X
রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সেকশনস

ধূমপান নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন নিয়ে ভাবছে সরকার

আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০২১, ২০:২০

দেশে ধূমপায়ীর সংখ্যা কমাতে হিমশিম খাচ্ছে সরকার। বিদ্যমান আইনের প্রয়োগ না থাকা এবং আইনি কাঠামোর অভাবে ধূমপায়ীদের কিছুতেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। আর তাই ধূমপানের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ক্ষতি থেকে বাঁচতে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করে সেটার কঠোর প্রয়োগের কথা ভাবছে সরকার।

বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘তামাকজনিত ব্যাধি ও অকালমৃত্যুর কারণে ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে বাংলাদেশ' শীর্ষক যৌথ গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে ৩০ বছর বা এর বেশি বয়সীদের মধ্যে প্রায় ৭০ লাখ মানুষ তামাকজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। এদের মধ্যে ১৫ লাখ মানুষের রোগাক্রান্ত হওয়ার সঙ্গে তামাক ব্যবহারের প্রত্যক্ষ সম্পর্ক আছে। ১৫ বছর বা তার কম বয়সী ৪ লাখ ৩৫ হাজারেরও বেশি শিশু তামাকজনিত রোগে ভুগছে। এদের ৬১ হাজারেরও বেশি (১৪ শতাংশ) শিশু বাড়িতে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হচ্ছে। তামাক ব্যবহার এবং পরোক্ষ ধূমপানের কারণে বছরে মারা যাচ্ছে ১ লাখ ২৫ হাজার ৭১৮ জন। যা জাতীয় পর্যায়ে সকল মৃত্যুর প্রায় ১৪ শতাংশ।

বাংলাদেশ পার্লামেন্টারি ফোরাম ফর হেলথ অ্যান্ড ওয়েল বিং-এর চেয়ারম্যান সংসদ সদস্য ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘তামাক নিয়ন্ত্রণের বিদ্যমান আইনটি সর্বশেষ সংশোধন হয়েছে ২০১৫ সালে। এতোদিনে বদলে গেছে দৃশ্যপট। অনেকেই পাবলিক প্লেসে ধূমপান শুরু করেছে। এটা কমাতে করের হারও বাড়ানো প্রয়োজন। তাই আইন সংশোধন জরুরি। আমরা সংসদের প্রায় ১৫৩ জন সংসদ সদস্য ইতোমধ্যে তামাকের বিরুদ্ধে স্বাক্ষর দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো বলেই মনে করছি।’

ক্যান্সার সোসাইটি ও ঢাবির গবেষণা প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, পরোক্ষ ধূমপানের কারণে বছরে ব্যয় বাড়ে ৪ হাজার ১৩০ কোটি টাকা। এর মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা খাতে ব্যক্তিগত ও সরকারি ব্যয়, অক্ষমতা/অসুস্থতার কারণে উৎপাদনশীলতার ক্ষতি এবং অকালমৃত্যুর কারণে উৎপাদনশীলতার ক্ষতিও অন্তর্ভুক্ত।

শিশুদের ক্ষতি বেশি

বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে পরোক্ষ ধূমপানে শিশুরাই যে বেশি ক্ষতির শিকার হয়, তার প্রমাণ দিয়েছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড থেকে প্রকাশিত নিকোটিন অ্যান্ড টোব্যাকো রিসার্চ সাময়িকী। ‘প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুরা পরোক্ষ ধূমপানের শিকার: ঢাকা, বাংলাদেশে একটি জরিপ’ শীর্ষক প্রবন্ধে বলা হয়, ঢাকাতেই পরোক্ষ ধূমপানের শিকার ৯৫ শতাংশ শিশু। জরিপে অংশ নেওয়া ৪৭৯ শিশুর মধ্যে ৪৫৩টি শিশুর লালায় নিকোটিন পাওয়া গেছে।

বিদ্যমান আইনের দুর্বলতা তুলে ধরে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রগতির জন্য জ্ঞান (প্রজ্ঞা) জানায়, আইনের মাধ্যমে ধূমপানের জন্য নির্ধারিত স্থান বিলুপ্ত করাও জরুরি। এতে শতভাগ ধূমপানমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা যাবে। পাশাপাশি প্রতিটি বিক্রয়স্থলে তামাকজাত দ্রব্য প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা, তামাক কোম্পানির সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচি তথা সিএসআর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা, বিড়ি-সিগারেটের খুচরা শলাকা এবং প্যাকেটবিহীন জর্দা-গুল বিক্রয় নিষিদ্ধ, ই-সিগারেট এবং হিটেড টোব্যাকো প্রোডাক্টের (এইচটিপি) মতো ইমার্জিং টোব্যাকো প্রোডাক্ট আমদানি ও বিক্রি নিষিদ্ধ এবং সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবার্তার আকার বৃদ্ধিসহ তামাকপণ্য মোড়কজাতকরণে বিধিনিষেধ আরোপ করা প্রয়োজন।

