X
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তান ত্যাগ রাশিয়ার ‘নিরাপত্তা হুমকি’

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০২১, ০০:১৯

আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহার রাশিয়ার জন্য নতুন এক মাথাব্যথার জন্ম দিয়েছে। কারণ এর ফলে মধ্য এশিয়ায় শরণার্থীর ঢল, জিহাদি হুমকি এবং এমনকি একটি সাবেক সোভিয়েত রাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধের সূচনা হতে পারে। এক সাবেক রুশ কূটনীতিক ও দুই বিশ্লেষকের পর্যালোচনায় এমন পরিস্থিতি উঠে এসেছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

গত সপ্তাহে আফগানিস্তানের বাগরাম বিমানঘাঁটি ত্যাগ করে মার্কিন সেনারা। দেশটিতে এটিই ছিল তাদের প্রধান ঘাঁটি। বেশিরভাগ ন্যাটো সেনারাও আফগানিস্তান ছেড়েছে। এমন সুযোগে সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবান সরকারিবাহিনীর বিরুদ্ধে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছে। বেশ কিছু অঞ্চলের দখলও নিয়েছে। কাবুল সরকারের নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা নিয়ে আশঙ্কায় থাকা আফগান নিরাপত্তাবাহিনীর সহস্রাধিক সদস্য তাজিকিস্তানে পালিয়েছে।

এই বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি রাশিয়ার জন্য উদ্বেগের। কারণ সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ এই অঞ্চলকে নিজেদের প্রতিরক্ষার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রান্তভাগ মনে করে মস্কো। এছাড়া উগ্রপন্থী ইসলামিদের প্রভাবও বাড়তে পারে আশঙ্কা রয়েছে।

১৯৭৯-৮৯ পর্যন্ত নিজেদের আফগান যুদ্ধে বিভীষিকা এখনও তাড়িয়ে বেড়ায় মস্কোকে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ স্পষ্ট করে বলেছেন, আফগানিস্তানে সামরিক উপায়ে জড়াতে চায় না রাশিয়া।

কিন্তু তাজিকিস্তানে শরণার্থীদের ঢল মানবিক সংকট তৈরি এবং জিহাদিদের অনুপ্রবেশ ঘটতে পারে বলে মনে করছেন তিনটি সূত্র। এখানে ১৯৯২ থেকে ১৯৯৭ পর্যন্ত ইসলামপন্থীদের সঙ্গে গৃহযুদ্ধের ইতিহাস রয়েছে। সংকটে পড়তে পারে উজবেকিস্তান বা তুর্কমেনিস্তান।

সাবেক রুশ কূটনীতিক ভ্লাদিমির ফ্রোলোভ বলেন, সবচেয়ে ঝুঁকিতে মনে হয় তাজিকিস্তান। এটি প্রায় ভঙ্গুর রাষ্ট্র এবং প্রেসিডেন্ট এমোমালি রাখমনের ছেলের ক্ষমতা গ্রহণের উত্তরাধিকার রয়েছে। ঝুঁকির জায়গা হলো জিহাদি শক্তিগুলো সমাজের চলমান বিভাজন ও ন্যায়বিচারের ধোঁয়া তুলে গৃহযুদ্ধ পুনরুজ্জীবিত করার সুযোগ নিতে পারে।

বিদেশে রাশিয়ার সবচেয়ে বড় সামরিক ঘাঁটির অবস্থান আফগান ফ্রন্টিয়ারের কাছে তাজিকিস্তানে। এখানে প্রায় ৬ হাজার সেনা, ট্যাংক, ড্রোন, হেলিকপ্টার আর্মার্ড পারসোনাল ক্যারিয়ার রয়েছে। প্রতিবেশী কিরগিজস্তানে রয়েছে রাশিয়ারি বিমানঘাঁটি।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সোমবার রাখমনকে বলেছেন, তাজিকিস্তান সংকটে পড়লে রাশিয়া সহযোগিতা করবে। রাখমন সীমান্তে ২০ হাজার অতিরিক্ত সেনা পাঠিয়েছেন। রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন সামরিক ব্লকের কাছেও তিনি সহযোগিতা চেয়েছেন।

ফ্রোলভ বলেন, আরেকটি হুমকি হলো তুর্কমেনিস্তান। যেটি প্রকৃতপক্ষে কোনও রাষ্ট্র নয় এবং আফগানিস্তানের সঙ্গে সীমান্তের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেই তাদের হাতে।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঘনিষ্ঠ একটি থিংক ট্যাংক রাশিয়ান ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স কাউন্সিলের প্রধান আন্দ্রেই কর্তুনভ বলেন, আমি মনে করি না আফগানিস্তানে সরাসরি সামরিক পদক্ষেপ নেবে রাশিয়া। অনেক রুশ নাগরিকের কাছে বিষয়টি অনেক বেশি স্পর্শকাতর।

