির স্মারক-স্তম্ভ সরকারি অর্থে এবং মাত্র ৮টির ফলক বেসরকারি অনুদানে নির্মিত হয়েছে।

সুশান্ত ঘোষের দেওয়া জেলায় বধ্যভূমির সম্ভাব্য তালিকা এখানে তুলে ধরা হলো।  

বরিশাল জেলার সদর উপজেলার পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন কীর্তনখোলা তীর, তালতলী বধ্যভূমি, চরকাউয়া মোসলেম মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন খালের পাড়, গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর হরহর মৌজার মড়ার ভিটার বধ্যভূমি, গৌরনদী নদীর তীরে সহকারী পুলিশ সুপারের অফিসের সামনের বধ্যভূমি, গৌরনদী গয়নাঘাটা পুল (গৌরনদীর ব্রিজ) বধ্যভূমি, গৌরনদী কলেজের সংলগ্ন ঘাট (স্থানীয়ভাবে কসাই খানা নামে পরিচিত) বধ্যভূমি।

আগৈলঝাড়া উপজেলার কাটিরা ব্যাপ্টিস্ট চার্চ সংলগ্ন বধ্যভূমি, রাজিহার রাংতা বিল বধ্যভূমি, রাজিহার কেতনার বিল বধ্যভূমি, রাজিহার ফ্রান্সিস হালদার বাড়ি বধ্যভূমি, মতিহার গ্রামের বধ্যভূমি, দক্ষিণ সিহিপাশা গ্রামের বধ্যভূমি এবং বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠি বধ্যভূমি, বেবাজ বধ্যভূমি, শ্যামপুর বধ্যভূমি।

বানারিপাড়া উপজেলায় রয়েছে দক্ষিণ গাভার নরেরকাঠী বধ্যভূমি. গাভা বাজার বধ্যভূমি, গাভা বিল্ববাড়ি বধ্যভূমি,গাভা পূর্ব বেড়মহল, বাওনের হাট বধ্যভূমি,  গাভা রামচন্দ্রপুরের পূর্ব বেরমহল. বাবুগঞ্জ উপজেলায় রয়েছে ক্যাডেট কলেজ বধ্যভূমি, রামপট্টি বধ্যভূমি এবং উজিরপুর উজেলায় চিহ্নিত বধ্যভূমিগুলো হচ্ছে বড়াকোঠা দরগা বাড়ি বধ্যভূমি, উত্তর বড়াকোঠা মল্লিক বাড়ি বধ্যভূমি, বড়াকোঠা মুক্তিযুদ্ধের মিলনকেন্দ্র সংলগ্ন বধ্যভূমি, খাটিয়াল পাড়া বধ্যভূমি, বড়াকোঠা চন্দ্রকান্ত হালদারের বাড়ির বধ্যভূমি, মূলাদীর পাতারচর গ্রাম  বধ্যভূমি, মুলাদী নদীর দক্ষিণ পাড়, বেলতলা বধ্যভূমি ।

বরিশাল জেলার মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলায় বধ্যভূমি রয়েছে মেহেন্দীগঞ্জ থানা সংলগ্ন খাল, পাতারহাট গার্লস স্কুল সংলগ্ন ব্রিজের গোড়ায়, পাতারহাট গার্লস স্কুলের দক্ষিণ পাড়ে খলিল মোল্লার বাসায়।

পিরোজপুর জেলার স্বরূপকাঠী উপজেলাতে বধ্যভূমি রয়েছে ভরসাকাঠী. মৈশানি, জুজুখোলা, জুলুহার, সোহাগদল, অলংকারকাঠী, শশীদ ও সাগরকান্দা গ্রামে।

কুড়িয়ানা খালের বধ্যভূমি, কুড়িয়ানা জয়দেব হালদারের বাড়ির বধ্যভূমি, পূর্ব জলাবাড়ী খালপাড় বধ্যভূমিও এ উপজেলাতে।

তেজদাসকাঠী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে, দৈহারী ইউনিয়ন পরিষদের সামনের বধ্যভূমিও রয়েছে স্বরূপকাঠী উপজেলাতেই।

