X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

কন্যাশিশুর আত্মবিশ্বাস বাড়াতে চান? শুরুতেই করুন এ কাজগুলো

আপডেট : ১৩ মার্চ ২০২১, ১২:৩৩

‘প্যারেন্টিং’ মানেই শুধু যত্ন-আত্তি আর তিন বেলা সময় করে খাওয়ানো নয়। শিশুকে শেখাতে হয়, গড়ে তুলতে হয় অনেক নতুন পরিস্থিতির জন্য। এ উপমহাদেশের সামাজিক চক্রটা এমন পোক্ত যে, শুরু থেকেই কন্যাশিশুর সামাজিকীকরণে একটু বাড়তি নজর না দিলেই নয়। আর মেয়েকে যদি ভালোমতো আত্মবিশ্বাসী করে তুলতে চান, তবে টাইমস অব ইন্ডিয়ার টিপসগুলো অনুসরণ করতে পারেন নির্দ্বিধায়।

শুরু থেকেই
মেয়ের বয়স বাড়ার জন্য বসে থাকলে হবে না। মন গঠনের ট্রেনিংটা দিতে হয় শিশুকাল থেকেই। এতে বড় হয়ে যতই ঠোকর খাক, আত্মসম্মান থাকবে অটুট।

বড় স্বপ্ন
শুরু থেকে মেয়েশিশুকে এটা বোঝাতে যাবেন না যে তাকে ঘরের কাজেও বাড়তি মনযোগ দিতে হবে। ঘরের কাজের গণ্ডি ছাড়িয়ে বড় স্বপ্ন দেখাতে শেখান। ঘরের কাজে আগ্রহী হলে তাতে বাধা নেই বটে, তবে খেয়াল রাখবেন কেউ যাতে মজা করেও যেন না বলে-খুকি এটা কিন্তু তোমার কাজ!

সমর্থন দিতেই থাকুন
আপাতদৃষ্টে শিশুরা উল্টোপাল্টা ইচ্ছের কথা বলবেই। কিন্তু তাতে সরাসরি না বলতে যাবেন না। একপর্যায়ে শিশুর সেই ‘উল্টোপাল্টা’ ইচ্ছেটাই দেখবেন ধীরে ধীরে পরিশালীত হচ্ছে। আর তার এ চর্চায় আপনার কাজ একটাই, যতভাবে পারুন তাকে সমর্থন দিন।

সমাজ হতে সাবধান!
এই সমাজকে না যায় ধরা, না যায় ছোঁয়া। এড়ানোর জো নেই, আবার বেশি প্রশ্রয় দিলেই উটকো ঝামেলা। আপাতত নিজের কন্যাশিশুটিকে ‘সমাজের প্রত্যাশা’ থেকে দূরে রাখুন। সমাজের কোনও কিছু যেন তার চিন্তার জগতে কম্বলের মতো জেঁকে না বসে সেদিকে নজর রাখতে হবে আপনাকেই। শুরুর দিকে মনে করুন আপনিই তার ‘সমাজ’। ভালো-মন্দ, বিপদজনক কাজ, নিরাপদ থাকার কৌশল; এসব শেখান ধীরেসুস্থে। আগাগোড়া আটকানো একটা সমাজের মগজজাত মানুষ যেন না হয় সে।

গঠন নিয়ে মন্তব্য নয়
নিজে তো বটেই, অন্য কাউকেও নিষেধ করে দিন যেন শিশুর সামনে তার শারীরিক গঠন বা অন্য কোনও বৈশিষ্ট্য নিয়ে অযাচিত মন্তব্য না করে। বিশেষ করে মেয়েশিশুদের ক্ষেত্রে আমাদের এদিকটায় এমন মন্তব্যের বেশ চল আছে। অথচ দেখুন, ক’দিন আগেই ব্রিটিশ রাজ পরিবারের এক শিশুর গায়ের রঙ নিয়ে করা মন্তব্য নিয়ে আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় কেমন হইচই পড়ে গেল!

