X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদ সদস্যদের সাক্ষাৎ

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২০ সেপ্টেম্বরের ঘটনা।)

এদিন সকালে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ-ইডেন কলেজ শাখার সদস্যরা গণভবনে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সংসদের নবনির্বাচিত সভাপতি শামীমা বেগম ও সাধারণ সম্পাদক ফজিলাতুন্নেছা ছাত্রীদের সাক্ষাৎদলের নেতৃত্ব করেন।

দেশে এদিন জরুরি অবস্থা ধারায় রাষ্ট্রপতিকে দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণার ক্ষমতা দিয়ে আনা সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী বিলটি জাতীয় সংসদে ২৬৭ ভোটে পাস হয়। বিরোধী সদস্যরা বিলের ওপর ভোট গ্রহণের আগেই এর বিরোধিতা ও অগণতান্ত্রিক বলে অভিহিত করে ওয়াকআউট করেন। এদিকে সংসদ অধিবেশনের মধ্যবর্তী সময় ৬০ দিন থেকে ১২০ দিন করা হয়। এছাড়া নিবর্তনমূলক আটকের বিধান সংবলিত আইন প্রণয়নের ক্ষমতা দেওয়া হয়। বিল সম্পর্কে বিরোধী সদস্যদের অভিযোগের জবাবে আইনমন্ত্রী মনোরঞ্জন ধর বিনা কারণে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হবে না উল্লেখ করে বলেন, ‘বিশেষ জরুরি প্রয়োজনের কথা চিন্তা করেই সংবিধানে এ ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে।’ আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আপৎকালীন অবস্থা মোকাবিলার জন্য প্রত্যেক দেশের সংবিধানে জরুরি অবস্থা ঘোষণার ব্যবস্থা রয়েছে। আমাদের সংবিধানে এমন কোনও ব্যবস্থা ছিল না। এখন সংসদ সংশোধনী এনে এই শূন্যতা পূরণ করছে মাত্র।’ তিনি বলেন, ‘এটি একটি মামুলি সংশোধনী।’

আইনমন্ত্রী মনোরঞ্জন ধর বিলটি বিবেচনার জন্য উত্থাপন করেন। বাংলাদেশ জাতীয় লীগের আতাউর রহমান খান, ভাসানী ন্যাপের কামরুল ইসলাম, মোহাম্মদ সালাউদ্দিনসহ বেশ কয়েকজন সদস্য যাচাইয়ের জন্য বিরোধী প্রচারণার প্রস্তাব করেন। কিন্তু কণ্ঠভোটে এ প্রস্তাব নাকচ হয়ে যায়।

দৈনিক বাংলা, ২১ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ আতাউর রহমান তার বক্তৃতায় এই বিলের বিরোধিতা করে বলেন, ‘বিলটির কোনও প্রয়োজন ছিল না। কারণ, যুদ্ধাবস্থায় অভ্যন্তরীণ গোলযোগ মোকাবিলায় যে প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করা হয়েছে, সংবিধানের একটি ধারাতেই সে রকম অবস্থা মোকাবিলায় মোটামুটি ব্যবস্থা ছিল। অভ্যন্তরীণ গোলযোগ মোকাবিলায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা সরকারের অজ্ঞতার পরিচায়ক। সরকারকে প্রচলিত বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা মোকাবিলা করতে জানতে হবে।’

বঙ্গবন্ধুর জাপান সফর নির্ধারিত

জাপানের প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ বছরের ১৮ থেকে ২৪ অক্টোবর ৬ দিনের জন্য জাপান সফর করবেন বলে জানানো হয়। এদিন ঢাকায় প্রকাশিত বাংলাদেশ পররাষ্ট্র দফতরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে জাপানের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। জাপানে ছয় দিনব্যাপী সফরকালে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বার্থ নিয়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন। জাপানে বঙ্গবন্ধুর সফর হবে সকল প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য বাংলাদেশের ঘোষিত নীতির সঙ্গে সম্পূর্ণ সামঞ্জস্যপূর্ণ। বঙ্গবন্ধুর সফরে বাংলাদেশ ও জাপানের জনগণের মধ্যে গভীর বন্ধুত্ব প্রতিফলিত হবে বলে কূটনৈতিক মহল মনে করে।

