X
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২
২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

খেলাপি ঋণ ৪ বার পুনঃতফসিলের সুযোগ

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:০৩আপডেট : ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৭:০৩

যেসব গ্রাহক ঋণ পরিশোধ করেন না, তাদের জন্য ৪ বার ঋণ পুনঃতফসিল বা ঋণ পুনর্গঠনের সুযোগ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই খেলাপিরা ঋণ পরিশোধে ২১ বছর সময় পাবেন।

রবিবার (৪ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত একটি মাস্টার সার্কুলার জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সার্কুলারে বলা হয়, ব্যাংকের পর্ষদের অনুমতি নিয়ে ব্যাংক তার গ্রাহককে ঋণ পুনঃতফসিল বা ঋণ পুনর্গঠন করবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, এ নীতিমালার আওতায় ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন সংক্রান্ত যেকোনও আবেদন বিধি-বিধান মেনে আর্থিক প্রতিষ্ঠান-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা পর্ষদ নিষ্পত্তি করতে হবে। এক্ষেত্রে, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন বা অনাপত্তির কোনও আবশ্যকতা নেই।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, চতুর্থ দফায় পুনঃতফসিলিকরণের পরও ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ গ্রহীতা গৃহীত ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলে তিনি স্বভাবজাত ঋণ খেলাপি হিসেবে গণ্য হবেন। এ বিবেচনায় কোনও ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব সম্মিলিতভাবে ৪ বারের বেশি পুনঃতফসিলবা পুনর্গঠন করা যাবে না। সর্বমোট ৪ বার পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠন করার পরও ঋণ আদায় না হলে পাওনা আদায়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এবং যথাযথ সংস্থান সংরক্ষণ করবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক উল্লেখ করেছে, কোভিড-১৯ এর দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব, বহির্বিশ্বে যুদ্ধাবস্থাসহ নানাবিধ নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত কারণে ক্ষুদ্র, বৃহৎ, মাঝারি ঋণগ্রহীতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নগদ প্রবাহ বিরূপভাবে প্রভাবিত হয়েছে। এ কারণে কোনও কোনও ক্ষেত্রে বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী, ঋণ পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠন করা সম্ভব হচ্ছে না। এরূপ পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকের ঋণ পরিশোধ সহজ করার মাধ্যমে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর শ্রেণিকৃত ঋণের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার স্বার্থে বিদ্যমান নীতিমালায় বর্ণিত ডাউনপেমেন্ট ও মেয়াদ যৌক্তিক করে এ নীতিমালা জারি করা হলো।

ব্যাংক কখন পুনঃতফসিল করবে

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, কেবলমাত্র বিরূপমানে (নিম্নমান, সন্দেহজনক, মন্দ বা ক্ষতি) শ্রেণিকৃত ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল করা যাবে এবং স্ট্যান্ডার্ড মানে রয়েছে— এরূপ ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনর্গঠন করা যাবে। পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠনের আবেদন বিবেচনার ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে— ক্ষুদ্র/মাঝারি/বৃহৎ সব শ্রেণির গ্রাহকের জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। এ নীতিমালার আওতায় ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে গ্রাহকের ব্যবসায়িক কার্যক্রম হতে উৎসারিত নগদ প্রবাহ (বিজনেস ক্যাশ ফ্লো), আর্থিক বিবরণী, ঋণ বিতরণকালীন নিয়মাচার পরিপালন, গ্রাহক প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব, জামানত, ঋণের সদ্ব্যবহার যাচাই ইত্যাদি নিশ্চিত করতে হবে।  এছাড়া ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল বা পুনর্গঠন সংক্রান্ত বিষয়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদিত নীতিমালা থাকতে হবে।

নীতিমালা এ সার্কুলারে বর্ণিত নিয়মাবলীর চেয়ে সহজ হবে না। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগেুলোর ক্রেডিট কমিটি লিখিত প্রতিবেদনের মাধ্যমে ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করবে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তারল্য এবং অন্যান্য গ্রাহকের চাহিদার ওপর ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের প্রভাবও ক্রেডিট কমিটি তাদের প্রতিবেদনে বিস্তারিত লিপিবদ্ধ করবে। ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত অনুমোদনের ক্ষেত্রে পর্ষদকে ঋণের সদ্ব্যবহার সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে। কোনও গ্রাহক  প্রয়োজনীয় ডাউনপেমেন্টের অর্থ আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবে জমা হওয়ার তিন মাসের মধ্যে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনঃতফসিল করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। ঋণ/লিজ/বিনিয়োগের কিস্তি বা এর অংশ হিসেবে আদায়কৃত অর্থ ডাউনপেমেন্ট হিসেবে প্রদর্শন করা যাবে না। ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকালে স্বল্পমেয়াদি/এক বছরের বা তার কম মেয়াদের জন্য প্রদত্ত ঋণকে দীর্ঘমেয়াদি ঋণে রূপান্তরের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে রূপান্তরের কারণ ও যৌক্তিকতা প্রস্তাবে সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে।

