X
মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

নতুন হেফাজত মিলেমিশে, নেতৃত্ব থেকে বাদ পড়ছেন রাজনীতিকরা

আপডেট : ২৬ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৫৬

২০২০ সালের ১৫ নভেম্বর কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করে সোয়া চার মাসের মাথায় ভেঙে পড়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। রবিবার (২৫ এপ্রিল) রাত ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্তের ঘোষণা দেন সংগঠনের আমির মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী। তিনি জানান, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। যদিও হেফাজতের শীর্ষ পর্যায়ের সূত্রগুলো বলছে, গত ১১ এপ্রিল থেকে সারাদেশে হেফাজত নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, আলেমদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য সংগ্রহ এবং কওমি মাদ্রাসা বন্ধ করার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার অংশ হিসেবেই বর্তমান কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির নেতৃত্বে থাকা ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের নেতাদেরও বাদ দেওয়া হতে পারে সম্ভাব্য নতুন কমিটি থেকে। 

এদিকে, হেফাজতের সদ্য কমিটি থেকে বাদপড়া সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ আহমদ শফীর অনুসারীরা চাইছে, নতুন যে কমিটি হবে, সেখানে তাদের নিয়ে একসঙ্গে কমিটি গঠন করা। তারা চাইছেন, আলোচনার মাধ্যমে বিভক্ত হেফাজতকে ঐক্যবদ্ধ করতে।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) রাতে বাবুনগরী কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙে দেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই তিন সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে হেফাজত। এতে মুহিববুল্লাহ বাবুনগরী উপদেষ্টা, জুনায়েদ বাবুনগরীকে আহ্বায়ক,  নুরুল ইসলাম জিহাদীকে সদস্য সচিব করা হয়। পরে আবার দেড়ঘণ্টা পর রাত সাড়ে চারটার দিকে আরও দুজনকে আহ্বায়ক কমিটিতে রাখা হয়। এই দুজন হলেন, সালাউদ্দিন নানুপুরী ও মিজানুর রহমান চৌধুরী।

ধর্মভিত্তিক দলের নেতারা নেতৃত্ব থেকে বাদ পড়ছেন?

গত ১৫ নভেম্বর গঠিত হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটিতে দেশের ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর নেতারাও মনোনীত হন। এই কমিটিতে রাবেতাতুল ওয়ারেজিন নামে বক্তাদের একটি সংগঠনের প্রাধান্য থাকলেও রাজনীতিকরা নিয়েছেন অধিকাংশ পদ।

হেফাজতের একাধিক নেতা মনে করছেন, সরকারের সঙ্গে সমঝোতার অংশ হিসেবে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির নেতৃত্বে থাকা ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের নেতাদেরও বাদ দেওয়া হতে পারে। বিশেষ করে শীর্ষ পদগুলোতে ‘অরাজনৈতিক নেতৃত্ব’ প্রতিষ্ঠা হতে পারে।

সংগঠনের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, সরকারের সঙ্গে তিনটি শর্তে সমঝোতার পথে আসার চেষ্টা করছে হেফাজত। এরমধ্যে হেফাজতের কমিটি ভেঙে দেওয়াও ছিল এ শর্তে। এছাড়া রাজনৈতিক নেতাদের বের করে অরাজনৈতিক নেতাদের যুক্ত করার শর্তও রয়েছে। সেক্ষেত্রে সদ্য সাবেক কমিটির প্রায় অর্ধেকের বেশি নেতা নেতৃত্ব থেকে বাদ পড়তে পারেন।

হেফাজতের রাজনৈতিক নেতারা

হেফাজতের সদ্য বিলুপ্ত কমিটিতে ২০ দলীয় জোটভুক্ত জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (কাসেমী অংশ) ৩৪ জন কেন্দ্রীয় নেতা জায়গা পান। দলের মহাসচিব মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী হেফাজতের নতুন কমিটির মহাসচিব হিসেবে মনোনীত হন। তিনি গত ১৩ ডিসেম্বর করোনায় মারা গেলে নুরুল ইসলাম জিহাদিকে মহাসচিব করা হয়। হেফাজতের উপদেষ্টামণ্ডলীতে জায়গা পেয়েছিলেন জমিয়ত নেতা মাওলানা জিয়াউদ্দীন, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক। নায়েবে আমির পদে জমিয়তের ছিলেন, মাওলানা আব্দুল হামিদ (মধুপুর) মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ সাদী, মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, মাওলানা আনোয়ারুল করিম (যশোর) ও মাওলানা নুরুল ইসলাম খান (সুনামগঞ্জ)।

