X
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮

সেকশনস

যাদের ঘরে ফেরা হয় না

আপডেট : ১৪ মে ২০২১, ১০:৪৭

সেই ত্রিশ বছর আগে ঘর ছেড়েছিলাম। তখন আমার বয়স ১৬। ধীরে ধীরে শরীর মনে পরিবর্তন লক্ষ করে বুঝেছিলাম এই সমাজ আমাকে বেমানান ভাবছে। নিজের পরিবারের সদস্যরা অচেনা হতে শুরু করে। সেই ছেড়ে আসার পর আর ফেরা হয়নি। ত্রিশ বছর ঈদে অন্যদের ঘরে ফিরতে দেখে নিজের পরিবারকে মনে পড়ে, মন খারাপ হয়, কিন্তু ফেরা হয় না।

ঈদে নাড়ির টানে ঘরে ফেরা নিয়ে কথাগুলো বলছিলেন ট্রান্সজেন্ডার জয়া শিকদার। তিনি বলেন, ‘ঈদে আমি এখন ঢাকাতেই থাকি। ভালো রান্না করি, ঘুরি। কিন্তু কোথায় যেন কী নেই—এই অনুভূতি নিয়ে কাটে। এ সমাজ ট্রান্সজেন্ডারদের জায়গা দিতে চায় না, পরিবার পরিচয় দিতে চায় না।’

জয়া শিকদার জানান, ট্রান্সজেন্ডার বিষয়টির সঙ্গেই ওরিয়েন্টেশন ঘটেনি—এই জটিল বাস্তবতায় বেড়ে উঠতে গিয়ে যখন দেখেন সমাজের চোখে তারা ‘ন্যাচারাল’ নন, তখন নেমে আসে খড়গ। ছেলে হিসেবে জন্মে শৈশব পার না করতেই যখন সে মেয়ে সত্তায় বাঁচতে শুরু করে প্রথমে মারধর, অপমান আর তারপরে সমাজচ্যুতি ঘটে।

ট্রান্সজেন্ডারের একজন ১৬ বছরে বেরিয়ে আর কখনোই বাড়ি ফিরেছেন কিনা জানতে চাইলে জয়া বলেন, ‘ফিরেছি তো। মা যেদিন মারা গেলেন। গেলাম শেষবার দেখতে। ছদ্মবেশ নিতে হলো, যাতে কেউ আমাকে চিনে না নেয়। যেটুকু সময় ছিলাম দূরে দূরে থাকতে হলো, যাতে আমার জন্য পরিবারের অন্যরা ছোট না হয়। বাবা সরাসরি বলে দিলেন, ‘আমি চাই না তোমাকে কেউ চিনুক আর আমাকে দুকথা শুনিয়ে যাক। এই তো ঘরে ফেরা।’

কেবল ট্রান্সজেন্ডার জয়ার নয়, বাকি যারা ঢাকায় বেঁচে থাকার লড়াই করছেন তাদের সবারই একই কাহিনী। হিজড়ারা এই ঈদের দিনে কী করে? তাদের কী ফেরা হয় না। কেউ কেউ ফেরেন শত অপমান নিয়েও। ঈদের দিন কীভাবে কাটে বলতে গিয়ে শিল্পা (ছদ্মনাম) বলেন, ‘নাম বললে অনেক ঝামেলা। আমরা এই দিনে সকালে গুরুর (কমিউনিটি লিডার) কাছে যাই। সেখানে সবাই মিলে সময় কাটাই। বিকালে পরিচিত বন্ধুদের সময় দিই যদি তাদের সময়ে টান না পড়ে।’

তাদের কথাতে বোঝা যায়, পরিবার, সমাজ থেকে বঞ্চিত হয়ে তারা নিজেদের সমাজ তৈরি করেছে। এই লকডাউন পরিস্থিতিতে ট্রান্সজেন্ডার/ হিজড়া/যৌনকর্মীরা অর্থ, দ্রব্য যোগাড় করতে জীবনের কঠিন লড়াই করেছেন। এবারের ঈদের আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘোষণা দিয়ে এই তিনি গোষ্ঠীকে অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়। জয়া লেখেন, আপনারা যে অর্থ দিয়েছেন এবং খাদ্যসামগ্রী দিয়েছেন তা সুষ্ঠুভাবে বন্টন করতে পেরেছি এবং যথাসম্ভব চেষ্টা করেছি অসহায় ব্যক্তির হাতে সঠিকভাবে সাহায্য তুলে দেওয়ার জন্য। আপনারা অর্থ এবং খাদ্যসামগ্রী দিয়ে সহায়তা করেছেন, এ জন্য আপনাদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। যে সমাজ আমাদের গ্রহণ করেনি সেই সমাজের অনেককেই আমরা বন্ধু তালিকায় পেয়েছি।

উল্লেখ্য, হিজড়া একটি সংস্কৃতি। রূপান্তরিত নারী ও রূপান্তরিত পুরুষরা এই সংস্কৃতির মধ্যে থাকেন। ট্রান্সজেন্ডার হলো জেন্ডার আইডেন্টিটি, লৈঙ্গীক পরিচয়। অনেকে ছেলের শরীর নিয়ে জন্মে কিন্তু মনে মনে নারী সত্তায় অবস্থান করেন এবং এক সময় তাদের শরীরটাকেও নারীর দিকেই নিয়ে যায়। একইভাবে নারীর শরীর নিয়ে জন্মে মনে মনে পুরুষের সত্তায় বেঁচে থাকতে নিজেকে পরিবর্তন করে পুরুষ হিসেবে।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

খুলনার ৩ হাসপাতালে আরও ৬ মৃত্যু

খুলনার ৩ হাসপাতালে আরও ৬ মৃত্যু

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

দেশের উত্তরাঞ্চলে গড়ে উঠবে গ্যাসভিত্তিক শিল্প

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

লায়নদের অভিনন্দন জানালেন বঙ্গবন্ধু

সফটওয়্যার মুঘল জন ম্যাকএ্যাফির মরদেহ উদ্ধার

সফটওয়্যার মুঘল জন ম্যাকএ্যাফির মরদেহ উদ্ধার

শেখ হাসিনা সরকারের বিদ্যুতে আলোকিত আশিদ্রোনের খাসিয়ারা

শেখ হাসিনা সরকারের বিদ্যুতে আলোকিত আশিদ্রোনের খাসিয়ারা

মেজর অব. মান্নান দম্পতিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ

মেজর অব. মান্নান দম্পতিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

এনবিআরের কাছে ভ্যাট-আয়কর সংক্রান্ত নীতি সহায়তা চায় বিজিএমইএ

এনবিআরের কাছে ভ্যাট-আয়কর সংক্রান্ত নীতি সহায়তা চায় বিজিএমইএ

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ৮১৬ ডোজ

কোভিশিল্ডের টিকা মজুত আছে ১ লাখ ৮১৬ ডোজ

সর্বশেষ

‘পুলিশ ম্যানেজ করা আছে, রংপুর-বগুড়া যেখানেই যান ১৫০০ টাকা’

‘পুলিশ ম্যানেজ করা আছে, রংপুর-বগুড়া যেখানেই যান ১৫০০ টাকা’

ঋণের টাকা দিতে না পেরে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

ঋণের টাকা দিতে না পেরে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎ স্পাইডারম্যানের

পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎ স্পাইডারম্যানের

বিলিয়াতে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন

বিলিয়াতে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন

দূরপাল্লার বাস ছাড়া সবই চলে ঢাকা-সাইনবোর্ড সড়কে

দূরপাল্লার বাস ছাড়া সবই চলে ঢাকা-সাইনবোর্ড সড়কে

বাবার চেয়ে ছেলে ২১ বছরের বড়!

বাবার চেয়ে ছেলে ২১ বছরের বড়!

ব্রাজিলের কাছে হেরে আর্জেন্টাইন রেফারিকে দুষলেন কলম্বিয়া কোচ

ব্রাজিলের কাছে হেরে আর্জেন্টাইন রেফারিকে দুষলেন কলম্বিয়া কোচ

খুলনার ৩ হাসপাতালে আরও ৬ মৃত্যু

খুলনার ৩ হাসপাতালে আরও ৬ মৃত্যু

তৃতীয় দিনের মতো বন্ধ দূরপাল্লার গণপরিবহন

তৃতীয় দিনের মতো বন্ধ দূরপাল্লার গণপরিবহন

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না রাখা গেলে ভারতের মতো অবস্থা হবে

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ মৃত্যু

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

চট্টগ্রামে উপজেলাগুলোতে রোগী বাড়ছে

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মেজর অব. মান্নান দম্পতিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ

মেজর অব. মান্নান দম্পতিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

দোহার ও নবাবগঞ্জের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ থাকবে

বান্ধবীকে ভিডিও কল দিয়ে তরুণীর ‘আত্মহত্যা’

বান্ধবীকে ভিডিও কল দিয়ে তরুণীর ‘আত্মহত্যা’

জামিন জালিয়াতির ঘটনায় আইনজীবী রাজীব গ্রেফতার

জামিন জালিয়াতির ঘটনায় আইনজীবী রাজীব গ্রেফতার

নাসির-অমির রিমান্ড শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

নাসির-অমির রিমান্ড শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল বৈষম্যহীন-অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়া’

‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল বৈষম্যহীন-অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়া’

করোনায় বিপর্যস্ত খামারিরা আরও প্রণোদনা পাবেন

করোনায় বিপর্যস্ত খামারিরা আরও প্রণোদনা পাবেন

খিলগাঁওয়ে গৃহবধূর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

খিলগাঁওয়ে গৃহবধূর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

৪২তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা ফের স্থগিত

৪২তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা ফের স্থগিত

মিজান ও বাছিরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ আগামী ২৯ জুন

মিজান ও বাছিরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ আগামী ২৯ জুন

© 2021 Bangla Tribune