বিনোদনের খোরাক নয়
অনেক অভিভাবকই সুযোগ পেলে নিজের শিশুদের উৎসাহ দিতে থাকেন অন্যের সামনে কিছু করে দেখানোর। বিশেষ করে মেয়েশিশুদের তো ‘একটু নেচে দেখাও’, ‘ছড়া পড়ে শোনাও’ এসব প্রায়ই শুনতে হচ্ছে। এতে শিশুর চেহারায় খুশি খুশি ভাব দেখা গেলেও তার আত্মবিশ্বাসে কিন্তু চিড় ধরবে। মনে রাখবেন, সবাইকে বিনোদিত করা কিন্তু আপনার কন্যাশিশুর কাজ নয়।

অপশন দিন
খেলনা হোক, ছবি আঁকার বিষয় হোক বা নতুন কিছু করা; শিশুকে একগাদা অপশন দিন। যেন সে নিজের মতো করে বেছে নিতে পারে। এখানেও দেখা যায় আমাদের এদিকটায় মেয়েশিশুর হাতে অপশন দেওয়া হয় কম। বিশেষ করে খেলনা বাছাইয়ে এমনটা দেখা যায়। মেয়েশিশু মানেই যে হাড়ি-পাতিল বা বসে বসে ছবি আঁকা শিখবে এমনটা নয়। অনেকগুলো অপশন তার সামনে রাখুন, বেছে নিতে নিতে একসময় একটা কিছুর প্রতি তার আত্মবিশ্বাস জন্মাবেই।

চাই রোল মডেল
আপনি নিজে বড় কিছু হতে নাও পারেন, কিন্তু স্বপ্ন আছে মেয়ে একসময় বিরাট কিছু হয়ে দেখাবে। তাই সময় থাকতে, অর্থাৎ মেয়েটা ছোট থাকতেই চেষ্টা করুন তাকে তেমন বিরাট কারোর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে। অনুকরণীয় ব্যক্তিত্বের সান্নিধ্যে যত আসবে, তত বাড়বে আত্মবিশ্বাস। ততই সে বুঝতে পারবে, আরে! চাইলে তো আমিও এমন হতে পারি!

/এফএ/এনএ/

সম্পর্কিত

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪০

শশব্যস্ত জীবনের সঙ্গে করোনা আর ডেঙ্গু- দুশ্চিন্তাটা যেন লেগেই আছে। কিন্তু এটাকে যদি এড়িয়ে চলতে না পারেন তবে মনের সঙ্গে সঙ্গে শরীরেও দানা বাঁধবে অনেক রোগ। চলুন জেনে নেওয়া যাক, শরীরের কোথায় কেমন ক্ষতি করে দুশ্চিন্তা।

 

স্নায়ুতন্ত্র

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তার কারণে আমাদের স্ট্রেস হরমোনগুলো দ্রুত নিঃসৃত হয়। যা আমাদের হার্টবিট ও শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিকের চেয়ে দ্রুত করে। ব্লাড সুগার বাড়িয়ে দেয়, হাত ও পায়ের রক্ত চলাচলও বেড়ে যায়। এর দীর্ঘস্থায়ী নেতিবাচক প্রভাব আপনার শিরা-ধমনি, হৃদযন্ত্র, পেশি এবং অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পড়বে।

 

শ্বাস-প্রশ্বাস

যাদের হাঁপানি বা ফুসফুসের রোগ আছে, তাদের জন্য দুশ্চিন্তা মারাত্মক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। দুশ্চিন্তার কারণে দ্রুত ও জোরে শ্বাস নেওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়। আর তাতেই দেখা দেয় কিছু সমস্যা।

 

হৃদযন্ত্র

দুশ্চিন্তা আপনার উচ্চ রক্তচাপ, হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। উচ্চমাত্রার উদ্বেগ স্ট্রেস হরমোনগুলোকে ট্রিগার করে। যা আপনার হৃদস্পন্দন দ্রুত ও হৃৎপিণ্ডে পেশীকে শক্ত করে দেয়। যদি এটি বারবার ঘটে, তবে আপনার রক্তনালীগুলো ফুলে যেতে পারে। যার কারণে ধমনীতে হতে পারে ব্লক।

 

পরিপাকতন্ত্র

দুশ্চিন্তার পেছনেই যদি মস্তিষ্ক বেশি সক্রিয় থাকে, তবে কমে আসতে থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। এতে শরীর জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে না। অতিমাত্রায় টেনশনের ফলে ফ্লু, হারপিস ও অন্যান্য ভাইরাসজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। একইসঙ্গে এটি আলসার ও কিডনির সমস্যাও তৈরি করে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৭