চার জন যুগ্ম মহাসচিবের দুজন ছিলেন জমিয়তের। তারা হলেন, মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব ও মাওলানা নাসির উদ্দিন মুনির। সহকারী মহাসচিবের তালিকায় জায়গা পান জমিয়ত নেতা মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী ও মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী। সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান দলটির মাওলানা মাসউদুল করীম টঙ্গী, মাওলানা শামসুল ইসলাম জিলানী ও মাওলানা তাফহিমুল হক হবিগঞ্জ। এছাড়া হেফাজতের বিভিন্ন পর্যায়ে ছিলেন, মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী (অর্থ সম্পাদক), মাওলানা লোকমান মাজহারী (সহকারী অর্থ সম্পাদক), মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াকুব ওসমানী, মুফতি শরীফুল্লাহ ও মাওলানা ফেরদাউসুর রহমান নারায়ণগঞ্জ (সহকারী প্রচার সম্পাদক), মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী (আইন বিষয়ক সম্পাদক), মাওলানা নাজমুল হাসান (দাওয়াহ সম্পাদক), মাওলানা শুয়াইব আহমদ, মাওলানা গোলাম কিবরিয়া লন্ডন (সহকারী আন্তর্জাতিক সম্পাদক), মাওলানা সিদ্দিকুল ইসলাম তোফায়েল (সহকারী দফতর সম্পাদক)। জমিয়ত থেকে হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন, জামিল আহমদ চৌধুরী মৌলভীবাজার, বশির আহমদ মুন্সীগঞ্জ, তাফাজ্জুল হক আজিজ সুনামগঞ্জ, আলী আকবর সাভার, আবু আব্দুর রহিম নরসিংদী, আব্দুল কুদ্দুস মানিকনগর, মুহাম্মদ উল্লাহ জামি, মাওলানা হাবিবুল্লাহ মাহমুদ কাসেমী।

হেফাজতে ইসলামের সদ্য সাবেক কমিটিতে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস ও খেলাফত মজলিসের (২০ দলীয় জোটভুক্ত) অন্তত ২০-২২ জন কেন্দ্রীয় নেতা জায়গা পান। সংগঠনের বিভিন্ন পদে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরী (উপদেষ্টা), সাবেক মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক (নায়েবে আমির), ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক (যুগ্ম মহাসচিব), মাওলানা খোরশেদ আলম কাসেমী ও মাওলানা জালালুদ্দিন (সহকারী মহাসচিব), যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন (সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদক), মাওলানা ফয়সাল আহমদ (সহ-প্রচার সম্পাদক ) ছিলেন। এছাড়া দলটির বেশ কয়েকজন ভক্ত ও অনুসারী আলেম জায়গা পান হেফাজতের বিভিন্ন পদে।

হেফাজতের সদ্য সাবেক কমিটিতে বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিক খেলাফত মজলিসের ছয় জন নেতা স্থান পেয়েছিলেন। এদের মধ্যে উপদেষ্টামণ্ডলীতে দলের আমির মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, নায়েবে আমির পদে মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের, মাওলানা সাখাওয়াত হোসাইন, সহকারী আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে হজরত মাওলানা আবদুল কাদের সালেহ ও আহমদ আলী কাসেমী উল্লেখযোগ্য। এছাড়া, নায়েবে আমির পদে মাওলানা সারওয়ার কামাল আজিজী (নেজামে ইসলাম), মাওলানা জাফরুল্লাহ খান (খেলাফত আন্দোলন) রাজনৈতিক নেতা হিসেবে পরিচিত।