তার মতে, সন্ত্রাসবিরোধী তথ্য বিনিময়, কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স ও বিশেষ অভিযানসহ সীমান্ত নিরাপত্তা মস্কোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, আফগানিস্তানকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের ঘাঁটি হিসেবে পরিণত হতে না দেও এবং গুরুত্বপূর্ণ হিরোইন রফতানিকারক হিসেবে দেশটির অবস্থান মুছে দেওয়া মস্কোর লক্ষ্য।

তিনটি সূত্র জানায়, রাষ্ট্রীয়ভাবে তালেবানকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী মনে করলেও শান্তি আলোচনায় মস্কোতে তাদের অভ্যর্থনা জানানো হয়েছে। এগুলো ছিল রাশিয়ার পরিকল্পনা।

বৃহস্পতিবার তালেবানের একটি দল মস্কো সফর করেছে। প্রতিনিধি দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তারা তাজিকিস্তান সীমান্তে হামলা চালাবে না বা আফগানিস্তানকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে হামলায় ব্যবহার করতে দেবে না।

মস্কোভিত্তিক বিশ্লেষক আর্কাদি দুবনভ জানান, সাম্প্রতিক বিবৃতিগুলোতে তালেবানের সমালোচনা না করতে সতর্ক ছিল রাশিয়া।

ফ্রোলভ বলেন, তালেবান মূলত আদিবাসী শক্তি যাদের আফগানিস্তানের সীমান্ত অতিক্রম করে ক্ষমতা ও নিয়ন্ত্রণের আগ্রহ নেই, এটিতেই বাজি ধরতে চাইছে মস্কো। এই বাজি হলো তালেবানের সঙ্গে যুদ্ধে না জড়ানো, এমনকি প্রোপাগান্ডা হিসেবেও নয়। যার ফলে তালেবান নিয়ন্ত্রিত কাবুলে নতুন সরকারের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ অবস্থানের সুযোগ তৈরি হবে।

পরিস্থিতি হলো মস্কো আফগানিস্তান থেকে সেন্ট্রাল এশিয়ায় পুনরায় ন্যাটোর মোতায়েন এড়াতে চায়। আফগানিস্তানবিষয়ক রাশিয়ার বিশেষ দূত গত সপ্তাহে বলেছেন, এই প্রত্যাহার প্রক্রিয়া আবারও যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সামরিক অবকাঠামো আফগানিস্তানের প্রতিবেশী, বিশেষ করে সেন্ট্রাল এশিয়ায় পুনরায় মোতায়েনে পরিণত হওয়া উচিত না।

/এএ/

সম্পর্কিত

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৪

যুক্তরাষ্ট্রের মোস্ট ওয়ান্টেড সন্ত্রাসী তালিকায় থাকা তালেবান আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন জাতিসংঘের দূত দেবোরাহ লিওনস। বৃহস্পতিবার এ খবর প্রকাশ করেছে পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডন। 

তালেবানের মুখপাত্র সুহাইল শাহীন বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) টুইটারে এক বিবৃতিতে জানান, আফগান জনগণের জন্য জরুরিভিত্তিতে মানবিক সহায়তা দেওয়ার বিষয়ে কাবুলে নিযুক্ত জাতিসংঘ মিশনের প্রধান দেবোরাহ লিওনস ও সিরাজউদ্দিন হাক্কানির মধ্যে বৈঠক হয়। 

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) উভয়পক্ষের আলোচনায় হাক্কানি জাতিসংঘের দূতকে নিশ্চিত করে বলেন, ‘কোনও বাধা ও ভয়ভীতি ছাড়াই জাতিসংঘের কর্মীরা আফগানিস্তানে কাজ করতে পারবেন। আফগান জনগণকে সহায়তা করতে পারবে জাতিসংঘ’। বৈঠক কোথায় অনুষ্ঠিত হয়েছে তা স্পষ্ট করেননি তালেবান মুখপাত্র সুহাইল শাহীন। 

গত দুই দশক ধরে বিদেশি সহায়তার উপরই নির্ভর করে আসছে আফগানিস্তান। তবে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর সম্প্রতি সহায়তা বন্ধ করে দিয়েছে বিশ্বের অধিকাংশ দেশ। ফলে প্রবল সংকটের মুখে পড়েছে আফগান জনগণ। এমন পরিস্থিতিতে আফগান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাক্কানির সঙ্গে আলোচনা হলো জাতিসংঘ দূতের।

