X
মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

টিউলিপ বাগানে একদিন (ফটোফিচার)

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২০:১৯

শত শত রঙিন টিউলিপ যতদূর চোখ যায়। উজ্জ্বল রঙের ফুলগুলো সারি বেধে দাঁড়িয়ে আছে বিস্ময় নিয়ে! শীতের দেশের ফুল টিউলিপ ফুটিয়ে চমক সৃষ্টি করেছেন গাজীপুরের ফুল ব্যবসায়ী ও কৃষক দেলোয়ার হোসেন। ১৬ বছর ধরে ফুল ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ‘মৌমিতা ফ্লাওয়ার্স’ এর মালিক দেলোয়ার। গত বছর নেদারল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ১ হাজার ১০০ গাছের বাল্ব উপহার হিসেবে পেয়েছিলেন তিনি। সেগুলো দিয়েই সর্বপ্রথম টিউলিপ ফুটিয়ে সবাইকে অবাক করে দেন। এ বছর ৫০০০ বাল্ব তিনি নিজেই কিনে এনেছেন। লাল, হলুদ, গোলাপি ও মাল্টি রঙা ফুল ফুটছে এখন দেলোয়ারের বাগানে। বাগানের ফুল উপহার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীকেও। আগামী বছর বাণিজ্যিকভাবে টিউলিপ চাষ করবেন বলে জানালেন তিনি। ছবিতে দেখুন দেলোয়ার হোসেনের টিউলিপ বাগান।

 

/এনএ/

সম্পর্কিত

বাহারি বরাতি রুটি (ফটোফিচার)

বাহারি বরাতি রুটি (ফটোফিচার)

বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংগ্রামী নারী (ফটোফিচার)

বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংগ্রামী নারী (ফটোফিচার)

ঐতিহ্যবাহী বাকরখানি তৈরি হয় যেভাবে (ফটোফিচার)

ঐতিহ্যবাহী বাকরখানি তৈরি হয় যেভাবে (ফটোফিচার)

হলুদ পদ্মের রাজ্যে (ফটোফিচার)

হলুদ পদ্মের রাজ্যে (ফটোফিচার)

মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ০৭:০০

‘মাতৃদুগ্ধ দানের সুরক্ষা: আমাদের সমন্বিত দায়িত্ব’ এই প্রতিপাদ্যে ১ থেকে ৭ আগস্ট বিশ্বের প্রায় ১২০টি দেশের সঙ্গে আমাদের দেশেও পালিত হচ্ছে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ। ১৯৯২ সাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সপ্তাহটি উদযাপন শুরু হয়।

 

শিশু ভূমিষ্ঠের প্রথম ঘণ্টার মধ্যে মায়ের দুধ দিলে গর্ভফুল পড়তে সহজ হয়, রক্তক্ষরণ বন্ধ হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, মাতৃদুগ্ধ পানে শিশু যেমন সুস্থ-সবল হয়ে বেড়ে ওঠে, তেমনি তার সর্বোচ্চ শারীরিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত হয়। উপকৃত হন প্রসূতি নিজেও। মাতৃদুগ্ধ পান করালে বছরে আট লাখের বেশি শিশুর জীবন রক্ষা পাবে বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

মাতৃদুগ্ধ পান করালে মায়েদের স্তন ক্যানসার, ডিম্বাশয়ের ক্যানসার, টাইপ–২ ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস পায়। শিশুর রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে। ডায়রিয়া হওয়ার প্রবণতা ও এর তীব্রতার ঝুঁকি কমাতে পারে বুকের দুধ। শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ এবং কানের প্রদাহ কমায় এটি। দাঁত ও মাড়ির গঠনে সহায়তা করাসহ অনেক উপকারিতা আছে মাতৃদুগ্ধের।

 

পর্যাপ্ত পুষ্টি সরবরাহ

জন্মের পর প্রথম ছয়মাস শিশুর রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা, দাঁত ও হাড় গঠন ও মজবুত হয় বুকের দুধের কারণে। হজম প্রক্রিয়া স্বাভাবিক রাখাসহ প্রায় সব ভিটামিন ও খনিজের যোগান দেয় বুকের দুধ। ফিডারের দুধ বা ফর্মুলা খাবার কখনই এগুলো পূরণ করতে পারে না।

 

মুখের স্বাস্থ্য

বোতলজাত দুধে অভ্যস্ত শিশুদের দাঁতে ক্যারিজ বা গর্তসহ ছত্রাক সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশি থাকে। নার্সিং বোতল ক্যারিজ নামের একটি সমস্যাও দেখা দেয়। যার কারণে বাচ্চাদের সামনের দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে অরুচি, অপুষ্টি, মনোযোগের ঘাটতি, প্রাণচাঞ্চল্য ও স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়াসহ নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে। মাতৃদুগ্ধ পানে শিশুর মুখের স্বাস্থ্য তুলনামূলক ভালো থাকে।

 

আঁকাবাঁকা দাঁত প্রতিরোধ

ব্যক্তিত্ব প্রকাশ ও আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সুন্দর সুজজ্জিত দাঁতও গুরুত্বপূর্ণ। গবেষণায় দেখা গেছে যে শিশুরা তাদের জীবনের প্রথম ছয় মাস বুকের দুধ পান করেছে তাদের এলোমেলো দাঁত হওয়ার আশঙ্কা ৭২ শতাংশ কমে যায়। স্তন্যপায়ী শিশুদের চোয়ালের গঠন ও মাংশপেশীর টান স্বাভাবিক থাকে।

 

ল্যাকটেটিং মায়েরা খেয়াল রাখবেন

বুকের দুধ পান করাচ্ছেন, এমন মায়েদের যেকোনও চিকিৎসার ক্ষেত্রে দুগ্ধপানের বিষয়টি চিকিৎসককে জানাতে হবে। কারণ অনেক ওষুধ বুকের দুধে মিশে শিশুর শরীরে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করতে পারে। তবে কোনও কুসংস্কার বা অবৈজ্ঞানিক ধারণার ওপর ভিত্তি করে শিশুর বুকের দুধ বন্ধ করা উচিত নয়।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ১৫:১২

ফেসওয়াশ, ময়েশ্চারাইজার ও লোশনের মতো প্রসাধন তৈরিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান পুদিনা পাতা। তাই ত্বকের যত্নে এটি মোটেও ফেলনা নয়।

 

ব্রণের দাগ দূর করে

পুদিনা পাতায় থাকা স্যালিসিলিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন এ ত্বকের তেলক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করে। তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ ফেটে যাওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে ও এতে দাগ হয়ে যায়। পুদিনা পাতার অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য ত্বকের প্রদাহ রোধ করে এবং ব্রণ দূর করে। পুদিনা পাতার পেস্ট ত্বকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখলে ত্বকের সূক্ষ্ম ছিদ্রগুলোও পরিষ্কার হবে।

 

ক্ষত নিরাময়

পুদিনার শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য আছে। যা ত্বকের কাটা, ক্ষত, মশার কামড়, জ্বালা-পোড়া এবং চুলকানি নিরাময়ে সহায়তা করে। সেক্ষেত্রে পুদিনা পাতার রস বের করে আক্রান্ত স্থানে লাগাতে হবে।

 

ত্বকের উজ্জ্বলতা

পুদিনা পাতা অ্যাস্ট্রিনজেন্ট হিসেবে কাজ করে যা ত্বকের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনে। এটি কোষের ছিদ্র থেকে ময়লা দূর করে এবং কোমলতা ফিরিয়ে আনে। পাশাপাশি ত্বকের রক্ত ​​সঞ্চালন দ্রুত করে। বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখাও দূর করে। এর জন্য মুখে পুদিনা পাতার প্যাক লাগিয়ে ২০-২৫ মিনিট রাখুন। এরপর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

পুদিনার অ্যান্টি-সেপটিক বৈশিষ্ট্য ত্বকে দাগ ও ফুসকুড়ি হতে দেয় না। সরাসরি সূর্যের আলোতে দীর্ঘ সময় ধরে ত্বকের ক্ষতিও কমায় পুদিনার রস। এরজন্য অন্তত প্রতিমাসে একবার ত্বকে পুদিনা পাতার রস মাখুন।

 

ডার্ক সার্কেল কমায়

পুদিনা পাতায় থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট চোখের নিচের কালো দাগ দূর করে। এর জন্য সারা রাত ডার্ক সার্কেলের ওপর পুদিনা পাতা বেটে লাগিয়ে রাখুন। এটি চোখের নিচে ত্বকের রঙ হালকা করবে।

 

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

/এফএ/

সম্পর্কিত

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ১২:১২

খাবসা মধ্যপ্রাচ্যের একটি জনপ্রিয় খাবার। এটা এক প্রকার বিরিয়ানি। সৌদি আরব, আরব আমিরাতসহ মধ্যপ্রাচ্যের আরও অনেক দেশে এটি বেশ জনপ্রিয়। মাটন বা চিকেন দুটো দিয়েই তৈরি করা যায় খাবসা।

