সেকশনস

আবারও ঊর্ধ্বমুখী করোনা?

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬:০৩

শাহবাগে র‌্যাবের অভিযান ও মাস্ক বিতরণ দেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনা শনাক্তের পর এর ঊর্ধ্বমুখী আচরণ দেখা যায় মে মাসের দিকে। এরপর জুনে সেটি আরও বেড়ে যায় এবং জুলাইতে গিয়ে স্থিতিশীল পর্যায়ে অবস্থান করে। জুলাইয়ের শেষে ধীরে ধীরে কমতে থাকে। আগস্ট, সেপ্টেম্বর ও নভেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত করোনা শনাক্ত নিম্নমুখী থাকলেও এরপর থেকে আবারও শনাক্ত ওপরের দিকে যাচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি এখন আর শীত নির্ভর নয় বরং বায়ুদূষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় সামনে সংক্রমণ আরও বাড়বে। কারণ বায়ুদূষণের সঙ্গে বক্ষব্যাধির সম্পর্ক আছে এবং তাতে করোনার ঝুঁকি থাকে বেশি।


এই মুহূর্তে করোনার তুলনামূলক চিত্র
দেশে করোনায় এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৪ লাখ ৬৯ হাজার ৪২৩ জন। এছাড়া এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬ হাজার ৭১৩ জন। গত অক্টোবর মাসে মোট শনাক্ত ছিল ৪২ হাজার ৮৬৯ এবং নভেম্বর মাসে ৫৬ হাজার ২৩৭ জন। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে শনাক্ত বেড়েছে ১৩ হাজার ৩৬৮ জন। অন্যদিকে অক্টোবরে মৃত্যু ছিল ৬৩৬ এবং নভেম্বরে ৭০৯ জন। অর্থাৎ মৃত্যু ৭৩ জনের বেশি হয়েছে অক্টোবরের তুলনায়। পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, দেশে এখন পর্যন্ত কোভিড সংক্রমণ নিয়ে একমাসে সর্বোচ্চ মৃত্যু ঘটেছিল জুন মাসে ৬৪ জন। ওই মাসে এক হাজার ১৯৭ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মারা যান। জুলাইতে মোট মৃত্যু ছিল ১ হাজার ২৬৪ জন। আগস্টে এই সংখ্যা কিছুটা কমে দাঁড়ায় ১ হাজার ১৯৮ জনে।
৬২ শতাংশ শনাক্তই নভেম্বরের শেষ ১৫ দিনে
দেশের করোনার পরিসংখ্যান বলে, সর্বশেষ ৭ সেপ্টেম্বর ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ছিল ২ হাজারের কিছুটা বেশি। এরপর আর ২ হাজারের ঘর করোনা শনাক্ত ছুঁতে পারেনি। এর ৭১ দিন পর ১৬ নভেম্বর আবারও করোনার শনাক্ত দাঁড়ায় ২ হাজারের ঘরে। এদিন শনাক্ত হয় ২ হাজার ১৩৯ জন। পরদিন আরেকটু বেড়ে শনাক্ত দাঁড়ায় ২ হাজার ২১২ জন। এরপর শুধু ১৫ দিন মোট শনাক্ত হয় ৩৪ হাজার ৮৯২ জন। অর্থাৎ এই কয়দিন গড়ে ২ হাজার ৩২৬ জন শনাক্ত হয়েছে। আর পুরো মাসে শনাক্ত হয়েছে ৫৬ হাজার ২৩৭ জন। অর্থাৎ পুরো মাসের ৬২ শতাংশই শনাক্ত হয় শেষ ১৫ দিনে।
সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী
দেশে করোনা সংক্রমণের হার আগস্টের পর থেকে স্থিতিশীল হলেও সেপ্টেম্বর, অক্টোবর এবং নভেম্বরে তা উঠানামার মধ্যেই আছে। অক্টোবরের প্রথমে সংক্রমণের হার অর্থাৎ নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্ত ছিল ১২ দশমিক ৪৯ শতাংশ। এরপর অক্টোবরের শেষে তা দাঁড়ায় ১২ দশমিক ৫০-তে। নভেম্বরের শুরুতে হার ছিল ১৩ দশমিক ৪৭ এবং শেষে হার ১৪ দশমিক ৭৯। তবে এই হার সম্প্রতি ১৬ শতাংশ অতিক্রম করেছিল।
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ মনে করছেন সামনে সংক্রমণ বাড়বে। তবে কেউ কেউ এও মনে করেন, এটা আগে থেকে বলা খুব কঠিন।
সরকারের পাবলিক হেলথ অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্য ও জ্যেষ্ঠ জনস্বাস্থ্যবিদ ড. আবু জামিল ফয়সাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনা সংক্রমণ সামনে আরও বাড়বে। নভেম্বরে কিছুটা উঠানামা হয়েছে কিন্তু বাড়তির দিকেই তো আছে। সংক্রমণ এই মুহূর্তে বাড়ার দিকেই আছে। কারণ হচ্ছে শীতকাল নয়, এসময় আমাদের সবচেয়ে বড় রিস্ক হলো ধূলিকণা। করোনা না থাকা অবস্থায় বিগত বছরে বায়ুদূষণের কারণে এই সময়ে অনেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। যারা বয়স্ক যাদের হাঁপানি ছিল তাদের অবস্থা খুব খারাপ হয়েছে। হাঁপানি, ব্রংকাইটিস এগুলো হচ্ছে রিস্ক ফ্যাক্টর করোনার ক্ষেত্রে। তাই এখানে আরও করোনা আক্রান্ত পাওয়া যাবে। রোগী বাড়ার সঙ্গে শীতের কোনও সম্পর্ক নেই। বায়দূষণ রেস্পারেটরি সিস্টেমে অনেক সমস্যা তৈরি করে। করোনাও তো একই জায়গায় সমস্যা তৈরি করে। সুতরাং রোগী তো বাড়বেই।
রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য অংশে যখন মহামারিটি আছে, তখন এখানেও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়। নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসলে কমে যাবে নাইলে বেড়ে যাবে। শীতকাল কিংবা গ্রীষ্মকাল একই আশঙ্কা থেকে যায়। বর্তমানে দেখা যাচ্ছে সময়ে সময়ে বেড়ে গিয়ে একটি রেঞ্জের মধ্যে থাকছে। একদম রাইজ কিন্তু কখনও হয়নি। মে, জুন জুলাই সবচেয়ে বেশি ছিল, দীর্ঘদিন ১৫ থেকে ২০ শতাংশের মধ্যে ওঠানামা করেছে। আগস্টের শেষে একটু নামলো, তারপর ১০-১৫ ছিল এখন আবার ১২ থেকে ১৫ এর মধ্যে আছে।
তিনি আরও বলেন, দূষণ আমাদের এখানে গ্রীষ্মকালেও থাকে। শীতে সমস্যা হলো অ‌্যালার্জির কারণে অনেকের সর্দি কাশি হয়, তার সঙ্গে করোনার সংক্রমণ হলে ছড়ানোর আশঙ্কা বেশি। তাছাড়া সামাজিক অনুষ্ঠানের কারণে মেলামেশা বেশি হয়। তাতেও বাড়তে পারে সংক্রমণ।

