X
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

কোভিডের ঝুঁকি কমাবে ওষুধ, দাবি অ্যাস্ট্রাজেনেকার

আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪১

করোনার প্রতিষেধক টিকার বিকল্প ওষুধের কার্যকারিতার উল্লেখযোগ্য প্রমাণ পাওয়ার দাবি করেছে ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকা। সোমবার এক ঘোষণায় জানিয়েছে, তাদের তৈরি কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর অ্যান্টিবডি তৈরিতে খাবার ওষুধ কার্যকর। যা রোগীদের গুরুতর অবস্থা কিংবা মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে ভূমিকা রাখবে।

সোমবার (১১ অক্টোবর) প্রতিষ্ঠানটি তাদের গবেষণা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার ফল ঘোষণা করে। এতে টিকার পরিবর্তে বিকল্প ওষুধের কার্যকর হতে পারে। গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে, দুটি অ্যান্টিবডির মিশ্রণে তৈরি ‘এজেড ৭৪৪২’ নামের ওষুধ প্রয়োগের ফলে হাসপাতালে ভর্তি না হওয়া গুরুতর রোগীর ৫০ শতাংশ ঝুঁকি কমে গেছে। যারা সাত দিন বা তারও কম সময় করোনার লক্ষণ ছিল।  

শারীরিক জটিলতার জন্য করোনার টিকা আবিষ্কারের শুরু থেকে বড় বড় ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলো টিকার বিকল্প মেডিসিন তৈরির চেষ্টা চালিয়ে আসছে। এর মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকা প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, তাদের উদ্ভাবিত ওষুধ সুরক্ষা দেবে যারা টিকা নেয়ার মত যথেষ্ঠ শারীরিক সক্ষমতা রাখেন না।

করোনা মহামারী প্রতিরোধে এই ওষুধ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও আশাবাদী গবেষণার তদন্তকারী প্রধান হিউ মন্টেগোমারি।

/এলকে/

সম্পর্কিত

টিকা না নিলে চাকরি নেই!

টিকা না নিলে চাকরি নেই!

ব্রিটেনে করোনার বুস্টার ডোজ নিচ্ছেন প্রবীণরা

ব্রিটেনে করোনার বুস্টার ডোজ নিচ্ছেন প্রবীণরা

করোনার ট্যাবলেট নিয়ে এশিয়ায় তোড়জোড়

করোনার ট্যাবলেট নিয়ে এশিয়ায় তোড়জোড়

করোনা চিকিৎসায় আশা জাগাচ্ছে মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট

করোনা চিকিৎসায় আশা জাগাচ্ছে মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট

ছায়াপথের বাইরে প্রথম কোনও গ্রহের লক্ষণ দেখতে পেলেন বিজ্ঞানীরা

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৬

মিল্কিওয়ে ছায়াপথের বাইরে কোনও গ্রহের উপস্থিতির লক্ষণ দেখতে পেয়েছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। সূর্যের চারদিকে যেমন গ্রহগুলো ঘোরে, সেভাবে বিভিন্ন নক্ষত্র ঘিরে ঘুরতে থাকা প্রায় পাঁচ হাজার গ্রহ এর আগে শনাক্ত করেছেন বিজ্ঞানীরা। কিন্তু সেগুলোর সবই মিল্কিওয়ে ছায়াপথে দেখা গেছে। কিন্তু এই প্রথমবারের মতো ছায়াপথের বাইরে কোনও গ্রহের লক্ষণ শনাক্ত করা হলো।

মেসিয়ের ৫১ গ্যালাক্সিতে থাকা এই সম্ভাব্য গ্রহটি আবিষ্কার করেছে নাসার চান্দ্রা এক্স-রে টেলিস্কোপ। মেসিয়ার ৫১ নক্ষত্রপুঞ্জকে এর প্যাচানো আকৃতির জন্য ওয়ার্লপুল বা ঘূর্ণি ছায়াপথ বলেও বর্ণনা করা হয়।

আমরা যে নক্ষত্রপুঞ্জে রয়েছি, সেই মিল্কিওয়ে ছায়াপথ থেকে এটির দূরত্ব দুই কোটি আশি লাখ আলোকবর্ষ। অর্থাৎ, আলো যে গতিতে ভ্রমণ করে, সেই গতিতে গেলে এই গ্রহটিতে পৌঁছাতে দুই কোটি আশি লাখ বছর সময় লাগবে।

নক্ষত্র থেকে আলো বিকিরিত হতে থাকে। কিন্তু যখন কোনও নক্ষত্রের সামনে দিয়ে গ্রহ প্রদক্ষিণ করে, তখন সেই আলোর কিছু অংশ ঢেকে যায়, সেটির এক্স-রে রশ্মি বিকিরণ বাধাগ্রস্ত হয়। তখন সেটির সামনে থাকা গ্রহটির বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যায়, যা টেলিস্কোপের মাধ্যমে শনাক্ত করা যায়।

এই পদ্ধতি ব্যবহার করে এর আগে হাজার হাজার গ্রহ শনাক্ত করা হয়েছে।

হার্ভার্ড-স্মিথসোনিয়ান সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোফিজিক্স ইন কেমব্রিজের ড. ডি স্টেফানো বিবিসি নিউজকে বলেছেন, ‘আমরা যে পদ্ধতিতে কাজ করছি, এটাই হলো এখন পর্যন্ত অন্য কোনও ছায়াপথে থাকা গ্রহ-নক্ষত্র খুঁজে বের করার কার্যকর উপায়।’

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যেসব তথ্য-উপাত্ত পেয়েছেন, তা থেকে ধারণা করছেন যে, এই সম্ভাব্য গ্রহটির আকার হবে শনি গ্রহের মতো। যে নিউট্রন স্টার বা ব্ল্যাক হোল ঘিরে এটি ঘুরছে, সেটির সঙ্গে দূরত্ব সূর্য থেকে শনির দূরত্বের প্রায় দ্বিগুণ। তবে গবেষকরা স্বীকার করছেন, এই বিষয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত হতে তাদের আরও তথ্য-উপাত্ত দরকার।

এক্ষেত্রে একটি বড় সমস্যা হলো, বিশাল কক্ষপথের কারণে যে নক্ষত্র বা ব্ল্যাকহোল ঘিরে এটি ঘুরছে, আবার সেটির সামনে প্রায় ৭০ বছর সময় লাগে যাবে। ফলে অদূর ভবিষ্যতে এই আবিষ্কারের একটি ফলোআপ পর্যবেক্ষণ করার আপাতত উপায় নেই।

বিজ্ঞানীরা এটাও বিবেচনায় রেখেছেন যে, আলোর বিকিরণ বাধাগ্রস্ত হওয়ার আরেকটি সম্ভাব্য কারণ থাকতে পারে যে, হয়তো কোনও গ্যাস ও ধুলোর মেঘ সেটির সামনে পড়তে পারে, যা এক্স-রে রশ্মি বিকিরণে বাধা দিয়েছে। যদিও সেই সম্ভাবনা খুবই কম বলে তারা মনে করেন। কারণ যেভাবে আলোর বিকিরণ কমে গেছে, সেটি কোনও গ্যাসের আস্তরণের কারণে হয়েছে বলে তারা মনে করেন না।

গবেষকদের একজন প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটির জুলিয়া বার্নটসন বলছেন, ‘আমরা জানি যে, আমরা একটি উত্তেজনাপূর্ণ ও সাহসী দাবি করেছি। আশা করবো, অন্য জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এটা সতর্কতার সঙ্গে দেখবেন।’

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি, আমাদের পক্ষে শক্ত যুক্তি আছে। বিজ্ঞান যেভাবে কাজ করে, আমরা সেভাবেই কাজ করেছি।’ সূত্র: বিবিসি বাংলা।

/এমপি/

সম্পর্কিত

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধীদের হামলায় তিন কর্মকর্তাসহ ৫ সেনা নিহত

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধীদের হামলায় তিন কর্মকর্তাসহ ৫ সেনা নিহত

শীতে লাখ লাখ আফগান অনাহারে থাকার আশঙ্কা!

শীতে লাখ লাখ আফগান অনাহারে থাকার আশঙ্কা!

সুদানে অভ্যুত্থানে বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সুদানে অভ্যুত্থানে বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সুদানের প্রধানমন্ত্রীকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জাতিসংঘের

সুদানের প্রধানমন্ত্রীকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জাতিসংঘের

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধীদের হামলায় তিন কর্মকর্তাসহ ৫ সেনা নিহত

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০০:৫০

মিয়ানমারের একটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলা চালিয়ে তিন নারী কর্মকর্তাসহ পাঁচ সেনা সদস্যকে হত্যা করেছে জান্তাবিরোধী সশস্ত্র গোষ্ঠী পিপল’স ডিফেন্স ফোর্সেস (পিডিএফ)। গোষ্ঠীটির মুখপাত্র জানিয়েছেন, দক্ষিণ শান রাজ্যের পেখন এলাকায় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়।

মুখপাত্র বলেন, গত শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পেখনের লাইট ইনফ্যান্ট্রি ব্যাটালিয়নের ঘাঁটির পশ্চিম গেটে অভিযান চালায় পিডিএসের সশস্ত্র সদস্যরা। সেখান থেকে কয়েকটি অস্ত্র জব্দ করা হয়।

সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে এই অভিযানে সাতজন অংশ নেন। এই ঘাঁটিটি নারী কর্মকর্তার মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছিল তা জানা ছিল না বিদ্রোহীদের। অবশ্য অস্ত্র সংগ্রহ করতে গিয়েই বিষয়টি বুঝতে পারেন তারা।

পিডিএফের মুখপাত্র আরও বলেন, ‘এই ঘটনার সময় সেখানে খুবই অন্ধকার ছিল। ভালো করেই কিছুই বোঝা যাচ্ছিল না তারা নারী না পুরুষ। আমাদের দায়িত্ব সশস্ত্র এবং ইউনিফর্মধারী কেউকে দেখা মাত্রই গুলি করা। আমরা এখন যে অস্ত্রগুলো ব্যবহার করছি এগুলো তাদের কাছ থেকেই নিয়ে এসেছি’।

জান্তাবিরোধীদের ওপর এমন হামলার ঘটনার জেরে পেখনের বেসামরিক বাসিন্দাদের একাধিক বাড়ি-ঘর ধ্বংস করে দিয়েছে সেনারা।

মিয়ানমারে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করা জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে দিন দিন প্রতিরোধ গড়ে তুলছে দেশটির সাধারণ মানুষ। এর মধ্যে কয়েকটি সশস্ত্র গোষ্ঠী সম্মিলিত হয়ে গঠন করে পিপল’স ডিফেন্স ফোর্সেস (পিডিএফ)। গত ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমারে অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী। এর বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হলে সহিংস দমন নীতি গ্রহণ করে জান্তা সরকার। নিহত হয় শত শত বিক্ষোভকারী। এরপরই এই দলটি গঠন হয়। এই বাহিনীর সদস্যরা হালকা অস্ত্র ও সীমিত প্রশিক্ষণ নিয়ে গ্রামীণ এলাকা বা ছোট শহরে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে হামলা চালাচ্ছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সুর নরম হলো মিয়ানমার জান্তার, আসিয়ানে আস্থা

সুর নরম হলো মিয়ানমার জান্তার, আসিয়ানে আস্থা

যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে বন্দুক হামলা, নিহত ১

যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে বন্দুক হামলা, নিহত ১

আসিয়ান সম্মেলনে অরাজনৈতিক প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণে ক্ষুব্ধ মিয়ানমার

আসিয়ান সম্মেলনে অরাজনৈতিক প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণে ক্ষুব্ধ মিয়ানমার

শীতে লাখ লাখ আফগান অনাহারে থাকার আশঙ্কা!

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩২

আসছে তীব্র শীত। আর শীত আসার আগেই জরুরি পদক্ষেপ না নিলে আফগানিস্তানের লাখ লাখ মানুষকে অনাহারে থাকতে হতে পারে। এমন সতর্কবার্তা দিয়েছে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি)।

ডব্লিউএফপি’র নির্বাহী পরিচালক ডেভিড বিসলে বলেন, আফগানিস্তানের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশি অর্থাৎ ২২ কোটি ৮০ লাখ মানুষ তীব্র খাদ্য সংকটে দিন কাটাতে হচ্ছে। এছাড়া পাঁচ বছরের কম বয়সী ৩২ লাখ শিশু অপুষ্টির শিকার হতে পারে। এ অবস্থায় আমরা ভয়াবহ বিপর্যয়ের দিকে যাচ্ছি’।

বিশ্বের চরম মানবিক সংকটে থাকা দেশগুলোর মধ্যে একটি আফগানিস্তান। গত ১৫ আগস্ট তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলে নেওয়ার পর থেকেই অর্থনীতিতে ধস নেমে আসে। যুক্তরাষ্ট্র দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাড়ে নয়শ কোটি ডলারেরও বেশি সম্পদ জব্দ করায় পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়।

তালেবান ক্ষমতায় ফেরায় বিদেশি সহায়তার উপর নির্ভর করা দেশটিতে সহযোগিতা করা বন্ধ করে দিয়েছে অধিকাংশ দেশ। আফগানিস্তানের ক্ষেত্রে জিডিপির প্রায় ৪০ শতাংশই আসে আন্তর্জাতিক সহায়তা থেকে।

তবে সংকট মোকাবিলায় বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে তালেবান সরকার।

/এলকে/

সম্পর্কিত

আফগানিস্তানে ফের কূটনৈতিক মিশন চালু করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন?

আফগানিস্তানে ফের কূটনৈতিক মিশন চালু করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন?

তালেবানের সঙ্গে বসছেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী

তালেবানের সঙ্গে বসছেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা: সাবেক মার্কিন দূত

পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা: সাবেক মার্কিন দূত

পুতিনের মন্তব্যকে স্বাগত জানালো আফগানিস্তান

পুতিনের মন্তব্যকে স্বাগত জানালো আফগানিস্তান

সুদানে অভ্যুত্থানে বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ২০:৫১

সোমবার সকালে সামরিক অভ্যুত্থান ঘটে গেলো উত্তর আফ্রিকার দেশ সুদানে। প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লা হামদককে গৃহবন্দি করা হয়েছে। পাশাপাশি আরও কয়েকজন মন্ত্রীকেও আটকের খবর প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। দেশটিতে নতুন করে রাজনৈতিক সংকট নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে বিশ্বের কয়েকটি দেশের পাশাপাশি জোটও।

নতুন করে সুদানে অভ্যুত্থানে গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। হর্ণ অব আফ্রিকার বিশেষ মার্কিন দূত বলেন, অভ্যুত্থানের কারণে সুদানের গণতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

চলমান পরিস্থিতি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছে আফ্রিকান ইউনিয়ন। সংকট উত্তরণে সামরিক ও বেসামরিক দলের প্রতিনিধিদের অবিলম্বে সংলাপে বসার তাগিদ দিয়েছে ইউনিয়ন নেতারা।

এদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান জোসেফ বোরেল বলেন, দেশটিকে আগের অবস্থানে ফেরাতে আঞ্চলিক সহযোগী দেশগুলোকে এক হয়ে কাজ করার বিকল্প নেই। অভ্যুত্থানের বিপক্ষে অবস্থান নিতে দেখা গেছে ইইউ’র আরেক দেশ জার্মানিকেও।

এদিকে সুদানের অন্তর্বর্তীকালীন সার্বভৌম কাউন্সিল ও সরকার ভেঙে দিয়ে জরুরি অবস্থা জারি করেছে দেশটির সামরিক বাহিনী। সুদানের প্রধানমন্ত্রীসহ একাধিক মন্ত্রীকে আটকের পর সামরিক প্রধান আব্দেল ফাত্তাহ আল-বুরহান এক ঘোষণায় জরুরি অবস্থা জারি করেন। এমন পরিস্থিতিতে সামরিক শাসনের বিরোধিতায় রাজপথে বিক্ষোভে নেমেছেন দেশটির বহু মানুষ।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সুদানের প্রধানমন্ত্রীকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জাতিসংঘের

সুদানের প্রধানমন্ত্রীকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জাতিসংঘের

সুদানে সরকার ভেঙে জরুরি অবস্থা জারি

সুদানে সরকার ভেঙে জরুরি অবস্থা জারি

মিয়ানমারের জান্তা সরকারকে হুঁশিয়ার করলো মালয়েশিয়া

মিয়ানমারের জান্তা সরকারকে হুঁশিয়ার করলো মালয়েশিয়া

সবচেয়ে বাজে পর্যায়ে মিয়ানমারের দারিদ্র্য: জাতিসংঘ

সবচেয়ে বাজে পর্যায়ে মিয়ানমারের দারিদ্র্য: জাতিসংঘ

সুদানের প্রধানমন্ত্রীকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জাতিসংঘের

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪২

সুদানের প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লা হামদকসহ অন্যান্য বেসামরিক বন্দি নেতাদের অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। এক বিবৃতিতে জাতিসংঘে নিযুক্ত সুদানের বিশেষ দূত ভোলকার পার্থস বলেন, ‘যাদের বেআইনিভাবে আটক বা গৃহবন্দি করা হয়েছে তাদের দ্রুত ছেড়ে দিন’।

বিবৃতিতে ভোলকার আরও উল্লেখ করেন, ‘সুদানে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেই অভ্যুত্থানের খবরে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। পরিস্থিতি উত্তরণে সব দলকে আলোচনায় ফেরা উচিত’।

স্থানীয় সময় সোমবার সকালে অভ্যুত্থান ঘটিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রীকে গৃহবন্দি করে সেনাবাহিনী। একই সঙ্গে অন্যান্য মন্ত্রীদেরও আটক করা হয়।

ঘণ্টাখানেক পরই অন্তর্বর্তীকালীন সার্বভৌম কাউন্সিল ও সরকার ভেঙে দিয়ে জরুরি অবস্থা জারি করেন সামরিক প্রধান আব্দেল ফাত্তাহ আল-বুরহান। অভ্যুত্থান বিরোধিতায় সুদানের রাজপথে বিক্ষোভে নেমেছেন বহু মানুষ।

অভ্যুত্থানের পর দেশটির বেশিরভাগ সরকারি দফতর, মন্ত্রণালয়, গণমাধ্যমের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সেনাবাহিনী। রাজধানী খার্তুমে ইন্টারনেট বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে একাধিক স্থানীয় সংবাদমাধ্যম। এ অবস্থায় দেশটিতে টেলিযোগাযোগ সীমিত করে দেওয়ায় সঠিক তথ্য পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সুদানে অভ্যুত্থানে বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সুদানে অভ্যুত্থানে বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সুদানে সরকার ভেঙে জরুরি অবস্থা জারি

সুদানে সরকার ভেঙে জরুরি অবস্থা জারি

কলম্বিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড মাদক সম্রাট গ্রেফতার

কলম্বিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড মাদক সম্রাট গ্রেফতার

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

টিকা না নিলে চাকরি নেই!

টিকা না নিলে চাকরি নেই!

ব্রিটেনে করোনার বুস্টার ডোজ নিচ্ছেন প্রবীণরা

ব্রিটেনে করোনার বুস্টার ডোজ নিচ্ছেন প্রবীণরা

করোনার ট্যাবলেট নিয়ে এশিয়ায় তোড়জোড়

করোনার ট্যাবলেট নিয়ে এশিয়ায় তোড়জোড়

করোনা চিকিৎসায় আশা জাগাচ্ছে মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট

করোনা চিকিৎসায় আশা জাগাচ্ছে মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট

ভ্যাকসিন রফতানির কথা বিবেচনা করছে ভারত, লক্ষ্য আফ্রিকা

ভ্যাকসিন রফতানি শুরু করার কথা ভাবছে ভারত

চীনের টিকা আবারও প্রত্যাখান করলো উত্তর কোরিয়া

চীনের টিকা আবারও প্রত্যাখান করলো উত্তর কোরিয়া

জাপানে মডার্নার টিকায় ফের কালো কণা শনাক্ত

জাপানে মডার্নার টিকায় ফের কালো কণা শনাক্ত

ডেল্টার বিরুদ্ধে ফাইজার-অক্সফোর্ড কার্যকর, দিতে হবে দুই ডোজ

ডেল্টার বিরুদ্ধে ফাইজার-অক্সফোর্ড কার্যকর, দিতে হবে দুই ডোজ

মহামারিতে ওষুধের ওভারডোজে ৯৩ হাজার মার্কিনির মৃত্যু

মহামারিতে ওষুধের ওভারডোজে ৯৩ হাজার মার্কিনির মৃত্যু

সর্বশেষ

আসছে অন-ডিমান্ড টিউটরিং প্ল্যাটফর্ম ‘পড়াই’

নতুন স্টার্টআপআসছে অন-ডিমান্ড টিউটরিং প্ল্যাটফর্ম ‘পড়াই’

আগের শর্তেই পরীমণিসহ তিন জনের জামিন

আগের শর্তেই পরীমণিসহ তিন জনের জামিন

ছায়াপথের বাইরে প্রথম কোনও গ্রহের লক্ষণ দেখতে পেলেন বিজ্ঞানীরা

ছায়াপথের বাইরে প্রথম কোনও গ্রহের লক্ষণ দেখতে পেলেন বিজ্ঞানীরা

সিনহা হত্যা মামলা: ষষ্ঠ দফায় দ্বিতীয় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু 

সিনহা হত্যা মামলা: ষষ্ঠ দফায় দ্বিতীয় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু 

চিকিৎসা গ্রহণ শেষে দেশে ফিরলেন রাষ্ট্রপতি

চিকিৎসা গ্রহণ শেষে দেশে ফিরলেন রাষ্ট্রপতি

© 2021 Bangla Tribune