 

যা যা লাগবে

  • দেড় কেজি করে বড় দুটি মুরগি বড় পিস করে কাটা অথবা ৩ কেজি মাটন
  • মাখন/ঘি ৩ টেবিল চামচ
  • পেঁয়াজ কুচি বড় এক কাপ
  • দারচিনি দুটি
  • স্টার মসলা দুটি
  • গোলমরিচ ১০-১২টি
  • লবঙ্গ ও এলাচ ১০-১২টি করে
  • তেজপাতা দুটি
  • টমেটো ২টি
  • টমেটো পেস্ট ১ কাপ
  • আদা ও রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ করে
  • ধনিয়া গুঁড়া ও ভাজা জিরা ২ টেবিল চামচ করে
  • আধা চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়া
  • লেবুর খোসার উপরিভাগের সবুজ অংশ (লেমন জেস্ট) আধা চা-চামচ
  • লবণ স্বাদমতো
  • বাসমতি বা চিনিগুড়া চাল ১ কেজি
  • কাজুবাদাম ও কিসমিস ২ টেবিল চামচ
  • গাজর আধা কাপ।

 

প্রস্তুত প্রণালী

  • হাঁড়িতে বাটার/ঘি ২ টেবিল চামচ দিয়ে তাতে পেঁয়াজ কুচি, দারুচিনি, স্টার মসলা, লেমন জেস্ট, গোলমরিচ, লবঙ্গ, এলাচ, তেজপাতা, টমেটো কুচি ও পেস্টে এবং স্বাদমত লবণ দিয়ে হালকা লাল করে ভেজে নিন।
  • এ সময় আধা কাপ পানি দিতে হবে যাতে হাঁড়িতে লেগে না যায়।
  • ৩-৪ মিনিট ভুনা করে এতে চিকেন বা মাটনের টুকরা দিয়ে ২ মিনিট রান্নার পর মাংস উল্টিয়ে দিয়ে তাতে ৩ কাপ পানি মিশিয়ে ১০ মিনিট রান্না করুন। এবার শুধু মাংসগুলো উঠিয়ে রাখুন।
  • চাল ভালো করে ধুয়ে একই হাঁড়িতে দিতে হবে। চালের দ্বিগুণ বা পরিমাণমতো পানি দিয়ে অল্প আঁচে ২০ মিনিট দমে রান্না করে চুলা বন্ধ করে দিন।
  • এবার একটি প্যানে বাকি ১ চা চামচ বাটার বা ঘি দিয়ে তাতে কাজুবাদাম, কিসমিস ও গাজর খানিকটা ভেজে বাটিতে তুলে রাখুন। এবার প্যানে উঠিয়ে রাখা মাংসটা দিয়ে দু’পাশ লাল করে ভেজে নিন।

 

পরিবেশন: পরিবেশনের জন্য বড় ট্রে বা প্লেটে রান্না করা বিরিয়ানি বেড়ে তার উপর চিকেন দিয়ে বাদাম, কিসমিস ও গাজর ছিটিয়ে দিলেই হয়ে যাবে খাবসা। এরপর গরম গরম পরিবেশন করতে হবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ১৩:৪০

নিজের বন্ধুদের দিকেই তাকান। একেকজনের স্বভাব একেকরকম। সম্পূর্ণ ভিন্ন ব্যক্তিত্বের হয়েও একজন আরেকজনের কাঁধে হাত রেখে চলার নাম বন্ধুত্ব। আজ বন্ধু দিবসে নিজের কোন বন্ধুকে কোন কাতারে ফেলা যায় সেটাই দেখে নিন এবার।

 

সদা যত্নশীল

বন্ধুদের দলে এমন একজন সবসময়ই থাকে, যে বাকিদের একেবারে অভিভাবকের মতো আগলে রাখে। শারীরিক-মানসিক যাবতীয় খেয়াল রাখার পাশাপাশি বিপদে এগিয়েও আসে সবার আগে। এমন বন্ধুর কথা চোখ বুঁজে বিশ্বাস করা যায় ও এদের পরামর্শও নেওয়া যায় নির্দ্বিধায়।

 