ইদানিং ধানচাষে যে পরিমাণ কীটনাশক ও রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় তাতে চালও হয়ে গেছে কারসিনোজেন তথা ক্যানসার সৃষ্টিকারী খাবার। আবার জমিতে থাকা আর্সেনিক সহজেই গাছ বেয়ে চলে আসতে পারে ধানে। এতেও আপনার রান্না করা সাদামাটা ভাতটা হয়ে উঠতে পারে প্রাণঘাতী রোগের কারণ। গরম গরম রান্না করা ভাত খেলেও দেখা দিতে পারে নানা ধরনের বিষক্রিয়া, এমনকি ক্যানসারও। ইংল্যান্ডের কুইনস ইউনিভার্সিটি অব বেলফেস্ট ও ক্যালিফোর্নিয়া টিচারস স্টাডির গবেষণায় উঠে এসেছে এমন অনেক তথ্য-প্রমাণ।

গবেষকরা চালে আর্সেনিকের আশঙ্কাই করছেন বেশি। যার কারণে হতে পারে তীব্র পেট ব্যথা, বমি ও ক্যান্সার। এ কারণে গবেষকরা দিয়েছেন কিছু সমাধানও।

কুইনস ইউনিভার্সিটি অব বেলফাস্ট জানালো চালকে আর্সেনিকমুক্ত করার সবচেয়ে ভালো উপায়টা হলো রান্নার আগে সেটাকে সারারাত ভিজিয়ে রাখা। এতেই চালের ৮০ ভাগ আর্সেনিক চলে যায়। সারারাত ভেজানো সম্ভব না হলেও অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা ভেজালেও চাল হবে নিরাপদ।

আবার রান্নার সময় এক কাপ চালে ৫ কাপ পানি ব্যবহার করতেও বলেছেন গবেষকরা। রান্না হলে অতিরিক্ত পানি ঝরিয়ে ফেললেও আর্সেনিক দূষণ রোধ করা সম্ভব।

 

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২৭

ভোজনরসিকের কাছে গলির টং-এর দোকানের চায়েরও র‍য়েছে আলাদা কদর। তেমনি অনেকে আছেন যারা লোকাল ফাস্টফুড আইটেম পেলেই বর্তে যান। নগরীতে এমন কিছু ফাস্টফুড শপ আছে, ভোজনরসিকরা যেগুলোকে ভালোবেসে আপন করে নিয়েছেন। দিনে দিনে রেস্তোরাঁগুলো বেড়ে উঠেছে যার যার সিগনেচার স্টাইলে। এমন সব ফুড শপ নিয়ে নিয়মিত আয়োজনে আজ থাকছে পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এর কথা।

ফাস্ট ফুড মানেই তো পিজ্জা, বার্গার, স্যান্ডউইচ, ফ্রাইস, প্ল্যাটারস, টাকোস, স্টেক, নাগেটস। তবে এদের মধ্যে পিজ্জার জনপ্রিয়তা বেশি। এর পরই আছে হরেক পদের বার্গার।

 

পিজ্জাবার্গ

কথা হলো সরকারি রূপনগর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির সৈকতের সঙ্গে। তার মতে, পৃথিবীতে পিজ্জার চেয়ে সুস্বাদু আর কিছু নেই। আর ঢাকায় পিজ্জা খেতে হলে সে ছুট লাগায় পিজ্জাবার্গ-এ। চলে গেলাম সৈকতের কথা শুনে।

পিজ্জাবার্গের মিরপুর শাখায় গিয়েই দেখলাম নগরীর সব পিজ্জাখেকোদের মেলা বসেছে যেন। নজর কাড়লো একটা বিষয় ছোট-বড় সববয়সী পিজ্জা পছন্দ করা মানুষ দেখে। ইন্টেরিয়রটাও বেশ স্পোর্টি। চোখের জন্য আরামদায়ক করেই সাজানো হয়েছে আলোকসজ্জা। সৈকতের মতো আরও অনেক কলেজপড়ুয়ার দেখা মিললো এখানে এসে।

কথা হলো পিজ্জাবার্গের প্রতিষ্ঠাতা মির মেহেদীর সঙ্গে। মেহেদী জানালেন, ‘ছোটবেলায় প্রচুর পিজ্জা খেতাম। অনেক সময় দাম পড়ে যেত বেশি। পকেটে টান থাকলে তিনজন ভাগ করে খেতাম। তবুও নানান ফ্লেভারের পিজ্জা খেতে চাইতাম। তখন থেকেই ঠিক করি বড় হয়ে পিজ্জার সঙ্গে বাঙালিয়ানা যোগ করে স্বাদে নতুনত্ব আনবো।’

