X
শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১, ৮ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

বন্যা পরিস্থিতি অবনতির শঙ্কা ১০ জেলায়, সতর্ক অবস্থানে সরকার

আপডেট : ১২ জুলাই ২০১৯, ২০:২৯



ভারী বর্ষণ, পাহাড়ি ঢল ও উজানের পানে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত (ছবি: ফোকাস বাংলা) আগামী কয়েকদিন অব্যাহত ভারী বর্ষণের আশঙ্কা করছে আবহাওয়া অধিদফতর। এতে ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে। বন্যায় আক্রান্ত হতে পারও আরও নতুন নতুন জেলাও। যেকোনও মূল্যে এই বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রশাসনের সবাইকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। কোনও অবস্থাতেই যেন বন্যায় কোনও লোক মারা না যান, খাদ্যে কষ্ট না পান বা কোনও দুর্ঘটনা যেন না ঘটে, সে বিষয়ে সার্বক্ষণিক নজর রাখতে প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন হলে বন্যাকবলিত এলাকায় প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও জনগণকে সঙ্গে নিয়ে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে এ বিষয়ে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর দফতর, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, দেশের লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, চট্টগ্রাম, বান্দরবান, কক্সবাজার ও নীলফামারীতে বন্যা পরিস্থিতি আগের তুলনায় অবনতি হয়েছে। কারণ হিসেবে সূত্র জানিয়েছে, ভারতের ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বাড়লে যমুনা নদীতে পানি বাড়বে। বিহারে গঙ্গায় পানি বাড়ায় পদ্মার অববাহিকায় বন্যা দেখা দিতে পারে। একইসঙ্গে ভারী বৃষ্টি ও উজান থেকে আসা ঢলে দেশের ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে বলেও আশঙ্কা করেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ মনিটরিং সেল কাজ শুরু করেছে। সেখান থেকে সব জেলার সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর দফতর সূত্রে জানা গেছে, বন্যকবলিত অঞ্চলের জেলা প্রশাসকদের কাছে সরকারের জরুরি বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় জরুরি বরাদ্দ রয়েছে। এরপরও প্রয়োজন হলে ডিও দেওয়া মাত্র তা পৌঁছে যাবে বলেও ডিসিদের আশ্বস্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সাইক্লোন শেল্টারসহ উঁচু ভবনের স্কুল-কলেজের কক্ষগুলোতে যেন লোকজনকে আশ্রয় দেওয়া যায়, সেদিকটি বিচেনায় রেখে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে চাবি সংরক্ষণে রাখার বিষয়েও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বন্যার পানি বিপদসীমার ওপরে চলে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলেই মানুষজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসার ব্যবস্থা রাখার কথা বলা হয়েছে। এ সময় গৃহপালিত পশুপাখি যেন নিরাপদ স্থানে রাখা হয়, সে বিষয়েও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, শুক্রবার (১২ জুলাই) সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট ডিপার্টমেন্ট খোলা রাখা হয়েছে। কাল শনিবার (১৩ জুলাই) এ মন্ত্রণালয়সহ অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলো খোলা থাকবে। শুক্রবার সকালে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে আন্তমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় ভবিষ্যতে বন্যা আক্রান্ত হতে পারে এমন জেলায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, ইতোমধ্যেই দেশের বিভিন্ন জেলার নদীতে ৬২৮টি ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্ট নির্ধারণ করা হয়েছে, তারমধ্যে ২৬টি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ, সেগুলোকে ঠিক করার জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এরমধ্যে ৫৫১টি পয়েন্টকে ঝুঁকিমুক্ত করতে কাজ করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, জামালপুরে নদীভাঙনের প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। লালমনিহাটে তিস্তা নদীতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে নদীভাঙন দেখা দিয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ কামাল বলেন, ‘পরিস্থিতি মোকাবিলায় কাজ শুরু হয়েছে। যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকারের সব বিভাগ প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। আশা করছি কোনও ধরনের দুঃসংবাদ জাতি শুনবে না। সরকারের পক্ষ থেকে আমরা সর্বদা প্রস্তুত। দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আরও সহায়তা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। চাহিদা জানানো মাত্রই তা পৌঁছে দেওয়া হবে। ডিসি, টিএনও ও জনপ্রতিনিধিরা খোঁজ-খবর রাখছেন।’
শুক্রবার (১২ জুলাই) সচিবালয়ে আন্তমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভা শেষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বন্যা আক্রান্ত জেলাগুলোতে ২ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, সাড়ে ১৭ হাজার টন চাল এবং ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার পাঠানো হয়েছে। একইসঙ্গে এসব জেলায় ৫০০ তাঁবু পাঠানো হবে। ইতোমধ্যেই বন্যার সময় পানিবাহিত রোগসহ যেকোনও পরিস্থিতি সামলে নিতে মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। জেলাগুলোর সিভিল সার্জনকে এ বিষয়ে তদারকির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রশাসনের পাশাপাশি দলীয় নেতকর্মীদের একযোগে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অতীতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের যেকোনও জরুরি পরিস্থিতিতে একযোগে কাজ করার রেকর্ড রয়েছে। এবারও এর ব্যত্যয় হবে না। দলের পক্ষ থেকে সেভাবেই নির্দেশনা রয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আমরা কাজ করছি। ইতোমধ্যেই তিনি বন্যা পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হয়েছেন, বন্যাকবলিত জেলাগুলোর সঙ্গে তিনি সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। অতিবৃষ্টির কারণে দেশের যেসব অঞ্চলে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে, সেসব জেলায় বন্যা মোকাবিলায় পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে মাঠ পর্যায়ের সঙ্গে সমন্বয় করে ব্যাপক পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশনাও তিনি দিয়েছেন।’

এদিকে, সুনামগঞ্জের ডিসির দায়িত্বে থাকা এডিসি (জেনারেল) শরীফুল ইসলাম বলেন, ‘জেলা প্রশাসক ডিসি সম্মেলনে যোগ দিতে এই মুহূর্তে ঢাকায় অবস্থান করছেন।’ তিনি বলেন, ‘আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু নেই। হাওর অঞ্চল বলে এখানে এই সিজনে এমনিতেই পানির প্রবাহ বাড়ে। গত বছর এবারের চেয়ে বেশি পানি ছিল। এখানের ৫টি উপজেলায় বন্যার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। টিএনওরা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। পানিবন্দি মানুষদের সহায়তায় প্রয়োজনীয় জিআর চাল ও নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে।’

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা এডিসি (রেভিনিউ) আহসান হাবীব বলেন, ‘জেলার ৪টি উপজেলায় পানি বেড়েছে, তবে ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার মতো নয়। টিএনওরা কাজ করছেন। ইতোমধ্যেই ১১০ মেট্রিক টন জিআর চাল ও ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে।’ পাটগ্রাম উপজেলায় পানির প্রবাহ কম বলেও জানান তিনি।

/এমএনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

তিন ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তান বৈঠক শুরু ২৪ জুলাই

তিন ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তান বৈঠক শুরু ২৪ জুলাই

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২২:০০

করোনায় বাবা-মাকে হারিয়েছেন কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দায়িত্ব পালনকারী চিকিৎসক জাকির উদ্দিন। ছয় মাসের ব্যবধানে করোনায় বাবা-মাকে হারিয়ে ডা. জাকির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেসবুকে চিকিৎসা পেশা ছেড়ে দেওয়ার কথা জানান। 

কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা না থাকায় কুমিল্লার রেসকোর্সের বাসা থেকে হাসপাতালে আসা-যাওয়া করতেন ডা. জাকির উদ্দিন। ছয় মাস আগে মা-বাবা ও ছোট বোনসহ তিনি করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তার মা জাহানারা নাসরিন।

করোনা থেকে সুস্থ হলেও তার বাবা মারা যান চলতি মাসে। বাবাকে হারিয়ে ডা. জাকির উদ্দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখেন, ‘একদম এতিম হয়ে গেছি ছয় মাসের ভেতর। কোভিড দিয়ে মেরে ফেলছি।’ এরপর ইংরেজিতে যা লেখেন, তার বাংলা অর্থ দাঁড়ায়, ‘কোনও বাবা-মায়ের যেন আমার মতো সন্তান না থাকে, যে তার বাবা-মাকে ছয় মাসের মধ্যে মেরে ফেলেছে। আমার আর এই পেশায় থাকা উচিত না বলে মনে করি।’

ডা. জাকিরের এ স্ট্যাটাস চিকিৎসক মহলে আলোচনার জন্ম দেয়। নতুন করে আবার উঠে আসে করোনা ইউনিটে দায়িত্বপালনকারী চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন (সঙ্গ নিরোধ) বাতিলের সিদ্ধান্তের বিষয়টি।

ছয় মাসের ব্যবধানে একজন মানুষ এতিম হয়ে গেলো মন্তব্য করে চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন-বিএমএ’র কুমিল্লা জেলার সাধারণ সম্পাদক ডা. আতাউর রহমান জসিম বলেন, ‘তার (ডা. জাকির উদ্দিন) বন্ধু ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে দায়িত্বরতদের জন্য কোয়ারেন্টিন বা আবাসিক ব্যবস্থা না থাকাকে দায়ী করছেন। এ ব্যাপারে (কোয়ারেন্টিন) তাদের জন্য কী উন্নত ব্যবস্থা করা যায় না?’

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটের চিকিৎসক ডা. আতিক বলেন, ‘প্রণোদনা নেই, কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা নেই, জীবনের নিরাপত্তা নেই। আবার সরকারি চাকরি করি বলে কিছু বলতেও পারবো না। এ কেমন কথা? আমরা কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থাসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, দেশে করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর গত ১২ এপ্রিল রাজধানীর ছয় হাসপাতালের করোনায় আক্রান্ত রোগীদের স্বাস্থ্য সেবাদানকারী চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের থাকার জন্য ১৯টি হোটেল নির্ধারণ করে স্বাস্থ্য অধিদফতর। কিন্তু গত ২৯ জুলাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আবাসিক হোটেলের বিল পরিশোধ না করার সিদ্ধান্ত নেয়। সঙ্গে চিকিৎসকদের জন্য বরাদ্দ হোটেলের সুবিধাও বাতিল করে পরিপত্র জারি করে।  

কোয়ারেন্টিনের পরিবর্তে মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে বলা হয়, রাজধানী ঢাকার মধ্যে দায়িত্ব পালনকারী একজন চিকিৎসক দৈনিক দুই হাজার টাকা এবং ঢাকার বাইরে এক হাজার ৮০০ টাকা, একজন নার্স ঢাকার মধ্যে এক হাজার ২০০ ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে এক হাজার টাকা এবং একজন স্বাস্থ্যকর্মী ঢাকার মধ্যে ৮০০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৬৫০ টাকা ভাতা পাবেন।

অথচ চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চিকিৎসকরা সুপার স্প্রেডার। ১৫ দিন টানা হাসপাতালে ডিউটি করার পর নিজ দায়িত্বে কোয়ারেন্টিন সব দিক থেকেই অবৈজ্ঞানিক। তারা বলছেন, চিকিৎসকরা কোনও পাঁচ তারকা হোটেল চাননি, তারা কেবল ‘লিভিং স্ট্যান্ডার্ড’ অনুযায়ী থাকার জায়গা চেয়েছিলেন; তাদের এবং তাদের পরিবারের সবার সুরক্ষার জন্য।

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা না করলে ফল ভালো হবে না

কোয়ারেন্টিন বাতিলের সিদ্ধান্ত খুবই অমানবিক, অপমানজনক ও অবমাননাকর বলে মন্তব্য করেছেন কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে কাজ করা চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, এই সিদ্ধান্তগুলো আমলাতান্ত্রিক না হয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক হওয়া উচিত। কোভিড রোগীদের চিকিৎসা কি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা করছেন নাকি চিকিৎসকরা করছেন, এমন প্রশ্নও তুলছেন চিকিৎসকরা। একইসঙ্গে চিকিৎসকরা এও বলছেন, কোয়ারেন্টিন আমাদের ছুটি নয়, এটা হাসপাতালে কাজের একটি অংশ। কোনোভাবেই কর্তৃপক্ষ এ সময়ে আমাদের বাড়িতে পাঠাতে পারে না।

কোয়ারেন্টিন বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটিসহ চিকিৎসকদের একাধিক সংগঠন এই কোয়ারেন্টিন সুবিধার দাবি জানিয়ে এসেছে।

কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরার্মশক কমিটির ২০তম সভায় হাসপাতালে দায়িত্ব পালনরত স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা নিয়ে একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা বলছেন, চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে তাদের পরিবার পরিজনরাও কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকিতে পড়েন। তাই ডিউটি শেষে তাদের কোয়ারেন্টিনের জন্য নিরাপদ আবাসনের প্রয়োজন।

গত ৮ জুলাই বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহি উদ্দিন ও মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতেও চিকিৎসকসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টিনের বিষয়টি উল্লেখ করেন। চিঠিতে তারা বলছেন, চিকিৎসক ও সহযোগী স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টিন সুবিধা বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে চিকিৎসক এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের করোনায় আক্রান্তের হার অনেক বেড়েছে।

আবার কোনও কোনও চিকিৎসক দ্বিতীয়বার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন জানিয়ে বিএমএ’র চিঠিতে বলা হয়, দীর্ঘদিন বিরতীহীনভাবে সেবা ও তাদের কারণে পরিবারের সদস্যদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় দেশের সব চিকিৎসক চূড়ান্তভাবে মানসিক যন্ত্রণার মাধ্য দিয়ে সময় পার করছেন। 

বিএমএ’র তথ্য অনুযায়ী দেশে মহামারিকালে এখন পর্যন্ত ১৬৯ জন চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। আর গত ৮ জুলাই পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আট হাজার ২৮৩ জন স্বাস্থ্যকর্মী। তাদের মধ্যে চিকিৎসক রয়েছেন দুই হাজার ৯৫৪ জন, নার্স দুই হাজার ২৩ জন এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন তিন হাজার ৩০৬ জন।

চিকিৎসকরা মানষিকভাবে খুবই বিধ্বস্ত হয়ে গেছেন জানিয়ে বিএমএ’র মহাসচিব ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী কোয়ারেন্টিন বাতিলের সিদ্ধান্ত কতোটা অযৌক্তিক সেই প্রশ্ন তুলেছেন।

কোয়ারেন্টিন বন্ধ করে দেওয়াতে চিকিৎসকরা হাসপাতাল থেকে বাড়িতে ফিরে যাচ্ছেন, আর বাড়ি গিয়ে তারা অন্যদের সংক্রমিত করছেন। এটা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না জানিয়ে ইহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, ‘গত দেড় বছর ধরে চিকিৎসকরা বিরামহীনভাবে এই মহামারি সামাল দিয়ে যাচ্ছেন, যেটা আমার চিকিৎসক জীবনে পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘বহুসংখ্যক চিকিৎসকের পরিবারের অনেক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, মৃত্যুবরণ করেছেন। আর তাই কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থা জরুরিভিত্তিতে চালু করা উচিত; এটা বলতে বলতে ক্লান্ত হয়ে গেলাম। এভাবে যদি চলতে থাকে তাহলে কেবল মানসিকভাবে বিধ্বস্ত নয়, নানাভাবে তাতে প্রভাবিত করবে, কাজে প্রভাব ফেলবে।’

‘সরকারের প্রতি বিনীত অনুরোধ থাকবে, চিকিৎসকসহ অন্যদের কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থা চালু করার’-বলেন ইহতেশামুল হক চৌধুরী।

‘যখন কোয়ারেন্টিন বাতিল করা হয় তখনই আমরা আপত্তি করেছিলাম।’ পরার্মশক কমিটি, বিএমএ, স্বাচিপসহ প্রতিটি সংগঠন, প্রত্যেক চিকিৎসক এর বিরোধিতা করেছেন জানিয়ে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বারবার এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করার জন্য জোরালোভাবে বারবার বলেছি। কিন্তু সরকার সেটা করেনি।’

তিনি বলেন, ‘যে পরিস্থিতি এখন দাঁড়াচ্ছে, চিকিৎসকরা কিন্তু এক সময় ক্লান্ত হয়ে যাবে। এটা কেউ গ্রাহ্য করছে না। এখনও সময় আছে, চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা হোক।’

‘প্রকৃত অবস্থা হচ্ছে, একজন চিকিৎসকের জন্য পরিবার হুমকিতে পড়ছে, যেটা কেউ চায় না। নিজের জীবনের চেয়েও পরিবারের মানুষগুলো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণে কোনও চিকিৎসক কিন্তু করোনা রোগীদের চিকিৎসা করতে আপত্তি করে না, কেবল চায় হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা দিয়ে যেন তাকে তার পরিবারের কাছে ফিরতে না হয়। এটা দায়িত্ববোধের জায়গা, আর এ জন্যই চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা সরকারিভাবে করা উচিত, চিকিৎসকদের মনোবল ধরে রাখতে হলে এটা এখনি না করা হলে ফল ভালো হবে না’—বলেন অধ্যাপক ইকবাল আর্সলান।

 

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

করোনায় মারা গেলো আরও ১৬৬ জন

করোনায় মারা গেলো আরও ১৬৬ জন

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে আম পাঠালেন শেখ হাসিনা

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২০:৩০

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের জন্য ‘হাঁড়িভাঙা’ আম শুভেচ্ছার বিশেষ নিদর্শন হিসেবে পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ইসলামাবাদে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার এক হাজার কেজি 'হাঁড়িভাঙা' আম কোরবানির ঈদের দিনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের রাষ্ট্রাচার কর্মকর্তার কাছে বাংলাদেশ হাইকমিশন, ইসলামাবাদের পক্ষ থেকে হস্তান্তর করা হয়।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর এ শুভেচ্ছা উপহার পাকিস্তানের পক্ষ থেকে ধন্যবাদের সঙ্গে গৃহীত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই উপহার ভ্রাতৃপ্রতিম দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি বিশেষ নজির হিসেবে বিবেচিত হবে।

এর আগে ভারতসহ অন্যান্য দেশে আম উপহার পাঠান প্রধানমন্ত্রী। ইসলামাবাদে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তার হাতে আমের প্যাকেট তুলে দিচ্ছেন দূতাবাসের কর্মকর্তা

/এসএসজেড/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

‘ঈদে মায়ের কাছে আমরা কোনও আবদার করিনি’

‘ঈদে মায়ের কাছে আমরা কোনও আবদার করিনি’

ভিডিও বার্তায় দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা

ভিডিও বার্তায় দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা

‘সরকারি মাল দরিয়া মে ঢাল’ প্রবণতা এখন নেই: প্রধানমন্ত্রী

‘সরকারি মাল দরিয়া মে ঢাল’ প্রবণতা এখন নেই: প্রধানমন্ত্রী

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ২১:১১

জাপান সরকারের উপহারের দুই লাখ ৪৫ হাজার ২০০ ডোজ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা দেশে আসছে। শনিবার (২৪ জুলাই) বেলা ৩টা ১৫ মিনিটে টিকা বহনকারী ক্যাথে প্যাসিফিকের একটি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। টিকার বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশকে এ টিকা দিচ্ছে জাপান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকালে টিকা গ্রহণকালে বিমানবন্দরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকিসহ দুই মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন। টিকা গ্রহণ শেষে বিমানবন্দরে সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা আছে বলেও জানা গেছে।

উল্লেখ্য, জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোশিমিৎসু মোতেগি ১৫টি দেশের জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার এক কোটি ১০ লাখ ডোজ টিকা কোভ্যাক্সের আওতায় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। জাপানের উপহার পাবে এমন দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের নাম। তালিকা অনুযায়ী অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২৯ লাখ টিকা পাবে বাংলাদেশ। এরই প্রথম চালান আসছে আগামীকাল।

দেশে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলায় তৈরি কোভিশিল্ডের প্রথম ডোজ নেওয়া ৫৮ লাখ ২০ হাজার ৩০ জনের মধ্যে সাড়ে ১৪ লাখের বেশি মানুষের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছে সংকট। এদের অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকারই দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে। কেননা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এখনও দুই কোম্পানির দুই ডোজের টিকা গ্রহণের কোনও সিদ্ধান্ত দেয়নি।

 

/এসও/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

করোনায় মারা গেলো আরও ১৬৬ জন

করোনায় মারা গেলো আরও ১৬৬ জন

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

করোনায় মারা গেলো আরও ১৬৬ জন

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ১৮:৫০

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৬৬ জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এ নিয়ে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত দেশে করোনায় মারা গেলেন ১৮ হাজার ৮৫১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ছয় হাজার ৩৬৪ জন। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ১১ লাখ ৪৬ হাজার ৫৬৪ জন। একই সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন নয় লাখ ছয় জন। এদের নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হলেন নয় লাখ ৭৮ হাজার ৬১৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার ৩১ দশমিক শূন্য পাঁচ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত ১৫ দশমিক ৫০ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ আর মৃত্যুর হার এক দশমিক ৬৪ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৯ হাজার ৭০৫টি, আর পরীক্ষা হয়েছে ২০ হাজার ৪৯৩টি। দেশে এখন পর্যন্ত ৭৩ লাখ ৯৬ হাজার ৮৬৭টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে উল্লেখ করে অধিদফতর জানায়, এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হয়েছে ৫৪ লাখ ৩৬ হাজার ২০৭টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৯ লাখ ৬০ হাজার ৬৬০টি।

মারা যাওয়া ১৬৬ জনের মধ্যে পুরুষ ৯৫ জন আর নারী ৭১ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেছেন ১২ হাজার ৯৭১ জন আর নারী পাঁচ হাজার ৮৮০ জন।

১৬৬ জনের মধ্যে ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে আছেন তিন জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ২৭ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৪৬ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৩২ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ২৪ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৫ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে সাত জন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে  ২০ জন।

মারা যাওয়া ১৬৬ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৬০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৩৩ জন, রাজশাহী বিভাগের সাত জন, খুলনা বিভাগের ৩৩ জন, বরিশাল বিভাগের ১০ জন, সিলেট বিভাগের আট জন, রংপুর বিভাগের ১২ জন আর ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন তিন জন।

১৬৬ জনের মধ্যে ১২৩ জন সরকারি হাসপাতালে, ৩৯ জন বেসরকারি হাসপাতালে, আর বাড়িতে মারা গেছেন চার জন।

/জেএ/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা আইসিইউ বেড কমে ৪৫

সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা আইসিইউ বেড কমে ৪৫

ছুটিতে টেস্ট কম, তবে শনাক্তের হার ৩০ শতাংশের বেশি

ছুটিতে টেস্ট কম, তবে শনাক্তের হার ৩০ শতাংশের বেশি

রাশিয়া গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ১৭:৪৯

নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল রাষ্ট্রীয় সফরে রাশিয়া গেছেন। শুক্রবার (২৩ জুলাই) তিনি রাশিয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) জানায়, রাশিয়ার নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিকলাই আনাতোলেভিচ ইয়েভমেনভের আমন্ত্রণে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল শুক্রবার রাশিয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। এসময় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে সহকারী নৌপ্রধান (অপারেশন্স) এবং নৌ প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে নৌপ্রধানকে বিদায় জানান।

রাশিয়া সফরের সময় নৌপ্রধান আগামী ২৫ জুলাই দেশটির ৫ম মেইন নেভাল প্যারেড অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন। এসময় নৌপ্রধান ওই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশ থেকে আগত নৌবাহিনী প্রধান ও উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। পরে তিনি রাশিয়ার নৌসদর পরিদর্শনসহ দেশটির নৌবাহিনী প্রধান (Commander-in-Chief) এডমিরাল নিকলাই আনাতোলেভিচ ইয়েভমেনভ এবং উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। এছাড়া নৌপ্রধান দেশটির নৌজাদুঘর ও ঐতিহাসিক স্থাপনাসমূহ পরিদর্শন করবেন। রাষ্ট্রীয় সফর শেষে তিনি আগামী ৩০ জুলাই দেশে ফিরে আসবেন।

/জেইউ/এমএস/

সম্পর্কিত

নৌ প্রধানের সঙ্গে সেনাবাহিনী প্রধানের সৌজন্য সাক্ষাৎ

নৌ প্রধানের সঙ্গে সেনাবাহিনী প্রধানের সৌজন্য সাক্ষাৎ

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস কাল

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস কাল

ইয়াস মোকাবিলায় প্রস্তুত নৌবাহিনীর ১৮ যুদ্ধ জাহাজ

ইয়াস মোকাবিলায় প্রস্তুত নৌবাহিনীর ১৮ যুদ্ধ জাহাজ

কঙ্গোয় মিলিশিয়াদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের সফল অভিযান

কঙ্গোয় মিলিশিয়াদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের সফল অভিযান

সম্পর্কিত

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

একদিনে ঢাকায় ফিরলো ৮ লাখ সিম কার্ড

একদিনে ঢাকায় ফিরলো ৮ লাখ সিম কার্ড

বেতন ৩০ হাজার, ব্যাংকে লেনদেন শত কোটি টাকা!

বেতন ৩০ হাজার, ব্যাংকে লেনদেন শত কোটি টাকা!

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

তবুও বাইরে মানুষ

তবুও বাইরে মানুষ

ঈদ উপলক্ষে আত্মীয়ের বাসায় ঘুরতে বেরিয়ে গুনতে হচ্ছে জরিমানা

ঈদ উপলক্ষে আত্মীয়ের বাসায় ঘুরতে বেরিয়ে গুনতে হচ্ছে জরিমানা

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

খুলনার পাঁচ হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

খুলনার পাঁচ হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

বড় রাস্তায় কঠোর অবস্থা, গলিতে যেমন-তেমন 

বড় রাস্তায় কঠোর অবস্থা, গলিতে যেমন-তেমন 

সর্বশেষ

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

ঈদে হাজী দানেশের বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

সংক্রমণ ঠেকাতে ফাইজারের কার্যকারিতা কমছে: ইসরায়েলের গবেষণা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

হেরাতে তালেবান ঠেকানোর লড়াইয়ের নেতৃত্বে সাবেক মুজাহিদিন কমান্ডার

করোনার মাঝেও অলিম্পিকের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

করোনার মাঝেও অলিম্পিকের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

অলিম্পিক গেমস উপলক্ষে গুগলের ডুডল

অলিম্পিক গেমস উপলক্ষে গুগলের ডুডল

দ্বিতীয় ঢেউয়েও বাংলাদেশের অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানো অব্যাহত: এডিবি

দ্বিতীয় ঢেউয়েও বাংলাদেশের অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানো অব্যাহত: এডিবি

কোরবানির মাংস সংগ্রহ করেন প্রকৌশলী রিমন, কিন্তু কেন?

কোরবানির মাংস সংগ্রহ করেন প্রকৌশলী রিমন, কিন্তু কেন?

মদপানে ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫

মদপানে ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫

ক্লাউড উইন্ডোজ আনলো মাইক্রোসফট

ক্লাউড উইন্ডোজ আনলো মাইক্রোসফট

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আড়াই লাখ টিকা আসছে শনিবার

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

‘ফলাফল দেখা যাবে পরের সপ্তাহে, পরিস্থিতি সামলানো যাবে না’

তিন ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তান বৈঠক শুরু ২৪ জুলাই

তিন ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তান বৈঠক শুরু ২৪ জুলাই

কঠোর বিধিনিষেধ শুরু

কঠোর বিধিনিষেধ শুরু

নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

আজও মানুষ ঢাকা ছাড়ছে

আজও মানুষ ঢাকা ছাড়ছে

বিধিনিষেধ আগের চেয়ে কঠোর হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

বিধিনিষেধ আগের চেয়ে কঠোর হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

কাল থেকে শুরু ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ  

কাল থেকে শুরু ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ  

রবিবার থেকে ব্যাংক খোলা, লেনদেন হবে দেড়টা পর্যন্ত

রবিবার থেকে ব্যাংক খোলা, লেনদেন হবে দেড়টা পর্যন্ত

© 2021 Bangla Tribune