সামাজিক সংগঠন ভয়েস ফর ইন্টারএক্টিভ চয়েস অ্যান্ড এমপাওয়ারমেন্ট (ভয়েস) এর প্রোগ্রাম অফিসার গুলশান আরা ঝুমুর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, প্রতি বছরই শ্রেষ্ঠ করদাতা হিসেবে একাধিক পুরষ্কার পেয়ে থাকেন তামাক ব্যবসায় জড়িত সংস্থা বা ব্যক্তিরা। সেই করের কতখানি প্রত্যক্ষ কর আর কতখানি ভোক্তাদের থেকে আদায়কৃত কর তা নিয়ে ভাবনার সুযোগ থাকলেও, এই অর্জনকে পুঁজি করেই তামাক ব্যবসায়ীরা করের ক্ষেত্রে নানান সুযোগ সুবিধা আদায় করে নেন। শুধু তাই না, বাজেটকে সামনে রেখে নানা ধরনের বেঠিক তথ্য ছড়িয়ে নীতি নির্ধারকদের প্রভাবিত করে থাকেন এসব ব্যবসায়ীরা। তাই শুধু আইন সংশোধন করলেই চলবে না, তার সঙ্গে কর হার বৃদ্ধি করাটাও জরুরি।

আইনের দুর্বলতা স্বীকার করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সংশোধনীর মাধ্যমে আইনটি যুগোপযোগী করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। 

সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, আইনের দুর্বলতার সুযোগে জনসম্মুখে ধূমপায়ীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। এতে অধূমপায়ীরাও ক্ষতির শিকার হচ্ছে। অপ্রাপ্তবয়স্কদের মাঝে ধূমপানের প্রবণতাও বাড়ছে।

/বিআই/এফএ/

সম্পর্কিত

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

কাপাসিয়ায় অন্তঃসত্ত্বা নারী পুলিশের আত্মহত্যা

কাপাসিয়ায় অন্তঃসত্ত্বা নারী পুলিশের আত্মহত্যা

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

মাদ্রাসার গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, এলাকায় উত্তেজনা

মাদ্রাসার গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, এলাকায় উত্তেজনা

ট্রাক-ভটভটি সংঘর্ষ: নিহত ৩, আহত ১০

ট্রাক-ভটভটি সংঘর্ষ: নিহত ৩, আহত ১০

রাজধানীতে মাদক বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার ৩

রাজধানীতে মাদক বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার ৩

হাটহাজারীতে হেফাজতের তাণ্ডব: জামায়াত নেতা শাহজাহান চৌধুরী গ্রেফতার

হাটহাজারীতে হেফাজতের তাণ্ডব: জামায়াত নেতা শাহজাহান চৌধুরী গ্রেফতার

আরও দুই ইসলামি বক্তাকে খুঁজছে পুলিশ

আরও দুই ইসলামি বক্তাকে খুঁজছে পুলিশ

সর্বশেষ

প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত রোগীর মৃত্যু

প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত রোগীর মৃত্যু

সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্রীসহ নিহত ২

সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্রীসহ নিহত ২

বৃদ্ধাশ্রমের সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার ২ সংবাদকর্মী, থানায় জিডি

বৃদ্ধাশ্রমের সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার ২ সংবাদকর্মী, থানায় জিডি

বিদ্রোহী শহরের নিয়ন্ত্রণ নিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী

বিদ্রোহী শহরের নিয়ন্ত্রণ নিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী

আমেরিকান নারীদের ১৩০ কোটি ডলার দেবে ড. ইউনুসের প্রতিষ্ঠান

আমেরিকান নারীদের ১৩০ কোটি ডলার দেবে ড. ইউনুসের প্রতিষ্ঠান

টিকা মজুত আছে ৬ লাখ ৮০ হাজার ডোজ

টিকা মজুত আছে ৬ লাখ ৮০ হাজার ডোজ

সাইক্লোন ‘তকতের’ প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে?

সাইক্লোন ‘তকতের’ প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে?

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এক কোটি টাকা পেলো হকি ফেডারেশন

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এক কোটি টাকা পেলো হকি ফেডারেশন

ফিলিস্তিনের সমস্যা সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান

ফিলিস্তিনের সমস্যা সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান

সীমিত আকারেই চলবে পুঁজিবাজারে লেনদেন

সীমিত আকারেই চলবে পুঁজিবাজারে লেনদেন

‘টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেওয়া হয়নি’

‘টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেওয়া হয়নি’

মানুষ যেভাবে গেছে সেভাবেই ফিরছে (ফটোস্টোরি)

মানুষ যেভাবে গেছে সেভাবেই ফিরছে (ফটোস্টোরি)

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

রাজধানীতে মাদক বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার ৩

রাজধানীতে মাদক বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার ৩

আরও দুই ইসলামি বক্তাকে খুঁজছে পুলিশ

আরও দুই ইসলামি বক্তাকে খুঁজছে পুলিশ

স্বর্ণ ব্যবসায়ীরাই জড়িয়ে পড়ছে স্বর্ণ ডাকাতিতে

স্বর্ণ ব্যবসায়ীরাই জড়িয়ে পড়ছে স্বর্ণ ডাকাতিতে

ফেরিতে ৫ মৃত্যু: এককোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে নোটিশ

ফেরিতে ৫ মৃত্যু: এককোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে নোটিশ

© 2021 Bangla Tribune