/এফএএন/এমএমজে/

সম্পর্কিত

করোনার নতুন ওষুধ আনতে অক্সফোর্ডের গবেষণা

করোনার নতুন ওষুধ আনতে অক্সফোর্ডের গবেষণা

যুক্তরা‌জ্যে স্বামী-স্ত্রীসহ ক‌রোনায় আরও ৪ বাংলা‌দেশির মৃত্যু

যুক্তরা‌জ্যে স্বামী-স্ত্রীসহ ক‌রোনায় আরও ৪ বাংলা‌দেশির মৃত্যু

যুক্তরাজ্যে শিশু কল্যাণ হটলাইনে কল বেড়েছে ৫০ শতাংশ

যুক্তরাজ্যে শিশু কল্যাণ হটলাইনে কল বেড়েছে ৫০ শতাংশ

নীলফামারীতে করোনা টিকা দেওয়া হবে ২৪ বুথে

নীলফামারীতে করোনা টিকা দেওয়া হবে ২৪ বুথে

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় এএসপির মৃত্যু

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় এএসপির মৃত্যু

কোভিড টিকাদান উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

কোভিড টিকাদান উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

২৭ জানুয়ারির পর অনলাইনে ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের নিবন্ধন শুরু

২৭ জানুয়ারির পর অনলাইনে ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের নিবন্ধন শুরু

আরও ১৮ মৃত্যু, শনাক্ত ৬০২

আরও ১৮ মৃত্যু, শনাক্ত ৬০২

ভ্যাকসিন নিতে হলে যা যা করতে হবে

ভ্যাকসিন নিতে হলে যা যা করতে হবে

‘৪-৫ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিন দেশের সব জেলায় পৌঁছে দিতে পারবো’