অন্যান্য রাজনৈতিক নেতারা নতুন কমিটিতে বাদ পড়লেও  বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমির মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী (নায়েবে আমির), মাওলানা মাহফুজুল হক (নায়েবে আমির), মাওলানা সাজিদুর রহমান (নায়েবে আমির)-সহ সরকারঘেঁষা অনেক আলেমই নতুন কমিটিতে স্থান পেতে পারেন বলে জানিয়েছেন হেফাজতের একাধিক নেতা।

আলোচনায় আগ্রহী আল্লামা শফীপন্থী আলেমরা

হেফাজতে ইসলামের আল্লামা আহমদ শফীপন্থী আলেমরা জানিয়েছেন, হেফাজতের বর্তমান কমিটি ভেঙে দেওয়ায় নতুন করে হেফাজতকে ঐক্যবদ্ধ করার সুযোগ এসেছে। বিশেষ করে গত ১৮ সেপ্টেম্বর আল্লামা আহমদ শফীর ইন্তেকাল ও তার আগে-পরে হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসায় যেসব অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে, সেগুলোর পুনরাবৃত্তি বন্ধ করা সহজ হবে। একইসঙ্গে যেসব শিক্ষককে মাদ্রাসা থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল, তাদের সসম্মানে ফিরিয়ে নেওয়ার কাজটিও শুরু হবে। 

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সংস্থার সূত্র বলছে, রবিবার রাতে জুনায়েদ বাবুনগরীকে গ্রেফতার করার পরিকল্পনা থেকেই হাটহাজারী এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল জমায়েত করা হয়েছিল। যদিও কমিটি ভেঙে দেওয়ার কারণে গ্রেফতারের মুখোমুখি হতে হয়নি বাবুনগরীকে। 

তবে, রাষ্ট্রের প্রভাবশালী আরেকটি সংস্থার সূত্র বলছে, মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরীকে আইনের আওতায় আনা হবে। ২৫, ২৬ ও ২৭ মার্চ দেশের বিভিন্ন স্থানে নাশকতা ও মানুষের প্রাণহানি, আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যু-মামলা ও ২০১৩ সালে শাপলা চত্বর কেন্দ্রিক যেসব মামলা রয়েছে, সেগুলোতে তাকে গ্রেফতার দেখানো হতে পারে। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবারও দুটো মামলা করা হয় হাটহাজারী থানায়।

সূত্রের দাবি, হাটহাজারী মাদ্রাসার পরিচালনায় আবারও শফীপন্থীদের সামনে আনা হবে এবং হেফাজতের নেতৃত্বে শফীপন্থীরা প্রাধান্য পাবে।

জানতে চাইলে আহমদ শফীর সন্তান মাওলানা আনাস মাদানীর ঘনিষ্ঠ, হেফাজতের প্রথম কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হেফাজতে ইসলাম মিলেমিশে হোক, এটাই আমরা চাই। আলেমদের মধ্যে কোনও বিভাজন না থাকুক, সবাই যেন আল্লামা আহমদ শফীর পথে ফিরে আসুক, এটাই চাই। সবার ভুল বুঝাবুঝির অবসান হবে বলে উদাত্ত আহ্বান জানাই।

মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী  আরও বলেন, হেফাজতে ইসলাম আল্লামা শফীর নীতি-আদর্শে ফিরে আসুক, আবারও ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করুক, আমরা চাই। আমরা আলোচনা শুরু করবো। সবাই মিলে একটি বৃহত্তর প্ল্যাটফর্ম গড়ে উঠুক, আলেমদের মধ্যে বিবাদের অবসান হবে বলে আমি আশা করি।

এ প্রসঙ্গে হেফাজতে ইসলামের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নতুন কমিটি পূর্ণাঙ্গ হবে কবে, এটা আরও সময়সাপেক্ষ। এটা এখনও আলোচনা হয়নি।’ আগ্রহীদের নতুন কমিটিতে রাখার বিষয়ে কী চিন্তা আপনাদের, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটাও আলোচনা হয়নি। আগে আলোচনা হবে, তারপর বলতে পারবো।’

প্রসঙ্গত, নারী উন্নয়ন নীতিমালার বিরুদ্ধে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ২০১১ সালে চট্টগ্রামে প্রতিষ্ঠিত হয় হেফাজতে ইসলাম। ২০২০ সালের ১৫ নভেম্বর জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমির ও নূর হোসাইন কাসেমীকে মহাসচিব করে দ্বিতীয়বারের মতো কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করে হেফাজতে ইসলাম। ওই বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আল্লামা আহমদ শফীর ইন্তেকালের কারণে নতুন এ কমিটি করেছিল হেফাজত। এরপর ওই বছরের ১৩ ডিসেম্বর মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী মারা গেলে নায়েবে আমির মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদী ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব পান। রবিবার (২৫ এপ্রিল) রাতে সংগঠনটির দ্বিতীয় কমিটি বিলুপ্ত করলেন আমির বাবুনগরী।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ আগমনের বিরোধিতা করে দেওয়া হেফাজতের বিক্ষোভ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে গত মার্চের ২৫, ২৬ ও ২৭ তারিখ দেশজুড়ে সহিংস ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ১৭ জন নিহত হয়। পরে গত ১১ এপ্রিল থেকে বিভিন্ন মামলায় হেফাজত নেতাদের গ্রেফতার শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রবিবার পর্যন্ত হেফাজতের কেন্দ্রীয় অন্তত ১৮ জন নেতা ও সারাদেশে অন্তত দুই শতাধিক নেতাকর্মী ও সমর্থক গ্রেফতার হয়েছে।

আরও পড়ুন:

হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

হেফাজতের ৩ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি

/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

আল্লামা শফীর মৃত্যুর এক বছর: দোয়ার অনুরোধ

আল্লামা শফীর মৃত্যুর এক বছর: দোয়ার অনুরোধ

ঐক্যের আহ্বান হেফাজতের নতুন আমিরের

ঐক্যের আহ্বান হেফাজতের নতুন আমিরের

জামায়াত-হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা আলেম নয়: ইনু

জামায়াত-হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা আলেম নয়: ইনু

কথা রাখেনি হেফাজত, রাজনীতিকরাই নেতৃত্বে

কথা রাখেনি হেফাজত, রাজনীতিকরাই নেতৃত্বে

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৮

১৩ বছর ধরে বিএনপির আন্দোলনের ‘নিষ্ফল আহ্বান যেমনি ব্যর্থ হয়েছে, বর্তমান প্রয়াসও তেমন নিষ্ফল হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) নিজ বাসভবনে ব্রিফিংয়ে এমন মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের আইন-আদালতের তোয়াক্কা না করে মনগড়া কথা বলাই বিএনপির স্বভাব। ভাবনায় এবং চর্চায় বিএনপির একমুখী দর্শন তাদের রাজনৈতিক অস্তিত্বের শেকড়কে দিন দিন দুর্বল করে দিচ্ছে।

‘সরকার বেগম জিয়াকে ভয়ে বিদেশ যেতে দিচ্ছে না’—বিএনপি মহাসচিবের এমন অভিযোগের ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রকৃতপক্ষে বিএনপিই বেগম জিয়ার চিকিৎসা চায় কিনা, তা নিয়ে জনমনে সন্দেহ আছে। যারা তাদের নেত্রীর মুক্তির জন্য একটি মিছিলও করতে পারে না, তাদের মুখে মায়াকান্না মানায় না। 

শেখ হাসিনা সরকার বেগম জিয়া কিংবা ‘ক্ষয়িষ্ণু বিএনপি’কে ভয় পায় না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বরং তার (খালেদা জিয়া) বয়স এবং স্বাস্থ্যের ওপর নজর দিয়ে সাজা স্থগিত করেছে চতুর্থবারের মতো। এ উদারতা একমাত্র শেখ হাসিনাই দেখিয়েছেন।’ বিএনপি শেখ হাসিনার উদারতাকে দুর্বলতা ভাবলে ভুল করবে বলেও হুঁশিয়ার করেন সেতুমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সংবিধান সম্মতভাবেই পরবর্তী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, নিরপেক্ষ এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে। নির্বাচন ও নির্বাচনি পরিবেশ বিনষ্টের জন্য বিএনপি প্রস্তুতি শুরু করেছে। 

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিআরটিসির কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। সভায় মন্ত্রী বলেন, লকডাউনের পরে আবারও পরিবহনে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে, এ অবস্থায় যাত্রী সাধারণের চলাচলে সুবিধার কথা বিবেচনায় নিয়ে ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে রাজধানীর উত্তরায় চক্রাকার বাস সেবা পুনরায় চালু করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলে দেওয়ার পর ধানমন্ডি এলাকায়ও চক্রাকার বাস সেবা পুনরায় চালুর প্রস্তুতি রয়েছে বলেও জানান তিনি। 

বিআরটিসির মতো সেবা প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতি যাতে বাসা বাঁধতে না পারে; সেদিকে কঠোর নজর দেওয়ার নির্দেশনা দিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতির বিষয়ে শেখ হাসিনা সরকার জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করেছে। সুতরাং যেকোনও মূল্যে বিআরটিসিকে সুনামের ধারায় ফিরিয়ে আনতে হবে। বিগত সরকারের সময়ে বিআরটিসি ‘দুর্নীতির আখড়া’ ছিল বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

এ সময় নিজ মন্ত্রণালয়ে তদন্তের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়েও তদন্ত করতে পারেন। এতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনও বাধা দেওয়া হবে না। কোনও দুর্নীতি থাকলে ব্যবস্থা নিন।

দুর্নীতিবাজদের প্রতি প্রশ্ন রেখে ওবায়দুল কাদের বলেন, জীবনকে উপভোগ করতে কত টাকা, কত সম্পদ দরকার? মৃত্যুর পরে তো এ সম্পদ সঙ্গে নিতে পারবেন না। তখন এসব সম্পদের কী হবে?

লোভ লালসায় যারা বেপরোয়া, তারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতি করে যাচ্ছে। তাই প্রত্যেক সেক্টরেই সতর্ক থাকার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

/পিএইচসি/ইউএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

চলমান স্থিতিশীলতা বিনষ্টের চেষ্টা করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

চলমান স্থিতিশীলতা বিনষ্টের চেষ্টা করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

১০০ শিশু শিল্পীকে পুরস্কার দিলো আওয়ামী লীগ

১০০ শিশু শিল্পীকে পুরস্কার দিলো আওয়ামী লীগ

এবারও গ্রহণযোগ্য পন্থায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে: ওবায়দুল কাদের

এবারও গ্রহণযোগ্য পন্থায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে: ওবায়দুল কাদের

কৃষক দলের নতুন কমিটি

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৪১

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটি (আংশিক) অনুমোদন করা হয়েছে। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংগঠনের আংশিক কেন্দ্রীয় কমিটি অনুমোদন করেছেন।

আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে দলের কেন্দ্রীয় দফতর থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সাত সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটির সদস্যরা হলেন- সভাপতি কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, সিনিয়র সহ-সভাপতি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, সহ-সভাপতি অ্যাড. গৌতম চক্রবর্তী, সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক প্রকৌশলী টি এস আইয়ুব, যুগ্ম সম্পাদক মোশারফ হোসেন এম পি ও দফতর সম্পাদক মো. শফিকুল ইসলাম।

/এসটিএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

‘দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না’

‘দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না’

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ রিজভীর

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ রিজভীর

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

‘দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না’

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৭

বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, কেবলমাত্র আইনের মাধ্যমেই নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করা যাবে না। ঘুণে ধরা নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করা যায় না।

সাউথ এশিয়া ইয়ুথ ফর পিস অ্যান্ড প্রসপারিটি সোসাইটির উদ্যোগে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ‘নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন এবং বাংলাদেশে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক একটি ওয়েবিনারে ড. মোশাররফ হোসেন এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামার আহ্বান জানান।

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. মোশাররফ বলেন, ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র চর্চার ইতিহাস সুদীর্ঘ নয়। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন কমিশন ও অন্যান্য রাষ্ট্রীয় অঙ্গসমূহ ঘুণে ধরা এবং দুর্নীতিগ্রস্ত।’

তিনি বলেন, ‘আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে দেশের মানুষের ভোটের অধিকার ও মর্যাদা ফিরিয়ে আনতে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের পূর্বে যুগপৎ আন্দোলনের মাধ্যমে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে বর্তমান দলীয় সরকারের পতনের আন্দোলনে সকলকে রাজপথে নামতে হবে।’

