X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

‘ফোন দিলে অবস্থা খারাপ হবে’ বলেই সার্জেন্টকে মারধর যুবকের

আপডেট : ১২ জুন ২০২১, ১৯:১৬

সিগন্যাল অমান্য করার কারণ জানতে চাওয়ায় সিলেট নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধর করেছেন সৌরভ চৌধুরী নামে এক যুবক। যিনি নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী পরিচয় দিয়েছেন। শনিবার (১২ জুন) দুপুরে নগরের চৌহাট্টায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় সৌরভকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আহত ট্রাফিক সার্জেন্ট মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন চিকিৎসা নিয়ে বাসায় অবস্থান করছেন। গ্রেফতার সৌরভ চৌধুরী সিলেট শহরতলীর টুকেরবাজার পীরপুর এলাকার সন্তোষ ঘোষের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আবু ফরহাদ বলেন, সিগন্যাল অমান্য করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে সৌরভকে বাধা দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে সিগন্যাল অমান্য করার কারণ জানতে চাওয়া হয়। তখন নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী পরিচয় দিয়ে ট্রাফিক সার্জেন্ট জসিম উদ্দিনকে মারধর করে সৌরভ। খবর পেয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার একদল পুলিশ চৌহাট্টা পয়েন্টে গিয়ে সৌরভকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায় এবং ট্রাফিক সার্জেন্ট জসিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। জমিসের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছেন ট্রাফিক সার্জেন্ট জসিম উদ্দিন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, থামতে সিগন্যাল দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাফিক সার্জেন্টের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ান ওই যুবক। নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী পরিচয় দিয়ে বলেন, আমি ছাত্রলীগ করি; ফোন দিলেই তোর অবস্থা খারাপ হয়ে যাবে। কিন্তু ট্রাফিক সার্জেন্ট তাকে যেতে না দেওয়ায় মারধর শুরু করেন যুবক।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ বলেন, সড়কের শৃঙ্খলারক্ষার জন্য পরিশ্রম করে সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নের চেষ্টা করি। এজন্য নাগরিক হিসেবে সবার আইন মেনে চলা এবং আইনশৃঙ্খলা প্রয়োগকারী সংস্থাকে সহযোগিতা করা উচিত। আইন প্রয়োগ করার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর হামলার ঘটনা খুবই জঘন্য। ওই যুবকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আহত ট্রাফিক সার্জেন্টকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় তরুণীর আত্মহত্যা

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:৩১

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় আত্মহত্যা করেছেন এক তরুণী। নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

বুধবার (২৮ জুলাই) দুপুরে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। লিমা আক্তার নামের ওই তরুণী উপজেলার নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নের মদিনানগর গ্রামের জাফর উদ্দিনের মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা থেকে নিঝুম দ্বীপে আসা মো. ননু মিয়ার (৭১) সঙ্গে লিমার বিয়ে দেন তার মা মিনারা বেগম। এ বিয়েতে লিমার কোনও মত ছিল না। কিন্তু তার মা মিনারা বেগম জোরপূর্বক তাকে ওই বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেন। এ নিয়ে মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সন্ধ্যায় মায়ের সঙ্গে তার ঝগড়া হয়। এরপর রাত সাড়ে ৮টার দিকে পরিবারের অগোচরে বিষপানে আত্মহত্যা করেন লিমা।

তবে মা মিনারা বেগমের দাবি, তার মেয়ে শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।

নিঝুম দ্বীপ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সৌরজিৎ বড়ুয়া জানান, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ফাঁড়িতে আনা হয়। বুধবার ময়নাতদন্তের জন্য লাশ নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে এলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

/এফআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

অভিমানে চেয়ারম্যানের ছেলের আত্মহত্যা

অভিমানে চেয়ারম্যানের ছেলের আত্মহত্যা

নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গৃহশিক্ষক আটক

নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গৃহশিক্ষক আটক

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:০২

কুমিল্লায় লকডাউনেও কমছে না করোনার সংক্রমণ। প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। সংক্রমণের হার কমাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে জেলা প্রশাসন। বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে প্রতিদিন। ২৩ জুলাই থেকে শুরু হওয়া লকডাউনের ছয় দিনে এক হাজার ২৩৯ মামলায় ১২ লাখ ৬৬ হাজার ৫০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