ফূর্তিতে অটুট

এই ধরনের বন্ধুকে দেখলে মনে হয় তার জীবনে বুঝি কোনও ঝামেলাই নেই! তারা জানে কীভাবে জীবনকে উপভোগ করতে হয়। নিজের যাবতীয় ঝুট-ঝামেলাকে পকেটে ভরে এরা বন্ধুদের মাতিয়ে রাখতেই সদা সচেষ্ট। অবশ্য এমন বন্ধুরাই কিন্তু বাবা-মায়ের ব্ল্যাক লিস্টের শীর্ষে থাকে! চেষ্টা করুন, এ টাইপের বন্ধুদের সমস্যাগুলো খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে বের করার।

 

আচমকা গায়েব

একটু আগেই দেখলেন পাশে বসে আছে, কিছুক্ষণ পরই হাওয়া! ফোনে একটু পর টুং করে বেজে উঠলো নোটিফিকেশন। বন্ধু লিখেছেন, ‘সরি দোস্ত, জরুরি কাজ পড়ে গেছে।’ এ ধরনের বন্ধুরা স্যোশাল মিডিয়াতেও তেমন একটা সরব থাকে না। নিজে থেকেও আপনার খুব একটা খোঁজ নেবে না। তবে এটাকে পুরোপুরি দোষ দেওয়া যায় না, এমনটা ঘটে বন্ধুর অন্তর্মুখী স্বভাবের কারণেই। এমন বন্ধু আবার মাঝে মাঝে আপনার উপকারে কাজ করে যাবে নিস্বার্থভাবেই।

 

ছিঁচকাদুনে

এরা অতি আবেগী। কথাবার্তা বলতে হয় মেপেমেপে। এই অনুতপ্ত, আবার পরক্ষণেই মুখ গোমড়া। এদেরকে মাঝে মাঝে ক্ষ্যাপানোর মধ্যেও আছে মজা!

 

খাওয়া এবং খাওয়া

এই প্রকার বন্ধুদের মাথাতেও একটা পাকস্থলী থাকে। দেখা হলে সবার আগে খাওয়ার প্রসঙ্গটাই নিয়ে আসবে ইনিয়ে বিনিয়ে। আপনি যদি বলেন-‘দোস্ত ভাল্লাগছে না।’ সে একগাল হেসে বলবে ‘কাচ্চি খেলে মন ভালো থাকে।’ তবে এদের কাছ থেকে জেনে নিতে পারবেন, কোন খাবারের জন্য কোন রেস্তোরাঁ বা কোন পেজটা বিখ্যাত।

 

সুপারহিরো

পরীক্ষার সাজেশন হোক, কিংবা বাবা-মায়ের কাছ থেকে বেড়াতে যাওয়ার অনুমতি- সব সমস্যার সমাধানে সিদ্ধহস্ত টাইপের বন্ধু এরা। প্রতিটি বিপদের জন্য একাধিক সমাধান মাথায় গিজ গিজ করে তাদের। বাসায় ঢোকার চাবি হারিয়ে গেলেও তাই এ ধরনের বন্ধুর কথা মাথায় আসবে সবার আগে।

 

সবসময় লেট

আপনি যতই দেরি করে কোনও গেট টুগেদারে হাজির হন না কেন, একজন আসবে আপনারও পরে (হতে পারে সেটা আপনি!) অবশ্য এ কারণে ওই বন্ধুর মধ্যে বিন্দুমাত্র অনুশোচনা দেখবেন না। শত হলেও বন্ধুই তো। বড় করে হাই তুলতে তুলতে হয়তো বলবে, এই একটু লেট হয়ে গেলো।

 

পকেট ফাঁকা যার

এই বন্ধুর পকেট সবসময় গড়ের মাঠের মতো ফাঁকা থাকে। যথারীতি বাকি বন্ধুদের পকেটগুলোকে তার কাছে ক্রেডিট কার্ডের মতো মনে হয়। তবে এ ধরনের বন্ধু আবার আপনার বিপদে নিজের সবটুকু দিয়ে ঝাঁপিয়েও পড়বে।

 

অফিশিয়াল ফটোগ্রাফার

ট্যুরে আর কেউ যাক বা না যাক, ওই বন্ধুটা যাচ্ছে কিনা তার খোঁজ সবাই নেবে। এর সঙ্গে ওর, ওর পেছনে তাকে আর সবার সঙ্গে সবার ছবি তুলতে যার একটু ক্লান্তি নেই। এমন বন্ধু থাকলে আর নিজের ফোনের মেগাপিক্সেল নিয়েও ভাবতে হবে না।

