X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

এক ভবনে কত হাসপাতাল?

আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০২১, ১৮:০৩

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের গজনবী রোডে অবস্থিত মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১। ১৫ তলা এই টাওয়ারের অর্ধেক ঢেকে আছে বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডে। খোঁজ নিয়ে জানা গেলো, এই ভবনটিতে রয়েছে ছয়টি বেসরকারি হাসপাতাল। কোনও হাসপাতালে ১০ বেড, আবার কোনোটার আছে ২০ বেড। একটি হাসপাতালে শুধু অপারেশন থিয়েটার ভাড়া দেওয়া হয়। হাসপাতাল ছাড়াও এই ভবনে আছে ব্লাড ট্রান্সফিউশন সেন্টার, ফার্মেসি, হেয়ারিং সেন্টারসহ আরও কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। অন্যান্য রোগে আক্রান্তরা চিকিৎসা পেলেও করোনা রোগীদের চিকিৎসা এখানে হয় না বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মোহাম্মদপুরের গজনবী রোডে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে আবাসিক ও বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের জন্য বহুতল এই ভবনটি নির্মাণ করা হয়। এর নাম দেওয়া হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১। প্রকল্পের উদ্যোক্তা মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান গণপূর্ত অধিদফতর ও স্থাপত্য অধিদফতর। প্রায় ৬৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এটি নির্মাণ করা হয় ২০১০ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে। এর আগে এটি দোতলা একটি পুরনো ভবন ছিল। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নির্বাহী কমিটির ৩০তম সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভবনের  বাণিজ্যিক অংশ ভাড়া দেওয়ার জন্য ২০১৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, টেন্ডারের মাধ্যমে  বাণিজ্যিক অংশ ভাড়া দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এখান থেকে অর্জিত আয়ে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট একটি স্বনির্ভর প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে— এমন ধারণা থেকেই ভাড়া দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

১৫ তলা এই ভবনে ২টি বেজমেন্ট আছে, সেখানে রয়েছে ৮০টি গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা।  দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তলায় ৭৪টি দোকানের জায়গা রাখা হয়েছে। চতুর্থ ও পঞ্চম তলাও বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়। সরেজমিনে দেখা যায়,  দ্বিতীয়  থেকে পঞ্চম তলা পর্যন্ত চারটি ফ্লোরে হাসপাতাল আছে ছয়টি। এসব হাসপাতালের ব্যবহৃত জায়গা খুবই ছোট এবং এক ফ্লোরে একাধিক হাসপাতাল, কিংবা দুই ফ্লোরের এক-এক জায়গা মিলে এক-একটি হাসপাতাল করা হয়েছে। আবার কেউ মাত্র ৭০০ বর্গফুট জায়গায় হাসপাতাল করেছেন। সংশ্লিষ্টদের দাবি, ১০ বেডের অনুমোদন তাদের কাছে আছে, আবার কারও কারও ২০ বেডের অনুমোদন থাকলেও সেটার মেয়াদ শেষ হয়েছে এক মাস আগেই। দেখা গেচে, একই হাসপাতালের বিভিন্ন ইউনিট রয়েছে বিভিন্ন ফ্লোরে। কোনও কোনও ফ্লোরে তিনটি হাসপাতালের শাখা আছে।

মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১ সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, এই টাওয়ারের ৪টি ফ্লোরে থাকা হাসপাতালগুলো হচ্ছে— যমুনা জেনারেল হাসপাতাল, রয়্যাল মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ঢাকা হেলথ কেয়ার হসপিটাল, লাইফ কেয়ার জেনারেল হাসপাতাল, রেমেডি কেয়ার হাসপাতাল লিমিটেড, প্রাইম অর্থপেডিক ও জেনারেল হাসপাতাল। এতগুলো হাসপাতাল থাকায় কোনও রোগী মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারে প্রবেশের পর স্বাভাবিকভাবেই দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়তে পারেন যে, তিনি কোন হাসপাতালে যাবেন। বিশেষ করে পূর্ব পরিচিত না হলে, কিংবা কেউ রেফার না করলে এখানকার হাসপাতাল সম্পর্কে ধারণা পাওয়া খুব মুশকিলের কাজ বলে জানান এখানে আগত রোগীর স্বজনরা।