সবশেষ বুধবার (২৮ জুলাই) ২৮টি অভিযান পরিচালনা করা হয়। জেলা ও ১৭ উপজেলা প্রশাসন বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ২৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ১৭০টি মামলা করেছেন। এসব মামলায় ১৭০ ব্যক্তিকে দুই লাখ ৮৯ হাজার ৯০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। 

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, চলমান কঠোর লকডাউনের ছয় দিনে ২০৬টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। অভিযানে এক হাজার ২৩৯টি মামলা করা হয়। জেলা প্রশাসনের ছয় জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে জেলা শহরে ২৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়। এছাড়া আদর্শ সদর, সদর দক্ষিণ, চান্দিনা, মেঘনা, তিতাস, হোমনা, চৌদ্দগ্রাম লাকসাম, দেবিদ্বার ও মনোহরগঞ্জে একটি করে এবং বুড়িচং, দাউদকান্দি, মুরাদনগর, বরুড়া, নাঙ্গলকোট ও লালমাই দুটি করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়।

কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, লকডাউনে বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে বুধবার ২৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়েছে। পাশাপাশি জেলা প্রশাসন গত ছয় দিনে একা হাজার ১৩২ গরিব ও অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা বিতরণ করেছে। করোনা প্রতিরোধে সরকারের দেওয়া যেকোনও নির্দেশনা পালনে বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

/এএম/

সম্পর্কিত

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

১৫ দিন ধরে ফাঁকা নেই করোনা ইউনিট, চালু হচ্ছে আরও ৫০ শয্যা

১৫ দিন ধরে ফাঁকা নেই করোনা ইউনিট, চালু হচ্ছে আরও ৫০ শয্যা

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৯:৪৯

চাঁদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নাসির উদ্দিন নামের এক মোটরসাইকেল চালক নিহত হয়েছেন। ঘাতক ট্রাকটি নাসিরকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে গেছে। পরে ট্রাকের নিচ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে চাঁদপুর সদর উপজেলার চাঁনখার বাজারের চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের এম এম নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ঘাতক ট্রাক ও চালককে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত নাসির উদ্দিন চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৯নং উত্তর গোবিন্দপুর ইউনিয়নের পূর্ব ধানুয়া গ্রামের মিজি বাড়ির মৃত সোলেমান মিজির ছেলে। তিনি এক ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের জনক। কুমিল্লার শাসনগাছা এলাকায় থেকে ঠিকাদারির ব্যবসা করতেন তিনি।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, যশোর থেকে ছেড়ে আসা গাছ বোঝাই একটি ট্রাক চাঁদপুর হয়ে নাঙ্গলকোটের উদ্দেশে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে ট্রাকটি চাঁদখার বাজার এলাকায় এলে ওই পথ দিয়ে যাওয়া একটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এ সময় মোটরসাইকেল চালক নাসির উদ্দিনকে বেপরোয়া ট্রাকটি প্রায় পাঁচ কিলোমিটার টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায়। কিছুদূর যাওয়ার পর ট্রাকের নিচে দিয়ে মোটরসাইকেলটি বেরিয়ে গেলেও ট্রাকের নিচের কোনও এক স্থানে আটকে যান নাসির।

পরে ঘোষেরহাট এলাকার কয়েকজন সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালক ট্রাকের নিচ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইকবাল হোসেন বলেন, সহযোগী পালিয়ে গেলেও চালক গোলাম মোস্তফা ডাবলুকে সিএনজি চালকরা আটক করে রাখেন। চালকের বাড়ি যশোরের মনিরামপুর উপজেলায়। আমরা ঘটনাস্থলে এসে ঘাতক ট্রাক ও চালককে আটক করে থানায় নিয়ে আসি।

এ বিষয়ে চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ বলেন, নিহত নাসির উদ্দিন পেশায় একজন ঠিকাদার ছিলেন। দুর্ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে চাঁদপুর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

১৫ দিন ধরে ফাঁকা নেই করোনা ইউনিট, চালু হচ্ছে আরও ৫০ শয্যা

১৫ দিন ধরে ফাঁকা নেই করোনা ইউনিট, চালু হচ্ছে আরও ৫০ শয্যা

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল শুরু ১ আগস্ট

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৯:২৫

দীর্ঘ ৬৫ বছর পর আগামী ১ আগস্ট থেকে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হচ্ছে। এতে বাংলাদেশ ও ভারত মধ্যে বাণিজ্যের নতুন দুয়ার খুলছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে এ উপলক্ষে ভারতীয় রেলওয়ের দুটি ইঞ্জিন নিউ জলপাইগুড়ি থেকে ছেড়ে হলদিবাড়ি সীমান্ত দিয়ে নীলফামারীর চিলাহাটি সীমান্ত অতিক্রম করে পরীক্ষামূলক যাত্রা সম্পন্ন করে পুনরায় ফিরে যায়।

