X
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

দলীয় পদ ছাড়ার শর্তে বেফাকের মহাসচিব মাহফুজুল হক

আপডেট : ০৪ অক্টোবর ২০২০, ১৩:০০

ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাহফুজুল হক

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের (বেফাক) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মাওলানা মাহমুদুল হাসান। এছাড়া, ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সহসভাপতি হয়েছেন মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী এবং ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব পদে দায়িত্ব পেয়েছেন মাওলানা মাহফুজুল হক। তবে সংস্থাটির সভাপতি ও মহাসচিব পদে কোনও রাজনৈতিক দলের পদধারী থাকতে পারবেন না। এ অবস্থায় বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব পদ ছাড়তে হচ্ছে নবনির্বাচিত মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হককে।

শনিবার (৩ অক্টোবর) যাত্রাবাড়ীতে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের (বেফাক) কেন্দ্রীয় কার্যালয় সংলগ্ন মিলনায়তনে মজলিসে আমেলার এক জরুরি বৈঠকে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন হয়।

অন্যদিকে কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিস সনদের স্বীকৃতির জন্য সরকার অনুমোদিত সর্বোচ্চ সংস্থা ‘আল-হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ এর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বেফাকের সভাপতিই হবেন আল-হাইয়াতুল উলইয়ার সভাপতি এবং বেফাকের সিনিয়র সহসভাপতি হবেন হাইয়াতুল উলইয়ার সিনিয়র সহসভাপতি। ফলে মাহমুদুল হাসান আল-হাইয়াতুল উলইয়ার সভাপতি ও মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী হাইয়াতুল উলইয়ার সিনিয়র সহসভাপতির পদে আসবেন।

মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, আগামী কাউন্সিলের আগ পর্যন্ত নির্বাচিত তিনজন ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সবার মতামতের ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, বেফাকের ১০ম কাউন্সিল সভা অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে। সে সময় পাঁচ বছর মেয়াদি মজলিসে আমেলায় শাহ আহমদ শফী সভাপতির পদে দায়িত্ব পান। বিগত ১০ বছর ধরে তিনি বেফাকের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন। সেই কমিটিতে সিনিয়র সহসভাপতি হন জামিয়া শরইয়্যাহ মালিবাগ মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আশরাফ আলী। মহাসচিবের দায়িত্ব পান জামিয়া ইমদাদিয়া ফরিদাবাদ মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আবদুল কুদ্দুস। মাওলানা আশরাফ আলীর মৃত্যুতে মহাসচিবের দায়িত্বের পাশাপাশি ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সভাপতি দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস।

জানা গেছে, ১৮ সেপ্টেম্বর আহমদ শফীর মৃত্যুতে বেফাকের সভাপতি পদটিও খালি হয়। অন্যদিকে বেফাকের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুসের বিরুদ্ধে প্রশ্নপত্র সংক্রান্ত ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনাকে কেন্দ্র করে তার পদত্যাগের দাবি তোলেন কওমি শিক্ষার্থীরা। বাধ্য হয়ে মজলিসে আমেলার সভায় শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেন মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস।

শনিবার সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সদ্য বিদায়ী ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সহসভাপতি ও মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস। প্রথম অধিবেশনে বেফাকের সাবেক সভাপতি শায়খুল ইসলাম শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুতে পদটি শূন্য হওয়ায় মাওলানা মাহমুদুল হাসান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে মনোনীত হন। পরে তার সভাপতিত্বে দ্বিতীয় অধিবেশনে সিনিয়র সহসভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ও মহাসচিব পদ থেকে মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস পদত্যাগ করায় মাওলানা নূর হুসাইন কাসেমী সিনিয়র সহসভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) এবং মাওলানা মাহফুজুল হক মহাসচিব পদে মনোনীত হন।

নির্বাচন নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম। তিনি বলেন, সবার মতামতের ভিত্তিতে সুশৃঙ্খলভাবে নেতৃত্ব নির্বাচন করা হয়েছে।

গুলশান কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা মাহমুদুল হাসান ‘মজলিসে দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ’ নামের একটি সংগঠনের আমিরের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসারা মুহতামিম। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ১০ম কাউন্সিল সভায় বেফাকের সহকারী মহাসচিবের দায়িত্ব পান বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ও জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়ার মুহতামিম মাওলানা মাহফুজুল হক। এবার তিনি মহাসচিবের দায়িত্বে এসেছেন। বেফাকের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী মহাসচিব পদে দলীয় পদধারী থাকতে পারবেন না, তাই পদ ছাড়ার শর্তে মহাসচিব পদে এসেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, এখানে কেউ প্রার্থী ছিলেন না। যেহেতু মুরুব্বিরা আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন, আমি সে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবো। এ কারণে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস থেকে পদত্যাগ করবো।

তিন ভোট পেলেন হেফাজতের মহাসচিব
বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের (বেফাক) মজলিসে আমেলার এক জরুরি বৈঠকে ১২৫ জন সদস্য অংশ নেন। প্রথমে কণ্ঠভোটে নির্বাচনের কথা উঠলেও পরবর্তীতে ভোটের ব্যবস্থা করা হয়। মজলিসের আমেলার সদস্যরা ভোট দিয়ে তিনটি পদে নেতৃত্ব নির্বাচন করেন।

তবে এ নির্বাচনে কেউ প্রার্থী হননি। মজলিসের আমেলার সদস্যরা নিজের পছন্দের প্রার্থীর নাম কাগজে লিখে ভোট দেন। বেফাকের সহসভাপতি মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাছের নেতৃত্বে নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে ছিলেন বেফাকের তিনজন সহ সভাপতি। এরা হলেন, মাওলানা নূরুল ইসলাম, মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী ও জাফর আহমদ।

মুফতি ওয়াক্কাস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, লিখিত মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন হয়েছে। মজলিসের আমেলার সদস্যরা নাম লিখে দিয়েছেন। যার নাম বেশি এসেছে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। বেশি ভোট পেয়েছেন মাওলানা মাহমুদুল হাসান। আর সভাপতি পদে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন মাওলানা নূর হোসেন কাসেমী, তাই তাকে সিনিয়র সহসভাপতি করা হয়েছে। মাওলানা মাহফুজুল হক মহাসচিব হয়েছেন। তাকে তার রাজনৈতিক দলের মহাসচিব পদ ছাড়তে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, সভাপতি পদে মাহমুদুল হাসান পেয়েছেন ৬৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নূর হোসেন কাসেমী পেয়েছেন ৫০ ভোট। মহাসচিব পদে মাহফুজুল হক পেয়েছেন ৭৩ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাওলানা মুসলেহ উদ্দিন রাজু পেয়েছেন ৪০ ভোট।

জানা গেছে, সভাপতি হিসেবে সাতজনের নাম আসে। এরমধ্যে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব ও দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস জুনায়েদ বাবুনগরী তিন ভোট, মাওলানা আব্দুর রহমান হাফেজ্জী ও মাওলানা সাজিদুর রহমানও দুই ভোট পান।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, বেফাকের সহসভাপতি মুফতী মুহাম্মাদ ওয়াক্কাস, মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, মাওলানা নূরুল ইসলাম জিহাদী, মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, মাওলানা আব্দুল হামিদ (মধুপুর পীর), মাওলানা সাজিদুর রহমান, চরমোনাই পীর মাওলানা রেজাউল করীম, মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলিপুরী, মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু, মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, মহাপরিচালক মাওলানা যুবায়ের আহমদ চৌধরী প্রমুখ।

/সিএ/এসটিএস/টিটি/এমএমজে/

সম্পর্কিত

শেয়ার না কিনলেও মুনাফা পাওয়া যাবে

শেয়ার না কিনলেও মুনাফা পাওয়া যাবে

করোনার টিকাকে বিশ্বব্যাপী জনগণের পণ্য হিসেবে ঘোষণা করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

করোনার টিকাকে বিশ্বব্যাপী জনগণের পণ্য হিসেবে ঘোষণা করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মানবপাচারের মামলায় তুহিন সিদ্দিকী অমির ৮ সহযোগী রিমান্ডে

মানবপাচারের মামলায় তুহিন সিদ্দিকী অমির ৮ সহযোগী রিমান্ডে

যেভাবে ভারতে পাচারের শিকার হলেন তরুণী

যেভাবে ভারতে পাচারের শিকার হলেন তরুণী

লকডাউনে বন্ধ থাকবে যেসব ট্রেন

লকডাউনে বন্ধ থাকবে যেসব ট্রেন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর এসকে সুরসহ ৫ জনকে দিনভর জিজ্ঞাসা

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর এসকে সুরসহ ৫ জনকে দিনভর জিজ্ঞাসা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু ঠেকাতে সমন্বিত উদ্যোগের আহ্বান সরকারের

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু ঠেকাতে সমন্বিত উদ্যোগের আহ্বান সরকারের

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় অভ্যন্তরীণ ও বহিরাগত চাপ বেড়েছে: টিআইবি

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় অভ্যন্তরীণ ও বহিরাগত চাপ বেড়েছে: টিআইবি

কোভিশিল্ডের টিকা ১ কোটি ৯৬ হাজার ডোজ শেষ

কোভিশিল্ডের টিকা ১ কোটি ৯৬ হাজার ডোজ শেষ

দূরপাল্লার গণপরিবহনে কড়াকড়িতে যানজট, ভোগান্তি

দূরপাল্লার গণপরিবহনে কড়াকড়িতে যানজট, ভোগান্তি

পৌর আদালত শক্তিশালী করতে আইন সংস্কারের দাবি মেয়রদের

পৌর আদালত শক্তিশালী করতে আইন সংস্কারের দাবি মেয়রদের

উদ্যোক্তারা দেশের অর্থনীতির মেরুদণ্ড: পলক

উদ্যোক্তারা দেশের অর্থনীতির মেরুদণ্ড: পলক

সর্বশেষ

ইরানের রাষ্ট্রীয় দুটি নিউজ ওয়েবসাইট জব্দ করলো যুক্তরাষ্ট্র

ইরানের রাষ্ট্রীয় দুটি নিউজ ওয়েবসাইট জব্দ করলো যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৯টি দেশে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট

যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৯টি দেশে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট

রহিম স্টার্লিংয়ের গোলে চেকদের হারিয়ে গ্রুপসেরা ইংল্যান্ড

রহিম স্টার্লিংয়ের গোলে চেকদের হারিয়ে গ্রুপসেরা ইংল্যান্ড

এলএনজি আমদানিতে তিন বছরে সর্বোচ্চ ভর্তুকি

এলএনজি আমদানিতে তিন বছরে সর্বোচ্চ ভর্তুকি

যুক্তরাষ্ট্রের মহামারি মোকাবিলায় বড় হুমকি ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: ফাউচি

যুক্তরাষ্ট্রের মহামারি মোকাবিলায় বড় হুমকি ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: ফাউচি

মৃত্যুর দুই মাস পর শিক্ষিকার দুর্নীতির তদন্তে দুদক

মৃত্যুর দুই মাস পর শিক্ষিকার দুর্নীতির তদন্তে দুদক

নাটোরে ৫০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন এমপি শিমুল

নাটোরে ৫০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন এমপি শিমুল

নও মুসলিম ফারুক হত্যার বিচার দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন

নও মুসলিম ফারুক হত্যার বিচার দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন

বেলকুচি উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

বেলকুচি উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

লকডাউন না মানায় ৮২ জনকে এক লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

লকডাউন না মানায় ৮২ জনকে এক লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

চীনা প্রকৌশলীকে খুঁজতে ২ ঘণ্টা দেরিতে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিস

চীনা প্রকৌশলীকে খুঁজতে ২ ঘণ্টা দেরিতে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিস

ভারতের লিড, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের ভাগ্যে কী আছে?

ভারতের লিড, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের ভাগ্যে কী আছে?

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কবেই পদত্যাগ করা উচিত ছিল: মির্জা ফখরুল

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কবেই পদত্যাগ করা উচিত ছিল: মির্জা ফখরুল

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান বিএনপির

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান বিএনপির

ওয়াসার এমডিকে অপসারণের দাবি

ওয়াসার এমডিকে অপসারণের দাবি

মেগা প্রকল্প নিয়ে মেগা মিথ্যাচার করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

মেগা প্রকল্প নিয়ে মেগা মিথ্যাচার করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

‘মাদক নির্মূলে কয়েকশ’ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হলেও কাজের কাজ হয়নি’

‘মাদক নির্মূলে কয়েকশ’ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হলেও কাজের কাজ হয়নি’

আগামী নির্বাচনের জন্য দলকে প্রস্তুত করতে হবে: ওবায়দুল কাদের

আগামী নির্বাচনের জন্য দলকে প্রস্তুত করতে হবে: ওবায়দুল কাদের

সম্পূর্ণ সুস্থ হননি খালেদা জিয়া, উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ

সম্পূর্ণ সুস্থ হননি খালেদা জিয়া, উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ

দেশের উন্নয়ন-অর্জনই বিএনপির গাত্রদাহের কারণ: ওবায়দুল কাদের

দেশের উন্নয়ন-অর্জনই বিএনপির গাত্রদাহের কারণ: ওবায়দুল কাদের

খালেদা জিয়া কোন দেশে যেতে চান ফখরুল তা বলছেন না: হানিফ

খালেদা জিয়া কোন দেশে যেতে চান ফখরুল তা বলছেন না: হানিফ

গণতান্ত্রিক-প্রগতিশীল শক্তির আন্দোলনে ঐক্য দরকার: সাইফুল হক

গণতান্ত্রিক-প্রগতিশীল শক্তির আন্দোলনে ঐক্য দরকার: সাইফুল হক

© 2021 Bangla Tribune