ঢাকা হেলথকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক রোগীর স্বজন জানান, তারা টাঙ্গাইল থেকে ঢাকায় এসেছেন চিকিৎসার জন্য। অন্য প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসার খরচ বেশি হওয়ায় এখানে এসেছেন। তবে হাসপাতালে প্রবেশের আগে সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগার কথাও জানান তিনি।   

যমুনা জেনারেল হাসপাতালের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের হাসপাতালে আছে মাত্র ২০টি বেড এবং আইসিইউ সুবিধা। তবে করোনার কারণে আইসিইউ সেবা বন্ধ রেখেছেন তারা। এখানে মূলত অর্থোপেডিক সমস্যার রোগীরাই আসেন চিকিৎসা নিতে। হাসপাতালটি প্রায় ৩ বছর ধরে চালু রয়েছে। এছাড়া অপারেশন থিয়েটার সুবিধাও আছে এখানে।

নাম প্রকাশ না করে হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা  কর্মকর্তা জানান, এখানে কম খরচে রোগীদের সেবা দেওয়া হয়। বেড ভাড়া প্রতিদিন ১২০০ টাকা। হাসপাতালের অনুমোদন আছে কিনা— প্রশ্নে এই কর্মকর্তা বলেন, জুন মাসে মেয়াদ শেষ হয়েছে। আমরা আবেদন করেছি কিন্তু এখনও পাইনি।

যমুনা জেনারেল হাসপাতালের সঙ্গে একই ফ্লোরে রয়েছে রয়্যাল মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এখানেও রোগীদের যাবতীয় টেস্টের পাশাপাশি চিকিৎসার ব্যবস্থা আছে। তারাও কয়েকটি ফ্লোরের এক-একটি অংশ ভাড়া নিয়ে হাসপাতাল পরিচালনা করছেন। এই হাসপাতালের প্রধান শাখা বাবর রোডে বলে জানান দায়িত্বরত কর্মকর্তারা। মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারে তাদের দ্বিতীয় ইউনিট।

পঞ্চম তলা থেকে নেমে চতুর্থ তলায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে একটি ফ্লোর-জুড়ে আছে ঢাকা হেলথ কেয়ার হাসপাতাল। এই হাসপাতালে ফার্মেসি, ল্যাবরেটরি টেস্ট এবং আইসিইউ সুবিধা আছে। হাসপাতালটির কর্মকর্তারা জানান, কম খরচেই চিকিৎসা সেবা পান এখানে আগত রোগীরা। তবে আইসিইউ সুবিধা যাদের লাগে, তাদের প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হয় বলে জানান তারা।

হেলথ কেয়ার হাসপাতালের ম্যানেজার লুৎফর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এই ভবনের ভাড়া তুলনামূলকভাবে কম হওয়ায় কম খরচে হাসপাতাল পরিচালনা করা যায়। এখানে যে পরিমাণ জায়গা আছে, অন্যখানে তা ভাড়া নিলে ৪-৫ গুণ বেশি টাকা লাগতো।’

তবে এসব হাসপাতালে কর্মরত কয়েকজন জানান, মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারে হাসপাতাল অনেকটা ব্যাঙের ছাতার মতো হয়ে গেছে। হাসপাতালগুলোতে ভর্তি রোগীর সঙ্গে স্বজনদের থাকার তেমন কোনও ব্যবস্থা নেই। দোকানের জন্য বরাদ্দ রাখা ফ্লোরে  রোগীর স্বজনরা রাত কাটান।

ভবনের তৃতীয় তলায় লাইফ কেয়ার জেনারেল হাসপাতাল। তারা মূলত অপারেশন থিয়েটার সাপোর্ট দিয়ে থাকেন। লাইফ কেয়ারের  মালিক জানান, অপারেশন থিয়েটারের চার্জ খুবই কম রাখা হয়। এখানে কোনও রোগীর এপেন্ডিসাইটিস অপারেশন সবমিলিয়ে খরচ পড়ে ১৭ হাজার টাকার মতো। তাছাড়া এই হাসপাতালের ১০টি বেডের অনুমোদন আছে বলেও জানান তিনি।

তৃতীয় তলায় আরও  দুইটি হাসপাতালের ইউনিট রয়েছে। একটি হচ্ছে রয়্যাল মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং রেমেডি কেয়ার হাসপাতাল লিমিটেড। এছাড়া দ্বিতীয় তলার ফ্লোরে আছে প্রাইম হাসপাতাল। তবে এসব হাসপাতালের কেউই এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়নি।

    