এফবিআইএর তাকিায় সিরাজুদ্দিন হাক্কানি

আফগান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরাজউদ্দিন হাক্কানির নাম এখনো মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইয়ের মোস্ট ওয়ান্টেড সন্ত্রাসীদের তালিকায় রয়েছে। তার মাথার দাম ৫০ লাখ ডলার ধরা আছে যুক্তরাষ্ট্রে।

/এলকে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫৪
সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

বিদেশে বিপদে পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:২০

নতুন অন্তর্বর্তী সরকারে অভ্যন্তরীণ বিরোধের কথা অস্বীকার করেছেন তালেবানের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং ভারপ্রাপ্ত উপপ্রধানমন্ত্রী মোল্লা আবদুল গণি বারাদার। এছাড়া কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে সংঘাতে আহত হওয়ার খবরও উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

আফগান ন্যাশনাল টিভিকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মোল্লা বারাদর। এই সাক্ষাৎকারের একটি ভিডিও তালেবানের দোহা কার্যালয়ের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশ করা হয়েছে।

ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, বারাদারের কাছে তার আহত হওয়ার গুজব নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, এটা কোনওভাবেই সত্য নয়। সকল প্রশংসা আল্লাহর আমি সুস্থ এবং ভালো আছি। সংবাদমাধ্যমে আমাদের অভ্যন্তরীণ মতবিরোধের যে দাবি করা হচ্ছে তাও সত্যি নয়।’

মোল্লা বারাদার বলেন, ‘আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা যে আমাদের মধ্যে প্রচুর দয়া এবং ক্ষমার মনোভাব রয়েছে। আর এটি এমন যে তা কোনও পরিবারের মধ্যেও থাকে না। এছাড়া আমরা বহু বছর ধরে দখলদারিত্ব অবসানের জন্য দুর্ভোগ সহ্য করেছি, ত্যাগ স্বীকার করেছি। এর কোনওটাই ক্ষমতা কিংবা পদ পাওয়ার জন্য নয়।’

কাবুলের বাইরে একটি সফরে থাকার দাবি করে মোল্লা বারাদার বলেন, যে স্থানে সফর করছিলাম সেখানে সংবাদমাধ্যমের দাবি খণ্ডানোর উপায় ছিলো না। তিনি বলেন, সেকারণে আমরা আফগান জনগণ এবং সব সিনিয়র ও জুনিয়র মুজাহিদিনদের আতঙ্কিত না হতে বলছি, উদ্বিগ্ন হওয়ার আসলে কিছু নেই।’

গত রবিবার কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাবুল সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হলেও ছিলেন না মোল্লা বারাদার। এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা জানতাম না কাতার থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আসছেন। জানতে পারলে আমরা সফর স্থগিত করতাম। আর আমরা সফরে থাকার কারণেই সাক্ষাৎ ঘটেনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে সফর থেকে ফেরা সম্ভব ছিলো না। আগে খবর পেলে আমরা অন্য বন্ধুদের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিতাম।’

তালেবান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মোল্লা বারাদার কান্দাহারে গেছেন। সেখানে গ্রুপটির সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা বসবাস করেন বলে মনে করা হয়।

/জেজে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:২০
তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

চীনের মারাত্মক হুমকি, প্রতিরক্ষা ব্যয় বাড়াচ্ছে তাইওয়ান

প্রতিরক্ষা ব্যয় ৯০০ কোটি ডলার বাড়াচ্ছে তাইওয়ান

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

বিদেশে বিপদে পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

চীনের মারাত্মক হুমকি, প্রতিরক্ষা ব্যয় বাড়াচ্ছে তাইওয়ান

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২১

আগামী পাঁচ বছরে প্রতিরক্ষা ব্যয় আরও নয়শ’ কোটি ডলারের প্রস্তাব করেছে তাইওয়ান। দেশটির নিজস্ব মুদ্রায় এর পরিমাণ ২৪০ বিলিয়ন তাইওয়ান ডলার। চীনের ‘মারাত্মক হুমকি’র মুখে অস্ত্রের উন্নয়ন ঘটানো অতি জরুরি হয়ে পড়ায় বৃহস্পতিবার এই প্রস্তাব করা হয়েছে।

