X
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

পদ্মা সেতুর ব্যয় বেড়েছে তিনগুণ

আপডেট : ১০ ডিসেম্বর ২০২০, ০০:০১

পদ্মা সেতু (ছবি: ফোকাস বাংলা) স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণের সময় ও ব্যয় দুটোই বেড়েছে। শুরুতে এর ব্যয় ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা ধরা হলেও সর্বশেষ তা তিনগুণ বেড়ে এর ব্যয় আপাতত দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকায়। অপরদিকে নকশা প্রণয়ন শুরুর পর ২০১৩ সালে সেতু চালুর ঘোষণা থাকলেও নানা জটিলতায় তা বারবারই পেছাতে হয়েছে। অবশেষে স্বপ্নের এই সেতু জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২২ সালের মার্চে। অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, ২০০৭ সালে ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা সেতু প্রকল্প একনেকে অনুমোদন পেলেও বর্তমানে এটির ব্যয় ৩০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। সূত্র জানায়, ২০০৭ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি একনেকে শুরুতে পদ্মা সেতুর নকশা প্রণয়নের পর ২০১৩ সালে সেতু চালুর ঘোষণা থাকলেও পরবর্তীতে নির্মাণের ঠিকাদার নিয়োগের পর ২০১৮ সালের মধ্যে চালুর সিদ্ধান্ত হয়। সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে ২০২১ সালের ডিসেম্বরেও সেটি হচ্ছে না। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, ২০২২ সালের মার্চে পদ্মা সেতু জনসাধারণের যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, ২০১১ সালে প্রথম প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধনের পর পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় দাঁড়ায় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে এ প্রকল্পটি সংশোধন না করে ব্যয় বাড়িয়ে করা হয় ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা। চলতি ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত মূল সেতুর অগ্রগতি ৯১ ভাগ, নদী শাসন ৭৬ আর সার্বিক অগ্রগতি ৮২ দশমিক ৫ শতাংশ।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৪ সালে। এরপর প্রথম স্প্যান বসানো হয়েছিল ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। এরপর নানা চ্যালেঞ্জ নিয়ে ধাপে ধাপে স্প্যান বসতে থাকে। শুরুর দিকে একেকটি স্প্যান বসানো হয়েছে কয়েক মাসের ব্যবধানে। পরে অবশ্য দ্রুতই বসতে থাকে সেতুর স্প্যান। পাশাপাশি অভিজ্ঞতাও বাড়তে থাকে প্রকৌশলীদের। এ কারণেই শেষ দিকের স্প্যান বসাতে সময় কম লেগেছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ২০০৭ সালে একনেক ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পটি অনুমোদন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে কয়েক দফা নকশা পরিবর্তনে এর দৈর্ঘ্য ও ব্যয় বাড়তে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকার উন্নীত করে এর সংশোধিত প্রকল্প একনেকে অনুমোদন পায়। ২০১৬ সালে আবারও ৮ হাজার ২৮৬ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ে। এর ফলে প্রকল্পের মোট ব্যয় দাঁড়ায় ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। সর্বশেষ আরও ১৪শ কোটি টাকা বেড়ে তা ৩০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

সেতু বিভাগ জানিয়েছে, প্রকল্পের মূল ডিপিপি’তে ১ হাজার ৫৩০ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণের জন্য ব্যয় ধরা ছিল ১ হাজার ২৯৯ কোটি টাকা। কিন্তু মোট ভূমি অধিগ্রহণ করতে হয়েছে ২ হাজার ৬৯৮ হেক্টর। অতিরিক্ত জমি বাবদ মোট ব্যয় প্রয়োজন হয়েছে ২ হাজার ৬৯৯ কোটি টাকা। এসব কারণেই পদ্মা সেতু প্রকল্পে ভূমিসহ অধিগ্রহণ বাবদ আরও এক হাজার ৪০০ কোটি টাকা প্রয়োজন হয়েছিল।

এদিকে পঞ্চমবারের মতো সময় বাড়ানোর কারণে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে বিজয়ের ৫০তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে উদ্বোধন সম্ভব হচ্ছে না। তাই নতুন উদ্বোধন লক্ষ্য ২০২২ সালের মার্চে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে। করোনা, বন্যা, পাইলিং জটিলতাসহ নানা কারণে সেতুটির নির্মাণ সময় ৫ দফা বেড়েছে। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর প্রথম স্প্যান বসলেও পুরো ৪১টি স্প্যান বসানোর কাজ শেষ করতে সময় লাগলো ৩ বছর তিন মাস।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, কয়েক দফা নকশা পরিবর্তনের ফলে সেতুর দৈর্ঘ্য বেড়েছে। এতে ব্যয় বেড়েছে। অপরদিকে শেষ দিকে সেতুর জন্য বাড়তি কিছু জমি অধিগ্রহণ করতে হয়েছে। তাতেও বেড়েছে সেতুর নির্মাণ ব্যয়। আর নকশা পরিবর্তন হলে সেতুর দৈর্ঘ্য বাড়লে সময় তো বাড়বেই। এছাড়া এ বছর করোনোর কারণেও সেতুর কাজ অনেকটাই বাধাগ্রস্ত হওয়ায় সময় বেড়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

/এসআই/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪৩

‘শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’—এই প্রতিপাদ্যে সোমবার (১৮ অক্টোবর) প্রথমবারের মতো জাতীয় দিবস হিসেবে দেশব্যাপী ও বিদেশের বাংলাদেশ দূতাবাসগুলোতে উদযাপিত হবে শেখ রাসেল দিবস। রবিবার (১৭ অক্টোবর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে বিসিসি অডিটোরিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, দিবসটি উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু এবং শিক্ষা, শিল্পকলা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ১০টি শেখ রাসেল স্বর্ণপদক; শেখ রাসেল পদকপ্রাপ্ত ও অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ২০টি ল্যাপটপ; এলইডিপি’র আওতায় মূল অনুষ্ঠানে ৫টি এবং স্ব স্ব জেলায় ৩ হাজার ৯৯৫টি ল্যাপটপ প্রদান করা হবে। এছাড়া শেখ রাসেল শিশু-কিশোর পরিষদ ৬০টি পুরস্কার বিতরণ করবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দিবসটি উপলক্ষে আইসিটি বিভাগ ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির যৌথ উদ্যোগে ১৮ অক্টোবর সকাল ৬টায় বনানী কবরস্থানে পুষ্পস্তবক অর্পণ; সকাল ৭টায় স্ব স্ব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দফতর, সংস্থা প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানানো হবে। সকাল সাড়ে ৯টায় আইসিটি বিভাগ ও শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের যৌথ উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের (বিআইসিসি) হল অব ফেমে শেখ রাসেল দিবস এর উদ্বোধনী ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠান হবে। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকবেন।

এ দিন বিকালে বিআইসিসিতে ‘শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ শীর্ষক জাতীয় সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বুদ্ধিজীবীরা আলোচক হিসেবে এতে অংশ নেবেন। সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে কনসার্ট। এছাড়াও রয়েছে অনেক অনুষ্ঠান।

সংবাদ সম্মেলনে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘রাসেল ছিলেন অতিথি পরায়ণ, বন্ধুবৎসল ও প্রাণচাঞ্চল্যে ভরপুর এক শিশু। শেখ রাসেলের অকাল প্রয়াণের দুঃখ হয়তো কোনোদিন আমাদের শেষ হবে না। শেখ রাসেলের জন্মদিনে আমাদের কামনা ও প্রত্যাশা শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা পৃথিবীর শিশুরাই যেন নিরাপদে বেড়ে ওঠে তাদের স্বপ্ন ও সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করতে পারে সেজন্য আমরা একসঙ্গে মিলে কাজ করবো।’

তিনি জানান, সারাদেশে ৮ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নতুন করে ৫ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। এছাড়া ৩০০টি সংসদীয় আসনে স্কুল অব ফিউচার এ বছরেই স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মো. রেজাউল মাকছুদ জাহেদী ও শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের মহাসচিব কে এম শহীদুল্লাহ।