ডেইলি অবজারভার, ২১ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ দেশের মাটিতে আরও ৪৪৪ জন বাঙালি

দিল্লির চুক্তি অনুযায়ী, পাকিস্তান থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো বাঙালিদের একটি দল নিয়ে জাতিসংঘ নির্ধারিত আফগান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে  ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এতে সামরিক বাহিনীর ২৮ জন জুনিয়র কমান্ডিং অফিসার ও তাদের পরিবার আসেন। পক্ষান্তরে তারা অবতরণের এক ঘণ্টা পর বিমানটি ৮৭ জন প্রাপ্তবয়স্ক ও ৪০ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক অবাঙালিকে নিয়ে পাকিস্তানের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করে। রাত ১০টায় আবারও ওই বিমানটি ১৪৬ জন বাঙালিকে নিয়ে লাহোর থেকে এসে ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৫৪

অগণতান্ত্রিক পন্থায় ক্ষমতা দখলের দিবাস্বপ্ন ভেস্তে যাচ্ছে বলেই বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রবিবার (২৪ অক্টেবর) দুপুরে তার বাসভবনে ব্রিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকারের উন্নয়ন এবং অগ্রগতি ও দেশ এগিয়ে যাওয়ার কোনও চিত্র বিএনপি দেখতে পায় না। শেখ হাসিনা সরকারের মেরুদণ্ড শক্ত, কারণ সরকারের সঙ্গে জনগণ রয়েছে। কোনও দৃশ্যমান বা অদৃশ্য শক্তির কাছে বঙ্গবন্ধুকন্যা মাথা নত করেন না।’

তিনি বলেন,  ‘বিএনপির রাজনীতি চলছে অদৃশ্য সুতার টানে।’ দেশ নাকি এক অদৃশ্য শক্তি চালাচ্ছে, এ শক্তি নাকি বিএনপির ওপরে খবরদারি করছে, বিএনপি  নেতাদের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আসলে শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও ভবিষ্যৎমুখী রাজনীতি বিএনপির সুবিধাবাদী রাজনীতির ওপর অমানিশার ছায়া ফেলেছে। বর্তমান সরকার কোনও দলের ওপর খবরদারি করে না, বরং সরকার পরিচালনাকে পবিত্র দায়িত্ব মনে করে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেশে নাকি আতঙ্ক ও নির্মম রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে, বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ ভিত্তিহীন।’  

তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ চিরাচরিত ও কাল্পনিক, সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তোলার আগে তাদের নিজেদের শাসনকালের কথা মনে করা উচিত। বিএনপি মহাসচিব গোস্বা করে ফেলেছেন, তিনি ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে কিছু শব্দমালার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ধীরে ফখরুল সাহেব ধীরে,রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন।’

ওবায়দুল কাদের মনে করেন, বর্তমানে দেশের মানুষ নির্ভয়ে এবং স্থিতিশীল পরিবেশে নিজ নিজ কর্মকাণ্ড এগিয়ে নিচ্ছে। জনগণ নয়, অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির কারণে বর্ণচোরা, সুবিধাবাদী রাজনীতিবিদ এবং জনগণের সম্পদ লুণ্ঠনকারী আতঙ্কে আছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ধর্মকে পুঁজি করে বিভেদ সৃষ্টিকারী সাম্প্রদায়িক অপশক্তি আতঙ্কে রয়েছে। আতঙ্কে আছে আগুন সন্ত্রাসীরা। দেশের সাধারণ মানুষ আতঙ্কে নয়,বরং ভালো আছে, স্বস্তিতে আছে।’

তিনি বলেন, ‘যারা ক্ষমতায় থাকাকালে হাওয়া ভবন তৈরি করে দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল, জনগণের অর্থ পাচার করে বিদেশে অর্থের পাহাড় গড়েছিল, পাচারকৃত অর্থে বিদেশে আয়েশি জীবনযাপন করেছে এবং করছে, তাদের কে কী বলবো?’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসব প্রশ্ন রেখে বিএনপিকে আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখার পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকাকালে বিএনপি একজনও দুর্নীতিবাজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারেনি, অথচ তারা আজ  নতুন নতুন সবক দেয়।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দলীয় পরিচয় যাই হোক, শেখ হাসিনার কাছে অনিয়মকারীর কোনও প্রশ্রয় নেই,যা তিনি ইতোমধ্যেই প্রমাণ করেছেন।’

 

/পিএইচসি/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৪১

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, ডলফিন সংরক্ষণে বর্তমান সরকার সবসময় তৎপর রয়েছে।  কিন্তু অনেকে ডলফিনের তেল সংগ্রহসহ বিভিন্ন কারণে ইচ্ছাকৃতভাবে ডলফিন হত্যা করে থাকে।  এই হত্যকারীদের বিষয়ে  তথ্য দিলে তাদের পুরস্কার দেওয়া হবে।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) ‘শুশুক ডলফিন থাকে যদি, ভালো থাকবে দেশের নদী’ প্রতিপাদ্যে আন্তর্জাতিক মিঠাপানির ডলফিন দিবস-২০২১ উপলক্ষে বন অধিদফতর আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ডলফিন সংরক্ষণে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের উল্লেখ করে বনমন্ত্রী বলেন, ‘সুন্দরবনের ডলফিন সংরক্ষণের জন্য সাতটি ডলফিন কনজারভেশন দল গঠন করা হয়েছে, অন্যান্য এলাকায়ও এ ধরনের টিম গঠন করা হবে। জেলেসহ সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। ডলফিন সংরক্ষণের লক্ষ্যে এ যাবৎ সরকার দেশে ৯টি ডলফিন অভয়ারণ্য ঘোষণা করেছে, অন্যান্য এলাকায়ও এটি ঘোষণা করা হবে।’

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ‘ডলফিন অ্যাকশন প্ল্যান এবং ডলফিন এটলাস প্রস্তুত করা হয়েছে। হালদা নদীতে ডলফিনের সংখ্যা নির্ণয় এবং ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে। বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে ডলফিন হত্যার অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটালে ৫ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড, অথবা সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ড, অথবা উভয় দণ্ডের বিধান অন্তর্ভুক্ত করা রয়েছে।’ দেশের প্রকৃতি ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে নিবেদিত ব্যক্তিদের ডলফিন রক্ষার জন্য নিজ নিজ স্থান থেকে একনিষ্ঠভাবে দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সকলের সমন্বিত প্রয়াসেই আমরা ডলফিন সংরক্ষণ কার্যক্রমে সফল হবো।’

বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব মো. মোস্তফা কামাল ও অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, আইইউসিএন বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি রিপ্রেজেনটেটিভ রাকিবুল আমীন। বিষয়ভিত্তিক উপস্থাপনা করেন সুফল প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. মদিনুল আহসান এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এম. মনিরুল এইচ খান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চলের বন সংরক্ষক মোল্যা রেজাউল করিম।

 

/এআরআর/এসএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

২৫ মার্চ আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতি চায় বাংলাদেশ

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:২৯

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস স্বীকৃতির জন্য সরকার কূটনৈতিকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে। মাত্র ৯ মাসে ৩০ লাখ মানুষকে হত্যার মতো ঘটনা পৃথিবীতে আর ঘটেনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেও এ পরিমাণ লোক মারা গেছে। কিন্তু আমাদের দেশের মতো এত অল্প সময়ে এত লোক কোথাও মারা যায়নি। তাই ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ বাংলাদেশে যে গণহত্যা হয়েছিল, তাকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য জাতিসংঘের প্রতি অনুরোধ রাখছি।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন মিলনায়তনে ৭৬তম জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ পয়েটস্ ক্লাব কর্তৃক আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের দাফতরিক ভাষা হিসেবে মর্যাদা দেওয়ার জন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী কুটনৈতিকভাবে অনেক প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। আমরা আশাবাদী, বাংলা অচিরেই জাতিসংঘের অন্যতম দাফতরিক ভাষার স্বীকৃতি লাভ করবে। বঙ্গবন্ধু যখন ছিলেন, তিনি বলেছিলেন‑ আমি আমার মাতৃভাষায় জাতিসংঘে বক্তব্য রাখব, কিন্তু সে রেওয়াজ সেদিন ছিল না। তাঁর সম্মানে জাতিসংঘ বিশেষভাবে এ ব্যবস্থা করেছিল, যাতে তিনি নিজের ভাষায় বক্তব্য রাখতে পারেন।

রোহিঙ্গাদেরকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জাতিসংঘের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই,  রোহিঙ্গাদেরকে যেন সসম্মানে তাদের নিজেদের দেশে ফেরত নেওয়ার জন্য কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করে। তাদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য রোহিঙ্গা শিবিরে জাতিসংঘ বেশ উদ্যোগ নিচ্ছে। কিন্তু এটা আমাদের কাম্য নয়। আমাদের দাবি, তাদেরকে তাদের মাতৃভূমিতে ফেরত নিতে জাতিসংঘ যেন ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন‑ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ পাটওয়ারীসহ  অনেকে।

/জেডএ/এমএস/

সম্পর্কিত

বীর মুক্তিযোদ্ধা সবার সমাধি হবে একই ডিজাইনে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

বীর মুক্তিযোদ্ধা সবার সমাধি হবে একই ডিজাইনে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

‘বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষের অধিকার সমান’

‘বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষের অধিকার সমান’

জিয়াউর রহমানের লাশের ছবি দেখতে চাই: আ ক ম মোজাম্মেল হক

জিয়াউর রহমানের লাশের ছবি দেখতে চাই: আ ক ম মোজাম্মেল হক

‘এম ভি ইকরামকে’ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রূপান্তর করা হবে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

‘এম ভি ইকরামকে’ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রূপান্তর করা হবে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০২

দেশে সাম্প্রতিক সময়ে সংগঠিত সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতি ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে কিছু কিছু ঘটনা মাঝে মধ্যে ঘটছে। এগুলো যে ইচ্ছাকৃতভাবে ঘটানো হচ্ছে তা আপনারা নিজেরাই টের পান। একইসঙ্গে অপপ্রচারও চালানো হয়।’ রবিবার (২৪ অক্টোবর) বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে পায়রা নদীর ওপর সেতুর উদ্বোধন করতে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে এসব মন্তব্য করেন তিনি। একইসঙ্গে ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-তামাবিল উভয় মহাসড়কে পৃথক এসএমভিটি লেনসহ ৬-লেন নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন সরকার প্রধান। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যোগাযোগের মাধ্যমে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। আর কখনও কেউ পেছনে টানতে পারবে না। কিন্তু আমরা যতই উন্নতি করি আর ভালো কাজ করি, একটা শ্রেণি আছে যারা বাংলাদেশের বদনাম করতে ব্যস্ত। তারা কী চায়? এ দেশের স্বাভাবিক গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকুক সেটা চায় না তারা। একটা অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি হলে তাদের একটু কদর বাড়ে। সেজন্য তারা সবসময় উন্নয়নটা আর দেখে না। বরং তারা ধ্বংসই করতে চায়। এটাই বাস্তবতা। এ ব্যাপারে দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা করোনা মহামারি মোকাবিলা করেছি। টিকা দিচ্ছি। দেশের কোনও মানুষই টিকা থেকে বাদ থাকবে না। সবাইকে টিকা দিয়ে যাতে নিরাপদ থাকতে পারে সেই ব্যবস্থাও করবো। স্কুল-কলেজ ধীরে ধীরে খুলে দিচ্ছি, যাতে আমাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ায় কোনও প্রতিবন্ধকতা তৈরি না হয়।’

সশরীরে উপস্থিত থেকে পায়রা সেতু উদ্বোধন না করতে পারায় মন খারাপ হয়েছে বঙ্গবন্ধুকন্যার। তার কথায়, ‘আমি নিজে উপস্থিত থেকে এই সেতুর ওপর দিয়ে যদি গাড়ি চালিয়ে যেতে পারতাম বা সেতুতে নেমে একটু দাঁড়াতে পারতাম বা একটু হাঁটতে পারতাম তাহলে সত্যি খুব ভালো লাগতো। পায়রা নদীটা যদি দেখতে পারতাম, এই নদীতে সবসময় স্পিডবোটে চড়েছি। কিন্তু করোনার কারণে বলতে গেলে বন্দি জীবন কাটছে। সেজন্য আর সেটা হলো না। তবে আমার আকাঙ্ক্ষা আছে, একদিন গাড়ি চালিয়ে এই সেতুতে অবশ্যই যাবো।’

সবশেষে সিলেট ও পটুয়াখালী প্রান্তে উপস্থিত উপকারভোগী, জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী।

গণভবন প্রান্ত থেকে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম। এছাড়াও ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু, কার্যনির্বাহী সদস্য আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। 

/পিএইচসি/জেএইচ/

সম্পর্কিত

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০৭

আকাশপথে চলাচলে নতুন নিয়ম জারি করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ শিথিল করে শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাতে বেবিচকের সদস্য (ফ্লাইট স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড রেগুলেশনস) গ্রুপ ক্যাপ্টেন চৌধুরী মো. জিয়াউল কবীর স্বাক্ষরিত নতুন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এটি কার্যকর থাকবে।

জানা গেছে, ১৩টি দেশ ছাড়া অন্য যেকোনও জায়গা থেকে করোনা প্রতিরোধক টিকা নিয়ে দেশে এলে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না। তবে টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে ১৪ দিন বাড়িতে কোয়ারেন্টিন করা বাধ্যতামূলক।

নতুন নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ১৩টি দেশ থেকে করোনা প্রতিরোধক টিকা নিয়ে এলে সাতদিন বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। দেশগুলো হলো- আর্মেনিয়া, বুলগেরিয়া, এস্টোনিয়া, জর্জিয়া, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া, মালদোভা, মঙ্গোলিয়া, ফিলিস্তিন, রোমানিয়া, সার্বিয়া, স্লোভেনিয়া এবং ইউক্রেন। এসব দেশ থেকে টিকা না নিয়ে এলে একসপ্তাহ নিজ খরচে বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত হোটেলে কোয়ারেন্টিন করতে হবে। 

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা যাত্রীরা

বেবিচক জানিয়েছে, বাংলাদেশে আসতে আগ্রহীদের অবশ্যই আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষার নেগেটিভ রিপোর্ট থাকা চাই। ফ্লাইটে ভ্রমণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নমুনা পরীক্ষা করাতে হবে। তবে ১২ বছরের নিচে শিশুদের ক্ষেত্রে করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক নয়। ১৮ বছরের কম বয়সী যাত্রীরা টিকা না নিলেও টিকা নেওয়া পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে বাংলাদেশে আসতে পারবেন।

নতুন নিয়ম চালুর ফলে গত ১৬ আগস্ট জারি করা নির্দেশনা বাতিল হয়েছে।

/সিএ/জেএইচ/

সম্পর্কিত

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেওয়া হবে: পরিবেশ ও বনমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

টিকা নিয়ে দেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

দুশ্চিন্তায় উপসচিবরা!

দুশ্চিন্তায় উপসচিবরা!

সর্বাধিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি নিয়ে ফিরলেন বঙ্গবন্ধু

সর্বাধিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি নিয়ে ফিরলেন বঙ্গবন্ধু

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে নাম্বার ওয়ান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সর্বশেষ

বিশ্বকাপ উত্তাপের মাঝেই এল ক্লাসিকো মহারণ

বিশ্বকাপ উত্তাপের মাঝেই এল ক্লাসিকো মহারণ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির দৃষ্টিসীমা এখন কুয়াশাচ্ছন্ন: ওবায়দুল কাদের

সংক্রমণের নিম্নগতি অব্যাহত, তবে আত্মতুষ্টির কারণ নেই: স্বাস্থ্য অধিদফতর 

সংক্রমণের নিম্নগতি অব্যাহত, তবে আত্মতুষ্টির কারণ নেই: স্বাস্থ্য অধিদফতর 

© 2021 Bangla Tribune