X
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

৩০ কোটি টাকা পর্যন্ত মূলধন সংগ্রহ করতে পারবেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা

আপডেট : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৫২

পুঁজিবাজারের মাধ্যমে ৫ কোটি থেকে ৩০ কোটি টাকা পর্যন্ত মূলধন সংগ্রহ করতে পারবেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা। এ জন্য এসএমই ফাউন্ডেশন ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ক্ষিলখেতের ডিএসই টাওয়ারে এসএমই ফাউন্ডেশনের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মফিজুর রহমান এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আমিন ভূঁইয়া নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

এ সময় ডিএসই চেয়ারম্যান ইউনুসুর রহমানের সভাপতিত্বে এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। এসএমই ফাউন্ডেশন থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এখন থেকে পুঁজিবাজার থেকে ৫ কোটি থেকে ৩০ কোটি টাকা মূলধন সংগ্রহ করতে পারেন এসএমই উদ্যোক্তারা। বাংলাদেশ সিকুরিটিস অ্যান্ড এক্সেঞ্জ কমিশন (কোয়ালিফাইড ইনভেস্টর অফার বাই স্মল ক্যাপিটাল কোম্পানিস) নীতিমালা-২০১৮ অনুসারে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের পুঁজিবাজার থেকে মূলধন আহরণের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আমিন ভূঁইয়া বলেন, ‘বর্তমানে ৫ কোটি থেকে ৩০ কোটি টাকা মূলধন সংগ্রহের সুযোগ থাকলেও এসএমই’র সংজ্ঞা পরিবর্তন হলে এর পরিমাণ আরও বাড়বে।’

এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমান বলেন, ‘ভারতের অর্থনীতিতে এসএমই খাতের অবদান ৬০ শতাংশ, চীন ও জাপানে প্রায় ৭০ শতাংশ হলেও বাংলাদেশে মাত্র ২৫ শতাংশ। এই হার বাড়াতে উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছে এসএমই ফাউন্ডেশন।

ডিএসই চেয়ারম্যান মো. ইউনুসুর রহমান বলেন, ‘সরকার ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য দুই দফায় প্যাকেজ ঘোষণা করলেও নানা জটিলতায় বেশিরভাগ উদ্যোক্তা তার সুফল পাননি। সেক্ষেত্রে পুঁজিবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে পারা তাদের জন্য একটা বড় সুযোগ।’

 

/এসআই/আইএ/

সম্পর্কিত

সাত দিনব্যাপী ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ শুরু হচ্ছে কাল

সাত দিনব্যাপী ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ শুরু হচ্ছে কাল

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

কেন বন্ধ হলো ঐতিহ্যবাহী ওপেক্স কারখানা?

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০০

প্রায় ৪০ বছর আগে বাংলাদেশের সেরা ব্র্যান্ড ছিল ওপেক্স। গত কয়েক বছর ধুঁকে ধুঁকে শেষ পর্যন্ত বন্ধ হয়ে গেলো কাঁচপুরে প্রতিষ্ঠানটির কারখানা কমপ্লেক্স । গত ১৮ অক্টোবর ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপের কাঁচপুর শাখার কারখানা বন্ধের নোটিশ দেওয়া হয়। গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (প্রশাসন) কমান্ডার বানিজ আলী (অব.) স্বাক্ষরিত নোটিশে ১৯ অক্টোবর থেকে স্থায়ীভাবে কারখানা বন্ধের ঘোষণার কথা উল্লেখ করা হয়। পোশাক পণ্য প্রস্তুত ও রফতানিকারকদের সংগঠন বিকেএমইএ এবং বিজিএমইএ সভাপতিকে এই নোটিশের অনুলিপি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর, শ্রম অধিদফতর, নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার, শিল্প পুলিশ ও সোনারগাঁ থানা বরাবর এর অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (প্রশাসন) কমান্ডার (অব.) বানিজ আলী বলেছেন,  সার্বিক বিবেচনায় কারখানা স্থায়ীভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এখন শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

জানা গেছে, বস্ত্র ও পোশাক পণ্য তৈরিতে আশির দশকের শুরুতে যাত্রা করে ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপ। এর কর্ণধার উদ্যোক্তা আনিসুর রহমান সিনহা। ১৯৮৪ সালে ওপেক্স গ্রুপের মাধ্যমে পোশাক কারখানা গড়ে তোলেন তিনি।  ঢাকার অদূরে কাঁচপুরে বড় কারখানা গড়ে তুলেছিল গ্রুপটি। ৪৩ একর জমির ওপর তৈরি এই প্রতিষ্ঠানটি বস্ত্র ও পোশাক খাতে এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ শিল্পোৎপাদন ক্ষেত্র হিসেবেও স্বীকৃতি পেয়েছিল।

শুধু তা-ই নয়, বিদেশেও এর ব্যবসায়িক কার্যালয় খুলেছিলেন আনিসুর রহমান সিনহা। যুক্তরাজ্য, হংকং, চীন, জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্রেও আছে ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইলের কার্যালয়। যুক্তরাজ্যে আছে ওপেক্স ফ্যাশন লিমিটেড নামে লিয়াজোঁ অফিস। ২০১০ সালের মে মাসে প্রতিষ্ঠানটি চালু হয়। বিশ্বের সব নামকরা বড় ক্রেতার কাজগুলো সমন্বয় ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যেই অফিসটি চালু করেছিলেন তিনি।

সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপের মাধ্যমে পোশাক খাতের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ শিল্পেও বিনিয়োগ করেন উদ্যোক্তা। এতে অল্প সময়ের মধ্যেই পশ্চিমা ক্রেতাদের নজর কেড়েছিলেন আনিসুর রহমান সিনহা।

তবে বেশ কিছু দিন ধরেই নগদ মূলধনের অভাব, ঋণ দায়, শ্রম অসন্তোষসহ নানামুখী সংকটে ভুগছিল কারখানা কমপ্লেক্সটি। করোনা শুরু হওয়ার পর এই সংকট আরও ঘনীভূত হয়।

এ প্রসঙ্গে বিকেএমইএ’র নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, আজ পোশাকশিল্পকে এতদূর নিয়ে আসার জন্য আনিসুর রহমান সিনহা এবং ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপের অবদান ব্যাপক। তার মতে, ঐতিহ্যবাহী এই কারখানাটি বন্ধ হওয়া খুবই দুর্ভাগ্যজনক। তিনি উল্লেখ করেন, কাঁচপুর শাখার শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা ও ক্ষতিপূরণ দিতে ৪৫-৫০ কোটি টাকা প্রয়োজন। জমিজমা বিক্রি করে আনিসুর রহমান সিনহা তাদের পাওনা পরিশোধের চেষ্টা করছেন।

এদিকে ওপেক্স কারখানা বন্ধ হলেও দেশের গার্মেন্টস সেক্টরে কোনও  প্রভাব পড়বে না বলে মনে করেন বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল। তবে এটি  বন্ধের সিদ্ধান্ত আমাদের শিল্পের জন্য নেতিবাচক বলে মনে করেন তিনি।

মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, কারখানা বন্ধ ও চালু হওয়া স্বাভাবিক বিষয়। অনেকেই চালাতে না পারলে বন্ধ করে দেন। ওপেক্সের ক্ষেত্রেও তা-ই ঘটেছে। তবে শুরুর দিকে ওপেক্স ছিল দেশের ব্র্যান্ড। সে কারণে এত আলোচনা। এখন দেশে শত শত ব্র্যান্ডের পোশাক তৈরি হচ্ছে। শত শত গ্রিন ফ্যাক্টরি দেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।
এদিকে নোটিশে স্থায়ীভাবে কারখানা বন্ধের বিষয়টি গ্রুপের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিককে জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ওপেক্স গ্রুপের স্বত্বাধিকারী ২০১২ সাল থেকে কাঁচপুরের সব কারখানায় আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। এরপরও ঋণ করে ও জমিজমা বিক্রির মাধ্যমে কারখানাটি চালু রাখা হচ্ছিল। কিন্তু করোনার কারণে অর্ডারের অভাব দেখা দেয়। আবার শ্রমিক-কর্মচারীদের বিশৃঙ্খলার পাশাপাশি নিম্নদক্ষতা ও সময়ে সময়ে কার্যক্রম সম্পূর্ণ বন্ধ রাখায় কারখানার পরিবেশ বিনষ্ট হয়েছে। এতে মালিকের চরম আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। যার ফলে বর্তমানে কারখানাগুলো চালানো আর সম্ভব হচ্ছে না।

কারখানা চালিয়ে রাখার আর্থিক সামর্থ্য মালিকের নেই উল্লেখ করে নোটিশে বলা হয়, বাধ্য হয়ে শিল্প ও শিল্পসংশ্লিষ্ট সবার নিরাপত্তার স্বার্থে বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬-এর ২৮(ক) ধারা অনুযায়ী ওপেক্স গ্রুপ, কাঁচপুর শাখার সব গার্মেন্ট ইউনিট ও ওয়াশিং প্লান্টসহ সংশ্লিষ্ট সব ইউনিট ১৯ অক্টোবর থেকে স্থায়ীভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হলো।

নোটিশে আরও বলা হয়, আইনের ভিত্তিতে বেতনসহ বিভিন্ন বকেয়া পরিশোধ করা হবে। সেক্ষেত্রে শ্রম মন্ত্রণালয়, শ্রম অধিদফতর, বিজিএমইএ ও শ্রমিক প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া এবং পাওনা পরিশোধ করা হবে। শিগগিরই পাওনা পরিশোধের তারিখ ও করণীয় সম্পর্কে নেওয়া সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট সবাইকে অবহিত করা হবে।

জানা গেছে, একসময় কাঁচপুরের বিভিন্ন ইউনিটে ৪৫ হাজারেরও বেশি কর্মী কাজ করেছেন। এখন এই সংখ্যা ১৩-১৪ হাজারে নেমে এসেছে। বিশেষ করে গত তিন বছরে শ্রমিক অসন্তোষের মুখে পড়তে হয়েছে গ্রুপটিকে। এতে ছাঁটাই হয়েছেন পুরনো অনেক কর্মী। নিয়মিত কর্মীদের বেতন বকেয়াও পড়েছে। শুধু তা-ই নয়, কারখানা লে-অফের ঘটনাও ঘটেছে। করোনা পরিস্থিতিতে লে-অফ ঘোষণা করা হয়েছিল গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। পরে চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়।  এরপর কিছু ইউনিট চালু হলেও ১০ জুন থেকে আবারও শ্রমিক অসন্তোষে বাধাগ্রস্ত হয় উৎপাদন। এছাড়া গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঘটনাও ঘটে।

মূলত রানা প্লাজা ধস-পরবর্তী প্রেক্ষাপটে কারখানাগুলো ধুঁকতে শুরু করে।। কারখানা মূল্যায়নে নিয়োজিত জোট অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স অযাচিতভাবেই গ্রুপের কারখানা ইউনিটগুলোর ভবনের ত্রুটি নিয়ে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে করে। আগে অনেক বড় ক্রেতা ওপেক্স অ্যান্ড সিনহায় কাজ দিতো। গার্মেন্টস ব্যবসায়ীদের অনেকে বলেছেন, আনিসুর রহমান সিনহার ব্যবসা আরও কঠিন করে তুলেছে ব্যাংক ঋণের দায়। রানা প্লাজা ধসের আগে তার বড় আকারের ব্যাংক ঋণ ছিল না। রানা প্লাজা ধস-পরবর্তী ব্যাংকে দেনা বেড়েছে। এ অবস্থায় শ্রেণিকৃত ঋণগুলো পুনর্গঠনের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন এ ব্যবসায়ী।
জানা গেছে, কয়েক বছর ধরেই ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপের কারখানায় প্রায়ই শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিচ্ছিল। অনেক ক্ষেত্রে আইনে উল্লেখ না থাকলেও বিভিন্ন সুবিধা দিতে বাধ্য হয়েছেন কর্তৃপক্ষ। শেষ পর্যন্ত আর্থিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ায় কারখানাটি বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

বাংলাদেশ থেকে আরও সোর্সিং করুন: মার্কিন ক্রেতাদের প্রতি বিজিএমইএ সভাপতি

পোশাক রফতানি বেড়েছে ৪১ দশমিক ৬৬ শতাংশ

পোশাক রফতানি বেড়েছে ৪১ দশমিক ৬৬ শতাংশ

পোশাক রফতানিতে ভিয়েতনামের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

পোশাক রফতানিতে ভিয়েতনামের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

এসক্রো সার্ভিসে আটকে থাকা টাকার বিষয়ে যা বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ২০:০৯

এসক্রো সার্ভিসে আটকে থাকা ২১৪ কোটি টাকা ফেরত টাকা ফেরতের বিষয়টি বড় ইস্যু হয়ে গেছে। এটার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক দেখবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ই-কমার্স নিয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে, যাদের টাকা আটকে আছে, জুলাই মাস থেকে সেগুলো যেন তাদের কাছে ফেরত যায়। এ বিষয়ে যেসব আইনি জটিলতা আছে, সেগুলো নিয়ে আমরা কথা বলেছি। ব্যবস্থা নিচ্ছি, একটু সময় লাগবে। জুলাই থেকে পেমেন্ট দেওয়া শুরু হবে। সে লক্ষ্যে কাজ চলছে।

বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধি জানান, গত ৩০ জুন এসক্রো সার্ভিসের নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়। ১ জুলাই থেকে যেসব ট্রানজেকশন হয়েছে, সে ট্রানজেকশনের বিপরীতে টাকাগুলো ব্লক করা আছে। যেটা ডেলিভারি হয়নি, সে টাকাটা পেমেন্ট গেটওয়ের কাছে আছে। সুতরাং সেক্ষেত্রে কাস্টমার ও টাকার পরিমাণ আইডেন্টিফাইড। সেগুলো আমরা আইনি জটিলতা কাটিয়ে ফেরতের ব্যবস্থা করবো। যেটা এসক্রো অ্যাকাউন্টে আছে, সে টাকাটা দেওয়া হবে। যে টাকা ই-কমার্স কোম্পানি নিয়েছে, সেটা তো বাংলাদেশ ব্যাংকের হাতে নেই, সেটা বাংলাদেশ ব্যাংক দিতে পারবে না।

/এসআই/এমআর/

সম্পর্কিত

বুধবার ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ থাকবে

বুধবার ব্যাংক ও শেয়ার বাজার বন্ধ থাকবে

জনতা ব্যাংকের যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালির একচেঞ্জ হাউজ বন্ধের সুপারিশ

জনতা ব্যাংকের যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালির একচেঞ্জ হাউজ বন্ধের সুপারিশ

সেবা খাতের আয় দেশে আনার পদ্ধতি আরও সহজ হলো

সেবা খাতের আয় দেশে আনার পদ্ধতি আরও সহজ হলো

২০ অক্টোবর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ

২০ অক্টোবর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ

অনিবন্ধিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বন্ধ হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:২৮

নিবন্ধন না করলে ব্যবসা থেকে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘আউট’ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ই-কমার্স নিয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

এ সভায় প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘আইসিটি বিভাগ থেকে সব ব্যবসায়ীকে ইউনিক বিজনেস আইডেন্টিফিকেশন নম্বর দেওয়া হবে। যারা নিবন্ধন করবে না, তারা ব্যবসা থেকে ‘আউট’ হয়ে যাবে। এ নিবন্ধন করতে কোনও খরচ লাগবে না।’’

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আইনগতভাবে চেক করার জন্য সেন্ট্রাল লজিস্টিক ট্র্যাকিং প্ল্যাটফর্মের (সিএলটিপি) ব্যবস্থা করতে হবে। সেন্ট্রাল ম্যানেজমেন্ট কপ্লেইন সিস্টেম, কোথাও কারও অভিযোগ থাকলে, এখানে আসবে। আইসিটি বিভাগ আগামী তিন মাসের মধ্যে এসব করে দেবে। আগামী দুই-তিন সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে তারা ফলোআপ দেবে।’

তিনি বলেন, ‘ইভ্যালি ছাড়া অন্য যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে একটা নির্দেশনা এসেছে, বিশেষ করে ইভ্যালির ব্যাপারে। এটা একটা গাইডলাইন, এটা দিয়ে আমরা শুরু করতে পারি।’

টিপু মুনশি বলেন, ‘যুবক’ ও ‘ডেসটিনি’র স্থাবর সম্পত্তি আছে, সে সম্পত্তি তারা নিয়ে যেতে পারেনি। কিছু ক্যাশ তারা নিয়ে গেছে। আইনি প্রক্রিয়ায় সে সম্পত্তি রিলিজ করা গেলে এবং সেটার দাম পাওয়া গেলে, আদালত নির্দেশ দিলে, দেওয়া যেতে পারে।’ তবে এসব প্রতিষ্ঠানের অনেক প্রপার্টি বেদখল হয়ে আছে বলেও জানান তিনি।

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘বাণিজ্যমন্ত্রী না ব্যবসায়ী’

‘বাণিজ্যমন্ত্রী না ব্যবসায়ী’

ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিটে অংশ নেবে ৩৮ দেশ

ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিটে অংশ নেবে ৩৮ দেশ

মানুষ লোভ সামলাতে না পেরে ফাঁদে পা দিয়েছে: বাণিজ্যমন্ত্রী

মানুষ লোভ সামলাতে না পেরে ফাঁদে পা দিয়েছে: বাণিজ্যমন্ত্রী

দেনা পরিশোধে ইভ্যালির সঙ্গে কথা বলবেন বাণিজ্যমন্ত্রী

দেনা পরিশোধে ইভ্যালির সঙ্গে কথা বলবেন বাণিজ্যমন্ত্রী

সাত দিনব্যাপী ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ শুরু হচ্ছে কাল

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৭

সাত দিনব্যাপী ‘বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট ২০২১’ শুরু হচ্ছে কাল মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর), চলবে ১ নভেম্বর পর্যন্ত। গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এই সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ডিসিসিআই যৌথভাবে এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠেয় এই সম্মেলনে ৩৮টি দেশের ৫৫২টি প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। এর মধ্যে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ২৮১টি এবং বিদেশি প্রতিষ্ঠান ২৭১টি। এতে ৪৫০টি বিটুবি (বিজনেস টু বিজনেস) বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এবারের বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিটে অবকাঠামো, আইটি, চামড়াজাত পণ্য, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, ফার্মাসিউটিক্যালস, অ্যাগ্রো অ্যান্ড ফুড প্রসেসিং, প্লাস্টিক পণ্য, এফএমসিজি (ফার্স্ট মুভিং কনজিউমার গুডস) এবং জুট ও টেক্সটাইল পণ্য প্রদর্শিত হবে।

 

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

গ্যাসের দাম বাড়ানোর চিন্তা চলছে

গ্যাসের দাম বাড়ানোর চিন্তা চলছে

সাড়ে ৬ মাসে সর্বোচ্চ দরপতন পুঁজিবাজারে

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৬:৩৯

সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবারও (২৫ অক্টোবর) দেশের পুঁজিবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ডিএসইতে সূচক কমেছে ১২০ পয়েন্ট। চট্টগ্রাম এক্সচেঞ্জে (সিএসই) কমেছে ৪২৬ পয়েন্ট। যা গত ৬ মাস ২১ দিনের মধ্যে উভয় পুঁজিবাজারে  সূচকের সর্বোচ্চ পতন। এদিন দরপতনের প্রতিবাদে দুপুরে রাজধানীর মতিঝিলে মানববন্ধন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে এ মানববন্ধন করেন তারা।  এদিন ব্যাংক, বিমা এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সব খাতের শেয়ারের দাম কমেছে।

দাম আরও কমবে এমন আতঙ্ক বিরাজ করছে পুঁজিবাজারে। বিনিয়োগকারীরা বলেছেন, সোমবার দিনের লেনদেনের শুরুতে প্রথমে বড় প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বিক্রি করেন। এরপর তাদের দেখা-দেখি সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কিত হয়ে শেয়ার বিক্রি করেন।

তথ্য বলছে, সোমবার দিনভর অস্থিরতার মধ্যদিয়ে লেনদেন হয়েছে। এদিন সূচক পতনের মধ্যদিয়ে লেনদেনের শুরু হয়, যা অব্যাহত ছিল দুপুর ১২টা ৩৬ মিনিট পর্যন্ত। এ সময় আগের দিনের চেয়ে সূচক কমেছে ১৬৩ পয়েন্ট। তবে পরের ২ ঘণ্টা লেনদেন হয়েছে সূচক ওঠানামার মধ্যদিয়ে। দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ১২০ পয়েন্ট, যা চলতি বছরের ৪ এপ্রিলের পর সর্বোচ্চ সূচক পতন। ওই দিন ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছিল ১৮১ দশমিক ৪৪ পয়েন্ট।

এদিন ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৭৬টি প্রতিষ্ঠানের ৩১ কোটি ৬৩ লাখ ৬০ হাজার ৭১২টি শেয়ার হাতবদল হয়েছে। লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩০৭টির শেয়ারের দাম কমেছে, বেড়েছে ৪৭টির। আর অপরিবর্তিত ছিল ২২টির।

অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমায় ডিএসইর প্রধান সূচকের পাশাপাশি অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ২২ দশমিক ১৮ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৪৬৫ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৫৩ পয়েন্ট কমে দুই হাজার ৬৪৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৪৭০ কোটি ৪৩ লাখ ১৯ হাজার টাকার শেয়ার। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৪৭১ কোটি ৪ লাখ ৬২ হাজার টাকার শেয়ার। অর্থাৎ আগের দিনের চেয়ে লেনদেন কিছুটা কমেছে।

অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৪২৬ পয়েন্ট কমে ২০ হাজার ১৪৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৯৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪১টির শেয়ারের দাম বেড়েছে, কমেছে ২৪৪টির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৯টির শেয়ারের দাম। এ বাজারে লেনদেন হয়েছে ৬০ কোটি ৬০ লাখ ২৭ হাজার ৫২৪ টাকার শেয়ার। এর আগের দিন লেনদনে হয়েছিল ৪৯ কোটি ৯৮ লাখ ৮১ হাজার ৭৭১ টাকার শেয়ার।

 

/জিএম/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

শেয়ার বিক্রির চাপে বড় দরপতন  

শেয়ার বিক্রির চাপে বড় দরপতন  

শেয়ার বাজার নিয়ে আশা, নীতিমালা লঙ্ঘনের দায়ে ব্যাংক নিয়ে হতাশা

শেয়ার বাজার নিয়ে আশা, নীতিমালা লঙ্ঘনের দায়ে ব্যাংক নিয়ে হতাশা

শেয়ার বাজারে সুদিন ফিরেছে

শেয়ার বাজারে সুদিন ফিরেছে

সম্পর্কিত

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

দুই ডোজের আওতায় ২ কোটি ১১ লাখ মানুষ

দুই ডোজের আওতায় ২ কোটি ১১ লাখ মানুষ

মোবাইল গেমিংয়ের বাজারে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ

মোবাইল গেমিংয়ের বাজারে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে বাঁচাতে প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জরুরি: স্পিকার

উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম ও ধীরগতিতে সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম ও ধীরগতিতে সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

তবু আয় বাড়ছে ফেসবুকের

তবু আয় বাড়ছে ফেসবুকের

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

শূন্য বয়স থেকে চালু হচ্ছে এনআইডি

নভেম্বরে তথ্যপ্রযুক্তির বিশ্ব আসর বসছে ঢাকায়

নভেম্বরে তথ্যপ্রযুক্তির বিশ্ব আসর বসছে ঢাকায়

সর্বশেষ

থানার জানালা ভেঙে পালালেন আসামি, ২ পুলিশ প্রত্যাহার

থানার জানালা ভেঙে পালালেন আসামি, ২ পুলিশ প্রত্যাহার

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সঙ্গে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

ভারতের ‘ভুল’ ধরিয়ে দিলেন ইনজামাম

ভারতের ‘ভুল’ ধরিয়ে দিলেন ইনজামাম

দুই ডোজের আওতায় ২ কোটি ১১ লাখ মানুষ

দুই ডোজের আওতায় ২ কোটি ১১ লাখ মানুষ

বন্ধই থাকছে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে ফেরি চলাচল

বন্ধই থাকছে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে ফেরি চলাচল

সিরাজগঞ্জে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে ৬ চেয়ারম্যান

সিরাজগঞ্জে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে ৬ চেয়ারম্যান

মোবাইল গেমিংয়ের বাজারে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ

মোবাইল গেমিংয়ের বাজারে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ

প্রথম দিনেই বরিশালের মোকামে ২০ হাজার মণ ইলিশ

প্রথম দিনেই বরিশালের মোকামে ২০ হাজার মণ ইলিশ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সাত দিনব্যাপী ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ শুরু হচ্ছে কাল

সাত দিনব্যাপী ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট’ শুরু হচ্ছে কাল

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

আবারও রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

ব্যবসা বহুমুখীকরণে ভূমিকা রাখবে ব্লু ইকোনমি: সালমান এফ রহমান

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো

গ্যাসের দাম বাড়ানোর চিন্তা চলছে

গ্যাসের দাম বাড়ানোর চিন্তা চলছে

© 2021 Bangla Tribune