অনুষ্ঠানে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘বাংলাদেশের জনসাধারণ যেভাবে শক্তিশালী, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করতে চান তা কখনোই বর্তমান আওয়ামী সরকারের দ্বারা পূরণ হবে না। এই বিষয়ের সমাধান রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমেই রাজনৈতিকভাবেই সমাধান করতে হবে।’

বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বলেন, ‘বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন ঠুঁটো জগন্নাথের মত আচরণ করছে। নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য করা সার্চ কমিটি একটি প্রহসন মাত্র; যার মাধ্যমে মূলত সরকার দলের পছন্দের লোকজন কমিটিতে জায়গা পান। এর মাধ্যমে অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো তাদের রাজনৈতিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. সাজ্জাদুল হকের সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় ওয়েবিনারটিতে আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহসানুল হক মিলন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইয়াহ্ইয়া আখতার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান সাইফুদ্দীন আহমেদ প্রমুখ।

/এসটিএস/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

কৃষক দলের নতুন কমিটি

কৃষক দলের নতুন কমিটি

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ রিজভীর

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ রিজভীর

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ রিজভীর

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১০

সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদ জানিয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলছেন, ‘সাংবাদিকরা কয় টাকা বেতন পান? বাংলাদেশ ব্যাংককে সাংবাদিক নেতাদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। অনেকের মাস গেলে খাওয়ার পয়সা থাকে না। এদের অ্যাকাউন্ট চেক করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। তার মানে সামনে নির্বাচন আসছে। এই নির্বাচনে যত ধরনের অনাচার আছে এটা সরকার করবে এবং এর বিরুদ্ধে যেন কোনও সাংবাদিক না লেখেন, পত্রিকায় এই ধরনের কোনও খবর প্রচার না হয়, সে জন্য তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে।’

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের আকরাম খাঁ হলে গণতন্ত্র ফোরাম আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ করে রিজভী বলেন, তারা বলে আইন অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে। আইনই যেখানে নেই সেখানে আইন দিয়ে কী করবেন? এতে আপনাদের উদ্দেশ্যটা বুঝা যায়।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ সুতরাং তাদের খুঁজে বের করতে হবে কে এম নূরুল হুদার মতো একজন। কারণ আগামী নির্বাচন নিয়ে তাদের আরেকটি পরিকল্পনা রয়েছে। আগামী নির্বাচনে কে এম নূরুল হুদার মতো সিল মারবে, বৈধতা দেবে তাদের এমন একটা লোক প্রয়োজন।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, সরকার যারা আছেন তারা আজীবন ক্ষমতায় থাকতে চান। তারা বিরোধীদল শূন্য দেশ কায়েম করতে চান।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি খলিলুর রহমান ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সিরাজীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সাবেক এমপি মাসুদ অরুন, মৎসজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম,ওলামা দলের আহ্বায়ক মাওলানা শাহ মো. নেছারুল হক, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তবিবুর রহমান সাগর প্রমুখ বক্তব্য দেন।

/জেডএ/এমআর/

সম্পর্কিত

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

কৃষক দলের নতুন কমিটি

কৃষক দলের নতুন কমিটি

‘দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না’

‘দলীয় সরকারের অধীনে কোনোভাবেই সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩৬

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, জনগণ তাদের খুশিমতো নির্বাচনে ভোট দেবেন। জনগণই সিদ্ধান্ত নেবেন কারা দেশ পরিচালনা করবে। বঙ্গবন্ধুর সংবিধান অনুযায়ী বাংলাদেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে লাভ নেই, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে আওয়ামী সরকারই তত্ত্বাবধায়ক সরকার। নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) মন্ত্রণালয়ে তার অফিসকক্ষে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনী প্রেসক্রিপশন বিএনপি’র কাছ থেকে শিখতে হবে না। বাংলার জনগণ বিএনপি’র প্রেসক্রিপশন শুনতে চায় না। বিএনপির কাছে নির্বাচন শিখতে হবে না। 

