X
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২
২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

খেলাপির সহযোগী প্রতিষ্ঠানে চলমান ঋণ বন্ধ না করার দাবি বিজিএমইএর

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৬আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৬

কোনও ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা গ্রুপের যে কোনও একটি প্রতিষ্ঠানের ঋণ খেলাপির কারণে সহযোগী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের চলমান ঋণ বন্ধ না করে ওই খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের সুযোগ দিয়ে ঋণ সুবিধা বহাল রাখার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়েছে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। 

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিজিএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস এম মান্নান (কচি) এর নেতৃত্বে বিজিএমইএর একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এই সুযোগ চেয়েছেন।

বিজিএমইএ প্রতিনিধি দলে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, ১ম সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মো. শহিদউল্লাহ আজিম, সহ-সভাপতি (অর্থ) খন্দকার রফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মো. নাসির উদ্দিন। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান, আবু ফরাহ মো. নাছের উপস্থিত ছিলেন। 

বিজিএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বলেন, পোশাক শিল্প কোভিড-১৯ সৃষ্ট নজিরবিহীন সংকট এবং পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ার চ্যালেঞ্জসমূহ মোকাবিলা করে ঘুরে দাঁড়ানোর সংগ্রামে লিপ্ত রয়েছে। 

আলোচনাকালে বিজিএমইএ প্রতিনিধি দল বলেন, করোনা মহামারিতে পোশাক শিল্প একটি ক্রান্তিলগ্ন অতিক্রম করছে। এ অবস্থায় পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তারা অর্থনীতির চাকা সচল রাখা এবং প্রতিকূল পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। 

উদ্যোক্তারা মনে করেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে পোশাক শিল্প সংক্রান্ত ইস্যুগুলো সহজীকরণের উদ্যোগ নেওয়া হলে তা শিল্পকে ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করবে।

বিজিএমইএ অন্যান্য দাবি গুলো হলো: সব প্রণোদনার জন্য ৩০ শতাংশ দেশীয় মূল্য সংযোজনের নিয়ম রেখে ২০ সেপ্টেম্বরের জারিকৃত সার্কুলার সংশোধন করতে হবে। কারণ, এ শর্তটি আরোপ করার ফলে ওভেন শিল্প বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং নীট শিল্পও কিছু ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। এ ছাড়া বর্তমান সংকটময় সময়ে তৈরি পোশাক রফতানি শিল্পকে টিকিয়ে রাখার নিমিত্তে শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য প্রদত্ত ঋণ পরিশোধের কিস্তির সংখ্যা ১৮টি’র পরিবর্তে ৩৬টি করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। করোনাভাইরাসের অতিমারি সময়ে রফতানিমুখী তৈরি পোশাকখাতকে টিকিয়ে রাখতে ইডিএফ ফান্ডের সুদের হার ২ শতাংশ থেকে হ্রাস করে ১.৫ শতাংশ করতে হবে।

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্পের যে সকল উদ্যোক্তা ব্যাংক ঋণের কিস্তি সময়মতো পরিশোধ করতে পারেননি তাদের জন্য আরোপিত-অনারোপিত সুদ ও কষ্ট অব ফান্ডসহ সকল প্রকার চার্জ মওকুফ করে অবশিষ্ট ঋণকে আগামী বছরের জানুয়ারির হিসাবকৃত স্থিতির ওপর ২ শতাংশ হারে ডাউন পেমেন্ট গ্রহণ করে দুই বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ দশ বছর মেয়াদে

ঋণ হিসাব পুনঃতফসিলীকরণের সুযোগ প্রদান। এবং এককালীন এক্সিট নিতে আগ্রহী উদ্যোক্তাদের এক বছর মেয়াদে ঋণ হিসাব অবসায়নের নিমিত্তে সুযোগ দেওয়া।

/জিএম/এনএইচ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে চুরির সময় আটক ৩
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে চুরির সময় আটক ৩
বাড়ির পাশে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত
বাড়ির পাশে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত
বঙ্গবন্ধুর ঘাতকরা যে পরিকল্পনা করেছিল
বঙ্গবন্ধুর ঘাতকরা যে পরিকল্পনা করেছিল
ডুবন্ত ডাকঘরকে জাগ্রত করতে কাজ করছি: মন্ত্রী
ডুবন্ত ডাকঘরকে জাগ্রত করতে কাজ করছি: মন্ত্রী
এ বিভাগের সর্বশেষ
শুক্রবার কোথায় কখন লোডশেডিং
শুক্রবার কোথায় কখন লোডশেডিং
আগস্টের ১০ দিনে রেমিট্যান্স এলো ৮১৩ মিলিয়ন ডলার
আগস্টের ১০ দিনে রেমিট্যান্স এলো ৮১৩ মিলিয়ন ডলার
বাংলাদেশে ৩ লাখ টন গম রফতানি করবে রাশিয়া
বাংলাদেশে ৩ লাখ টন গম রফতানি করবে রাশিয়া
রেকর্ড পরিমাণ বাড়লো খেলাপি ঋণ
রেকর্ড পরিমাণ বাড়লো খেলাপি ঋণ
সহজ হচ্ছে সৌদি আরবের সঙ্গে বাণিজ্য
সহজ হচ্ছে সৌদি আরবের সঙ্গে বাণিজ্য