X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

কয়রায় ১২ বছরে জনসংখ্যা বেড়েছে ২ হাজার

আপডেট : ২১ জুলাই ২০২১, ০৮:৩০

খুলনার কয়রা উপজেলায় ২০০৯ সালে জনসংখ্যা ছিল এক লাখ ৯৩ হাজার ৬৫৬ জন। ২০২১ সালে উপজেলার জনসংখ্যা এক লাখ ৯৫ হাজার ২৯২ জন। উপজেলা পরিসংখ্যান অফিস সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। এ হিসাবে গত ১২ বছরে উপজেলার জনসংখ্যা বেড়েছে দুই হাজার ৩৬৪ জন।

অথচ বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার এক দশমিক ৪৭ শতাংশ। সে অনুসারে উপজেলায় ২০০৯ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত জনসংখ্যা হওয়ার কথা প্রায় দুই লাখ ২৮ হাজার। কিন্তু হিসাবে ৩৩ হাজার জনসংখ্যা হ্রাস পেয়েছে।

উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মনোজ মন্ডল বলেন, ‘প্রতি বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে প্রায় তিন হাজারের বেশি মানুষ উপকূল ছেড়ে চলে যায়। এ হিসাবে কয়রায় ১২ বছরে ৩৩ হাজার জনসংখ্যা কমেছে।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সুদীপ বালা বলেন, ‘কয়রায় জন্মহার এক দশমিক আট শতাংশ। ২০২০ সালে চার হাজার ১৫৬টি শিশু জন্মগ্রহণ করে। প্রতি বছর জন্মের গতি এরকমই থাকছে। কিন্তু কয়রার সামগ্রিক জনসংখ্যা দেখে হিসাব মেলে না। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কয়রা থেকে অনেক লোক স্থানান্তরিত হওয়ায় সামগ্রিক জনসংখ্যা কমতে পারে।’        

দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবি নুর ইসলাম বলেন, ‘প্রতি বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাঁধ ভেঙে প্লাবিত ও নদী ভাঙনের কারণে দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়ন থেকে প্রায় তিন হাজার মানুষ অন্য জায়গায় চলে গেছে। জনসংখ্যা কমার এটি বড় কারণ।’

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত হানায় জীবনমান উন্নয়নের জন্য অনেকেই আশপাশের জেলাসহ বিভিন্ন শহরে চলে গেছেন। এজন্য জনসংখ্যা কমেছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, ‘প্রতি বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বাঁধ ভেঙে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়। ঘরবাড়ি হারিয়ে অনেকেই স্থানান্তরিত হচ্ছেন। ফলে দিন দিন জনসংখ্যা কমছে।’

 

/এএম/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১২:২৯

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে যশোরের ঝিকরগাছায় নয়ন (২৫) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (২৪ জুলাই) বিকাল ৫টার দিকে ঝিকরগাছার টাওরা কদমতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নয়ন ঝিকরগাছা উপজেলার টাওরা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

এদিকে এ ঘটনায় জহিরুল (৩৩),  শামিম (৪০), মামুন (১৭) ও আশা (২০) নামে চারজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে জহিরুলকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

নিহতের চাচাতো ভাই সুজন জানান, গত শুক্রবার বিকালে টাওরা প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে টাওরা ও পাশের গ্রাম নীলকণ্ঠনগরের যুবকদের মধ্যে ফুটবল খেলা হয়। খেলার একপর্যায়ে দুই গ্রামের সমর্থকর মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। শনিবার বিকালে নয়ন ও জহিরুলসহ অন্যরা খালপাড়ে গল্প করছিলেন। এ সময় পানিসারা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর সরোয়ারের উপস্থিতিতে জাহিদুল, বকুল ও মেহেদিসহ কয়েকজন তাদেরকে কুপিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সন্ধ্যার পর তাদের দুই জনকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক অমিয় দাস জানান, হাসপাতালে আনার আগেই নয়ন মারা যান। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হতে পারে। আহত অপরজন শঙ্কামুক্ত।

এ বিষয়ে ঝিকরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট দ্বন্দ্বে শুক্রবার এই পক্ষ মেম্বারের ছেলেকে মারধর করে। ওই ঘটনার জের ধরে শনিবার অপরপক্ষ হামলা চালায়। এ ঘটনায় থানায় লিখিত কোনও অভিযোগ দেয়নি কেউ। তবে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িতদের আটকে তৎপরতা শুরু করেছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৪২

