X
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সেকশনস

ঈদের দিনেও ঠায় দাঁড়িয়ে ডিউটিতে যারা

আপডেট : ১৪ মে ২০২১, ২২:৩৬

ঈদে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের চিরচেনা ব্যস্ততম সড়কগুলো এখন অনেকটাই ফাঁকা। সড়কে নেই প্রতিদিনকার মতো যানবাহনের চাপ। মানুষের কোলাহল নেই। দু-একটি ছোটখাট যানবাহন ছাড়া পুরো শহরই ফাঁকা। তবে ফাঁকা শহরে যানবাহনের চাপ না থাকলেও চিরচেনা ট্রাফিক পুলিশকে ঠিকই দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। দায়িত্ব বলে কথা। যে কয়টা রিক্শা কিংবা ইজিবাইক চলাচল করছিল তাদের সঠিক নিয়মে চলাচলের দিক নির্দেশনা দিচ্ছিলেন কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ।

ঈদের দিনেও সড়কে ডিউটিতে আছেন একজন ট্রাফিক।

শহরের ল্যাড এইড মোড়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন ট্রাফিক পুলিশ সদস্য শংকর মজুমদার। দায়িত্ব পালনের ফাঁকে কথা হয় তার সাথে। তিনি জানান, সড়ক ফাঁকা তাই অনেকটা স্বস্তি। দুইদিন আগেও দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছে। কারণ গ্রামের মানুষ কেনাকাটা করার জন্যে বেশি বেশি শহরে আসায় যানবাহনের চাপ বেড়েছিল। তাই শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সবাইকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। এছাড়া প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যে দায়িত্ব পালন করতে হয়েছে। আজ ঈদের দিন বৃষ্টির কারণে প্রকৃতিতে অনেকটা সতেজতা সৃষ্টি হয়েছে। রোদের তাপ নেই। শহরে কোথাও যানজট নেই। মানুষ স্বাচ্ছ্যন্দে ঘোরাফেরা করছে। যানজট না থাকায় আগামী দু-দিন দায়িত্ব পালনে কিছুটা স্বস্তি পাওয়া যাবে। সরকারি ছুটি শেষ হলে আবারো পুরোনো চিত্র ফুটে উঠবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি সড়কে দায়িত্ব পালন করছেন ট্রাফিক কনস্টেবল শংকর মজুমদার।

তিনি বলেন, উৎসব পার্বন, ঝড়, বৃষ্টি সবগুলো দিবসে আমাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। তবে মানুষ খুশির মাঝে স্বস্তি খুঁজে পান বলে জানান, ট্রাফিক কনস্টেবল শংকর মজুমদার।

কনস্টেবল শংকরের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায় তার দপ্তরের শীর্ষ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) কর্মকর্তা দেবব্রত করকেও। তিনিও মোটর সাইকেল নিয়ে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে টহল দেন।

ট্রাফিক কর্মকর্তা দেবব্রত বলেন, ‘দুটি ঈদে আমাদের ট্রাফিক সদস্যরা পালাক্রমে ডিউটি করে থাকেন। এক ঈদে কেউ ছুটিতে গেলে অন্য ঈদে তিনি ছুটিতে যান না। পাশাপাশি অন্যধর্মের যারা আছেন তারা প্রধান উৎসবে ভাগাভাগি করে ছুটি কাটিয়ে থাকেন। প্রয়োজন ছাড়া তাদেরও ছুটি দেওয়া হয় না।

তিনি বলেন, ‘ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের নিজের ব্যক্তিগত জীবনের শ্রম-ঘাম সবই পথের মধ্যে। সার্বক্ষণিক দাঁড়িয়ে তারা দায়িত্ব পালন করে থাকেন। যানবাহনের হর্ন আর দৈনন্দিন জীবনের কোলাহল প্রতিটি ট্রাফিক পুলিশ সদস্যের চাকরি জীবনে প্রতিদিনকার স্বাভাবিক ঘটনা। আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ আর আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে আমরা বদ্ধপরিকর। শহরে যানজট নিয়ন্ত্রণে রাখাই আমাদের প্রধান কাজ। নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও সাধ্য অনুযায়ী সেই কাজটি প্রতিটি ট্রাফিক পুলিশ সদস্য যথাযথ ভাবে করে যাচ্ছে।

বলা বাহুল্য, আধুনিক নাগরিক জীবনে যানবাহনের চাপের পাশাপাশি নিয়ম অনুযায়ী শহরের সড়কে চলাচলের জন্য ট্রাফিক পুলিশের প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করার কোনও উপায় নেই। সারা বছরই  শহরের প্রতিটি মোড়ে মোড়ে নিজের অজান্তেই তাদের খুঁজে বেড়ান আপনি। সড়কে নিরাপত্তা দেওয়ার পাশাপাশি কখনও তারা যোগান সাহস, কখনও স্বস্তি। প্রিয় ট্রাফিক পুলিশদের এই ঈদে তাই বাংলা ট্রিবিউনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা।