পিজ্জাবার্গের পিজ্জা

অনেক রকম পিজ্জা তৈরি করে পিজ্জাবার্গ। এর মধ্যে আছে সসেজ কারনিভাল, চিজ ফাউন্টেন, মিটি অনিওন, টেন্ডার বিফ, লেয়ার কেক পিজ্জা, ফায়ার বল, ডিপ সি ফ্যান্টাসি, মিট মাসালা, চার স্বাদের মিক্স পিজ্জা, বারবিকিউ মিটি মেশিন পিজ্জাসহ আরও কয়েক পদের পিজ্জা। পিজ্জালাভাররা রীতিমতো ধন্দে পড়ে যাবেন, কোনটা ছেড়ে কোনটা খাবেন।

ঢাকাজুড়ে ৮টি শাখা রয়েছে পিজ্জাবার্গের-ধানমন্ডি, মিরপুর-২, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, উত্তরা, খিলগাঁও, শ্যামলি, বনশ্রী ও ওয়ারিতে। দাম ২৫০ থেকে শুরু করে ৯৩৫ টাকা।

 

ডনমেক

ফাস্টফুড নিয়ে নেটে খানিকটা ঘাঁটাঘাঁটিতে জানা গেলো শহরে এসেছে তুরস্কের ফ্লেভারে নতুন ফুডপ্লেস-ডনমেক। ডনমেক-এ রয়েছে টার্কিশ, জার্মান, অস্ট্রেলিয়ানসহ আরও অনেক । তাদের তুর্কি ডোনার কাবাব ইতোমধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে। রিভিউ দেখে যাওয়া হলো ডনমেক-এ। কথা হলো প্রতিষ্ঠাতা শাফাকাত মোবাশ্বিরের সঙ্গে।

জানালেন, বনানী ১১ নম্বর রোডে অবস্থিত ‘দুরুম-টার্কিশ ডোনারের’ সাফল্যই অনুপ্রেরণা দিয়েছে তাকে। প্রিমিয়াম কোয়ালিটির ডোনার শপ ‘ডনমেক’ প্রতিষ্ঠিত করেছেন সেই অনুপ্রেরণাতেই।

টার্কিশ ভোজনপ্রেমীরাও চাইলে ঘুরে আসতে পারেন ছিমছাম এই রেস্তোরাঁ থেকে। বনানীর ২৭ নম্বর রোডের হাউস নং ৮ (কে ব্লক)-এ গেলেই নাকে আসবে কাবাবের ঘ্রাণ। দাম একেবারে বলা যায় হাতের নাগালেই। ২০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যেই পাবেন জার্মান ডোনার কাবাব, টার্কিশ ডোনার কাবাব র‍্যাপ, হালাল স্ন্যাক প্যাক, গ্রিলড চিজ ডোনার, ডোনার নাচোস, ডোনার রাইস প্লাটার, ডোনার সালাদসহ আরও অনেক কিছু। তবে খাবারের স্বাদ বাড়িয়ে দিতে ভেতরকার পরিবেশ ও কর্মীদের আতিথেয়তাও কিন্তু কম ভূমিকা রাখবে না!

/এফএ/

সম্পর্কিত

বিশ্বজুড়ে পিৎজার যত আজব টপিংস!

বিশ্বজুড়ে পিৎজার যত আজব টপিংস!

ইয়োগায় যা করা যাবে না

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫০

করোনাকালে বাসায় করা ব্যায়ামের তালিকায় ইয়োগা উঠে এসেছে এক নম্বরে। এ সময় অনেকেই শিখেছেন এটি। ইউটিউব দেখে শিখলেও, দেখা গেলো কিছু নিয়মকানুন না জানায় ইয়োগা করতে গিয়ে বড় ধরনের ভুল করে বসছেন কেউ কেউ।

 

শুরুতেই কঠিন নয়

ইয়োগার কিছু আসন আছে বেশ কঠিন। শুরুতেই ওইরকম কোনও আসন চর্চা করতে গেলে ক্ষতিও হতে পারে। হারিয়ে যেতে পারে ইয়োগার আগ্রহটাও। তাই শুরুর দিকে বেছে নিন প্রাণায়ামের মতো সহজ কোনও আসন।