খুলনার সরকারি-বেসরকারি চারটি হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ফের মৃত্যু বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার সকাল ৮টা থেকে রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) এই হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

এর মধ্যে খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে পাঁচ, শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এক ও গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে তিন জন মারা গেছেন।

খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর বাবুখান রোডের আ. বারেক (৭২), খালিশপুরের খাদিজা (৫০), ডুমুরিয়ার নাসিমা (৪৫), বটিয়াঘাটার রোকসানা (৩৫) ও বাগেরহাটের ফকিরহাটের মারুফা বেগম। হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১১০ জন। তাদের মধ্যে রেড জোনে ৩৯, ইয়েলো জোনে ৩৮ ও আইসিইউতে ২০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন আট জন। আর সুস্থ হয়েছেন আট জন।

আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ দেবনাথ জানান, হাসপাতালে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- নগরীর ১০ সুলতান আহমেদ রোডের রায়হান চৌধুরী (৪০) ও গোয়ালখালী ১৪১ মেইন রোডের সুফিয়া বেগম (৫৮)। করোনা ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন ৪১ জন। তার মধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ১০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ জন ভর্তি হয়েছেন। আর সুস্থ হয়েছেন চার জন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে বাগেরহাটের শরণখোলার মো. ইব্রাহিম (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন, তার মধ্যে ২০ জন পুরুষ ও ১৫ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন নয় জন। আর সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর আমতলা মোড়ের নুরুন্নাহার (৪৪), জোড়াকল বাজারের রামকৃষ্ণ সাহা (৭৫) ও নড়াইলের দুর্গাপুরের অসীম ভট্ট (৪৭)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

এদিকে সিটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় কোনও রোগীর মৃত্যু হয়নি। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৬৮ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১০ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন। আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন সাত জন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:২০

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটে রোগীর চাপ বেড়েছে। এ অবস্থায় রোগী সামাল দিতে আইসিইউ সমমানের আরও ২৪টি শয্যা বাড়ানো হয়েছে। পঞ্চম তলায় আইসিইউ ইউনিটের পাশেই বাড়তি ২৪টি শয্যায় ক্রিটিক্যাল রোগীদের হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা দিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। 

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন করোনা ইউনিটে সাড়ে চারশ’ রোগীর উপরে চিকিৎসা নিচ্ছেন। রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শয্যার সংখ্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়। আগের সাড়ে ৪শ’-সহ বর্তমানে ২৪টি সংযুক্ত করে মোট শয্যা সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৭৪টি।

তিনি আরও জানান, এছাড়া বাড়তি রোগীর চাপ সামলাতে ট্রায়াজ সিস্টেম এবং ফ্লু কর্নারকে আরও সক্রিয় করা হয়েছে। 

ডা. মহিউদ্দিন খান বলেন, বর্তমানে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৪৭৮ জন এবং আইসিইউতে ২১ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া ৩২ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। 

জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৬৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় ১৮৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে করোনা শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা হচ্ছে ১২ হাজার ৪৮৫জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ১৮৩ জন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:১৩

সাতক্ষীরায় কঠোর বিধিনিষেধ অমান্য করে ঢাকায় যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে কালিগঞ্জে একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার (২৪ জুলাই) রাত ৮টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকা থেকে মাইক্রোবাসটি আটকের পর সেটি বাজেয়াপ্ত করা হয়।

জানা যায়, শ্যামনগর থেকে ১০ জন যাত্রী নিয়ে একটি টয়োটা হাইয়েস মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো-চ-১১-৮৪৯৬) ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। মাইক্রোবাসটি তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকায় পৌঁছায়। এসময় সেখানে থাকা করোনা এক্সপার্ট টিমের সদস্যরা মাইক্রোবাসটিতে তল্লাশি চালিয়ে যাত্রী বহনের বিষয়টি নিশ্চিত হন। বিধিনিষেধ অমান্য করে যাত্রী বহনের বিষয়টি দায়িত্বরত সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীরকে জানানো হলে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মাইক্রোবাসটি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করেন।

সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীর সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করায় একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন।

/টিটি/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:০৫

সৌদি আরব থেকে ফিরে কৃষিতে বাজিমাত করেছেন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের শেখ আব্দুল মান্নান (৫৫)। শুধু নিজেই সফল হয়েছেন তা নয়, ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের অনাবাদি প্রায় ৪০০ একর জমি স্থানীয় কৃষকদের জন্য আবাদি জমিতে পরিণত করেছেন। এখানে ১৫ একর জমিতে মিশ্র চাষাবাদের মাধ্যমে গড়ে তুলেছেন কৃষি খামার। এলাকার কৃষকরা তার কাছে গেলেই পাচ্ছেন চাষাবাদের পরামর্শসহ নানা সহযোগিতা। তিনি এখন হয়ে উঠেছেন কৃষকদের কাছের মানুষ।

দত্তেরবাজার এলাকার যাত্রাসিদ্ধি গ্রামের কৃষক পরিবারের সন্তান আব্দুল মান্নান। ঢাকার গাবতলী কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে ছয় মাসের অটোমোবাইলসের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়ে ১৯৮৬ সালে পাড়ি জমান সৌদি আরবে। মরুভূমিতে কঠোর পরিশ্রম করে কয়েক বছরের মাথায় পরিবারের আরও চার ভাইকে নিয়ে যান। কষ্টার্জিত অর্থে দেশের বাড়িতে ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু কাশবনের অনাবাদি জমি কেনেন। দীর্ঘ ২৫ বছর প্রবাস জীবন কাটিয়ে ফিরে আসেন। কাজ না করে এক মুহূর্তও বসে থাকতে পারেন না মান্নান। এ কারণে সিদ্ধান্ত নেন কৃষিকাজে নিজেকে নিয়োজিত করবেন। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও আশপাশের বয়োজ্যেষ্ঠ কৃষকদের সঙ্গে পরামর্শ করেন কীভাবে ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু অনাবাদি জমি আবাদি জমিতে পরিণত করা যায়।

ব্রহ্মপুত্র পাড়ের প্রায় ৪০০ একর জায়গা আবাদি জমিতে পরিণত করেছেন

শেখ আব্দুল মান্নান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিদেশ থেকে এসে বসে থাকতে ভালো লাগছিল না। পরে সিদ্ধান্ত নিলাম নিজের জমিতে কৃষিকাজ করার। কিন্তু বেশিরভাগ জমি ছিল ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু কাশবনে ঘেরা। আমার মতো শতাধিক কৃষকের জমিও পতিত ছিল কাশবনে। পরে কৃষকদের সঙ্গে পরামর্শ করে হাতে থাকা নগদ অর্থে একটি ভেকু মেশিন কিনে কাশবন পরিষ্কার করে ওই মাটি দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করি। পরে বাঁধটি সড়ক হিসেবে কৃষকরা ব্যবহার করতে থাকেন। বেশ কয়েক বছরে অনাবাদি প্রায় ৪০০ একর জমি আবাদি হয়। এখন আমার মতো প্রায় শতাধিক কৃষক ব্রহ্মপুত্র পাড়ে কৃষি আবাদ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন এবং তাদের মুখে হাসি ফুটেছে।’

বছরে ধান-খড় বিক্রি করে আব্দুল মান্নানের আয় ১২ লাখ টাকা। ধানের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করেন তিনি। বর্তমানে তার খামারে বারোমাসি লাউ, কুমড়া, চিচিঙ্গা, বেগুন, শসা ও কাঁচা মরিচসহ বেশকিছু জাতের শাক-সবজি রয়েছে। শাক-সবজি বিক্রি করে তার বছরে প্রায় ছয়-সাত লাখ টাকা আয় হয়। তিন একর জমিতে পাট চাষ করেছেন তিনি। বর্তমানে শ্রমকিদের সঙ্গে তিনি পাট কেটে পচানোর ব্যবস্থা করছেন। তিন একর জমি থেকে প্রায় ৬০ মণের মতো পাট ঘরে তুলতে পারবেন। এছাড়া তার কৃষি খামারে রয়েছে গরু ও ছাগল লালন-পালনের ব্যবস্থা। সেখান থেকেও আয় করেন বছরে ১০ লাখেরও বেশি।

কৃষি খামারে রয়েছে গরু ও ছাগল লালন-পালনের ব্যবস্থা

খামারের চারপাশে লেক বানিয়ে প্রাকৃতিক উপায়ে মাছ চাষ করেছেন। মাছ চাষের ব্যবস্থাপনায় রয়েছে নতুনত্ব। প্রাকৃতিক পরিবেশে নদীর মাছ আটকে রেখে সারা বছর লালন-পালন করেন। বছর শেষে মাছ বিক্রি করে আট-নয় লাখ টাকা আয় করেন তিনি। সবমিলে তার বছরে আয় ৩৭-৩৮ লাখ টাকার মতো। সে হিসাবে তার মাসে আয় প্রায় তিন লাখ টাকা।

এছাড়া গোবর ব্যবহার করে একটি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট করেছেন মান্নান। উৎপাদিত গ্যাসের মাধ্যমে বেশ কয়েকটি পরিবারের রান্নার কাজ চলছে। বায়োগ্যাসে ব্যবহৃত গোবর দিয়ে জৈব সার তৈরি করে কৃষি জমিতে ব্যবহার করছেন। তিনি জমিতে রাসায়নিক সার কম ব্যবহার করেন। জৈব সারকেই বেশি কাজে লাগিয়ে থাকেন।

আব্দুল মান্নান বলেন, ‘অতিরিক্ত রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহারে জমির উর্বরতা শক্তি যেমন হারায়, তেমনি উপকারী পোকামাকড়ও মরে যায়। এ কারণে খামারের গোবর ব্যবহার করে একদিকে বায়োগ্যাস উৎপাদন করছি, অন্যদিকে জৈব সার তৈরি করে ফসলি জমিতে ব্যবহার করছি। আশপাশের কৃষকরাও জৈব সার তৈরি করে ফসলি জমিতে ব্যবহার করছেন। এতে করে ফসলের উৎপাদন বাড়ছে এবং বিষমুক্ত সবজিসহ ফসল মানুষকে খাওয়ানো সম্ভব হচ্ছে।’

চাষ করেন লাউ, কুমড়া, চিচিঙ্গা, বেগুন, শসা ও কাঁচা মরিচ

তিনি জানান, বাঁধের পাশে পুরো খামারজুড়ে রয়েছে মাছ চাষের একটি লেক। হ্যাচারি থেকে পোনা না কিনে নিজস্ব পদ্ধতিতে ব্রহ্মপুত্র নদের পানির সঙ্গে আসা মাছ লেকে আটকে প্রাকৃতিক পরিবেশে চাষ করছি। বছর ঘুরলেই মাছ বিক্রি করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতে চলে আসে। খামারে মিশ্র কৃষি ফসলের আবাদের কারণে বছরজুড়ে কোনও না কোনও ফসল থাকে। খামারে প্রায় অর্ধশতাধিক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে।

আব্দুল মান্নান বলেন, সৌদি আরবে গিয়ে মরুভূমিতে খুব কষ্ট করে কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে হয়েছে। বিদেশে না গিয়ে সৎ থেকে মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে কাজ করলে যে কেউ দেশেই সফল হবেন।

আব্দুল মান্নান এখন কৃষকদের কাছের মানুষ

স্থানীয় কৃষক আবুল কালাম বলেন, ‘কৃষিকাজ কীভাবে করতে হয় তা আব্দুল মান্নান ভাইয়ের কাছ থেকে শিখেছি। তিনি আমাদের অনাবাদি জমি আবাদি করতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ কারণে এখন ফসল ফলিয়ে নিজেদের স্বাবলম্বী করতে পেরেছেন স্থানীয় শতাধিক কৃষক। বিভিন্ন এলাকার লোকজন মান্নান ভাইয়ের কৃষি খামার দেখতে আসেন।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মতিউজ্জামান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সৌদিফেরত কৃষক আব্দুল মান্নানের মধ্যে একজন আদর্শ কৃষকের সব ধরনের যোগ্যতা রয়েছে। কৃষি বিষয়ে তিনি স্থানীয় কৃষকদের নানা পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তিনি একজন সফল কৃষক।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

সর্বশেষ

সৃজিতের নির্মাণে আড়াই মিনিটের রহস্যময় বাঁধন (ভিডিও)

সৃজিতের নির্মাণে আড়াই মিনিটের রহস্যময় বাঁধন (ভিডিও)

আ’লীগের উপ-কমিটি থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে অব্যাহতি

আ’লীগের উপ-কমিটি থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে অব্যাহতি

সাগরে লঘুচাপ, কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

সাগরে লঘুচাপ, কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

রামপুরায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রামপুরায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

সুসময়ের অপেক্ষায়... (ফটোস্টোরি)

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

পুকুর থেকে ক্যাডেট কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

পুকুর থেকে ক্যাডেট কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune