X
রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সেকশনস

আগে জীবন পরে জীবিকা: প্রধান বিচারপতি

আপডেট : ১৮ এপ্রিল ২০২১, ১৬:৪২

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, করোনায় যেভাবে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে, এ অবস্থায় আমরা সব কোর্ট খুলে দিতে পারি না। কেননা, আগে জীবন পরে জীবিকা।

রবিবার (১৮ এপ্রিল) সুপ্রিম কোর্ট আপিল বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনার সময় প্রসঙ্গক্রমে প্রধান বিচারপতি এ মন্তব্য করেন।

আপিল বিভাগের বিভিন্ন মামলার শুনানি চলাকালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল বলেন, ‘আমি তো বারের সম্পাদক। আইনজীবীরা আমাকে বিভিন্নভাবে হাইকোর্টে বেঞ্চের সংখ্যা বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছেন। অনেক আইনজীবী অর্থনৈতিক কষ্টে আছেন। আইনজীবীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই হাইকোর্টে বেঞ্চ বাড়ানোর জন্য আবেদন করেছি। কারণ, আমাদের তো আপনি (প্রধান বিচারপতি) ছাড়া আবেদন করার আর কোনও জায়গা নেই।’

এ সময় সমিতির সাবেক সহ-সভাপতি মো. অজি উল্লাহ বলেন, ‘হাইকোর্টে জামিন ও রিট মোশনের বেঞ্চ বাড়ানোর জন্য আবেদন জানাই।’

পরে আইনজীবীদের আবেদনের জবাবে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, ‘আগে জীবন না জীবিকা? আমার তো মনে হয়, আগে জীবন পরে জীবিকা। করোনায় যেভাবে আক্রান্ত হচ্ছে, এ অবস্থায় তো আমরা সব কোর্ট খুলে দিতে পারি না।  আমরা যদি এ অবস্থায় হাইকোর্টে ভার্চুয়াল বেঞ্চের সংখ্যা বাড়াতে যাই, তাহলে অনেক স্টাফকে সশরীরে কোর্টে আসতে হবে। এতে জনবল বেড়ে যাবে এবং করোনা আক্রান্তের ঝুঁকিও বাড়বে।’

প্রধান বিচারপতি আরও বলেন, ‘আমি কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আপিল বিভাগের সকল বিচারপতির সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিই। বিচারক, আইনজীবী, বিচারপ্রার্থী সবার কথা চিন্তা করে বেঞ্চ সংখ্যা কমিয়ে দিয়েছি। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমরা হাইকোর্টে ভার্চুয়াল বেঞ্চ বাড়ানোর বিষয়টি দেখবো।’

আপিল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি তো সবকিছু বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখন কোর্টের সংখ্যা বাড়ালে অনেক স্টাফকে কোর্টে আসতে হবে। তাদেরও তো পরিবার আছে। তাদের তো আমরা ঝুঁকিতে ফেলতে পারি না।’

আপিল বিভাগের আরেক বিচারপতি ওবায়দুল হাসান সমিতির সম্পাদককে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি তো বারের সেক্রেটারি। আপনি তো শুধু আইনজীবীদের বিষয়টি দেখছেন। কিন্তু প্রধান বিচারপতিকে সকলের দিক দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হয়।’

পরে আদালত কার্যতালিকায় থাকা মামলাগুলোর ওপর শুনানি করেন। 

প্রসঙ্গত, করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের কারণে চলমান লকডাউনের মাঝে হাইকোর্টের চারটি বেঞ্চে বিচার কাজ চলছে। তবে বিচারপ্রার্থীদের কথা ভেবে ভার্চুয়াল আদালত সংখ্যা বাড়াতে বারবার আবেদন জানিয়ে আসছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীরা।

/বিআই/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

খুলনায় করোনায় আরও দুইজনের মৃত্যু

খুলনায় করোনায় আরও দুইজনের মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৫, শনাক্ত ৩৬৩

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৫, শনাক্ত ৩৬৩

‘লকডাউন’ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

‘লকডাউন’ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ: কাদের

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ: কাদের

দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে

দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে

ইসরায়েলি বিমান হামলা বর্বরতার নিকৃষ্ট উদাহরণ: জিএম কাদের

ইসরায়েলি বিমান হামলা বর্বরতার নিকৃষ্ট উদাহরণ: জিএম কাদের

বাইডেনের ফোন পেয়েই হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা নেতানিয়াহুর

বাইডেনের ফোন পেয়েই হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা নেতানিয়াহুর

ঈদের পর ব্যাংক খুললেও লেনদেন কম, কর্মকর্তাদের শুভেচ্ছা বিনিময়

ঈদের পর ব্যাংক খুললেও লেনদেন কম, কর্মকর্তাদের শুভেচ্ছা বিনিময়

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

ইসরায়েলকে সমর্থন জানিয়ে ফোন বাইডেনের, ফিলিস্তিনকে হামলা থামানোর আহ্বান

ইসরায়েলকে সমর্থন জানিয়ে ফোন বাইডেনের, ফিলিস্তিনকে হামলা থামানোর আহ্বান

সর্বশেষ

প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত রোগীর মৃত্যু

প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত রোগীর মৃত্যু

সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্রীসহ নিহত ২

সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজছাত্রীসহ নিহত ২

বৃদ্ধাশ্রমের সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার ২ সংবাদকর্মী, থানায় জিডি

বৃদ্ধাশ্রমের সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার ২ সংবাদকর্মী, থানায় জিডি

বিদ্রোহী শহরের নিয়ন্ত্রণ নিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী

বিদ্রোহী শহরের নিয়ন্ত্রণ নিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী

আমেরিকান নারীদের ১৩০ কোটি ডলার দেবে ড. ইউনূসের প্রতিষ্ঠান

আমেরিকান নারীদের ১৩০ কোটি ডলার দেবে ড. ইউনূসের প্রতিষ্ঠান

টিকা মজুত আছে ৬ লাখ ৮০ হাজার ডোজ

টিকা মজুত আছে ৬ লাখ ৮০ হাজার ডোজ

সাইক্লোন ‘তকতের’ প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে?

সাইক্লোন ‘তকতের’ প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে?

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এক কোটি টাকা পেলো হকি ফেডারেশন

প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এক কোটি টাকা পেলো হকি ফেডারেশন

ফিলিস্তিনের সমস্যা সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান

ফিলিস্তিনের সমস্যা সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান

সীমিত আকারেই চলবে পুঁজিবাজারে লেনদেন

সীমিত আকারেই চলবে পুঁজিবাজারে লেনদেন

‘টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেওয়া হয়নি’

‘টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেওয়া হয়নি’

মানুষ যেভাবে গেছে সেভাবেই ফিরছে (ফটোস্টোরি)

মানুষ যেভাবে গেছে সেভাবেই ফিরছে (ফটোস্টোরি)

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

ভাসানটেকে নাইটগার্ড খুন

দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে

দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

‘অপহরণ হইছি’ লিখে পুলিশকে মেসেজ, আসামিরা গ্রেফতার

পথে এত অসহায় মানুষ কেন?

পথে এত অসহায় মানুষ কেন?

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

এখনও বাবুল আক্তারের সন্তানদের খোঁজ পায়নি পিবিআই

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

ঢাকা মেডিক্যালের সামনে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা

সাগরে বসেই অনলাইনে মাছ বিক্রি করছেন জেলেরা

ডিজিটাল উপকূল-৭সাগরে বসেই অনলাইনে মাছ বিক্রি করছেন জেলেরা

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

বাহিনীর ‘ইমেজ রক্ষায়’ বাবুলকে ছাড় দিয়েছিলেন তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তারা!

গেন্ডারিয়ায় ৫ তলা থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

গেন্ডারিয়ায় ৫ তলা থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

খিলগাঁও ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গুলিবিদ্ধ

© 2021 Bangla Tribune