‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার করে প্রতারণা

Send
গোলাম মওলা
প্রকাশিত : ১৯:৩৭, এপ্রিল ০৩, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:১২, এপ্রিল ০৩, ২০১৬


বাংলাদেশ ব্যাংকসমবায় সমিতির নামের সঙ্গে  ‘ব্যাংক’ শব্দটি ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও দেদারছে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে অর্ধডজন প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান শুধু ব্যাংকিং করছে না, মানি লন্ডারিংও করছে। এ নিয়ে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। রবিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় তিনি  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার বন্ধের বিষয়টি জোরালোভাবে উপস্থাপন করেন। সভায় ফজলে কবির ছাড়াও আর্থিকখাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরাও অসন্তোষ প্রকাশ করেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।
বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ব্যাংক শব্দ ব্যবহার করে দ্য ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ সোসাইটি (ব্যাংক) লিমিটেড, দ্য ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড, আদর্শ সমবায় ব্যাংক লিমিটেড, স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড, মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড ও আজিজ কো-অপারেটিভ কমার্স অ্যান্ড ফিন্যান্স ক্রেডিট সোসাইটি লিমিটেড (সাবেক এসিসিএফ ব্যাংক লিমিটেড) অবৈধভাবে ব্যাংকিং ব্যবসা পরিচালনা করছে। যদিও এর আগে বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)কে জানিয়েছে সমবায় অধিদফতর।
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক শুভঙ্কর সাহা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কয়েকটি সমবায় সমিতি  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার করে একদিকে গ্রাহকদের ঠকাচ্ছে, অন্যদিকে আইনও লঙ্ঘন করছে। এ কারণে কোনও সমবায় সমিতি যাতে  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার না করে সে জন্য বৈঠকে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, এখনও যেসব প্রতিষ্ঠান আইন লঙ্ঘন করে  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার করে লেনদেন করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে সমবায় অধিদফতরকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সভায় বাংলাদেশ ব্যাংক ছাড়াও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ), রেজিস্টার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস (আরজেসি), সমবায় অধিদফতর এবং মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটির (এমআরএ) প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

এর আগে ২০১৫ সালের ২৭ মে বাংলাদেশ ব্যাংকের সমন্বয় সভায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ি যেসব সমবায় সমিতির নামের শেষে  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে, তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের আওতায় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ছিল।

সমবায় অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত দেশে দুই লাখ সমবায় সমিতির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিক  সমবায় সমিতির সংখ্যা ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫১২, কেন্দ্রীয় সমিতির সংখ্যা ১ হাজার ১২৮ ও জাতীয় সমিতি ২২টি। এসব সমিতির সদস্য সংখ্যা ১ কোটি ২ লাখ ৯৭ হাজার ৮১।

আইনে বলা হয়েছে, সমবায় ভূমি উন্নয়ন ব্যাংক, কেন্দ্রীয় সমবায় ভূমি উন্নয়ন ব্যাংক ও বাংলাদেশ সমবায় ব্যাংক ছাড়া কোনও প্রাথমিক সমবায় সমিতি, কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি বা জাতীয় সমবায় সমিতি তার নামের সঙ্গে  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার করতে পারবে না। তবে কোনও সমবায় সমিতি ব্যাংক শব্দযুক্ত নামে নিবন্ধিত হয়ে থাকলে তিন মাসের মধ্যে নাম সংশোধন করতে হবে। এ বিধান লঙ্ঘন করলে অনধিক সাত বছরের কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। প্রস্তাবিত আইনের ১৯ দফায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সমবায় ব্যাংক ছাড়া কোনও সমবায় সমিতি তার সদস্য ছাড়া অন্য কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আমানত নিতে বা ঋণ দিতে পারবে না।

অভিযোগ রয়েছে, সমবায় সমিতির নিবন্ধন নিয়ে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান অবৈধ ব্যাংকিং ও ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। আইন লঙ্ঘন করে সমিতিগুলো অবৈধ ব্যাংকিং ও ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করে এলেও তাদের বিরুদ্ধে আইনের প্রয়োগ না থাকায় প্রতারণার শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

বৈঠক সূত্র জানায়, সমন্বয় সভায়  ‘ব্যাংক’ শব্দ ব্যবহার ছাড়া বেশ কয়েকটি বিষয়ে আলোচনা হয়। এর মধ্যে নন-ব্যাংক  বা আর্থিক  প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখতে বীমা কোম্পানির বিনিয়োগ বাড়ানোর বিষয়টি বৈঠকে তুলে ধরা হয়।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুদ্দিন সরকার বলেন, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বীমা কোম্পানির বিনিয়োগে সীমা নির্ধারণ করে দেওয়ায় যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তা যৌক্তিক নয়। তাই এ ব্যাপারে আমাদের বক্তব্য তুলে ধরেছি। একই সঙ্গে  বন্ড মার্কেট সচল করার প্রস্তাব এসেছে। আমরা বলেছি এজন্য ট্যাক্স কমানো দরকার। আর্থিকখাতে সাইবার নিরাপত্তা জোরদারে নির্দেশনার বিষয়ে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে গভর্নর ফজলে কবির আমাদের জোর দিতে বলেছেন। আমরা জানিয়েছি যে, এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

এপিএইচ/

লাইভ

টপ