/টিএন/

সম্পর্কিত

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

একসঙ্গে চার মেয়ে সন্তানের জন্ম

একসঙ্গে চার মেয়ে সন্তানের জন্ম

কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচন: ৮ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচন: ৮ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে ৩৭০ বসতঘর উচ্ছেদ

পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে ৩৭০ বসতঘর উচ্ছেদ

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

আলীকদমে ডায়রিয়ায় ৬ জনের মৃত্যু, পৌঁছেছে সেনাবাহিনীর মেডিক্যাল টিম

আলীকদমে ডায়রিয়ায় ৬ জনের মৃত্যু, পৌঁছেছে সেনাবাহিনীর মেডিক্যাল টিম

নাফ নদে ভেসে উঠলো আরও দুই রোহিঙ্গার লাশ

নাফ নদে ভেসে উঠলো আরও দুই রোহিঙ্গার লাশ

নদী দিয়ে ভেসে আসলো আরও দুই রোহিঙ্গা সদস্যের মরদেহ

নদী দিয়ে ভেসে আসলো আরও দুই রোহিঙ্গা সদস্যের মরদেহ

পাহাড় থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরাতে অভিযান শুরু

পাহাড় থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরাতে অভিযান শুরু

রাত ১২ টার মধ্যে কাদের মির্জাকে গ্রেফতারে দাবি মঞ্জুর

রাত ১২ টার মধ্যে কাদের মির্জাকে গ্রেফতারে দাবি মঞ্জুর

বিচার না পেলে বুধবার অবরোধের ডাক কাদের মির্জার

বিচার না পেলে বুধবার অবরোধের ডাক কাদের মির্জার

সর্বশেষ

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মিসরে মুসলিম ব্রাদারহুডের ১২ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

মেসি গোল পেলেও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত কানাডার সেই হামলাকারী

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

গোল মিসের মহড়ায় পয়েন্ট হারালো স্পেন

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি,  যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি, যুক্তরাজ্যে লকডাউন প্রত্যাহার হবে দেরিতে

অবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

পরীমণিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টাঅবশেষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ‘তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন’

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

বায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

অপার সম্ভাবনায় গুরুত্ব কমবায়ু শক্তিকে উদযাপনের দিন আজ

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

স্পর্শকাতর সিদ্ধান্তের মুখে ইসরায়েলের নতুন সরকার

৩২ লাখ টাকা সহায়তা পেলেন মোংলা বন্দরের শ্রমিক-কর্মচারীরা

৩২ লাখ টাকা সহায়তা পেলেন মোংলা বন্দরের শ্রমিক-কর্মচারীরা

ইউরোর ৬১ বছরের ইতিহাস পাল্টে দিলেন পোলিশ গোলকিপার

ইউরোর ৬১ বছরের ইতিহাস পাল্টে দিলেন পোলিশ গোলকিপার

মতিঝিলে ছিনতাই চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

মতিঝিলে ছিনতাই চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

ইয়াবা-স্বর্ণ ও টাকাসহ তিন রোহিঙ্গা গ্রেফতার

একসঙ্গে চার মেয়ে সন্তানের জন্ম

একসঙ্গে চার মেয়ে সন্তানের জন্ম

কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচন: ৮ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচন: ৮ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

রোহিঙ্গা তরুণীর পরিচয়পত্র তৈরি, সাবেক কাউন্সিলরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে ৩৭০ বসতঘর উচ্ছেদ

পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে ৩৭০ বসতঘর উচ্ছেদ

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

চট্টগ্রামে মিলেছে করোনার ভারতীয় ধরন, রোগী নিখোঁজ

আলীকদমে ডায়রিয়ায় ৬ জনের মৃত্যু, পৌঁছেছে সেনাবাহিনীর মেডিক্যাল টিম

আলীকদমে ডায়রিয়ায় ৬ জনের মৃত্যু, পৌঁছেছে সেনাবাহিনীর মেডিক্যাল টিম

নাফ নদে ভেসে উঠলো আরও দুই রোহিঙ্গার লাশ

নাফ নদে ভেসে উঠলো আরও দুই রোহিঙ্গার লাশ

নদী দিয়ে ভেসে আসলো আরও দুই রোহিঙ্গা সদস্যের মরদেহ

নদী দিয়ে ভেসে আসলো আরও দুই রোহিঙ্গা সদস্যের মরদেহ

পাহাড় থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরাতে অভিযান শুরু

পাহাড় থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরাতে অভিযান শুরু

© 2021 Bangla Tribune