X
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে ৩ কোটি টাকা মূল্যের জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ

আপডেট : ০২ জুন ২০২০, ১২:২৮

নাটোরের লালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদুল হক মুকুলের বিরদ্ধে ২ কোটি ৮০ লাখ টাকার সম্পত্তি দখলের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিবাদমান ওই জমিতে আওয়ামী লীগের অফিস নির্মাণের কাজ শুরু করলে উপজেলা প্রশাসন তা বন্ধ করে দিয়েছে।

তবে অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা বলেছেন, জমিটি তিনি লিজ নিয়েছেন। পার্টি অফিস নয় বরং ওই জমিতে তিনি আধাপাকা ঘর নির্মাণ করতে চান।

ভুক্তভোগী লালপুরের তিলকপুর এলাকার আকছেদ আলীর ছেলে আবুল কালাম জানান, ব্রিটিশ আমলে পুঠিয়া রাজ ট্রাস্ট এস্টেট থেকে তার বাবা ৩৭ শতক জমি ডাক্তারখানা করার জন্য পত্তন পান। জমিটির জেএল নম্বর ১৯৭, খতিয়ান নম্বর ৪ ও দাগ নং ২২৬। সিএস খতিয়ানে জমিটি ৩৭ শতক থাকলেও এসএ খতিয়ানে এসে দাঁড়ায় ১৪ শতক। ওই জমির খাজনা পরিশোধ করে তার বাবা ডাক্তারি পেশার মাধ্যমে এলাকার মানুষদের চিকিৎসাসেবা দিতেন। কিন্তু জমিদারি প্রথা উচ্ছেদের পর দেশ স্বাধীনের পরবর্তী সময়ে আরএস খতিয়ান হওয়ায় ওই জমি ১ নং খাস খতিয়ানে চলে যায়। এসময় জমিটি ২৭৫ দাগসহ বিভিন্ন খণ্ডে বিভক্ত হয়। বিষয়টি জানতে পেরে তিনি আদালতে সরকারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। শুনানি চলার এক পর্যায়ে ২০১৮ সালে আদালত থেকে তাকে জমিটির স্বত্ব সম্বলিত কাগজ দেওয়া হলেও কোনও অজানা কারণে কিছুদিন পর মামলাটি খারিজ করা হয়। কিন্তু জমির স্বত্ব কাগজ থাকায় তিনি মালিক হিসেবে জমিটির দখলে ছিলেন। কিন্তু সম্প্রতি ওই মুকুল তার জমিতে পার্টি অফিস করার ঘোষণা দিয়ে ঘর নির্মাণ শুরু করেন। তিনি বাধা দিতে গেলে মুকুল জানায়, ২০০৮ সালে তিনি ওই জমিটি উপজেলা ভূমি অফিস থেকে লিজ নিয়েছেন। পরে উপজেলা প্রশাসনকে জানালে নির্মাণ কাজ বন্ধ করা হয়। জমিটি বর্তমানে ২০ লাখ টাকা শতক। উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতার পাশাপাশি বণিক সমিতির সভাপতি হওয়ায় মুকুল প্রভাব বিস্তার করছেন বলেও অভিযোগ তার।

এব্যাপারে জানতে চাইলে মুকুল জানান, ২০০৮ সালে তিনি ওই দাগে ৬৪ বর্গফুট জায়গা ও আরও দুজন সমপরিমাণ জায়গা লিজ নিয়ে খাজনাও পরিশোধ করেন। এরপর আদালতে মামলা খারিজের পর তাকে নবায়ন দেওয়া হয়৷ ২০২৫ সাল পর্যন্ত ওই জমির খাজনা পরিশোধ আছে।

তিনি আরও বলেন, প্রশাসন নিষেধ করায় কাজ বন্ধ রেখে কাজ করার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছেন। অনুমতি পেলে কাজ শেষ করবেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মুল বাণীন দ্যুতি জানান, অভিযোগ পেয়ে নির্মাণকাজ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সার্ভেয়ারকে সরেজমিন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সার্ভেয়ার শাহাদত হোসেন জানান, নির্দেশ পেয়ে তিনি মাপ করেছেন। উভয়পক্ষকে কাগজপত্র আনতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সেখানে সব ধরনের নির্মাণ কাজ বন্ধের জন্য বলা হয়েছে।

 

 

/এএইচ/

সম্পর্কিত

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ০০:৪৭

বগুড়ার ধুনটে ৩৮ দিনের শিশু আঁখি খাতুন হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হার্টে ছিদ্র থাকায় শিশুটিকে কবিরাজের কাছে নেওয়া হয়। কবিরাজের ফিটকিরির পানিপড়া খেয়ে তার মৃত্যু হয়। ভয়ে মা আদুরি খাতুন শিশুটিকে টয়লেটে ফেলে দিয়ে নিখোঁজের নাটক সাজান।