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল হচ্ছেন খুনির অনুসারী; তিনি কীসের নির্বাচনী ফর্মুলা দেবেন। মিডিয়া বেজ রাজনৈতিক সংগঠন বিএনপি। ভোটের দিন নাটক রচনায় পটু। আর পল্টনে বসে মিডিয়ার সামনে কান্নাকাটি, ভোট বর্জন, এজেন্ট খুঁজে পায় না। এজেন্টরা যায় সিলেট, কক্সবাজার, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়া ঘুরতে। এই হচ্ছে বিএনপি। সব দোষ আওয়ামী লীগের, বঙ্গবন্ধুর কন্যার; এই ব্যবসা আর বাংলাদেশে হবে না। 

ডা. মুরাদ বলেন, আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। দেশ এখন সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলছে গতিময়তার সঙ্গে। খাদ্যের কোনও সংকট নেই বরং খাদ্য রফতানিকারক দেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিত পাচ্ছে বাংলাদেশ। মাথা পিছু আয় দুই হাজার ডলারের ওপরে। এটিই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এ বদলে যাওয়া কোনও জাদুর কারণে হয়নি। এ বদলে যাওয়া হয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে।

/এসআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

চলমান স্থিতিশীলতা বিনষ্টের চেষ্টা করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

চলমান স্থিতিশীলতা বিনষ্টের চেষ্টা করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

১০০ শিশু শিল্পীকে পুরস্কার দিলো আওয়ামী লীগ

১০০ শিশু শিল্পীকে পুরস্কার দিলো আওয়ামী লীগ

এবারও গ্রহণযোগ্য পন্থায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে: ওবায়দুল কাদের

এবারও গ্রহণযোগ্য পন্থায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে: ওবায়দুল কাদের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আল্লামা শফীর মৃত্যুর এক বছর: দোয়ার অনুরোধ

আল্লামা শফীর মৃত্যুর এক বছর: দোয়ার অনুরোধ

ঐক্যের আহ্বান হেফাজতের নতুন আমিরের

ঐক্যের আহ্বান হেফাজতের নতুন আমিরের

জামায়াত-হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা আলেম নয়: ইনু

জামায়াত-হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা আলেম নয়: ইনু

কথা রাখেনি হেফাজত, রাজনীতিকরাই নেতৃত্বে

কথা রাখেনি হেফাজত, রাজনীতিকরাই নেতৃত্বে

আটক নেতাদের বাদ দিয়ে হেফাজতের কমিটি, ঘোষণা সোমবার

আটক নেতাদের বাদ দিয়ে হেফাজতের কমিটি, ঘোষণা সোমবার

হেফাজতের আহ্বায়ক কমিটি অবৈধ: মধুপুরের পীর

হেফাজতের আহ্বায়ক কমিটি অবৈধ: মধুপুরের পীর

নেতাকর্মীদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি বাবুনগরীর

নেতাকর্মীদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি বাবুনগরীর

নিজেদের হেফাজতেই ব্যস্ত হেফাজতে ইসলাম

নিজেদের হেফাজতেই ব্যস্ত হেফাজতে ইসলাম

সমঝোতা নয় হেফাজতকে শক্তভাবে দমনের দাবি

সমঝোতা নয় হেফাজতকে শক্তভাবে দমনের দাবি

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে হেফাজত নেতারা বললেন ‘কিছু বলার নাই’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে হেফাজত নেতারা বললেন ‘কিছু বলার নাই’

সর্বশেষ

দিঘলিয়ায় নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি

দিঘলিয়ায় নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি

জাতিসংঘ সদর দফতরের বাগানে বৃক্ষরোপণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘ সদর দফতরের বাগানে বৃক্ষরোপণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

তৃতীয়বারের মতো সোনাগাজীর মেয়র খোকন 

তৃতীয়বারের মতো সোনাগাজীর মেয়র খোকন 

স্বাধীনতার ২ বছর পর ফের ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর মুক্তি চান ভুট্টো

স্বাধীনতার ২ বছর পর ফের ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর মুক্তি চান ভুট্টো

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস আজ

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস আজ

© 2021 Bangla Tribune