এ সময় ইঞ্জিনগুলোর সঙ্গে আসেন ট্রেন পরিচালক ও ইঞ্জিন চালক। সঙ্গে আরও ছিলেন- গৌরব বুথা, লিটু রাজ, অর্কদাস, রাকেশ কুমার, অরিজিৎ রায়, এম পি চৌধুরী ও ডি একান্দ চৌধুরী।

চিলাহাটিতে তাদের ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের ডেপুটি প্রজেক্ট ম্যানেজার নাজমুল হক রকি, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সৈয়দপুর অফিসের প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম, ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজার রহমান, চিলাহাটি রেল স্টেশন মাস্টার আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ।

ভারতীয় প্রতিনিধিরা জানান, ১ আগস্ট থেকে এই পথে দুইটি পণ্যবাহী ট্রেন চালু হতে যাচ্ছে। শুরুতে পণ্যবাহী ট্রেনে ভারত থেকে পাথর ও গম আসবে। এই পথে অক্সিজেনবাহী ট্রেনও চলাচল করতে পারে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর চিলাহাটি থেকে হলদিবাড়ি পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করেছিলেন বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি। এছাড়া চলতি বছরের ২৭ মার্চ দুই প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে ঢাকা থেকে নিউ জলপাইগুড়ি পর্যন্ত আন্তঃদেশীয় যাত্রীবাহী মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করেন। যাত্রীবাহী ট্রেনটি উদ্বোধন করা হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এখনও চালু হয়নি। অনুকূল পরিবেশ এলেই দুই দেশের পতাকা উড়িয়ে চলাচল শুরু করবে মিতালী।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, দীর্ঘদিন পর ফের হুইসেল বাজিয়ে ১ আগস্ট ৩০ ওয়াগন পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে আসবে ভারতীয় ট্রেন। যেসব ট্রেন পরিচালক ও ইঞ্জিন চালক আজ ইঞ্জিন নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে এসেছেন তারাই ১ আগস্ট পণ্যবাহী ট্রেন নিয়ে বাংলাদেশে আসবেন।

দুই দেশের পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলের ক্লিয়ারেন্স দেওয়া হয়েছে বলে জানান বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এ রেলপথে আসা ট্রেনের গন্তব্য হবে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম তীর। তবে ভারতীয় ইঞ্জিন চিলাহাটি পর্যন্ত এসে থেকে যাবে। চিলাহাটি থেকে বাংলাদেশের ইঞ্জিন ওয়াগনগুলো নিয়ে যাবে নির্দিষ্ট গন্তব্যে। পণ্য খালাস শেষে ফের ওয়াগন নিয়ে যাবে ভারতীয় ইঞ্জিন।

অপরদিকে, উভয় দেশের যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের সব ব্যবস্থাই ঠিকঠাক রয়েছে। তবে করোনার কারণে থেমে রয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

রংপুরে বিভাগে ২৯ দিনে ৪৪৪ জনের মৃত্যু

রংপুরে বিভাগে ২৯ দিনে ৪৪৪ জনের মৃত্যু

সিনোফার্মের টিকা নিলেন ২২৬ চীনা নাগরিক

সিনোফার্মের টিকা নিলেন ২২৬ চীনা নাগরিক

নির্মাণাধীন সড়ক ভবনের ছাদ ধসে ৩ শ্রমিক আহত

নির্মাণাধীন সড়ক ভবনের ছাদ ধসে ৩ শ্রমিক আহত

ক্যাম্প থেকে পালিয়ে কুড়িগ্রামে আটক ৯ রোহিঙ্গা

ক্যাম্প থেকে পালিয়ে কুড়িগ্রামে আটক ৯ রোহিঙ্গা

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৯:১২

নামের মিল না থাকার পরও যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির বদলে মিনু আক্তার নামে এক নারীর সাজা ভোগের ঘটনায় মূল আসামি কুলসুম আক্তার ও তার এক সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) ভোরে চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন লোহাগাড়া উপজেলার গোরস্থান মাঝের পাড়া আহাম্মদ মিয়ার বাড়ির আনু মিয়ার মেয়ে যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত কুলসুম আক্তার (৪০) ও তার সহযোগী মর্জিনা আক্তার (৩০)।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নেজাম উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আকাশ মাহমুদ ফরিদ। ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৬ সালের জুলাই মাসে মোবাইলে কথা বলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে নগরীর রহমতগঞ্জের একটি বাসায় পোশাককর্মী কোহিনুর আক্তার পারভীনকে গলা টিপে হত্যা করা হয়। এরপর তার লাশ একটি গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি করেন কুলসুম আক্তার। ওই ঘটনায় করা অপমৃত্যু মামলার তদন্ত শেষে আদালতে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ এনে প্রতিবেদন জমা দেয় পুলিশ।

২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে তৎকালীন অতিরিক্ত চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম আসামি কুলসুম আক্তারকে পারভীন হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। সেই সঙ্গে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়। 

ওই সাজা পরোয়ানায় কুলসুম আক্তারের পরিবর্তে মিনু আক্তার ২০১৮ সালের ১২ জুন কারাগারে যান। মিনু দুই বছর নয় মাস ১০ দিন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে ছিলেন। এরপর বিষয়টি তার পরিবার আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতের নজরে আনলে জামিনে মুক্তি পান। গত ২৮ জুন রাতে বায়েজিদ লিংক রোডে দুর্ঘটনায় মিনু নিহত হন। মিনু নিহতের ঘটনাকে রহস্যজনক দাবি করে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছেন আইনজীবী গোলাম মাওলা মুরাদ।

ওই সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, মিনুর মৃত্যু স্বাভাবিক নয়। মাত্র ১৩ দিন আগে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। বাসা থেকে চার কিলোমিটার দূরে রাস্তায় মিনু সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন, নাকি অন্য কেউ মিনুকে হত্যা করেছে? এটি তদন্ত হওয়া উচিত। পরে এ ঘটনায় বায়েজিদ থানায় মামলা করে পুলিশ। মামলাটি তদন্তাধীন।

/এএম/

সম্পর্কিত

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

মোটরসাইকেল চালককে টেনে-হিঁচড়ে ৫ কিলোমিটার নিয়ে গেলো ট্রাকটি

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

ডুবে গেছে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল, পাহাড়ধসের আশঙ্কা

সর্বশেষ

বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসের কাছে রকেট হামলা

বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসের কাছে রকেট হামলা

সিনোফার্মের আরও ৩০ লাখ ডোজ টিকা আসছে রাতে

সিনোফার্মের আরও ৩০ লাখ ডোজ টিকা আসছে রাতে

পিপিপি কনসেপ্ট আমরা এখনও ভালোভাবে নিতে পারিনি: অর্থমন্ত্রী

পিপিপি কনসেপ্ট আমরা এখনও ভালোভাবে নিতে পারিনি: অর্থমন্ত্রী

এবার অভিযুক্ত নির্মাতা বান্নাহ, চাইলেন ক্ষমা

এবার অভিযুক্ত নির্মাতা বান্নাহ, চাইলেন ক্ষমা

জনদুর্ভোগ কমাতে এসিল্যান্ডদের নির্দেশ দিয়ে পরিপত্র জারি

জনদুর্ভোগ কমাতে এসিল্যান্ডদের নির্দেশ দিয়ে পরিপত্র জারি

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

১৯ আগস্টের মধ্যে এসএসসির অ্যাসাইনমেন্টের তথ্য পাঠানোর নির্দেশ

সরকারি ৮ হাসপাতালের আইসিইউতে বেড ফাঁকা নেই

সরকারি ৮ হাসপাতালের আইসিইউতে বেড ফাঁকা নেই

প্রথমবারের মতো কাতারে অনুষ্ঠিত হবে আইনসভার নির্বাচন

প্রথমবারের মতো কাতারে অনুষ্ঠিত হবে আইনসভার নির্বাচন

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় তরুণীর আত্মহত্যা

৭১ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় তরুণীর আত্মহত্যা

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

সুন্দরবন যেমন আছে তেমনই থাকতে দিন: সুলতানা কামাল

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

কুমিল্লায় লকডাউনের ছয় দিনে ১২ লাখ টাকা জরিমানা আদায় 

স্বাগতিকদের কাঁদিয়ে সেমিতে জোকোভিচ 

স্বাগতিকদের কাঁদিয়ে সেমিতে জোকোভিচ 

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

যার সাজা খেটেছিলেন মিনু, সেই কুলসুম গ্রেফতার

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

শিক্ষিকাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে মাদ্রাসা সভাপতি গ্রেফতার

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

© 2021 Bangla Tribune