/এপিএইচ/ 

সম্পর্কিত

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

রাজারবাগ দরবারের বিষয়ে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

রাজারবাগ দরবারের বিষয়ে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১১

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন লাবনী। তার বাসা রায়ের বাজারের বেড়িবাঁধ সংলগ্ন সাদেক খান কৃষি মার্কেটের পাশে। প্রতিদিন কাজে যাওয়ার সময় কৃষি মার্কেটের কোণায় বসানো হাত ধোঁয়ার জায়গায় সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নেন। তিনি জানান, ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া হলে করোনাভাইরাসসহ অন্যান্য ভাইরাসজনিত রোগ থেকে দূরে থাকা যায়। হাত ধোয়ার সেই জায়গা (হ্যান্ড ওয়াশ স্টেশন) স্থাপন করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। প্রতিষ্ঠানটির কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের সদস্যরা মানুষকে এ ধরনের স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে উদ্বুদ্ধ করতে কাজ করছেন মাঠে।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং জনসংখ্যা বিভাগের অধীনে কমিউনিটি সাপোর্ট টিম (সিএসটি ঢাকা) প্রকল্পের আওতায় রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকার ৬৮টি ওয়ার্ডে ১৭০ জন স্বাস্থ্যকর্মী এবং ১৩৬ জন সেচ্ছাসেবী এই কাজে নিয়োজিত আছে সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ক সচেতন করার জন্য, যাতে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঢাকা শহরে কম হয়। ইউএনএফপিএ, এফএও এবং যুক্তরাষ্ট্রের ফরেন কমনওয়েলথ ও ডেভেলপমেন্ট অফিসের সহায়তায় এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে ব্র্যাক। প্রকল্পের তথ্য অনুযায়ী, প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে চার মাসে ২ কোটি ১০ লাখ মানুষ এর থেকে লাভবান হবে। প্রকল্পটি জুন থেকে শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে বলে জানায় ব্র্যাক।

এই প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের সেচ্ছাসেবীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সচেতনতা তৈরি করা, হ্যান্ড মাইকের মাধ্যমে জনবহুল জায়গায় সচেতন করা এবং ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের মাধ্যমে মানুষকে করোনাভাইরাসের বিষয়ে সচেতন করার কাজ করছে। কমিউনিটি সাপোর্ট টিমের অধীনে থাকা দুইজন কমিউনিটি স্বাস্থ্যকর্মী দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকার বস্তিতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুনর্ব্যবহারযোগ্য মাস্ক বিতরণ করে, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে, সন্দেহজনক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিকে টেলিমেডিসিন সেবার সঙ্গে সংযুক্ত করে এবং টিকার জন্য নিবন্ধনে সহায়তা করে। এ ছাড়া এখন পর্যন্ত ১৬ লাখেরও বেশি মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। পাশাপাশি দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ৪০৮টি হ্যান্ড ওয়াশিং স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে এবং প্রায় ৮০০ জনকে টিকার জন্য নিবন্ধনে সহায়তা করা হয়েছে।

সেচ্ছাসেবীরা জানান, সকাল ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তারা বিভিন্ন প্রকল্প এলাকায় কাজ করেন। মানুষকে মাস্ক বিতরণ করে তা সঠিকভাবে পরতে শেখানোসহ হাত ধোয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন তারা। এ কাজের জন্য তারা আগেই ব্র্যাকের পক্ষ থেকে প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের সাদেক খান কৃষি মার্কেট এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সিএইচটি’র সেচ্ছাসেবীরা মাইকিং করছেন, মাস্ক বিতরণ করছেন এবং হ্যান্ড ওয়াশ স্টেশনে সাধারণ মানুষকে হাত ধোয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন। এমনকি সঠিক উপায়ে হাত ধোয়ার বিষয়ে ধারনা দিচ্ছেন।

এই মার্কেটের ম্যানেজার মো সানি জানান,  ব্র্যাক এখানে এক মাসের বেশি সময় ধরে কাজ করছে। তাদের সেচ্ছাসেবীদের প্রায়ই দেখি মাস্ক দিচ্ছে। এখানে হাত ধোয়ার স্টেশন একটি বসিয়েছে তারা। কিন্তু পানির রিজার্ভারটা ছোট, চারজন হাত ধুলেই পানি শেষ হয়ে যায়। যদি একটু বড় রিজার্ভার বসানো যেত তাহলে আরও ভালো হতো।   

এই প্রকল্পের আওতায় ধর্মীয় উপাসনায়ে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে সচেতনতার লক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এবং বাংলাদেশ ব্যাপিস্ট চার্চ ফেলোশিপের সঙ্গে অংশীদার হয়েছে যাতে করে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে সচেতনতা তৈরি করা যায় এবং মাস্ক বিতরণ করা যায়। মোহাম্মদপুরের জাফরাবাদ জামে মসজিদের ইমাম আমানুল্লাহ ফারুক জানান, ব্র্যাক আমাদের মাস্ক দিচ্ছে আমরা তা বিতরণ করছি মসজিদে আসা মুসল্লিদের মধ্যে। এ ছাড়া যতটুকু সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি পালন করা সম্পর্কে আমরা সচেতন করি।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য পুষ্টি এবং জনসংখ্যা কর্মসূচির পরিচালক মোর্শেদা চৌধুরী জানান, আমরা মানুষকে এখন উদ্বুদ্ধ করছি যেন তারা বুঝতে পারে কীভাবে করোনা প্রতিরোধ করতে হবে। যাতে একসময় কিন্তু সম্পূর্ণ বিষয়টা আমরা তাদের ওপর ছেড়ে দিয়ে চলে আসতে পারি। তারা যেন নিজেরাই তাদের কমিউনিটিতে করোনা প্রতিরোধে কাজ করতে পারে সেটাই আমাদের উদ্দেশ্য। সেটা করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে যে, সবজায়গায় সমান রেসপন্স পাওয়া যায় না। সেটা আমাদের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

/এসও/এনএইচ/       

সম্পর্কিত

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদে সাংবাদিকদের সমাবেশ

ব্যাংক হিসাব তলবের প্রতিবাদে সাংবাদিকদের সমাবেশ

আগারগাঁওয়ে ছয়তলা ভবন থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

আগারগাঁওয়ে ছয়তলা ভবন থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১০

বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনলাইন শিক্ষা ও ব্লেন্ডেড লার্নিং কার্যক্রম এগিয়ে নিতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকার একটি হোটেলে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠকে ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের প্রতিনিধি দল এ আগ্রহের কথা জানান।

ইউজিসির প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর ডিগ্রি আর্জনে স্কলারশিপ দেওয়ার বিষয়েও আগ্রহ প্রকাশ করেছে মার্কিন দূতাবাস।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ’র নেতৃত্বে ওই বৈঠকে অংশ নেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর, সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান ও আইএমসিটি বিভাগের পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মাকছুদুর রহমান ভূঁইয়া।

অপরদিকে, ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার শন ম্যাকেনতশ, কালচারাল অ্যাফেয়ার্স অফিসার শার্লিনা মরগান, কালচারাল অ্যাফেয়ার্স স্পেশালিস্ট রায়হানা সুলতানা ও ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ প্রোপ্রাম কো-অর্ডিনেটর শাওন কর্মকার দ্বি-পাক্ষিক ওই সভায় অংশ নেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ উচ্চশিক্ষাখাতে সহযোগিতা দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশে মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান।

ইউজিসির চেয়ারম্যান  আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনে বাংলাদেশিদের জন্য টিউশন ফি মওকুফের আহবান জানান। এক্ষেত্রে, ইউজিসি বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় লজিস্টিক সহযোগিতা দেবে বলে জানান চেয়ারম্যান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে যৌথ উদ্যোগে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের বিষয়ে দুপক্ষ একমত পোষণ করে।

/এসএমএ/এমএস/

সম্পর্কিত

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

এসএসসি ৫ থেকে ১১ নভেম্বর, এইচএসসি ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১৩

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা আগামী ৫ থেকে ১১ নভেম্বর এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নেওয়ার সম্ভাব্য সূচি তৈরি করেছে আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি। পরীক্ষার শুরুর দুই সপ্তাহ আগে চূড়ান্ত সূচি নির্ধারণ করে তা প্রকাশ করা হবে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সোশ্যাল মিডিয়ায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ হয়েছে বলে বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়। এ ছাড়া অন্যান্য পরীক্ষা (জেএসসি-জেডিসি) নিয়েও বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছিল।

জানতে চাইলে আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, ‘আমরা এসএসসি পরীক্ষা শুরু করতে চাই ৫ থেকে ১১ নভেম্বরের মধ্যে। আর এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। বোর্ড থেকে এখনও চূড়ান্ত তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি।‘

সোশ্যাল মিডিয়ায় পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ হয়েছে বলে প্রচার হচ্ছে—এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এখনও চূড়ান্ত কোনও তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি। পরীক্ষার তারিখ এত অগ্রিম দেওয়া হবে না। চূড়ান্ত তারিখ নির্ধারণ হবে পরীক্ষা শুরুর দুই সপ্তাহ আগে। তাছাড়া আমরা যদি চূড়ান্ত করেও থাকি তারপরও পরীক্ষার দু’-একদিন আগেও তারিখ পরিবর্তন হতে পারে। তাই যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা প্রকাশ না করবো ততক্ষণ পর্যন্ত আগে বলার কিছু নেই।’

এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছিলেন, নভেম্বরের মাঝামাঝি এসএসসি ও ডিসেম্বরের শুরুতে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা শুরুর দুই সপ্তাহ তারিখ জানিয়ে দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, প্রতিবছর ফেব্রুয়ারির শুরুতে এসএসসি এবং এপ্রিলের শুরুতে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু করোনার কারণে দেড় বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। কয়েক দফা ছুটি শেষে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হয়।

/এসএমএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

শিক্ষক ও সহায়ক পদ বাড়ছে প্রাথমিকে, দ্রুত পদোন্নতির সুপারিশ

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

‘নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে আগে শিক্ষকদের প্রস্তুত করতে হবে’

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

নতুন শিক্ষাক্রমে হিজড়াদের জন্য যা থাকছে

প্রাথমিকে জরুরি নির্দেশনা

প্রাথমিকে জরুরি নির্দেশনা

মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও রেজিস্ট্রারকে তলব

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৭

জাতীয় শোক দিবসে সরকারি ছুটির দিনে একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাডহক কমিটি করে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বাংলাদেশ মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও রেজিস্ট্রারকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর তাদেরকে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। একইদিন আদালত এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের দিন নির্ধারণ করেন। 

এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। 

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. হুমায়ুন কবির। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

এর আগে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার গোহাইল শালিখা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি মনোনয়নসহ চার সদস্যের অ্যাডহক কমিটির অনুমোদন দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। গত ১৫ আগস্ট মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষে রেজিস্ট্রারের স্বাক্ষরে এই কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

ওই ঘটনায় গোহাইল শালিখা দাখিল মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক ওমর ফারুক প্রজ্ঞাপন জারির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন।

/বিআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

গাজীপুরের জেলা রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রীর সম্পদ অনুসন্ধান করছে দুদক 

গাজীপুরের জেলা রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রীর সম্পদ অনুসন্ধান করছে দুদক 

সাজা প্রদানের নীতিমালা প্রণয়ন কেন নয়: হাইকোর্ট

সাজা প্রদানের নীতিমালা প্রণয়ন কেন নয়: হাইকোর্ট

কাউন্সিলর সেন্টুর সম্পদের তথ্য জানতে চেয়েছে দুদক

কাউন্সিলর সেন্টুর সম্পদের তথ্য জানতে চেয়েছে দুদক

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

গেঞ্জিতে লেখার সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

দ্রুতই মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না ছুটিতে থাকা প্রবাসীরা

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৭

দেশে ছুটিতে থাকা প্রবাসীরা দ্রুতই মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না। করোনার সময়ে যেসব কর্মীরা ছুটিতে বৈধভাবে নিজ নিজ দেশে ছুটিতে এসেছিলেন তারা ২০২১ সালের ভেতর পুনরায় মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারছেন না। 

টানা ৪ মাস লকডাউনের পর ইতোমধ্যে সরকার শর্তসাপেক্ষে কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। এই পরিস্থিতিতে আশা করা হয়েছিল ২০২১ সালের শেষের দিকে সীমান্ত খুলে দিলে ছুটিতে থাকা কর্মীরা দেশটিতে ফিরে কাজে যোগ দিতে পারবেন। 

তবে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী দাতোক সেরী এম সারাভানান বলেছেন, বিদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়ায় পুনরায় প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা আবার বাড়ানো হবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তিনি বলেন, ছুটিতে থাকা বিদেশি সাধারণ শ্রমিক ও গৃহপরিচারিকা (মেইড) কখন ফিরতে পারবেন সে বিষয়ে মালয়েশিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় আলোচনা করে পরবর্তী নেবে।

বিবৃতিতে আরও বলেন, আমাদের দ্বারা নিবন্ধিত ও লাইসেন্সপ্রাপ্ত বেসরকারি কর্মসংস্থান সংস্থাগুলোকে অনুরোধ করছি উৎস দেশ থেকে গৃহকর্মীদের প্রবেশের বিষয়ে নিয়োগকর্তাদের বিভ্রান্ত করে আমাদের পরামর্শ ছাড়া এমন কোনও বিবৃতি বা বিজ্ঞাপন দেবেন না। মালয়েশিয়ায় সবচেয়ে বেশি ইন্দোনেশিয়ার গৃহকর্মী বা গৃহপরিচারিকা কাজ করে থাকেন। তাই মন্ত্রণালয়গুলো ইন্দোনেশিয়ার সরকারের সঙ্গে গৃহপরিচারিকা নিয়োগের বিষয়ে একটি সমঝোতা স্বারক (এমওইউ) চূড়ান্ত করার জন্য আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে। 

উল্লেখ্য, বৈশ্বিক করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর ২০১৯ সালের ১৮ মার্চ থেকে শুরু হয় দেশটিতে সর্বাত্মক লকডাউন। এই সময় থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে যে সমস্ত কর্মী ছুটিতে কিংবা জরুরি প্রয়োজনে নিজ নিজ দেশে গিয়েছিলেন তারা এখনও আটকা পড়ে আছেন। ২০২০ এর নভেম্বর থেকে শুরু ২০২১ এর জুন মাসের আগ পর্যন্ত মাই ট্রাভেল পাস (এমটিপি) নামে একটি অনলাইন অ্যাপের মাধ্যমে আবেদন করে মালয়েশিয়াতে কিছু কিছু ছুটিতে থাকা কর্মী প্রবেশ করেছিল। কিন্তু চলতি বছরের জুন মাস থেকে কঠোর লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় এমটিপি'র মাধ্যমে আবেদন করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায়। দেশে আটকা পড়া অসংখ্য কর্মী যাদের বৈধ ভিসা ও পারমিট রয়েছে তারা কখন মালয়েশিয়ায় ফিরতে পারবেন বিষয়টি নির্ভর করছে মালয়েশিয়ার সরকার কখন অনুমতি দেবে। 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

গ্রিসে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু

গ্রিসে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু

মেক্সিকোর স্বাধীনতা প্যারেডে বাংলাদেশের মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনী

মেক্সিকোর স্বাধীনতা প্যারেডে বাংলাদেশের মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনী

জার্মানিতে হামবুর্গে বাংলাদেশ সমিতির আনন্দমেলায় প্রবাসীদের ঢল

জার্মানিতে হামবুর্গে বাংলাদেশ সমিতির আনন্দমেলায় প্রবাসীদের ঢল

পুলিশ পাহারায় বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট দিচ্ছে মালয়েশিয়া

পুলিশ পাহারায় বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট দিচ্ছে মালয়েশিয়া

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ২৪১ জন হাসপাতালে ভর্তি

রাজারবাগ দরবারের বিষয়ে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

রাজারবাগ দরবারের বিষয়ে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

‘১২-১৭ বছর বয়সীদের টিকার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি’

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

চিকিৎসকসহ সাড়ে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

অতিরিক্ত ও সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার ২০ জনকে বদলি

অতিরিক্ত ও সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার ২০ জনকে বদলি

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

৫ লাখেরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে আজ 

ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্তকরণে বিলম্ব নয়

ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্তকরণে বিলম্ব নয়

আজও করোনায় নারীমৃত্যু বেশি

আজও করোনায় নারীমৃত্যু বেশি

চলতি মাসেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৫ হাজার ছাড়ালো  

চলতি মাসেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৫ হাজার ছাড়ালো  

এবার কেন ডেঙ্গু ভয়ংকর

এবার কেন ডেঙ্গু ভয়ংকর

সর্বশেষ

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

দলবদলে এলো আবাহনী, লক্ষ্য শিরোপা

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্লেন্ডেড লার্নিং এগিয়ে নিতে সহযোগিতার আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

শেষ দুই ম্যাচ জিতে সমাপ্তি টানলো আফগান যুবারা

শেষ দুই ম্যাচ জিতে সমাপ্তি টানলো আফগান যুবারা

© 2021 Bangla Tribune