 

/এইচএএইচ/আইএ/

সম্পর্কিত

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

ডিসেম্বরের মধ্যে প্রবাসীদের জন্য সাপোর্ট সেন্টার চালুর আশা

ডিসেম্বরের মধ্যে প্রবাসীদের জন্য সাপোর্ট সেন্টার চালুর আশা

‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা চলছে’

‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা চলছে’

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১১

জরুরি ভিত্তিতে ৯ কোটি ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ কিনছে সরকার। করোনাভাইরাসের (কোভিড-৯) টিকা দিতে চীন থেকে এসব সিরিঞ্জ আনা হবে। সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) ক্রয়ের নীতি অনুসরণ করে এসব সিরিঞ্জ সরবরাহ করবে ‘চায়না ন্যাশনাল ফার্মাসিউটিক্যালস ফরেন ট্রেড করপোরেশন’।

রবিবার (১৭ অক্টোবর) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে অনলাইনে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৈঠকে করোনার টিকা দিতে জরুরি ভিত্তিতে চীন থেকে ৯ কোটি ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) কেনার সিদ্ধান্ত হয়। চীন ছাড়া এই মুহূর্তে এই বিপুল সংখ্যক সিরিঞ্জ সরবরাহের ক্যাপাসিটি কারও নেই।’

তিনি বলেন, ‘সময় যত সংক্ষিপ্ত করা যায়। করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। টিকা চলে এলে সিরিঞ্জ না থাকলে দেওয়া যাবে না। এ জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে নিয়ে আসা হচ্ছে।’

ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ ক্রয় সংক্রান্ত প্রস্তাবনায় বলা হয়, কোভিড-১৯ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে ১৩ কোটি ৮২ লাখ মানুষকে ২৭ কোটি ৬৪ লাখ ডোজ টিকা দিতে সমপরিমাণ সিরিঞ্জ প্রয়োজন। প্রতি মাসে দুই কোটি মানুষকে টিকা দিতে ৯ কোটি ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ জরুরি ভিত্তিতে ক্রয় করতে হবে। এমতাবস্থায় রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে পিপিএ ২০০৬-এর ধারা ৬৮(১) ও পিপিআর, ২০০৮-এর বিধি ৭৬ (২) অনুযায়ী, সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) প্রস্তাবিত ৯ কোটি ও ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডিসপোজেবল সিরিঞ্জ ক্রয়ের নীতিগত অনুমোদনে প্রস্তাব উপস্থাপন করা হলো।

 

/এসআই/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

পিছিয়ে যাচ্ছে সরকারিভাবে করোনা টিকা উৎপাদন

পিছিয়ে যাচ্ছে সরকারিভাবে করোনা টিকা উৎপাদন

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

৬ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

স্কুল শিক্ষার্থীদের শিগগিরই টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্কুল শিক্ষার্থীদের শিগগিরই টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশকে ২ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা উপহার দেবে রোমানিয়া

বাংলাদেশকে ২ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা উপহার দেবে রোমানিয়া

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫০

দেশে চলতি বছরের জুলাই মাসে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। পরের আগস্ট মাসে রোগী কমেছিল, সেপ্টেম্বরে সেটা আরও কমেছে। চলতি মাসেও কমতির দিকে। সর্বোপরি গত একমাস ধরেই করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। রবিবার (১৭ অক্টোবর) ভার্চুয়াল বুলেটিনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিবেশী ভারতে গত সপ্তাহে এক হাজার ৬৮৭ জন করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন। প্রতি এক লাখে মৃত্যুহার ৩২ দশমিক ৭৪ শতাংশ। ইন্দোনেশিয়ায় এ সময় মারা গেছেন ২৮৮ জন, প্রতি লাখে মৃত্যুহার ৫২ শতাংশের কিছুটা বেশি। সেখানে বাংলাদেশে গত সাত দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮৩ জন, প্রতি লাখে মৃত্যুহার ১৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ।’

গত সাত দিনে মৃতের সংখ্যা এর আগের সাত দিনের তুলনায় ৩৪ শতাংশের বেশি কমে এসেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গত সাত দিনে সংক্রমণ পাঁচ শতাংশের নিচে, গত তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে সংক্রমণের হার কমা অব্যাহত রয়েছে। গতকাল (১৬ অক্টোবর) শনাক্তের হার নেমে আসে এক দশমিক ৮৮ শতাংশে।’

নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে গত ৩০ দিনের করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত স্বস্তিদায়ক। জুলাই মাসে সবচেয়ে বেশি রোগী- তিন লাখ ৩৬ হাজার ২২৬ জন, আগস্টে এসে সেটি কমেছিল, সেপ্টেম্বরে আরও কমেছে। আজ পর্যন্ত (১৭ অক্টোবর) ৯ হাজার ২৬৩ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।’

জেলাভিত্তিক শীর্ষ ১০ জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন ঢাকায়, পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ১৪৩ জন এবং পর পরই চট্টগ্রামে ৯৯ হাজার ৩৮০ জন। প্রথম ১০ জেলার মধ্যে সবচেয়ে কম রোগী শনাক্ত হয়েছেন কক্সবাজারে।

 

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩০

দেশে করোনা সংক্রমণের নিম্নগতি অব্যাহত রয়েছে। গতকাল (১৬ অক্টোবর) চলতি বছরে প্রথম দিনের মতো দৈনিক শনাক্তের হার নেমে আসে দুইয়ের নিচে। সেই ধারা অব্যাহত রয়েছে আজও; গতকালের চেয়েও কমে এসেছে শনাক্তের হার। গত ২৪ ঘণ্টায় (১৬ অক্টোবর সকাল ৮টা থেকে ১৭ অক্টোবর সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনায় দৈনিক শনাক্তের হার এক দশমিক ৭৪ শতাংশ, গতকাল যা ছিল এক দশমিক ৮৮ শতাংশ।

তবে গতকালের তুলনার আজ শনাক্ত এবং মৃত্যু বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩১৪ জন এবং মারা গেছেন ১৬ জন। যেখানে গতকাল শনাক্ত ২৯৩ এবং মৃত্যু ছিল ছয় জন।

রবিবার (১৭ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত হওয়া ৩১৪ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৬৫ হাজার ৪৮৮ জন এবং ১৬ জনকে নিয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেলেন ২৭ হাজার ৭৬৮ জন।

করোনা থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫২৯ জন। এদের নিয়ে দেশে মোট সুস্থ হয়ে উঠলেন ১৫ লাখ ২৭ হাজার ৮৬২ জন।

দেশে এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৫১ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৬০ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৮ হাজার ৩০০টি, আর পরীক্ষা করা হয়েছে ১৮ হাজার ৯৭টি। দেশে এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে এক লাখ ৯৪ হাজার ৯২২টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৭৩ লাখ ৮৯ হাজার ৪৩১টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৭ লাখ পাঁচ হাজার ৪৯১টি। 

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৬ জনের মধ্যে পুরুষ ১০ জন এবং নারী ছয় জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৭৮৯ জন এবং নারী ৯ হাজার ৯৭৯ জন।

১৬ জনের মধ্যে বয়স বিবেচনায় সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে, পাঁচ জন। এরপর ৪১ থেকে ৫০ এবং ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আছেন চার জন করে, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে আছেন দুই জন এবং ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন।

বিভাগভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন সর্বোচ্চ সাত জন, চট্টগ্রাম বিভাগের তিন জন এবং রাজশাহী, খুলনা ও ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন দুই জন করে।

১৬ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১২ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে চার জন।

 

 

 

/জেএ/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি ২০ অক্টোবর

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩০

সরকার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীর (সা.) ছুটি ১৯ অক্টোবরের পরিবর্তে আগামী ২০ অক্টোবর (বুধবার) পুনর্নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। রবিবার (১৭ অক্টোবর) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, অ্যালোকেশন অব বিজনেস অ্যামং দ্য ডিফারেন্স মিনিস্ট্রিস অ্যান্ড ডিভিশন্স-এর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় অংশে ৩৭ নম্বর ক্রমিকের বিধানে দেওয়া ক্ষমতাবলে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে সরকারি ছুটি আগামী ১৯ অক্টোবরের পরিবর্তে ২০ অক্টোবর পুনর্নির্ধারণ করা হলো।

উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় জানানো হয়, বাংলাদেশের আকাশে কোথাও সফর মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। সেই হিসাবে ২০ অক্টোবর ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালিত হবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, যেসব অফিসের সময়সূচি ও ছুটি তাদের নিজস্ব আইন-কানুন দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয় বা যেসব অফিস, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের চাকরি সরকারের অত্যাবশ্যক চাকরি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অফিস, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান নিজস্ব আইন-কানুন অনুযায়ী জনস্বার্থ বিবেচনা করে এই ছুটি পুনর্নির্ধারণ করবে।

মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা ১২ রবিউল আউয়াল মহানবী হজরত মুহম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও মৃত্যু (ওফাত) দিবস হিসেবে পালন করেন। কারণ, এই দিনে রাসুল (সা.) ইন্তেকালও করেন। সেই হিসাবে আগামী ২০ অক্টোবর হবে ১২ রবিউল আউয়াল।

২০২১ সালের ছুটির বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী, ৮ অক্টোবর রবিউল আউয়াল মাস শুরু ধরে ১৯ অক্টোবর (মঙ্গলবার) ঈদে মিলাদুন্নবীর সরকারি ছুটি নির্ধারিত ছিল। কিন্তু এবার আরবি সফর মাস ৩০ দিনে শেষ হয় এবং রবিউল আউয়াল মাস শুরু হয় গত ৯ অক্টোবর। সেই হিসাবে এবার ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ২০ অক্টোবর।

/এসআই/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

শেখ রাসেল দিবসে দেওয়া হচ্ছে ১০টি স্বর্ণপদক ও ৪ হাজার ল্যাপটপ 

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

করোনা টিকা দিতে ৯ কোটি সিরিঞ্জ কিনছে সরকার

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি ২০ অক্টোবর

ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি ২০ অক্টোবর

ডিসেম্বরের মধ্যে প্রবাসীদের জন্য সাপোর্ট সেন্টার চালুর আশা

ডিসেম্বরের মধ্যে প্রবাসীদের জন্য সাপোর্ট সেন্টার চালুর আশা

‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা চলছে’

‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা চলছে’

এজেন্ডায় থাকতে পারে ‘অপপ্রচারকারীদের’ ফিরিয়ে আনার ইস্যু

হাসিনা- জনসন বৈঠকএজেন্ডায় থাকতে পারে ‘অপপ্রচারকারীদের’ ফিরিয়ে আনার ইস্যু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাণিজ্য, নিরাপত্তা ও জলবায়ু ইস্যু গুরুত্ব পাবে

প্যারিসে হাসিনা-ম্যাক্রোঁর বৈঠকবাণিজ্য, নিরাপত্তা ও জলবায়ু ইস্যু গুরুত্ব পাবে

সর্বশেষ

নিজেদের সামর্থ্য দেখালো স্বাগতিক ওমান

নিজেদের সামর্থ্য দেখালো স্বাগতিক ওমান

মনোনয়ন ফরম তোলার আগে জানলেন তারা ‌মারা গেছেন

মনোনয়ন ফরম তোলার আগে জানলেন তারা ‌মারা গেছেন

ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি ২৬ শতাংশই ১১-২০ বছরের

ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি ২৬ শতাংশই ১১-২০ বছরের

২৯ জেলায় শনাক্ত নেই

২৯ জেলায় শনাক্ত নেই

ঢাকা-কলকাতা রুটে ইউএস-বাংলার ফ্লাইট শুরু ২১ অক্টোবর

ঢাকা-কলকাতা রুটে ইউএস-বাংলার ফ্লাইট শুরু ২১ অক্টোবর

© 2021 Bangla Tribune