২০২২ সালে তাইওয়ানের সামরিক ব্যয়ের পরিকল্পনা রয়েছে ৪৭১.৭ তাইওয়ান ডলারের। এর অতিরিক্ত হিসেবেই ওই অর্থ ব্যয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে এই প্রস্তাব পার্লামেন্টে অনুমোদিত হতে হবে। পার্লামেন্টে প্রেসিডেন্ট তাসাই ইন-ওয়েন এর দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় সহজেই এই অনুমোদন পাওয়া যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক বৈঠকের পর তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতি বলা হয়েছে, ‘চীনা কমিউনিস্ট জাতীয় প্রতিরক্ষা বাজেটে বিপুল বিনিয়োগ অব্যাহত রেখেছে, তাদের সামরিক শক্তি দ্রুত বাড়ছে আর তারা আমাদের সমুদ্র এবং আকাশসীমায় হয়রানি করতে বারবার বিমান এবং জাহাজ পাঠাচ্ছে।’

ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘শত্রুর ক্রমাগত হুমকির মুখে দেশের সেনাবাহিনী সক্রিয়ভাবে সামরিক ক্ষমতা অর্জন ও প্রস্তুতিমূলক কাজ করছে আর আধুনিক ও ব্যাপক অস্ত্র উৎপাদন স্বল্প মেয়াদের মধ্যে জরুরি হয়ে পড়েছে।’

/জেজে/

সম্পর্কিত

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

বিদেশে বিপদে পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

দুয়ার্তের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত

শুরু হচ্ছে দুয়ার্তের বিরুদ্ধে তদন্ত

তালেবানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে বিশ্বের প্রতি আহ্বান পাকিস্তানের

তালেবান সরকারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান পাকিস্তানের

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৩২

তালেবান আকস্মিকভাবে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ায় বিপদে পড়েছেন শত শত আফগান কূটনীতিক। দূতাবাস সচল রাখার অর্থও যেমন ফুরিয়ে যাচ্ছে তেমনি পরিবারের কাছে ফিরতে পারার আশঙ্কাও রয়েছে। অনেকেই বিদেশে শরণার্থী হিসেবে থেকে যাওয়ার আবেদন করেছেন। তবে তালেবান কর্তৃপক্ষ সব দূতাবাসে চিঠি দিয়ে নিজেদের কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আটটি দূতাবাসের কর্মীরা নিজ নিজ দূতাবাসের স্থবিরতা এবং কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়া নিয়ে কথা বলেছেন। এর মধ্যে কানাডা, জার্মানি ও জাপানের আফগান দূতাবাসের কর্মীরাও রয়েছেন।

বার্লিনের এক দূতাবাস কর্মী বলেন, এখানে আমার সহকর্মী এবং আরও বহু দেশের কর্মীরা সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে তাদের গ্রহণ করার আবেদন করেছেন। তবে তিনি এখনও আবেদন করেননি। কারণ হিসেবে তিনি জানান, এখনও কাবুলে থেকে যাওয়া স্ত্রী ও চার মেয়ের ভবিষ্যত নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন।

ওই ব্যক্তি বলেন, ‘আমি আক্ষরিকভাবেই ভিক্ষা চাইছি, আমাকে কূটনীতিক থেকে শরণার্থী করে দিন।’ কাবুলের একটি বাড়িসহ তার কাছে থাকা সবকিছুই বিক্রি করে দিতে পারেন বলেও জানান তিনি।

গত মঙ্গলবার কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বলেন, সব আফগান দূতাবাসেই কাজ চালিয়ে যাওয়ার বার্তা পাঠিয়েছে তালেবান। তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তান আপনাদের জন্য বিনিয়োগ করেছে, আপনারা আফগানিস্তানের সম্পদ।’

এক সিনিয়র আফগান কূটনীতিকের ধারণা বিশ্ব জুড়ে আফগান দূতাবাসে কর্মরত এবং সরাসরি তাদের ওপর নির্ভরশীল রয়েছে প্রায় তিন হাজার। গত ৮ সেপ্টেম্বর আশরাফ গণির উৎখাত হওয়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে দূতাবাসগুলোতে কাজ চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়।

তবে এসব আহ্বানে মাঠ পর্যায়ের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি উত্তরণের কোনও নির্দেশনা নেই বলে মনে করেন আফগান দূতাবাস কর্মীরা। কানাডায় থাকা এক কর্মী বলেন, ‘অর্থ নেই। এই অবস্থায় কাজ চালানো সম্ভব নয়। এই মুহূর্তে আমাকে বেতন দেওয়া হচ্ছে না।’

দিল্লির দুই দূতাবাস কর্মীও জানিয়েছেন কার্যক্রম চালানোর মতো অর্থ তাদের নেই। তারা বলছেন, আগের সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় তালেবানের হাতে নিপীড়নের শঙ্কায় দেশে ফিরবেন না তারা। ভারতেই শরণার্থী মর্যাদা পাওয়ার আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা।