ন্যূনতম ডাউনপেমেন্ট ও সর্বোচ্চ সময়সীমা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের মেয়াদ হবে গ্রাহককে প্রদত্ত মঞ্জুরিপত্রের তারিখ হতে নিম্নরূপ: (১) প্রথম দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৬ বছর বা ৭২ মাস। (২) দ্বিতীয় দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫ বছর বা ৬০ মাস। (৩) তৃতীয় দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫ বছর বা ৬০ মাস।

অবশ্য শ্রেণিকৃত ঋণ সর্বোচ্চ তিন বার পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনযোগ্য হবে। তবে, গ্রাহকের নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত কারণে শিল্প/ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হলে সেক্ষেত্রে খেলাপি ঋণ আদায়ের স্বার্থে বিশেষ বিবেচনায় চতুর্থ বার পুনঃতফসিলের দফা ন্যূনতম ডাউনপেমেন্ট (পুনঃতফসিলের ক্ষেত্রে) প্রথম দফা মোট বকেয়ার ৪ শতাংশ অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির অন্যূন ৭ শতাংশ, এই দুইয়ের মধ্যে যা কম। দ্বিতীয় দফা মোট বকেয়ার ৫ শতাংশ অথবা, মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির অন্যূন ৮ শতাংশ, এই দুইয়ের মধ্যে যা কম। তৃতীয় দফা মোট বকেয়ার ৬ শতাংশ অথবা, মেয়াদোত্তীর্ণ কিস্তির অন্যূন ৯ শতাংশ এই দুইয়ের মধ্যে যা কম। চতুর্থ দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে তৃতীয় দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনের অনুরূপ ডাউনপেমেন্ট ও মেয়াদ প্রযোজ্য হবে।

অন্যকোনও আর্থিক প্রতিষ্ঠান/ব্যাংক কর্তৃক পুনঃতফসিলকৃত ঋণ অধিগ্রহণ (ঞধশবড়াবৎ)-এর মাধ্যমে কোনও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে স্থানান্তরিত হয়েছে— এরূপ ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনে আগের  প্রতিষ্ঠানের পুনর্গঠন/পুনঃতফসিলকরণের ক্রম প্রযোজ্য হবে। এ লক্ষ্যে, পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন প্রস্তাব মূল্যায়নকালে আর্থিক প্রতিষ্ঠান গ্রাহকের কাছ থেকে ঘোষণাপত্র সংগ্রহ করবে এবং তা যাচাই বাছাইয়ের মাধ্যমে নিশ্চিত হবে।

পুনঃতফসিল ও পুনর্গঠনের শর্তাবলি

(ক) জাল/জালিয়াতি বা অনিয়মের মাধ্যমে বিতরণকৃত ঋণের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে না।

(খ) ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন প্রস্তাব পর্যালোচনার নিমিত্তে পরিচালনা পর্ষদ বরাবর উপস্থাপন করে এর কপি সংশ্লিষ্ট নথিতে সংরক্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। তবে প্রতিষ্ঠান প্রয়োজনে অতিরিক্ত তথ্য যাচাই বাছাই করতে পারবে।

(গ) বিভিন্ন প্রকৃতির ঋণকে একত্রিত করে একক ঋণ হিসেবে পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করা যাবে না। (ঘ) ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকালে সর্বোচ্চ ৬ মাস গ্রেস পিরিয়ড প্রদান করা যাবে।

(ঙ) পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকৃত ঋণের শর্তানুযায়ী ন্যূনতম ৬টি মাসিক অথবা ২টি ত্রৈমাসিক কিস্তির সমপরিমাণ অর্থ আদায় না হলে পুনর্বার ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করা যাবে না।

(চ) পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকৃত ঋণ সমান মাসিক/ত্রৈমাসিক কিস্তিতে পরিশোধযোগ্য হবে। (ছ) এ নীতিমালা জারির পূর্বে কোনও ঋণ ৩  বা ততোধিকবার পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন হয়ে থাকলে এ নীতিমালা জারির পর সংশ্লিষ্ট ঋণ/লিজ হিসাবকে বিশেষ বিবেচনায় আরও একবার পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করা যাবে, যা ৪র্থ দফা পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন বলে বিবেচিত হবে।

(জ) ৪র্থ বার পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করার পরও ঋণ আদায় না হলে মন্দমানে শ্রেণিকৃত করে ঋণ আদায়ে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