পিরোজপুর সদর উপজেলাতে বধ্যভূমি হচ্ছে বলেশ্বর তীরে এবং  হুলারহাট  টার্মিনলের সামনে।

একই জেলার নাজিরপুর উপজেলাতে দীর্ঘা মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর সামনে, ঘোষকাঠী বিদ্যালয়, শ্রী রামকাঠী বন্দর এবং গাবতলা গ্রামেও রয়েছে বধ্যভূমি।

এ জেলার কাউখালি উপজেলাতে কাউখালি লঞ্চঘাট, মঠবাড়িয়া উপজেলাতে মণ্ডলবাড়ি, বড়মাছুয়া ভেড়িবাঁধ, সাপলেজা, নলি বাড়ৈ বাড়ি গ্রাম. সূর্যমনি, আংগুলকাটা গ্রামেও আছে বধ্যভূমি।

ঝালকাঠী জেলার রাজাপুর উপজেলাতে রয়েছে, দক্ষিণ কাঠীপাড়া বধ্যভূমি, বাঘরি ব্রীজ সংলগ্ন থানাঘাট বধ্যভূমি, পূর্ব নৈকাঠী বধ্যভূমি, নৈকাঠী- নমপাড়া-বড়মিস্ত্রী বাড়ি বধ্যভূমি, কাঠীপাড়া ঠাকুর বাড়ি জংগলের হত্যাকাণ্ডের বধ্যভূমি ।

পাকিস্তানি বাহিনীর বাংকার

ঝালকাঠী জেলার নলছিটি উপজেলার নলছিটি সুগন্ধা তীরের বধ্যভূমি, মানপাশা বধ্যভূমি, সদর উপজেলার পালবাড়ি সংলগ্ন নদী তীরের এবং বেসাইন খান গ্রামেও রয়েছে  বধ্যভূমি ।

এ ৬৮ টি বধ্যভূমির মধ্যে বরিশাল শহরের পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন কীর্তনখোলা তীরের বধ্যভূমি সরকারিভাবে স্মারক স্তম্ভ দিয়ে সংরক্ষিত এবং তালতলী বধ্যভুমি বেসরকারি ভাবে স্মৃতি ফলক দিয়ে চিহ্নিত।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার কাটিরা ব্যাপ্টিস্ট চার্চ সংলগ্ন বধ্যভূমিতে ফলক নির্মিত হয়েছে। ব্যক্তিগত উদ্যোগে একই উপজেলার রাজিহারে ফ্রান্সিস হালদার বাড়ির বধ্যভূমি চিহ্নিত এবং সেখানে ৮ শহীদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়েছে।

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠীতে প্রায় ৪ শত মানুষকে শহীদ করার বধ্যভূমিটি চিহ্নিত  এবং ব্যক্তিগত উদ্যোগে সেখানে ফলক নির্মিত হলেও শহীদদের তালিকা ও তথ্য প্রমাণের অভাবে সম্পূর্ণ রক্ষিত হয়নি।

পিরোজপুর জেলায় স্বরূপপকাঠী উপজেলার ভরসাকাঠী বধ্যভূমিটি সরকারি উদ্যোগে চিহ্নিত স্মৃতিস্তম্ভ দ্বারা সংরক্ষিত।

হানাদার বাহিনী মানুষ হত্যা করে এই নদীতে ফেলে দিতো

একই জেলার নাজিরপুর উপজেলায় দীর্ঘা মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর সামনে আনুমানিক অর্ধশত মানুষকে হত্যা করা হয়। ব্যাক্তিগত উদ্যোগে তা চিহ্নিত করে সেখানে স্মৃতি ফলক নির্মিত হয়েছে।

একই উপজেলার সোহাগদলে ৭ ব্যক্তিকে হত্যা করে একটি কবরের মধ্যে মাটি চাপা দেওয়ার স্থানটি ব্যক্তিগত উদ্যোগে ফলক দিয়ে চিহ্নিত করা আছে।

পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলার সূর্যমনিতে ৩০ শহীদের বধ্যভূমিটি ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্মৃতি ফলক দিয়ে চিহ্নিত হয়েছে।

ঝালকাঠী জেলার রাজাপুর উপজেলায় দক্ষিণ কাঠীপাড়া বধ্যভূমি,  বাঘরি ব্রীজ সংলগ্ন থানাঘাট বধ্যভূমি এবং বেসাইন খান গ্রামের বধ্যভূমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্মৃতি ফলক দিয়ে চিহ্নিত হয়েছে। এর প্রতিটিতে  অর্ধশত মানুষ শহীদ হলেও তাদের নাম-পরিচয় উদ্ধার করা যায়নি।

এ ব্যাপারে বরিশাল মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাংগঠনিক কমান্ডার এনায়েত হোসেন চৌধুরী বলেছেন, ‘এমনিতেই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি, নিদর্শন, ইতিহাস ও দলিলপত্র সংরক্ষণে অনেক দেরি এবং শৈথিল্য দেখানো হয়েছে। কাজেই আর বিন্দুমাত্র দেরি না করে এ ব্যাপারে আমাদের উদ্যোগ নেওয়া উচিত। না হলে ইতিহাস বিস্মৃতি ও বিকৃতি হতে আমরা যেমন রেহাই পাবো না। তেমনি পরবর্তী প্রজম্মও আমাদের ক্ষমা করবে না।’

/এসটি/

 

সম্পর্কিত

হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ২ কর্মচারী আহত

হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ২ কর্মচারী আহত

মাত্রাতিরিক্ত ভারী যান উঠলেই সিগন্যাল দেবে লেবুখালী সেতু

মাত্রাতিরিক্ত ভারী যান উঠলেই সিগন্যাল দেবে লেবুখালী সেতু

৬ মাসেই ভেঙে পড়ছে সাড়ে তিন কোটি টাকার সড়ক

৬ মাসেই ভেঙে পড়ছে সাড়ে তিন কোটি টাকার সড়ক

ইলিশের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০০ টাকা

ইলিশের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০০ টাকা

‘দেশকে কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায় সেই সাংবাদিকতা করতে হবে’

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫৭

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, সাংবাদিকেরা জাতির বিবেক। সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা দেশকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করে। সমাজ ও রাষ্ট্রের চোখ খুলে দেয়। তাই দেশকে কীভাবে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, সেই বিষয়ে সাংবাদিকতা করতে হবে।

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে নওগাঁয় কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআইবি) আয়োজিত তিন দিনব্যাপী সাংবাদিকতায় অনুসন্ধানমূলক রিপোর্টিং প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, কে আগে তথ্য পাবে কে আগে সংবাদ প্রকাশ করবে সেটা নিয়ে সাংবাদিকদের মধ্যে প্রতিযোগিতা থাকবে। উন্নয়নমূলক সংবাদ প্রচার তথা ব্র্যান্ডিং করে নওগাঁকে সামনে এগিয়ে নিতে সাংবাদিকরা ভূমিকা রাখবেন।

তিনি আরও বলেন, করোনাকালে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছেন সাংবাদিকরা। মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে উদ্বুদ্ধ করেছেন, যা সত্যিকার অর্থে প্রশংসার দাবি রাখে। 

মাদকের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীদের পক্ষে কেউ সুপারিশ করতে আসলে, মামলার চার্জশিটে সেই ব্যক্তির নাম ঢুকিয়ে দেবেন। তা সে যে দলেরই লোক হোক না কেন।

এ সময় জেলা প্রশাসক মো. হারুন-অর-রশীদ, পিআইবির পরিচালক (প্রশাসন) আফরাজুর রহমান, প্রশিক্ষক পারভীন সুলতানা, নওগাঁ কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অধ্যক্ষ ওহিদুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। পরে ৩৫ জন অংশগ্রহণকারী সাংবাদিকের মাঝে সনদ তুলে দেন খাদ্যমন্ত্রী।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

‘শ্রীলঙ্কাকে ঋণ দেওয়া অর্থনৈতিক সামর্থ্যের প্রমাণ’

‘শ্রীলঙ্কাকে ঋণ দেওয়া অর্থনৈতিক সামর্থ্যের প্রমাণ’

করোনাকালে একজনও না খেয়ে মারা যায়নি: খাদ্যমন্ত্রী

করোনাকালে একজনও না খেয়ে মারা যায়নি: খাদ্যমন্ত্রী

বঙ্গোপসাগরে সাড়ে চার লাখ ইয়াবাসহ আটক ৫

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৩০

বঙ্গোপসাগরের কক্সবাজার উপকূল থেকে সাড়ে চার লাখ ইয়াবাসহ পাঁচজনকে আটক করেছে র‍্যাব-১৫। এ সময় পাচার কাজে ব্যবহৃত একটি ট্রলার জব্দ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে গভীর সমুদ্র এলাকা থেকে ইয়াবাসহ তাদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতারা হলেন-রশিদ উল্লাহ, আমানত করিম, নাছির উদ্দিন ও ছৈয়দুর রহমান।

র‍্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে গভীর সমুদ্র এলাকায় কক্সবাজার র‍্যাব-১৫ উপ অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার তানভীর হাসান ও মেজর শেখ মোহাম্মদ ইউসূফের নেতৃত্বে একটি মাছ ধরার ট্রলার চিহ্নিত করা হয়। তারপর ধাওয়া করে সেই ট্রলারে সাড়ে চার লাখ ইয়াবা পাওয়া যায়।

তানভীর হাসান বলেন, গত এক সপ্তাহ আগে থেকে ইয়াবা পাচারকারী চক্রের ওপর নজর রাখছিল র‍্যাব। সেই চক্রের একটি চালান আসার খবরে গভীর সমুদ্রে অভিযান চালানো হয়। অভিযান চালিয়ে সাড়ে চার লাখ ইয়াবাসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

উখিয়ায় র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধ’, নিহত ১

উখিয়ায় র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধ’, নিহত ১

টেকনাফে ১০ কোটি টাকার আইস উদ্ধার

টেকনাফে ১০ কোটি টাকার আইস উদ্ধার

এক জালেই ১৫ মণ লাল কোরাল

এক জালেই ১৫ মণ লাল কোরাল

সিনহা হত্যা: গোয়েন্দা সংস্থার তদন্ত প্রতিবেদন চায় আসামিপক্ষ

সিনহা হত্যা: গোয়েন্দা সংস্থার তদন্ত প্রতিবেদন চায় আসামিপক্ষ

অন্যজনের সঙ্গে স্ত্রীর প্রেমের অভিযোগে স্বামীর 'আত্মহত্যা'

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৩৩

কুমিল্লায় অন্যজনের সঙ্গে স্ত্রীর প্রেমের সম্পর্ক থাকার অভিযোগে ক্ষোভ-অভিমানে এমরান হোসেন মুন্না (২৯) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন। গত বুধবার সন্ধ্যায় নগরীর বারপাড়া এলাকায় নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে পুত্রবধূর বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগ এনে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেছেন মুন্নার বাবা মো. মতিউর রহমান।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লা কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটে (বর্তমানে সরকারি সিটি কলেজ) পড়তেন মুন্না ও তার স্ত্রী। দুই জন এক বছরের সিনিয়র-জুনিয়র। এ সময় তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি বিয়ে হয়। বিয়ের বছর খানেক পর থেকেই পারিবারিক জীবনে টানাপড়েন শুরু হয়। ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতেন তার স্ত্রী। এই সুবাদে বেশিরভাগ সময় ঢাকাতেই থাকতেন। কুমিল্লায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি শুরু করেন মুন্না। পরে চাকরি ছেড়ে কুমিল্লাতে ঠিকাদারি ব্যবসা শুরু করেন। দিন দিন তাদের সম্পর্কে ফাটল ধরে।

মুন্নার পরিবারের অভিযোগ, ঢাকায় একজনের সঙ্গে ওই নারীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর থেকে মুন্নাকে বিভিন্নভাবে মানসিক নির্যাতন করতেন তিনি। চাহিদা মতো টাকা দিতে না পারার অভিযোগে মুন্নাকে মরে যাওয়ার কথাও বলতেন। এতে আরও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন মুন্না। গত বুধবার আত্মহত্যার প্রস্তুতি নিয়ে স্ত্রীকে ছবি পাঠান। এরপর নিজ কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন মুন্না। পরিবারের লোকজন টের পেয়ে দরজা ভেঙে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল বাদ জোহর জানাজার পর তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনয়ারুল আজিম জানান, মুন্নার পরিবার আত্মহত্যার প্ররোচণার মামলা করেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বই ছেড়ে সংসার জীবনে ৩০ শতাংশ ছাত্রী 

বই ছেড়ে সংসার জীবনে ৩০ শতাংশ ছাত্রী 

কুবির বাস স্টাফকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালো ‘অ্যাম্বুলেন্স সিন্ডিকেট’ 

কুবির বাস স্টাফকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালো ‘অ্যাম্বুলেন্স সিন্ডিকেট’ 

ফেসবুক লাইভে এসে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

ফেসবুক লাইভে এসে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

কুমিল্লায় হচ্ছে ১১০০ উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়

কুমিল্লায় হচ্ছে ১১০০ উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়

ছাত্রাবাস থেকে পাবিপ্রবি ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৯

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) এক ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তার নাম তাহমিদুর রহমান জামিল (২২)। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার শাহীবাগ এলাকার বজলার রহমানের ছেলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে পাবনা শহরের একটি ছাত্রাবাস থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় কক্ষ থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম জানান, শহরের শালগাড়িয়া মেরিল বাইপাস এলাকার সাফল্য ছাত্রাবাসে থাকতেন জামিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর তার কোনও সাড়া-শব্দ পাননি সহপাঠীরা। পরে কক্ষের দরজা খুলে তাকে ফ্যানের হুকের সঙ্গে ব্যাগের বেল্ট গলায় পেঁচানো অবস্থায় ঝুলতে দেখে থানায় খবর দেন তারা। পরে পুলিশ পৌঁছে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে।

তিনি আরও জানান, জামিলের কক্ষ থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে ‘বাবা-মা ক্ষমা করো, গুড বাই’ এ রকম কিছু কথা লেখা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মাধ্যমে পরিবারের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হবে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

মাদক মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, আরএমপির ৬ সদস্য বরখাস্ত

মাদক মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, আরএমপির ৬ সদস্য বরখাস্ত

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির ৩ শীর্ষ নেতার আত্মসমর্পণ

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির ৩ শীর্ষ নেতার আত্মসমর্পণ

হাটে টোল বেশি নেওয়ায় লাখ টাকা জরিমানা

হাটে টোল বেশি নেওয়ায় লাখ টাকা জরিমানা

সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার আসামি গ্রেফতার

সাবেক প্রধান শিক্ষককে হত্যার আসামি গ্রেফতার

বসতঘরে মিললো ১৬ বিষধর সাপ

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:২৯

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার কাঠালবাড়িয়া গ্রামের একটি মাটির বসতঘর থেকে ১৬টি বিষধর কেউটে সাপ ও ১৪টি ডিম পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) উপজেলার মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের কাঠালবাড়িয়া গ্রামের বিনয় রঞ্জন মন্ডলের বাড়ির দেওয়াল খুঁড়ে এগুলো উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পর সাপগুলো মেরে ফেলা হয়েছে এবং ডিম নষ্ট করা হয়েছে।

বিনয় রঞ্জন জানান, বৃহস্পতিবার মাটির ঘরের দেওয়াল থেকে একটি কেউটে সাপের বাচ্চা বের হতে দেখে স্থানীয়রা। তারা কেউটের বাচ্চাটিকে লাঠির আঘাতে মেরে ফেলে। এরপর দেওয়াল ভেঙে একে একে ১৬টি কেউটের বাচ্চা উদ্ধার করা হয়। সেখানে আরও ১৪টি কেউটের ডিম পাওয়া যায়।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর একই ঘরের খাটের নিচ থেকে সাড়ে চার হাত লম্বা একটি কেউটে সাপ দেখতে পাওয়া যায়। পরে সেটাকে মেরে ফেলেন বাড়ির মালিক।

মুন্সীগঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম মোড়ল বলেন, বিনয় রঞ্জনের মাটির বসতঘরের দেওয়াল খুঁড়ে ১৬টি বিষধর কেউটে সাপ ও ১৪টি ডিম পাওয়া গেছে। এর আগেও তার ঘরে সাপ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় গ্রামবাসীর মাঝে সাপ আতঙ্ক বিরাজ করছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

প্রাইভেট পড়তে গিয়ে নিখোঁজ, পরদিন মিললো স্কুলছাত্রীর লাশ

প্রাইভেট পড়তে গিয়ে নিখোঁজ, পরদিন মিললো স্কুলছাত্রীর লাশ

সাঁতরে মসজিদে যাওয়া সেই ইমাম পেলেন নৌকা ও নগদ টাকা   

সাঁতরে মসজিদে যাওয়া সেই ইমাম পেলেন নৌকা ও নগদ টাকা   

ভোটে হারায় রাস্তা বন্ধ করে দিলেন মেম্বার প্রার্থী

ভোটে হারায় রাস্তা বন্ধ করে দিলেন মেম্বার প্রার্থী

পানিবন্দি সাতক্ষীরার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

পানিবন্দি সাতক্ষীরার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ২ কর্মচারী আহত

হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ২ কর্মচারী আহত

মাত্রাতিরিক্ত ভারী যান উঠলেই সিগন্যাল দেবে লেবুখালী সেতু

মাত্রাতিরিক্ত ভারী যান উঠলেই সিগন্যাল দেবে লেবুখালী সেতু

৬ মাসেই ভেঙে পড়ছে সাড়ে তিন কোটি টাকার সড়ক

৬ মাসেই ভেঙে পড়ছে সাড়ে তিন কোটি টাকার সড়ক

ইলিশের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০০ টাকা

ইলিশের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০০ টাকা

এহসানের এমডি রাগীব ও তার ৩ ভাই শ্যোন অ্যারেস্ট

এহসানের এমডি রাগীব ও তার ৩ ভাই শ্যোন অ্যারেস্ট

পিটুনিতে জেলের মৃত্যু, ৪ নৌপুলিশকে প্রত্যাহার

পিটুনিতে জেলের মৃত্যু, ৪ নৌপুলিশকে প্রত্যাহার

৯ বছর পর উদ্ধার সেই রাসেল কারাগারে

৯ বছর পর উদ্ধার সেই রাসেল কারাগারে

সুদমুক্ত জীবনের আশায় এহসানে ২০ লাখ টাকা রেখেছিলেন ব্যাংক কর্মকর্তা

সুদমুক্ত জীবনের আশায় এহসানে ২০ লাখ টাকা রেখেছিলেন ব্যাংক কর্মকর্তা

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ছেলেকে ৯ বছর লুকিয়ে রাখলেন বাবা-মা

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ছেলেকে ৯ বছর লুকিয়ে রাখলেন বাবা-মা

পুলিশের পিটুনিতে জেলের মৃত্যুর অভিযোগ, পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন

পুলিশের পিটুনিতে জেলের মৃত্যুর অভিযোগ, পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন

সর্বশেষ

সহশিল্পীর কারণে তারা ছবিগুলো করতে চাননি

সহশিল্পীর কারণে তারা ছবিগুলো করতে চাননি

হংকংয়ের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ

হংকংয়ের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ

‘কোরীয় যুদ্ধ’ বন্ধে প্রস্তুত উ.কোরিয়া : কিম ইয়ো

‘কোরীয় যুদ্ধ’ বন্ধে প্রস্তুত উ.কোরিয়া : কিম ইয়ো

‘দেশকে কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায় সেই সাংবাদিকতা করতে হবে’

‘দেশকে কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায় সেই সাংবাদিকতা করতে হবে’

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

© 2021 Bangla Tribune