/জেজে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:২৮
ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

দুয়ার্তের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৪৮

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তের বিরুদ্ধে  তদন্ত শুরুর আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। তার বিরুদ্ধে ‘মাদক বিরোধী যুদ্ধে’র নামে শত শত মানুষ হত্যার অভিযোগ রয়েছে। এসব ঘটনায় মানবতাবিরোধী অপরাধ তদন্ত করবে আইসিসি। তদন্ত শুরুর ঘটনাকেই নৈতিক জয় বলে দাবি করেছেন মানবাধিকার কর্মী এবং হতাহতদের পরিবারের সদস্যরা।

হেগ ভিত্তিক আদালতের তরফে বুধবার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ওই অভিযানে শত শত মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত শুরুর যৌক্তিক ভিত্তি রয়েছে। এছাড়া মানবতাবিরোধী অপরাধের সুনির্দিষ্ট আইনি উপাদানও রয়েছে।

আইসিসির প্রাক-বিচারিক চেম্বার আরও বলেছে, কথিত মাদকবিরোধী যুদ্ধকে বৈধ আইন প্রয়োগকারী অভিযান হিসেবে দেখার সুযোগ নেই। আর হত্যাকাণ্ড কোনও ভাবেই বৈধ এবং বৈধ অপারেশনের ফলাফল হিসেবে দেখা যাবে না।

দুয়ার্তের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর আদেশে স্বাক্ষরকারী বিচারকেরা হলেন পিটার কোভ্যাকস, রেইন আদেলাইডি সোফি আলাপিনি-গানসো এবং মারিয়া দের সোকোরো ফ্লোরস লিয়েরা।

আদালত জানিয়েছে, অন্তত ২০৪ জন আক্রান্তের পক্ষ থেকে উপস্থাপন করা প্রমাণ বিবেচনায় নিয়েছেন বিচারকেরা। এতে দেখা গেছে, বেসামরিক জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যাপক এবং কাঠামোগত হামলা চালানো হয়েছে।

আইসিসির সাবেক প্রসিকিউটর ফাতহু বেনসুদা ওই তদন্ত শুরুর আবেদন করেন। গত জুনে তিনি অবসর নেন। তার উত্তরসূরি হিসেবে নিয়োগ পাওয়া প্রসিকিউটর করিম খান এখন মূল তদন্ত এবং মামলার সম্ভাব্য বিচার তদারকি করবেন।

/জেজে/

সম্পর্কিত

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

চীনের মারাত্মক হুমকি, প্রতিরক্ষা ব্যয় বাড়াচ্ছে তাইওয়ান

প্রতিরক্ষা ব্যয় ৯০০ কোটি ডলার বাড়াচ্ছে তাইওয়ান

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

বিদেশে বিপদে পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

তালেবানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে বিশ্বের প্রতি আহ্বান পাকিস্তানের

তালেবান সরকারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান পাকিস্তানের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সঙ্গে জাতিসংঘ দূতের বৈঠক

তালেবানের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়ে মুখ খুললেন মোল্লা বারাদার

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

ফুরিয়ে যাচ্ছে অর্থ, বিদেশে আটকা পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

বিদেশে বিপদে পড়ছেন শত শত আফগান কূটনীতিক

তালেবানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে বিশ্বের প্রতি আহ্বান পাকিস্তানের

তালেবান সরকারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান পাকিস্তানের

চীন মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার চুক্তি স্বাক্ষর

চীন মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার চুক্তি স্বাক্ষর

টাইমস-এর ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় তালেবান নেতা মোল্লা বারাদার

টাইমস-এর ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় তালেবান নেতা মোল্লা বারাদার

সর্বশেষ

ডাকাতি করতো স্বামী, স্বর্ণ বিক্রি করতো স্ত্রী

ডাকাতি করতো স্বামী, স্বর্ণ বিক্রি করতো স্ত্রী

ভাড়া দেওয়া হয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কক্ষ

ভাড়া দেওয়া হয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কক্ষ

শনাক্তের হার ৬ শতাংশের নিচে

শনাক্তের হার ৬ শতাংশের নিচে

হেলপার ঘুমাচ্ছিলেন ট্রাকের নিচে, চালক উঠে দিলেন টান

হেলপার ঘুমাচ্ছিলেন ট্রাকের নিচে, চালক উঠে দিলেন টান

ইভ্যালির চেয়ারম্যান-সিইও’র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২১ অক্টোবর

ইভ্যালির চেয়ারম্যান-সিইও’র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২১ অক্টোবর

© 2021 Bangla Tribune