(ঝ) ঋণ পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকালে গ্রাহকের নিকট প্রাপ্য অর্থের পরিমাণ (আরোপিত/অনারোপিত সুদ/মুনাফা সমেত) যথাযথ হিসাবায়ন এবং নথিতে সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে হবে। পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকৃত অর্থের পরিমাণ যাতে আসল ও তহবিল ব্যয় অপেক্ষা কম না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

(ঞ) পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকৃত ঋণের অনাদায়ী কিস্তি ৬টি মাসিক কিস্তি অথবা ২টি ত্রৈমাসিক কিস্তির সমান হলে ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাবটি মন্দ/ক্ষতি মানে শ্রেণিকরণপূর্বক সিএল বিবরণী ও ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো (সিআইবি)-তে রিপোর্ট করতে হবে।

(ট) বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালা লঙ্ঘন করে কোনও গ্রাহকের ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করা হলে সংশ্লিষ্ট গ্রাহকের ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ এই সার্কুলারের আওতায় পরবর্তী দফায় পুনঃতফসিল/পুনর্গঠন করা যাবে না।

সুদ ও সংস্থান হিসাবায়ন

পুনঃতফসিলকৃত ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাবের সুদ প্রকৃত আদায় ব্যতীত আয় খাতে স্থানান্তর করা যাবে না। পুনঃতফসিল পূর্ববর্তী স্থগিত সুদের ক্ষেত্রেও একই বিধান প্রযোজ্য হবে। এছাড়া পুনঃতফসিলকৃত ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাবের বিপরীতে প্রয়োজনীয় সংস্থান সংরক্ষিত না হয়ে থাকলে পুনঃতফসিল পূর্ববর্তী শ্রেণিমানের ওপর ভিত্তি করে তা সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। একইভাবে কোনও ঋণ/লিজ/বিনিয়োগ হিসাব পুনঃতফসিলের সঙ্গে সঙ্গে উক্ত ঋণের বিপরীতে পুনঃতফসিল পূর্ববর্তী সময়ে রক্ষিত সংস্থান/সংস্থানের অংশ বিশেষ আয়খাতে স্থানান্তর বা অন্যান্য ঋণের বিপরীতে রক্ষিত সংস্থানের সঙ্গে সমন্বয় করা যাবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শনকালে এ নীতিমালা অনুযায়ী সকল শর্ত পরিপালিত হয়েছে কিনা, তা পরীক্ষার পর পরিদর্শন দল পুনঃতফসিল/পুনর্গঠনকৃত ঋণের শ্রেণিমানের বিষয়ে যে সিদ্ধান্তে উপনীত হবে তা চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

/জিএম/এপিএইচ/
বিএএমএ’র সভাপতি কৃষিবিদ কে এস এম মোস্তাফিজুর রহমান
বিএএমএ’র সভাপতি কৃষিবিদ কে এস এম মোস্তাফিজুর রহমান
কোচের সঙ্গে দ্বন্দ্ব, নেতৃত্ব হারাতে পারেন রোনালদো
কোচের সঙ্গে দ্বন্দ্ব, নেতৃত্ব হারাতে পারেন রোনালদো
কৃষকদের জন্য বিশেষ সেল খুলেছে জ্বালানি বিভাগ
সেচে চাহিদা ১৪ লাখ টন ডিজেলকৃষকদের জন্য বিশেষ সেল খুলেছে জ্বালানি বিভাগ
মতিঝিল তাদের কেন এত পছন্দ, প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর
মতিঝিল তাদের কেন এত পছন্দ, প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর
সর্বাধিক পঠিত
‘১৮ বছর হলে মেয়েকে এমন একটা সিঙ্গেল ট্রিপে পাঠাবো’
৫০ পর্বে মামানামা- আউট অব দ্য বক্স‘১৮ বছর হলে মেয়েকে এমন একটা সিঙ্গেল ট্রিপে পাঠাবো’
ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ: নেতৃত্ব বাছাইয়ে ‘শর্ট লিস্ট’ ও ‘গোয়েন্দা জরিপ’
ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ: নেতৃত্ব বাছাইয়ে ‘শর্ট লিস্ট’ ও ‘গোয়েন্দা জরিপ’
‘অটোরিকশাকে ট্রেনের টেনে নেওয়া দেখে ভয়ে চিল্লান দিছিলাম’
‘অটোরিকশাকে ট্রেনের টেনে নেওয়া দেখে ভয়ে চিল্লান দিছিলাম’
তারল্য সংক‌ট কাটাতে ইসলামী ব্যাংকগুলো বিশেষ সুবিধা পাবে
তারল্য সংক‌ট কাটাতে ইসলামী ব্যাংকগুলো বিশেষ সুবিধা পাবে
আওয়ামী লীগ নেত্রীর বাসায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার
আওয়ামী লীগ নেত্রীর বাসায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার