X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা

‘সান্ত্বনা একটাই, শেখ হাসিনা তো বেঁচে আছেন’

আপডেট : ২১ আগস্ট ২০২১, ২০:০৬

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা পাল্টে দিয়েছে বাংলাদেশের রাজনীতি, হারিয়ে গেছে অনেক মূল্যবান জীবন, তছনছ হয়ে গেছে অনেকের স্বপ্ন-সংসার। সেদিনের সরকারের পরিকল্পিত সেই সন্ত্রাসের ভয়াবহ চিহ্ন এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন অনেকে। শরীরজুড়ে তাদের আঘাতের ব্যথা, তারমধ্যেও কৃতজ্ঞতা তাদের শেখ হাসিনার প্রতি। সবাই ভুলে গেলেও তাদেরকে ভুলেননি নেত্রী শেখ হাসিনা, এখনও আগলে রেখেছেন পরম মমতায়।

অন্যদের মত সুস্থ স্বাভাবিকভাবেই হেঁটে ২১ আগস্টের ওই সমাবেশে গিয়েছিলেন দৌলতুন নাহার, রাশিদা আক্তার, মাহাবুবা পারভীন ও কাজী শাহানা ইসলামও। তখন কি আর জানতেন ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার শিকার হয়ে বাকিটা জীবন তাদের কাটাতে হবে হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে?

গ্রেনেড হামলার শিকার আহত আওয়ামী লীগের কর্মীরা বাংলা ট্রিবিউনের এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন। ইতিহাসের জঘন্যতম এই হামলায় নারী নেত্রী আইভী রহমানসহ ২৪ জন নেতাকর্মী প্রাণ হারান। অসংখ্য নেতাকর্মী আহত হন। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা প্রাণে বেঁচে গেলেও গ্রেনেডের বিকট শব্দে এক কানের শ্রবণশক্তি হারান তিনি। তবে ১৭ বছর ধরে ওই দিনের হামলায় আহত কোনও নেতাকর্মীকেই ভোলেননি শেখ হাসিনা।

আহত নেতাকর্মীরা বলেন, তাদের জীবনের সান্ত্বনা— শেখ হাসিনা তাদের আগলে রেখেছেন এখনও। ১০৪ জন আহত কর্মীকে নগদ অর্থ সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। এককালীন অনুদান দেওয়া হয়েছে। ঢাকায় ফ্ল্যাট দেওয়া হয়েছে ৩৬টি পরিবারকে।

তেমনই একজন রশেদা আক্তার রুমা। তিনি বলেন, ‘দিনটিকে কখনোই ভুলতে পারবো না৷ স্বাভাবিকভাবে হেঁটে সেদিন সভায় গিয়েছিলাম। জানতাম না যে সেখানে লাশ হয়ে আমাদের পড়ে থাকতে হবে। হাসপাতালে হাসপাতালে জীবনযাপন করতে হবে৷ আমি নিজে লাশের ওপর পড়ে ছিলাম। সেই দৃশ্যটা আমি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ভুলতে পারবো না।’

রাশিদা আক্তার বলেন, ‘হাসপাতালে নেওয়ার পরে চিকিৎসকরা ভেবেছিল আমি বুঝি মারা গেছি। তাই সাদা কাপড়ে মুখ ঢেকে লাশের সঙ্গে ফেলা রাখা হয়েছিল আমাকে। হঠাৎ আমার মুখে গোঙানির একটু আওয়াজ শুনতে পায় চায়না নামের একটা মেয়ে। সে সাবের (সাবের হোসেন চৌধুরী) ভাইকে বললো, ‘ভাই মেয়েটি মনে হয় বেঁচে আছে’। পরে আমাকে সেখান থেকে ধানমন্ডির বাংলাদেশ মেডিক্যালে নেওয়া হয়। সেখানকার ডাক্তাররা বললো— আমার দুই পা কেটে ফেলতে হবে।’

রুমা বলেন, ‘পরে চিকিৎসার জন্য নেত্রী আমাকে ভারতে পাঠান। সেখানে দুইবছর থেকে চিকিৎসা করিয়েছি। পা কাটা হয়নি। এসেছিলাম হুইল চেয়ারে করে। ডান পায়ের পাতা এখনোও শুকায়নি।।’

তিনি বলেন, ‘জীবনে ঘোর অমানিশা নেমে এসেছে। তবুও সান্ত্বনা পাই, নেত্রী (শেখ হাসিনা) খবর নেন, সাহায্য পাঠান। দুই বছর আগে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে মিরপুরে একটি ফ্ল্যাট দেওয়া হয়েছে। আর  মাসিক পাঁচ হাজার করে টাকা দেওয়া হয় ব্যাংকের মাধ্যমে। প্রথমে এককালীন ১০ লাখ টাকার সঞ্চয় পত্রের চেক দেওয়া হয়৷ পরে বাচ্চাদের জন্য ৫ লাখ টাকার এফডিআর করে দেওয়া হয়।’

ঢাকা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবা পারভিন সাভার থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে এসেছিলেন ওই দিন। ছিলেন একেবারে অস্থায়ী মঞ্চের (ট্রাক) সামনেই। হঠাৎ শোনেন বিকট আওয়াজ। দেখেন ধোঁয়ার কুণ্ডুলি। ঘটনার প্রায় ২০ দিন পরে কলকাতার পিয়ারলেস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জ্ঞান ফিরে মাহাবুবার।

তিনি বলেন, ‘ট্রাকের সামনেই ছিলাম। নেত্রী জয়বাংলা বক্তব্য দিয়ে শেষ করতে পারেন নাই। পুরো এলাকা কালো ধোঁয়ায় ভরে গেলো। তখন কেউ কাউকে দেখতে পাচ্ছিলাম না। সবাই চিৎকার করে বলছিলো বাঁচাও, বাঁচাও।’

মাহবুবা জানান, দেশের ডাক্তাররা তার আশা ছেড়েই দিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জীবন রক্ষা পেয়েছে তার। তবে সেদিনের পরে আর কখনোই সুস্থ স্বাভাবিকভাবে হাঁটাচলা করতে পারেননি তিনি। কয়েকদিন পর পর স্প্লিন্টারের ব্যথা মাথাচাড়া দিয়ে উঠে। ব্যথার চিৎকার এখনও মাঝে মাঝে জড়ো হয়ে যান প্রতিবেশীরা। এমনকি, ওয়াশরুমে যেতে হলেও অন্যের সাহায্য নিয়ে যেতে হয়।

মাহবুবা বলেন, ‘তবে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা নিয়মিত খোঁজ-খবর নেন, আর তাই এখনও বেঁচে থাকার ইচ্ছে জাগে। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে থেকে আমার জন্য প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা পাঠানো হয়। আর প্রথমে এককালীন ১০ লাখ টাকার সঞ্চয়ের চেক দেওয়া হয়৷ পরে আরও ১০ লাখ টাকার চেক দেওয়া হয়। শুধু প্রধানমন্ত্রীই আমাদের খোঁজ খবর নেন। আর কেউ নেন না। এছাড়াও মিরপুরের ১৩ নম্বরে ১৪০০ স্কয়ার ফুটের ফ্ল্যাট দিয়েছেন।’

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে সহকর্মীদের সঙ্গে মিছিল নিয়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সমাবেশে যোগ দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী কাজী শাহানারা ইয়াসমিন৷ আর সেখানে নিজেই শিকার হন বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলার৷ হামলার ভয়াবহতার কথা মনে উঠলে এখনও শিউরে উঠেন৷

শাহানারা বলেন, ‘আমারতো বয়স বেড়ে যাচ্ছে। এর সাথে সাথে ব্যথাও বাড়ছে। স্প্রিন্টারের যে ব্যথা, ভেতরে শিরশিরেভাব, দিনে দিনে বাড়ছে। ওষুধের ডোজও বেড়ে গিয়েছে৷ আগে খেতাম একবেলা এখন তিনবেলা খেতে হয়।’

ওই সময় চিকিৎসায় ভালো হলেও এখন শরীরে তাদের দেখা দিয়েছে নানান রোগের উপসর্গ৷ যারা সেই সময় কানের চিকিৎসা করাননি, এখন তাদের সেই সমস্যা বাড়ছে। অনেকেই কানে ইয়ারফোন ব্যবহার করছেন।

২১ আগস্টের ঘটনা বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘সেদিন ঢাকা বার থেকে আমরা মিছিল করে ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে যাই। ট্রাকের বামপাশে নারী নেত্রীদের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম। অনেক গরম ছিল, আমরা ছায়া খুঁজতেছিলাম। অনেক মানুষ ছিল।’

শাহানারা বলেন, ‘নেত্রীর বক্তব্য শেষের পরে আমার মনে হয় আকাশটা ভেঙেই পড়লো। কারণ এত শব্দতো কখনোই শুনি নাই। আইভি আপাকে দেখলাম আস্তে বসে গেলো৷ ওনার চারপাশে ধোঁয়ার কুণ্ডুলি। তারপর মানুষের হুড়োহুড়ি। আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।’

জ্ঞান ফেরার পরে দেখেন তাকে নিয়ে কয়েকজন টানাটানি করে গলির ভেতরে নিয়ে গিয়েছে৷ সারা শরীরে রক্ত। সেই সময় বার বার তার মনে পড়ছে দুই সন্তানের কথা। তিনি মারা গেলে দেখবেন কে তাদের৷ এই সময় এক রাজনৈতিক সহকর্মীকে দেখেন। তার কাছে সাহায্য চান। কিন্তু প্রথম পর্যায়ে তিনি ব্যর্থ হন। কারণ, তখন পুলিশ ঘটনাস্থলে টিয়ারগ্যাস চার্জ করেছিল।

সেই ঘটনা উল্লেখ করে শাহানারা বলেন, ‘সালেহ ভাই নামে এক রাজনৈতিক কর্মীকে বললাম, ভাই আমার ছোট দুইটি সন্তান আছে। আমি বাঁচতে চাই। পরে আমাকে ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে যাওয়া হলো।’

বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাদের সহযোগিতা করেছেন বলে জানান তিনি। বলেন, ‘আমাদের অনেককেই ফ্ল্যাট দেওয়া হয়েছে। আরও বাকি আছে। শুনেছি সবাইকে দেবে। আমি পাবো কিনা জানি না। কখনোই আবেদন করি নাই। তবে একবার তিন লাখ, আরেকবার ১৫ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছিল চিকিৎসার জন্য।’

ভয়াবহ সেই হামলায় আহত দৌলতুন নাহার বলেন, ‘২০০৪ সালের ২১ আগস্টের পর জীবনটা থেমে গেছে। চিরতরে হারিয়েছি এক চোখ। দুই পা আঘাতপ্রাপ্ত। এখন ডান পায়ের অবস্থা খুবই খারাপ। জীবনের কষ্ট কাউকে বোঝানো যাবে না। তবুও সান্ত্বনা খুঁজে পাই, নিজের করুণ পরিণতি হলেও বেঁচে আছেন বঙ্গবন্ধুরকন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অন্ধকার জীবন অতিবাহিত করলেও সান্ত্বনা পাই এই ভেবে যে, আর কেউ না হোক স্বয়ং নেত্রী (শেখ হাসিনা) তো সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।’ 

/এমকে/
টাইমলাইন: ২১ আগস্ট
২১ আগস্ট ২০২১, ০৯:০০
‘সান্ত্বনা একটাই, শেখ হাসিনা তো বেঁচে আছেন’
২১ আগস্ট ২০২১, ০০:০১

সম্পর্কিত

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৪

রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর মৃত্যুর কিছুদিনের মধ্যেই ক্যাম্পের ভেতর একটি মাদ্রাসায় আক্রমণের ঘটনায় সাতজন মারা যায়। এ ঘটনা সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছে। সরকার মনে করে ক্যাম্পের ভেতর আধিপত্যের লড়াইয়ের কারণে এমনটা ঘটছে। এমনটা জানালন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন।

তিনি বলেন, ‘এটি আমাদের জন্য অত্যন্ত অস্বস্তির এবং যে দুষ্কৃতকারীরা ক্যাম্পে অবস্থান করছে, তারা রোহিঙ্গাদেরই অংশ।’

সচিব আরও বলেন, ‘ক্যাম্পের ভেতর এক গ্রুপের ওপর আরেক গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারের যে প্রতিযোগিতা এবং নানান ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ড ঘটছে, তাতেই বিভিন্ন ধরনের দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার জন্ম হচ্ছে।’

সম্প্রতি মুহিবুল্লাহর মৃত্যু অনেক সমালোচিত হয়েছে। এ ঘটনার পর সেখানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থানও জোরদার করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘মুহিবুল্লাহ হত্যায় যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চালু রয়েছে। এর মধ্যে আমরা দেখলাম আরেকটি ঘটনা ঘটে গেলো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কখনই চাইবো না বাংলাদেশে কোনওে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটুক—সেটি রোহিঙ্গাদের মাধ্যমেই হোক বা অন্য যে কারও মাধ্যমে হোক।’

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘কক্সবাজারের ডিসির সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। ন্যাশনাল টাস্কফোর্সের চেয়ার হিসেবে বলেছি যে, ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে সে জন্য কঠোর হস্তে এগুলোকে দমন করতে হবে।’

বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এ বিষয়ে একটি বৈঠক হয়েছে এবং সেখানে স্থানীয় পর্যায়ে সমন্বয় আরও বৃদ্ধি করা এবং এ ধরনের ঘটনায় জিরো টলারেন্স প্রদর্শনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

তিনি বলেন, ঘটনাগুলো ধীরে ধীরে ঘটেছে। এগুলো এক দিনে দূর হবে এমনও নয়। কক্সবাজারে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধ করা হবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩২

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন  বলেছেন, ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ পৃথিবীর মধ্যে নাম্বার ওয়ান।

শনিবার (২৩ অক্টৈাবর) দুপুরে সিলেটে ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজা) কার্যালয় পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে সকল ধর্মের মানুষ শান্তিতে বসবাস করছে। এমনকি বিভিন্ন ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান স্বাধীনভাবে পালনে কোনও বাধা বিপত্তি নেই। স্বাধীনতার পাশাপাশি ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনে সরকার সব সময় আর্থিক সহায়তাও দিয়ে আসছে, যা অন্যান্য দেশে বিরল।’

মন্ত্রী সম্প্রতি বিভিন্ন স্থানে উগ্র সাম্প্রদায়িক বিভিন্ন ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশকে অস্থিতিশীল করতে একটি গোষ্ঠী নানাভাবে ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতা চালাচ্ছে, তবে সরকার এসব অপতৎপরতা মোকাবিলায় কঠোর অবস্থানে রয়েছে।’ তিনি জানান, সাম্প্রদায়িক হামলার ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারের পদক্ষেপকে অত্যন্ত উত্তম বলে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ভারত। দেশটির সরকার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপের প্রশংসা করেছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় সিলেটে ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজা) এর সভাপতি বাপ্পা ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক আনিছ রহমান, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ অধ্যাপক জাকির হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক সিসিক কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শনিবার সকালে সিলেটে অন্য একটি অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন রবিবার (২৪ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটবাসীর স্বপ্নের প্রকল্প ঢাকা-সিলেট-৬ লেন মহাসড়কের কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের কথা জানিয়ে বলেন, ‘এটা আরও আগে হওয়ার কথা থাকলেও নানা জটিলতায় পিছিয়ে এবার কাজ শুরু হচ্ছে।’ এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘এ প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর স্বদিচ্ছা ও আন্তরিকতায় সেটা এখন আলোর মুখ দেখছে।’ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিলেটবাসীর পক্ষ থেকে এই আনন্দঘন মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। খবর: বাসস

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:১৬

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পারস্পরিক শ্রদ্ধা, অংশীদারিত্ব, সহযোগিতা ও সংহতির ভিত্তিতে একটি অধিকতর শক্তিশালী ও অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ (ইউএন) গড়ে তোলার জন্য সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এই শুভক্ষণে, আসুন আমরা পারস্পরিক শ্রদ্ধা, অংশীদারিত্ব, সহযোগিতা ও সংহতির ভিত্তিতে একটি অধিকতর শক্তিশালী ও অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ (ইউএন) গড়ে তোলার জন্য প্রচেষ্টা চালাই। আসুন, আমরা জাতিসংঘকে আমাদের আশার বাতিঘর বানাই। আমাদের দেশে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপনের এই ঐতিহাসিক বছরে বাংলাদেশ আমাদের জনগণের উন্নত ভবিষ্যৎ রচনা ও উন্নততর ভবিষ্যতের জন্য একটি ব্লুপ্রিন্ট তৈরিতে যতটুকু করা সম্ভব, তা করতে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে।’ জাতিসংঘের ৭৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার (২৩ অক্টোবর)  এক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতিসংঘের ৭৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই শুভক্ষণে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে সুর মিলিয়ে বাংলাদেশ জাতিসংঘ সনদের লক্ষ্য ও আদর্শের প্রতি অটল থাকার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছে।’

তিনি বলেন, ‘বিগত ৭৬ বছরে জাতিসংঘ শান্তি ও নিরাপত্তা, মানবাধিকার, নারী ক্ষমতায়ন ও টেকসই উন্নয়নসহ বহু ক্ষেত্রে মানবজাতির সমৃদ্ধিতে পাশে থেকেছে।’ তবে তিনি একথাও বলেন, ‘আমরা বিশ্বের অনেক অংশের মানুষকে তাদের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করতে দেখছি। ফিলিস্তিনি জনগণের ন্যায্য অধিকারের সংগ্রাম এবং মিয়ানমারে কয়েক দশক ধরে চলা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর উৎপীড়ন— এমনই কিছু দৃষ্টান্ত।’

এছাড়া, যখন জলবায়ু পরিবর্তন, নিরস্ত্রীকরণ, সন্ত্রাসবাদ, জাতিগত এবং ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার মতো অনেক অমীমাংসিত সমস্যা এবং চ্যালেঞ্জ রয়েছে, বিশ্ব একটি অদৃশ্য, মারাত্মক মহামারির সম্মুখীন হয়েছে, যা গত দুই বছর ধরে লাখো মানুষের মৃত্যৃর সঙ্গে জীবন ও জীবিকা ধ্বংস করছে উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ‘এ প্রেক্ষাপটে জাতিসংঘ সনদের কালজয়ী মূল্যবোধ ‘আমাদের জনগণকে’ সেবা করার জন্য ‘আমাদের শক্তিকে একত্রিত করা’ আগের চেয়ে বেশি প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে।’

তিনি বলেন, ‘‘জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পৃক্ততা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে রূপ লাভ করেছে।

তাঁর (বঙ্গবন্ধুর) সুদৃঢ় ঘোষণা ‘বাঙালি জাতি বিশ্বব্যবস্থা গড়ে তুলতে নিজেকে সম্পূর্ণরূপে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করছে, যেখানে শান্তি ও ন্যায়বিচারের জন্য সকল মানুষের আকাক্ষা বাস্তবায়িত হবে’ আমাদের জনগণের জন্য নির্দেশনামূলক নীতি হিসেবে কাজ করে।’’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘তাঁর (বঙ্গবন্ধুর) আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আমরা বিশ্ব শান্তির জোরালো প্রবক্তা, আন্তর্জাতিক উন্নয়নে সক্রিয় অবদানকারী এবং সর্বজনীন মূল্যবোধের বিশ্বস্ত সমর্থক হিসেবে জাতিসংঘের সঙ্গে অংশীদারিত্ব বজায় রেখেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘শান্তির সংস্কৃতি’র অন্যতম অগ্রণী প্রবক্তা বাংলাদেশ আজ  জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে একটি ব্র্যান্ড নাম হয়ে উঠেছে।’

শেখা হাসিনা বলেন, ‘এসডিজি বাস্তবায়ন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, নারীর ক্ষমতায়ন, জনকেন্দ্রিক উন্নয়ন উদ্যোগ জোরদার এবং স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধির জন্য উদ্ভাবনী সমাধানের ক্ষেত্রে আমাদের বিশাল অর্জন সুস্বীকৃত।’

তিনি বলেন, ‘ফলে, কোভিড-১৯ মহামারির আক্রমণ সত্ত্বেও আমরা ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের, ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত এবং ২১০০ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ বদ্বীপে পরিণত হওয়ার সঠিক পথে আছি।’ খবর: বাসস

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

দক্ষিণ কোরিয়া সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনা প্রধান

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২১:১৪

দক্ষিণ কোরিয়া সফর শেষে শনিবার (২৩ অক্টোবর) দেশে ফিরেছেন সেনা প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

সফরকালে তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার সেনা প্রধান জেনারেল ন্যাম ইয়ং ও  দেশটির জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সিঅ উকসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর প্রধান গত ১৯ অক্টোবর কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ন্যাম ইয়ং শিনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় তারা দু'দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান সুসম্পর্ক উন্নয়নে বিভিন্ন সম্ভাবনার বিষয়ে মতবিনিময় করেন। পরে সেনা প্রধান "আর্মি টাইগার ৪.০" ও "ওয়ারিয়র্স প্লাটফর্ম" শীর্ষক দুটি মহড়া পরিদর্শন করেন। পরে তিনি কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সিঅ উক, এঙ্গোলা সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ জেনারেল জ্যাক রাউল, রাশিয়া গ্রাউন্ড ফোর্সের কমান্ডার-ইন-চিফ জেনারেল ওলেগ লিওনিদোভিচ সেউকভসহ অন্যান্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

২০ অক্টোবর রিপাবলিক অব কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি ‘সিউল ইন্টারন্যাশনাল অ্যারোস্পেস অ্যান্ড ডিফেন্স এক্সিবিশন-২০২১ পরিদর্শন করেন। ‘এয়ার শো' শেষে জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদ উপস্থিত বিভিন্ন দেশের সামরিক ও বেসামরিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এরপর তিনি বিভিন্ন সামরিক সরঞ্জাম সম্বলিত স্টল পরিদর্শন করেন।

২১ অক্টোবর সেনাবাহিনী প্রধান সিউলে তার সম্মানে বাংলা হাউজে আয়োজিত নৈশভোজে অংশগ্রহণ করেন এবং কোরিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে  মতবিনিময় করেন।

এ সফর দু'দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়।

/আরটি/এমএস/

সম্পর্কিত

সরকারি সফরে ভারত গেলেন সেনাপ্রধান 

সরকারি সফরে ভারত গেলেন সেনাপ্রধান 

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

জলসিঁড়ি আবাসন এলাকায় সেনাপ্রধানের বৃক্ষরোপণ

জলসিঁড়ি আবাসন এলাকায় সেনাপ্রধানের বৃক্ষরোপণ

রাশিয়া গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

রাশিয়া গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২০:০০

সম্প্রতি দুর্গাপূজায় মণ্ডপে হামলার ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার একটি দেশ। যারা এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজধানীর ফার্মগেটে তেজগাঁও কলেজ অডিটোরিয়ামে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে এবারই প্রথম ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেছে। হামলার ঘটনার সব কিছু বের করে ফেলেছি। জড়িতরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়েছে। কেনো এ ঘটনা ঘটেছে – সে বিষয়ে আপনাদের জানাতে সক্ষম হবো। যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের শনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে – যেনো ভবিষ্যতে এ ধরনের ষড়যন্ত্র করতে তাদের হৃদযন্ত্রে কম্পন সৃষ্টি হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, এ দেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। এ দেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানের, এদেশ মুসলমানের।

/আরটি/এমএস/

সম্পর্কিত

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ লাখ টাকা দিলেন নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা

রাষ্ট্রীয় সফরে ভারত গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

রাষ্ট্রীয় সফরে ভারত গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

‘কুমিল্লার ঘটনা কীভাবে ঘটেছে ফখরুলকে জিজ্ঞাসা করলেই জানা যাবে’

‘কুমিল্লার ঘটনা কীভাবে ঘটেছে ফখরুলকে জিজ্ঞাসা করলেই জানা যাবে’

মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে

মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে

কৃষি উদ্যোক্তা তৈরিতে সেল গঠন করা হবে: কৃষিমন্ত্রী

কৃষি উদ্যোক্তা তৈরিতে সেল গঠন করা হবে: কৃষিমন্ত্রী

সর্বশেষ

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

সালমান এফ রহমানের ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

© 2021 Bangla Tribune