X

সেকশনস

কিশোরগঞ্জের আকাশে লাল-সবুজের পতাকা ওঠে ১৭ ডিসেম্বর

আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৬:১৩

অযত্নে মুছে গেছে স্মৃতিস্তম্ভে লেখা শহীদদের নাম একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর সারাদেশের মানুষ বিজয়ের আনন্দ উপভোগ করলেও কিশোরগঞ্জবাসী সেদিনের আনন্দে শরিক হতে পারেনি।  কারণ, কিশোরগঞ্জের  বীর মুক্তিযোদ্ধারা তখনও পাকিস্তানি-হানাদারদের শেকল ভাঙতে যুদ্ধ করেছে।
শহরের চারদিক থেকে আক্রমণ করে অবশেষে ১৭ ডিসেম্বর সকাল ৮টার দিকে বীর মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি হানাদারদের হটিয়ে মুক্ত করে কিশোরগঞ্জকে।

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, কিশোরগঞ্জে ১৬ ডিসেম্বর গভীর রাতেও পাকিস্তানি বাহিনীর দোসরদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রচণ্ড লড়াই হয়েছে এবং রক্ত ঝরেছে।

প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের জন্মভূমি এই কিশোরগঞ্জ, বীর প্রতীক সেতারা বেগম, বীর প্রতীক কর্নেল হায়দার, বীর প্রতীক নূরুল ইসলাম খান পাঠানের বাড়ি এই কিশোরগঞ্জে।  এ জেলার মানুষেরা এই  বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে গর্বিত।

শহর থেকে চার কিলোমিটার দক্ষিণে সৈয়দ নজরুল ইসলামের বাড়ি যশোদল ইউনিয়নে। আর এ জন্যই হয়তো একাত্তরে ঘাতকের দল ওই এলাকার মানুষদের বিশেষভাবে টার্গেট করেছিল। ১৩ অক্টোবর স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে (তাদের রক্ষা করবে বলে) আশপাশের গ্রাম থেকে প্রায় ছয় শতাধিক মানুষকে  আলোচনার কথা বলে বড়ইতলায় এনে জড়ো করে। এরপর গুলি চালিয়ে ও বেয়নেট চার্জ করে একসঙ্গে ৩৬৫ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করা হয়। সেখান থেকে বেঁচে যাওয়া সেদিনের কিশোর সিরাজুল ইসলাম মানিক সেই ঘটনায় তার বাবাসহ অনেক আত্মীয়-স্বজনকে হারানোর মর্মন্তুদ বর্ণনা দিয়েছেন।

ওই দিন বেয়নেটের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েও ভাগ্যের জোরে বেঁচে গিয়েছিলেন চিকনিরচর গ্রামের শরাফত উদ্দিন ও তার বড় ভাই মোমতাজ উদ্দিন।  আজও তারা সেই ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছেন। যশোদল ইউনিয়নের নয়টি গ্রামের মানুষ এই হত্যাযজ্ঞের শিকার হলেও তারা আজও পাননি শহীদের মর্যাদা। স্বজনহারাদের দেওয়া হয়নি কোনও সান্ত্বনা।

শহীদদের স্মরণে এলাকায় নির্মিত স্মৃতিসৌধটি অযত্ন- অবহেলায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব শহীদের নাম দুটি স্তম্ভে লেখা হলেও তা মুছে গেছে অনেক আগেই।

মুছে গেছে স্মৃতি স্তম্ভে লেখা শহীদদের নাম শহীদদের স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে নিজের জমি দিয়েছেন আরেক স্বজনহারা আব্দুর সাত্তার। সেই জমির ওপরেই দাঁড়িয়ে আছে বর্তমান স্মৃতি সৌধটি।

আব্দুস সাত্তার বলেন, ‘বর্তমান সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছে। কিন্তু ইতিহাসের নৃশংসতম এই গণহত্যার পেছনে যেসব স্থানীয় রাজাকারের ইন্ধন ছিল, তাদের বিচারে কোনও উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। আমি জোরালোভাবে সরকারের কাছে আবেদন জানাই, যেন এ গণহত্যায় জড়িতদের বিচার করা হয়।’

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাসউদ জানান, সেদিন যাদের নিমর্মভাবে হত্যা করা হয়েছিল, তাদের পরিপূর্ণ তালিকা তৈরির জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তালিকা তৈরির পর ইউনিয়ন পরিষদ অথবা জেলা পরিষদের মাধ্যমে সেখানে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভটির সংস্কার এবং আধুনিকায়নের প্রয়াস চালাবো।একই সঙ্গে মহান মুক্তিযুদ্ধের যে স্মৃতি সেটিকে সমুন্বত রাখার চেষ্টা করবো।

একাত্তরের ২৫ মার্চের ক্র্যাকডাউনের পর  ১৯ এপ্রিল (শুক্রবার) ট্রেনে করে হানাদার বাহিনী প্রথম কিশোরগঞ্জে প্রবেশ করে। ৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী কিশোরগঞ্জ ছেড়ে চলে গেলেও তাদের দোসররা কিশোরগঞ্জে শক্ত অবস্থান ধরে রাখে। ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় পাকিস্তানি আর্মিদের আত্মসমর্পণের খবরে উজ্জীবিত মুক্তিযোদ্ধারা কিশোরগঞ্জকে মুক্ত করতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করে। ওইদিন রাতে মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন দল কিশোরগঞ্জ শহরের চারপাশে সশস্ত্র অবস্থান নেয়।

পরদিন ১৭ ডিসেম্বর সকাল নয়টার দিকে শহরের পূর্ব দিক দিয়ে কমান্ডার কবীর উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে প্রথমে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল কিশোরগঞ্জ শহরে প্রবেশ করে। এর পরপরই অন্যান্য প্রবেশ পথ দিয়েও মুক্তিযোদ্ধারা দলে দলে শহরে প্রবেশ করতে থাকে। মুক্তিযোদ্ধাদের অভিযানের খবরে মুক্তিকামী জনতাও উল্লাস করে স্বাধীনতার স্লোগান দিয়ে রাস্তায় নেমে আসে। সামান্য প্রতিরোধের পরই পাকিস্তানি বাহিনীর এদেশীয় দোসররা আত্মসমর্পণ করে। শহরের শহীদি মসজিদ প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে অস্ত্র সমর্পণ করে হানাদার বাহিনীর দোসররা। এভাবেই বিজয় দিবসের একদিন পর ১৭ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জের আকাশে ওঠে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা।

মুক্তিযোদ্ধা কবীর উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘এখনও সেদিনের ঘটনা আমার চোখে ভেসে ওঠে। সকাল থেকে জিপে চড়ে যখন শহীদি মসজিদের সামনে আসি, তখনও অনেক পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকার অস্ত্র নিয়ে ঘোরাঘুরি করছিল । তারা আত্মসমর্পণ করার পর আমরা খুব সচেতনভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের বুঝাচ্ছিলাম, আর কোনও রক্ত যেন না ঝড়ে। ইসলামিয়া বোর্ডিংয়ের একটি ঘরে সব অস্ত্র রাখা হয়েছিল। সবাই আনন্দে আপ্লুত ছিলাম। আমরা আনন্দে সবাই সেদিন কেঁদেছি। ছাত্রলীগ শহরজুড়ে মিছিল করলো- জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে। সবার আতঙ্ক কেটে গেল। জিপে চড়ে  সারা শহরে ঘুরলাম। কিশোরগঞ্জ শত্রুমুক্ত হলো।’

দেশ স্বাধীন হবার পর এই বড়ইতলার নামকরণ করা হয় শহীদ নগর। স্বাধীনতার পর শহীদদের স্মরণে এখানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম উদ্যোগে একটি স্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণ করা হয়। সিদ্বেশরী, মনিপুরী ঘাট, শোলমারা পুল, শোলাকিয়া, বত্রিশ, বড়পুল, ভাস্করখিলাসহ একাধিক জায়গায় অগণিত নর-নারীকে হত্যা করেছিল হানাদাররা।

 

 

 

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

বিভিন্ন স্থানে সড়কে নিহত ১৩

বিভিন্ন স্থানে সড়কে নিহত ১৩

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!

গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ

গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ

মাতারবাড়িতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩

মাতারবাড়িতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় ছাত্র অধিকার পরিষদের নিন্দা

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় ছাত্র অধিকার পরিষদের নিন্দা

মোটরসাইকেলে অটোরিকশার ধাক্কা, পুলিশ কনস্টেবল নিহত

মোটরসাইকেলে অটোরিকশার ধাক্কা, পুলিশ কনস্টেবল নিহত

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

অনশনরত খুবির দুই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বললেন কে‌সি‌সি মেয়র

অনশনরত খুবির দুই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বললেন কে‌সি‌সি মেয়র

অবস্থান ধর্মঘটে কাদের মির্জা  

অবস্থান ধর্মঘটে কাদের মির্জা  

শিশুকে হত্যার ৪০ দিন পর ফোনে লাশের সন্ধান দিলো অপহরণকারী

শিশুকে হত্যার ৪০ দিন পর ফোনে লাশের সন্ধান দিলো অপহরণকারী

ওবায়দুল কাদেরকে ‘রাজাকার পরিবারের সদস্য’ বললেন এমপি একরামুল

ওবায়দুল কাদেরকে ‘রাজাকার পরিবারের সদস্য’ বললেন এমপি একরামুল

দাঁড়িয়ে থাকা পিকআপ ভ্যানে ট্রাকের ধাক্কা: নিহত ২

দাঁড়িয়ে থাকা পিকআপ ভ্যানে ট্রাকের ধাক্কা: নিহত ২

সর্বশেষ

পাকিস্তানকে ২ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন দিতে চায় চীনের ক্যানসিনো

পাকিস্তানকে ২ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন দিতে চায় চীনের ক্যানসিনো

রঙ করলে কি চুলের ক্ষতি হয়?

রঙ করলে কি চুলের ক্ষতি হয়?

শাজাহান খানের নেতৃত্বে নতুন শ্রমিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ

শাজাহান খানের নেতৃত্বে নতুন শ্রমিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ

বিভিন্ন স্থানে সড়কে নিহত ১৩

বিভিন্ন স্থানে সড়কে নিহত ১৩

চালকের দক্ষতায় বাঁচলো পাঁচ শতাধিক যাত্রী

চালকের দক্ষতায় বাঁচলো পাঁচ শতাধিক যাত্রী

খুবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশে জাবি ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিবাদ

খুবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশে জাবি ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিবাদ

লন্ডনে ‘ব্রিটিশ হেলথ এলায়েন্স’র যাত্রা শুরু

লন্ডনে ‘ব্রিটিশ হেলথ এলায়েন্স’র যাত্রা শুরু

অনলাইনে ভোট মিললেই জয় পাবে বাংলাদেশের ‘মাদারস পার্লামেন্ট’

অনলাইনে ভোট মিললেই জয় পাবে বাংলাদেশের ‘মাদারস পার্লামেন্ট’

চা শ্রমিকদের মাঝে শাবির স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণ

চা শ্রমিকদের মাঝে শাবির স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণ

রূপগঞ্জে বৃদ্ধাকে গলাকেটে ও ছুরি মেরে হত্যা 

রূপগঞ্জে বৃদ্ধাকে গলাকেটে ও ছুরি মেরে হত্যা 

প্রাথমিকে পেনশন নিষ্পত্তিতে দেরি হলে জবাবদিহি

প্রাথমিকে পেনশন নিষ্পত্তিতে দেরি হলে জবাবদিহি

সাকিব-মাহমুদউল্লাহদের পরামর্শেই মিরাজের এমন সাফল্য

সাকিব-মাহমুদউল্লাহদের পরামর্শেই মিরাজের এমন সাফল্য

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!

গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ

গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ

মাতারবাড়িতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩

মাতারবাড়িতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩

মোটরসাইকেলে অটোরিকশার ধাক্কা, পুলিশ কনস্টেবল নিহত

মোটরসাইকেলে অটোরিকশার ধাক্কা, পুলিশ কনস্টেবল নিহত

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

অনশনরত খুবির দুই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বললেন কে‌সি‌সি মেয়র

অনশনরত খুবির দুই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বললেন কে‌সি‌সি মেয়র

অবস্থান ধর্মঘটে কাদের মির্জা  

অবস্থান ধর্মঘটে কাদের মির্জা  

শিশুকে হত্যার ৪০ দিন পর ফোনে লাশের সন্ধান দিলো অপহরণকারী

শিশুকে হত্যার ৪০ দিন পর ফোনে লাশের সন্ধান দিলো অপহরণকারী

ওবায়দুল কাদেরকে ‘রাজাকার পরিবারের সদস্য’ বললেন এমপি একরামুল

ওবায়দুল কাদেরকে ‘রাজাকার পরিবারের সদস্য’ বললেন এমপি একরামুল

দাঁড়িয়ে থাকা পিকআপ ভ্যানে ট্রাকের ধাক্কা: নিহত ২

দাঁড়িয়ে থাকা পিকআপ ভ্যানে ট্রাকের ধাক্কা: নিহত ২


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.