এ ঘটনায় আদুরি খাতুন (২৩) ও কবিরাজ কেছাম আলী শেখকে (৪৫) গ্রেফতার করে পুলিশ। রবিবার (২৫ জুলাই) বিকালে বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুকের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন কেছাম আলী।

এর আগে শনিবার (২৪ জুলাই) বিকালে একই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন আদুরি। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা।

ধুনট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল হক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক জানান, উপজেলার পারধুনট গ্রামের হোসেন প্রামাণিকের ছেলে ওয়াসিম প্রামাণিক সাত বছর আগে চান্দারপাড়া গ্রামের আয়তুল্লাহ মন্ডলের মেয়ে আদুরি খাতুনকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে আতিক প্রামাণিক নামে ছয় বছরের এক ছেলে আছে। গত জুন মাসে আদুরি কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। নাম রাখা হয় আঁখি খাতুন। জন্মের পর থেকে শিশুটি শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে ভুগছিল। তাকে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। 

শ্বাসকষ্ট দেখে শিশুটিকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক। সেখানে পাঁচ দিন চিকিৎসা নেওয়ার পর চিকিৎসক জানান, শিশুটির হার্টে ছিদ্র আছে। বড় হলে প্রতিবন্ধী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

হাসপাতালে থাকা অবস্থায় কয়েকটি শিশুর মৃত্যু দেখে আদুরি ভয় পেয়ে যান। তিনি হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে গত ১৬ জুলাই মেয়েকে চান্দারপাড়া গ্রামে বাবার বাড়ি নিয়ে যান। পরদিন সকালে ওই গ্রামের মৃত রহিম বক্স শেখের ছেলে কবিরাজ কেছাম আলী শেখের কাছে যান। কেছাম তাকে জানান, শিশুটির ওপর জিনের নজর পড়েছে। তিনি চিকিৎসার জন্য কলাপড়া, তাবিজ ও ফিটকিরি মেশানো পানিপড়া দেন। পাশাপাশি স্থানীয় মসজিদে মোমবাতি প্রজ্বালন করতে বলেন। বাড়ি এসে বিকালে আঁখিকে কলা, তাবিজ ধোয়া ও ফিটকিরি মেশানো পানি খাওয়ান মা। এসব খাওয়ার পর শিশুটি ঘুমিয়ে পড়ে। এ সময় শিশুটির নানি চম্পা খাতুন 
মসজিদে মোমবাতি জ্বালাতে যান। 

আঁখি ঘুম থেকে উঠলে দুধ খাওয়ানোর পর আবারও ফিটকিরি মেশানো পানি খাওয়ান মা। সেই সঙ্গে নিজেও খান। ফিটকিরি মেশানো পানি খেয়ে আঁখি নিস্তেজ হয়ে পড়ে। এতে ভয় পেয়ে শিশুটিকে মৃত ভেবে বাড়ির টয়লেটের ট্যাংকে ফেলে দেন মা। এরপর নিজে অসুস্থ ও সন্তান নিখোঁজের নাটক সাজান। চিকিৎসার জন্য নিজে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। 

১৮ জুলাই টয়লেটের ট্যাংক থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় শিশুর বাবা ওয়াসিম ধুনট থানায় অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

মামলা তদন্ত করতে গিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক জানতে পারেন, শিশুটির হত্যাকাণ্ডে মা আদুরি জড়িত। তাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার বর্ণনা দেন। শনিবার বিকালে আদালতে স্বীকারোক্তি দেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক বলেন, ঘটনার পর থেকে আত্মগোপনে থাকা কবিরাজ কেছাম আলী শেখকে রবিবার সকালে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শিশুটিকে কলাপড়া, পানিপড়া ও ফিককিরি মেশানো পানি খাওয়ানোর কথা স্বীকার করেন তিনি। বিকালে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার পর তাকেও কারাগারে পাঠানো হয়।

/এএম/

সম্পর্কিত

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

বিয়ের ৬ দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ

বিয়ের ৬ দিনের মাথায় শ্বশুরবাড়ির সামনে জামাইয়ের গলাকাটা লাশ

উগ্রবাদী বইসহ জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

উগ্রবাদী বইসহ জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

স্ত্রীর প্রতি সন্দেহে শিশুসন্তানকে হত্যা

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ০০:২৯

গাজীপুরের শ্রীপুরে আগুনে ৩৬টি বসতঘর পুড়ে গেলেও বেঁচে গেছে দুই জোড়া কবুতর। শনিবার (২৪ জুলাই) দিবাগত রাত ১২টার দিকে শ্রীপুর কেওয়া দক্ষিণ খণ্ড এলাকার ফখরুদ্দিন টেক্সটাইল সংলগ্ন ওসমান গনির মালিকানাধীন বাড়িতে এ আগুনের ঘটনা ঘটে।

ওসমান গনি জানান, ওই বাড়ির দু’একটি পরিবার ছাড়া অন্য ভাড়াটিয়ারা ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়ি চলে যান। ফলে সবগুলো ঘর ছিল তালাবদ্ধ। আগুনে বাড়ির মালামালসহ ঘরগুলো সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। কোনও কিছুই অক্ষত থাকেনি। ওই ঘরগুলোর একটিতে সপরিবারের ভাড়া থাকতেন নর সুন্দর নূর হোসেন। তার বাড়ি ময়মনসিংহের কোতয়ালি থানা এলাকায়। আগুনের খবর পেয়ে রবিবার (২৫ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে স্থানীয়দের সঙ্গে নিয়ে তিনি তার ঘরের দরজা খুলে সবকিছুই পোড়া অবস্থায় দেখতে পান। পরে বাথরুমের দরজা খুলে কবুতরগুলোকে জীবন্ত অবস্থায় দেখতে পান।

নূর হোসেন জানান, ঈদের ছুটিতে বাড়ি যাওয়ার সময় বিদেশি জাতের এই কবুতরগুলোকে বাথরুমের ভেতরে খাঁচায় আটকে রেখে খাবার দিয়ে যান।

প্রসঙ্গত, এই আগুনে ৩৬টি ঘরের কোনও আসবাবপত্র ও অন্যান্য সামগ্রীসহ কোনও কিছুই অক্ষত পাওয়া যায়নি। এমনকি প্রতিটি কক্ষের বাথরুমের দরজা ও টিনের চালগুলোও পুড়ে যায়। তবে কবুতর থাকা বাথরুম চাল ও দরজা আগুন থেকে অক্ষত ছিল।

আরও খবর:  শ্রীপুরে আগুনে পুড়লো ৩৬ বসতঘর

 
/এমএএ/

সম্পর্কিত

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২৩:৫৫

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এ কে অক্সিজেন লিমিটেড কারখানায় অভিযান চালিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সঙ্গে থাকা আনসার সদস্যরা ওই কারখানার কয়েকজন শ্রমিককে মারধর করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মারধর করায় শ্রমিকরা উৎপাদন কাজ বন্ধ করে দিয়ে সেখানে বিক্ষোভ করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে শনিবার দুপুর ১টায় উপজেলার বরপা এলাকার কারখানাটিতে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

কারখানায় কর্মরত কয়েকজন শ্রমিক জানান, অভিযানের সময় করোনা হাসপাতালে সরবরাহের জন্য অক্সিজেন উৎপাদনের কথা জানালেও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতেই আনসার বাহিনীর সদস্যরা তাদের ধাওয়া করেন। কয়েকজন শ্রমিককে তারা মারধরও করেন। তাদের মারধরে নজরুল ইসলাম নামে এক শ্রমিক গুরুতর আহত হলে তাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ সময় অন্য শ্রমিকরা উৎপাদন কাজ বন্ধ করে দিয়ে কারখানার ভেতরে বিক্ষোভ শুরু করেন। তখন ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখান থেকে দ্রুত চলে যায়। সন্ধ্যা পৌনে ৭টা পর্যন্ত শ্রমিকরা বিক্ষোভ করলে প্রায় ছয় ঘণ্টা অক্সিজেন উৎপাদন বন্ধ থাকে। পরে খবর পেয়ে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কারখানার মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দুঃখ প্রকাশ করলে ৭টার দিকে শ্রমিকরা পুনরায় কাজে যোগ দেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘স্থানীয় লোক মারফত আমরা জানতে পারি বরপা এরাকায় এ কে অক্সিজেন লি. নামের একটি কারখানায় অক্সিজেনের পাশাপাশি লোহার রড উৎপাদন কাজ চলছে। লকডাউনে শিল্প-কারখানা বন্ধ রাখার বিধিনিষেধ অমান্য করে এখানে লোহাজাতীয় সামগ্রী উৎপাদন চলছে শুনে আমরা সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করি। সেখানে গেলে আমাদের দেখে শ্রমিকরা ভয়ে দৌড়ে পালিয়ে যান। আমরা তখন কারখানার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলি। তাদের কাছ থেকে অক্সিজেন উৎপাদনের বিষয়টি জানতে পেরে আমরা সেখান থেকে চলে আসি।’ তবে আনসার সদস্যরা কোনও শ্রমিককে মারধর করেনি বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহ নুসরাত জাহান বলেন, ‘লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই বিভিন্ন কারখানায় ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করছেন। এটা উপজেলা প্রশাসনের নিয়মিত কাজের অংশ। তবে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওই কারখানায় গিয়ে অক্সিজেন উৎপাদনের কথা জানতে পেরে চলে আসেন।’

শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমরা কোনও প্রমাণ বা অভিযোগ পাইনি। যদি তদন্তে এ রকম কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নেবো।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২৩:৫৮

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার দুই বারের চেয়ারম্যান আলী আহম্মদ চুনকার স্ত্রী এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর মা মমতাজ বেগম মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

ঠান্ডাজনিত রোগে রবিবার (২৫ জুলাই) বিকাল ৫টায় নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর। রবিবার বাদ এশা বাড়ির পাশের বেপারিপাড়া জামে মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে নগরীর মাসদাইর পৌর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। তিনি তিন মেয়ে, দুই ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার ছোট ছেলে আহম্মদ আলী রেজা উজ্জ্বল নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। মায়ের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ২২:৫৪

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ডেকে নিয়ে আটকে রেখে কথিত প্রেমিক ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার বিকালে উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের শ্রীনিবাসদী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রবিবার বিকাল পর্যন্ত এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ দিতে থানায় আসেননি বলে আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক আনিচুর রহমান জানান।

নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থীর পরিবার জানায়, ঘটনার দিন বিকালে ওই শিক্ষার্থীকে তার প্রেমিক মাসুম (২৭) কথা আছে বলে মোবাইলে ফোনে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তাকে একই এলাকার একটি টিনশেড ভবনের একটি কক্ষে নিয়ে জোর করে ধর্ষণ করে। সে সময় চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করেন। ঘটনার পর শিক্ষার্থীর পরিবার থানায় অভিযোগ দিতে চাইলে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহল ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে। এমনকি ওই পরিবারকে চাপ সৃষ্টি করছে বলেও ওই শিক্ষার্থীর মা স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন। তারা প্রভাবশালীদের ভয়ে থানায় অভিযোগ দিতে পারছেন না বলে জানান।

এ ব্যাপারে পরিদর্শক আনিচুর রহমান বলেন, ‘ধর্ষণের ঘটনাটি কেউ আমাদের জানাননি। এ বিষয়ে অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

সর্বশেষ

পাথরের ধাক্কায় বিধ্বস্ত সেতু, ৯ পর্যটক নিহত

পাথরের ধাক্কায় বিধ্বস্ত সেতু, ৯ পর্যটক নিহত

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

ভারতের কাছে টি-টোয়েন্টিতেও হারে শুরু শ্রীলঙ্কার

ভারতের কাছে টি-টোয়েন্টিতেও হারে শুরু শ্রীলঙ্কার

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

পুড়ে গেছে ৩৬টি বসতঘর, বেঁচে আছে কবুতরগুলো

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

অক্সিজেন কারখানায় অভিযানে শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

মেয়র আইভীর মায়ের মৃত্যু

ভালো খেলতে পারাকেই বড় করে দেখছেন সৌম্য 

ভালো খেলতে পারাকেই বড় করে দেখছেন সৌম্য 

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

স্কুলশিক্ষার্থীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

১ কোটি ১৮ লাখের বেশি ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ

১ কোটি ১৮ লাখের বেশি ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে দুই রাজনৈতিক কর্মী নিহত

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে দুই রাজনৈতিক কর্মী নিহত

কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ৭০১ শনাক্ত, মৃত্যু ১৫

কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ৭০১ শনাক্ত, মৃত্যু ১৫

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

নৌ পুলিশের ওপর হামলা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

কবিরাজের পানিপড়া খেয়ে নিস্তেজ শিশুকে টয়লেটে ফেলে দেন মা

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

ঢাকার পথে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে ভারত থেকে আসা অক্সিজেন

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

রামেক হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সেনা সার্জেন্ট নিহত

ট্রাক্টরের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী সহোদর নিহত

ট্রাক্টরের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী সহোদর নিহত

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

আদালতের বাইরে মীমাংসা, শাস্তি হয় না পাচারকারীদের

আদালতের বাইরে মীমাংসা, শাস্তি হয় না পাচারকারীদের

যমজ সন্তান জন্মের এক সপ্তাহ পর করোনা আক্রান্ত মায়ের মৃত্যু

যমজ সন্তান জন্মের এক সপ্তাহ পর করোনা আক্রান্ত মায়ের মৃত্যু

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

© 2021 Bangla Tribune