 

আবহাওয়া

খুব গরম বা ঠান্ডার মধ্যে ইয়োগা করতে যাবেন না। বাতাসের বেশি আর্দ্রতাও ইয়োগার জন্য অনুকূল নয়।

 

শ্বাস-প্রশ্বাস

ইয়োগা বা ব্যায়ামের কোনও কোনও পর্যায়ে অনেকেই অবচেতনে দম আটকে রাখেন। এতে অস্বস্তিকর একটা অনুভূতিতে পড়তে হয়। ইয়োগার নিয়ম মেনে শ্বাস-প্রশ্বাস যতটা সম্ভব স্বাভাবিক রাখুন।

 

খাওয়ার পর বারণ

খাওয়া থেকে উঠেই ইয়োগা শুরু করে দেবেন না। ভারী কিছু খেলে কমপক্ষে ২-৩ ঘণ্টা অপেক্ষা করুন।

 

ক্লান্ত শরীরে নয়

ইয়োগাকে অনেকে কম পরিশ্রমের ব্যায়াম মনে করেন, যা ঠিক নয়। ইয়োগাতেও ঘাম ঝরতে পারে। তাই অসুস্থ বা খুব ক্লান্ত থাকলে ইয়োগা করতে যাবেন না।

 

প্রশিক্ষণ নিন

বই বা ভিডিও দেখেই সঙ্গে সঙ্গে ইয়োগা শুরু করবেন না। ভালো একজন প্রশিক্ষক না পেলে অন্তত ইয়োগা জানে এমন কাউকে পার্টনার হিসেবে নিন। কারণ নিয়মে একটু উল্টোপাল্টা হলেই দেখা যাবে মাসল পুল হচ্ছে বা ব্যথায় কাতর হয়ে পড়ছেন।

 

টাইট পোশাক নয়

ইন্টারনেটে ইয়োগার ছবি দেখে আবার একেবারে টাইট ফিটিং পোশাক পরতে যাবেন না। টাইট পোশাক আপনার পাঁজর ও ফুসফুসকে বাধা দেবে। ঠিকমতো শ্বাসও নিতে পারবেন না।

 

গোসল

ইয়োগা শেষে সঙ্গে সঙ্গে শাওয়ারে ঢুকে পড়বেন না। ঘাম শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

 

অন্য ব্যায়াম

ইয়োগার পর ভারী কোনও ব্যায়াম করা ঠিক হবে না। যদি করতেই হয় তবে সেটা ইয়োগার আগে স্বল্প পরিসরে সেরে ফেলতে হবে।

 

পানি

ইয়োগা চলাকালীন বা আগে-পরে পেট ভরে পানি পান করতে যাবেন না। তৃষ্ণার্ত বোধ করলে মাঝে মাঝে দুয়েক চুমুক পান করতে পারেন।

/এমআর/

সম্পর্কিত

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৪৮

হাড় অথবা জয়েন্টের ব্যথা আর্থ্রাইটিস। এই রোগের অসহনীয় ব্যথা থেকে বাঁচতে নিচের খাবারগুলো এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

 

অতিরিক্ত চিনি

আপনার যদি আর্থ্রাইটিস থাকে, তবে অবশ্যই চিনি খাওয়ার পরিমাণ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে হবে। বিশেষ করে ক্যান্ডি, সফট ড্রিংকস, সোডা, সস বা আইসক্রিমকে পুরোপুরি না বলতে হবে। যেকোনও ধরনের ডেজার্টেও চিনির ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।

 

প্রক্রিয়াজাত মাংস ও রেড মিট

বাজারের প্রক্রিয়াজাত মাংস বা রেড মিট যেমন গরু, ছাগল, মহিষের মাংসও এ রোগের লক্ষণগুলো বাড়িয়ে দেয়। এসব খাবার আপনার দেহের ইন্টারলিউকিন-৬, সি-রিয়েক্টিভ প্রোটিন এবং হিমোসিস্টিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় যা দেহে প্রদাহের কারণ।

 

গ্লুটেনযুক্ত খাবার

গ্লুটেন হচ্ছে এক ধরনের প্রোটিন যেটা মূলত গম, রাই, বার্লি ইত্যাদিতে থাকে। এ সবে এক ধরনের আঠালো পদার্থ থাকে এসব খাবারে। যা খাবারটিকে বেক করার সময় ফেঁপে উঠতে সাহায্য করে। মূলত রুটি, পাউরুটি, পাস্তা, কেক, চিপস, সসে গ্লুটেন থাকে। এটিও আর্থ্রাইটিসের জন্য ক্ষতিকর।