/এফএ/

সম্পর্কিত

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

আজ বন্ধু দিবস

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ০৭:৩০

আমেরিকান লেখক, সমাজকর্মী ও শিক্ষক হেলেন কেলার বলেছিলেন, ‘আলোকিত পথে একা হাঁটার চেয়ে বন্ধুর সঙ্গে অন্ধকারে হাঁটা ভালো।’ এই আলো-আঁধারি বলতে তিনি মূলত সুদিন আর দুর্দিন বুঝিয়েছেন। কিন্তু করোনাকালের হিসাবটা একটু আলাদা। আপাতত আজকের বন্ধু দিবসে বন্ধুর সঙ্গে হাঁটার চেয়ে দুজন ঘরে বসে অনলাইনে আড্ডা দেওয়াই শ্রেয়।

 

কবে থেকে বন্ধু দিবস?

বন্ধু মানেই ঠাট্টা-ভালোবাসা-দুষ্টুমি। বন্ধু ছাড়া জীবন চলতেই চায় না। তাই বন্ধুত্বকে ঘটা করে উদযাপন করতে চালু হয়েছিল বন্ধু দিবস।

প্যারাগুয়েতে ১৯৫৮ সালে বন্ধু দিবস পালনের প্রস্তাব রাখলেও, বড় পরিসরে এর চল শুরু হয় আমেরিকায়। বন্ধু দিবসের উৎপত্তি নিয়ে মতভেদও রয়েছে। অনেকের মতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা, বিশৃঙ্খলা ও হিংস্রতা মানুষের মধ্যে বন্ধ‍ুত্বের অভাব তৈরি করেছিল। সেটা ‍পূরণ করতেই বন্ধু দিবস পালনের ধারণা আসে।

আবার, ১৯১৯ সালের আগস্টের প্রথম রবিবার থেকেও কিছু দেশে চালু হয় বন্ধু দিবস। এদিন বন্ধুরা নিজেদের মধ্যে কার্ড, চকলেট ও ফুলসহ নানান উপহার বিনিময় করে।

আবার উপহার আদান-প্রদানের কথা মাথায় রেখে হলমার্কের প্রতিষ্ঠাতা জোয়েস হল ১৯৩০ সাল থেকে আগস্টের ২ তারিখ বন্ধু দিবসের ঘোষণা দেন। তার ঘোষণার পরপরই দিবসটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। রাতারাতি তার দোকানে কার্ড কেনার ধুম লেগে যায়৷ যদিও পরে মানুষ জানতে পারে এর পেছনের ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যের কথা।

১৯৯৮ সালে জাতিসংঘের এক অনুষ্ঠানে সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনানের স্ত্রী ন্যানে আনান ডিজনি'র কার্টুন চরিত্র 'উইনি দ্যা পুহ'-কে বন্ধুত্বের মাস্কট হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেন।

আন্তর্জাতিকভাবে দিবসটি পালনের কথা তোলেন প্যারাগুয়ের চিকিৎসক রিম্যান আর্থেমিও ব্রেচকে। ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই বন্ধুদের নিয়ে এক নৈশভোজে বন্ধু দিবস পালনের প্রস্তাব তোলেন। সে রাতেই বিশ্বব্যাপী বন্ধুত্বের ঐক্য ছড়িয়ে দিতে ঘোষণা করা হয় 'ওয়ার্ল্ড ফ্রেন্ডশিপ ক্রুসেড।'

কিন্তু সমস্যা হলো একেক দেশে একেক তারিখে এ দিবস পালিত হচ্ছে। এই সমস্যা দূর করতে ২০১১ সালের ২৭ জুলাই জাতিসংঘের ৬৫তম সাধারণ সমাবেশে ৩০ জুলাইকে 'আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস' হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। তবে জাতিসংঘের ঘোষণার পরও আগস্টের প্রথম রবিবারই বন্ধু দিবস পালন করে বাংলাদেশ, ভারত ও মালয়েশিয়াসহ আরও কিছু দেশের মানুষ।

 

কার কী প্ল্যান?

আগে স্কুল যখন খোলা থাকতো, তখন স্কুলেই বন্ধুদের সাথে বন্ধু দিবস উদযাপন করতো রাজধানীর কলেজপড়ুয়া ইকরা। কে কতগুলো ফ্রেন্ডশিপ ব্যান্ড পেলো, এ নিয়ে চলতো কাড়াকাড়ি। অবশ্য শিক্ষকদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে খুব কম ব্যান্ডই সে নিজের কাছে রাখতে পারতো। এবার যেহেতু সামনা-সামনি দেখা হচ্ছে না, তাই ইকরা ও তার বন্ধুরা মিলে ঠিক করেছে ভিডিও কলে আড্ডা দেবে।

অন্যদিকে ভালো আঁকতে পারে দেখে বন্ধুমহলে সুখির বেশ সুনাম। তাই বন্ধু দিবসে সে তার প্রত্যেক বন্ধুকে কার্ড বানিয়ে উপহার দিতো। এবার হাতে হাতে কার্ড দিতে না পারার কারণে তার একটু মন খারাপ। কিন্তু বন্ধুদের সঙ্গে তোলা ছবিগুলো দিয়ে একটি ভিডিও বানিয়েছে সে। সেটা আপলোড দেবে ফেসবুকে।

রায়তা ঠিক করেছে জুম কলে একসঙ্গে বন্ধুদের সঙ্গে মজার কোনও সিনেমা দেখবে। সামনা-সামনি উপহার দিতে না পারায় জোয়া তার প্রিয় বন্ধু মালিহার জন্য অনলাইনে কেক ও বই অর্ডার করে পাঠিয়ে দিয়েছে তার বাসায়।

ঘরবন্দি হোক আর ঘরের বাইরে থেকে, বন্ধু দিবসের ষোলোআনা আনন্দটা আদায় করা চাই-ই।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

শিশুর মুখের স্বাস্থ্যে বুকের দুধ

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

ত্বকের যত্নে পুদিনার গুণগুলো জানতেন কি?

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

রেসিপি : আরব দেশের খাবসা

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

বন্ধু আছে কতপ্রকার!

সর্বশেষ

ইউনেসকো'র বাংলাদেশ অফিসে চাকরি

ইউনেসকো'র বাংলাদেশ অফিসে চাকরি

উন্নত প্রযুক্তির নিরাপত্তা পণ্য ভালো শর্তে ক্রয়ে আগ্রহী বাংলাদেশ

উন্নত প্রযুক্তির নিরাপত্তা পণ্য ভালো শর্তে ক্রয়ে আগ্রহী বাংলাদেশ

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৪ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৪ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে একদিনে আরও ১৭ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে একদিনে আরও ১৭ মৃত্যু

মাদ্রাসায় রাতের খাবারের পর ছাত্রের মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ১৭

মাদ্রাসায় রাতের খাবারের পর ছাত্রের মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ১৭

বাংলাদেশের 'বিশ্বকাপ' শুরু তো আজ থেকেই!

বাংলাদেশের 'বিশ্বকাপ' শুরু তো আজ থেকেই!

ভালো মানের উপহারের ঘরে খুশি মুক্তাগাছার সুবিধাভোগীরা

ভালো মানের উপহারের ঘরে খুশি মুক্তাগাছার সুবিধাভোগীরা

চট্টগ্রামে করোনায় আরও ১০ মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত

চট্টগ্রামে করোনায় আরও ১০ মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত

৫০ বছরেও ভাগ্য বদলায়নি বীর মুক্তিযোদ্ধার

৫০ বছরেও ভাগ্য বদলায়নি বীর মুক্তিযোদ্ধার

কথা রাখেননি গার্মেন্টস মালিকরা

কথা রাখেননি গার্মেন্টস মালিকরা

শেষদিনে অফিসারের গাড়িতে বাড়ি ফিরলেন কনস্টেবল ফারুক

শেষদিনে অফিসারের গাড়িতে বাড়ি ফিরলেন কনস্টেবল ফারুক

কক্সবাজারে এক বছরে ১৬টি বাচ্চা দিলো বন্য হাতি

কক্সবাজারে এক বছরে ১৬টি বাচ্চা দিলো বন্য হাতি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বাহারি বরাতি রুটি (ফটোফিচার)

বাহারি বরাতি রুটি (ফটোফিচার)

বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংগ্রামী নারী (ফটোফিচার)

বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংগ্রামী নারী (ফটোফিচার)

ঐতিহ্যবাহী বাকরখানি তৈরি হয় যেভাবে (ফটোফিচার)

ঐতিহ্যবাহী বাকরখানি তৈরি হয় যেভাবে (ফটোফিচার)

হলুদ পদ্মের রাজ্যে (ফটোফিচার)

হলুদ পদ্মের রাজ্যে (ফটোফিচার)

© 2021 Bangla Tribune