 

অতি প্রক্রিয়াজাত খাবার

এসব খাদ্য তালিকায় আছে মিষ্টি বা মসলাদার স্ন্যাক্স, কোমল পানীয়, ইনস্ট্যান্ট নুডলস ও স্যুপ, হিমায়িত অথবা দীর্ঘ সময় ধরে সংরক্ষিত খাবার, চর্বি দিয়ে তৈরি প্রক্রিয়াজাত খাবার ইত্যাদি। এগুলোর পাশাপাশি ফুড প্রিজারভেটিভ আমাদের অস্থি ও জয়েন্টের প্রদাহ বাড়িয়ে দেয়। এগুলো আর্থ্রাইটিস ঘটানোর পেছনেও দায়ী।

 

বাড়তি লবণ

লবণ খাওয়া একেবারেই কমিয়ে দেওয়া আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত হবে। ভর্তা, শুঁটকি, আচার, সালাদ, টেস্টিং সল্ট, সয়া সস, অয়েস্টার সস, ক্যানড স্যুপ, পিৎজা, চিজ, প্রক্রিয়াজাত মাংসসহ অনেক খাবারে বাড়তি লবণ দেওয়া হয়। এগুলো হাড়ের পাশাপাশি হৃদযন্ত্র, ধমনি, কিডনি ও মস্তিষ্কের ওপর চাপ তৈরি করে ও ব্যথা বাড়ায়।

 

ভাজাপোড়া

অ্যাডভান্সড গ্লাইকেশন এন্ড প্রোডাক্টস (এজিই) হলো সুগার, প্রোটিন ও আরও কয়েকটি উপাদানের সমন্বয়। বাইরের ভাজাপোড়া খাবারে এজিই বেশি থাকে। বিভিন্ন প্রকার খাবারের ভাজা মাংসেও এটি থাকে। এরপর যথাক্রমে ভেজিটেবল অয়েল, পনির ও মাছে এজিইর উপস্থিতি পাওয়া যায়। ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিপস, প্যান-ফ্রাইড স্টেক, গ্রিলড মিট এবং ডুবোতেলে ভাজা মাছ পরিহার করতে হবে। কারণ উচ্চ-তাপমাত্রায় রান্নার সময় এতে থাকা সুগার, প্রোটিন বা ফ্যাটগুলোর সঙ্গে প্রতিক্রিয়া করে উচ্চমাত্রার এজিই সৃষ্টি করে, যা দেহের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রক্রিয়াগুলোসহ সেলুলার কর্মহীনতা এবং অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। এতে আর্থ্রাইটিসের সমস্যার বৃদ্ধির পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমে যায়।

সূত্র: হেলথ লাইন

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

আর্থ্রাইটিসের ব্যথা কমাতে এড়িয়ে চলুন খাবারগুলো

রেসিপি : কোকোনাট বিস্কুট

রেসিপি : কোকোনাট বিস্কুট

শারদ সাজে বিশ্বরঙ-এর ‘দিদি’

শারদ সাজে বিশ্বরঙ-এর ‘দিদি’

রেসিপি : তালপাকা গরমে চার শরবত

রেসিপি : তালপাকা গরমে চার শরবত

কোন ওষুধের সঙ্গে কী খাবেন না

কোন ওষুধের সঙ্গে কী খাবেন না

নতুন পণ্য এনেছে ফামি ইউকে

নতুন পণ্য এনেছে ফামি ইউকে

সর্বশেষ

কোনও মামলা নেই আমার ছাত্রদের জন্য এসেছি, আদালতে ডা. জাফরুল্লাহ

কোনও মামলা নেই আমার ছাত্রদের জন্য এসেছি, আদালতে ডা. জাফরুল্লাহ

নির্বাচনে কোনও সহায়তা করতে পারে কিনা জানতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়

নির্বাচনে কোনও সহায়তা করতে পারে কিনা জানতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক উদ্বাস্তু নীতি সমর্থন করে জাতিসংঘ

বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক উদ্বাস্তু নীতি সমর্থন করে জাতিসংঘ

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

© 2021 Bangla Tribune