‘৪-৫ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিন দেশের সব জেলায় পৌঁছে দিতে পারবো’

করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম চালান পৌঁছেছে ঢাকায়

করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম চালান পৌঁছেছে ঢাকায়

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্টের করোনা শনাক্ত

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্টের করোনা শনাক্ত

সর্বশেষ

শ্রীলঙ্কাকে তাদেরই বানানো ফাঁদে ফেললো ইংল্যান্ড

শ্রীলঙ্কাকে তাদেরই বানানো ফাঁদে ফেললো ইংল্যান্ড

বিভিন্ন জেলায় সড়কে নিহত ১৪

বিভিন্ন জেলায় সড়কে নিহত ১৪

করোনার নতুন ওষুধ আনতে অক্সফোর্ডের গবেষণা

করোনার নতুন ওষুধ আনতে অক্সফোর্ডের গবেষণা

করোনায় সম্পদ বেড়েছে কোটিপতিদের, কমেছে গরিবদের

করোনায় সম্পদ বেড়েছে কোটিপতিদের, কমেছে গরিবদের

রাবিতে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট নির্বাচনের নির্দেশনা কেন দেওয়া হবে না

হাইকোর্টের রুলরাবিতে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট নির্বাচনের নির্দেশনা কেন দেওয়া হবে না

ডাটা সেন্টার এবং ক্লাউড নেটওয়ার্কিংয়ের জন্য হুয়াওয়ের স্বীকৃতি

ডাটা সেন্টার এবং ক্লাউড নেটওয়ার্কিংয়ের জন্য হুয়াওয়ের স্বীকৃতি

‘চুপ করে বসে থেকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না’

‘চুপ করে বসে থেকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না’

যুক্তরা‌জ্যে স্বামী-স্ত্রীসহ ক‌রোনায় আরও ৪ বাংলা‌দেশির মৃত্যু

যুক্তরা‌জ্যে স্বামী-স্ত্রীসহ ক‌রোনায় আরও ৪ বাংলা‌দেশির মৃত্যু

ফিরোজ রশিদের বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি নির্মূল কমিটির

ফিরোজ রশিদের বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি নির্মূল কমিটির

চাঁদাবাজির অভিযোগে এশিয়ানের শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা

চাঁদাবাজির অভিযোগে এশিয়ানের শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা

আ.লীগের দুপক্ষে উত্তেজনা: নোয়াখালীতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ

আ.লীগের দুপক্ষে উত্তেজনা: নোয়াখালীতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ

ভেতরের কথা বাইরে আসায় বিরক্ত সাকিব

ভেতরের কথা বাইরে আসায় বিরক্ত সাকিব

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় এএসপির মৃত্যু

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় এএসপির মৃত্যু

অগ্রাধিকারভিত্তিতে ভ্যাকসিন নিশ্চিতের দাবি কৃষিবিদদের

অগ্রাধিকারভিত্তিতে ভ্যাকসিন নিশ্চিতের দাবি কৃষিবিদদের

টিকা নিয়ে শঙ্কা কাটাতে পারছে না স্বাস্থ্য অধিদফতর

টিকা নিয়ে শঙ্কা কাটাতে পারছে না স্বাস্থ্য অধিদফতর

করোনায় গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য ২০ শতাংশ ঝুঁকিভাতা দাবি

করোনায় গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য ২০ শতাংশ ঝুঁকিভাতা দাবি

টিকা সংগ্রহ ও বিতরণ প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা নিশ্চিতের আহ্বান

টিকা সংগ্রহ ও বিতরণ প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা নিশ্চিতের আহ্বান

সব নাগরিককে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার দাবি চিকিৎসকদের

সব নাগরিককে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার দাবি চিকিৎসকদের

‘করোনায় স্বাস্থ্যসেবা’ নিয়ে আন্তঃমেডিক্যাল কলেজ বিতর্ক প্রতিযোগিতা

‘করোনায় স্বাস্থ্যসেবা’ নিয়ে আন্তঃমেডিক্যাল কলেজ বিতর্ক প্রতিযোগিতা

রক্তের গ্রুপ ও বিসিজি টিকার সঙ্গে করোনার সম্পর্ক নেই: গবেষণা

রক্তের গ্রুপ ও বিসিজি টিকার সঙ্গে করোনার সম্পর্ক নেই: গবেষণা

করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের প্রচেষ্টা সত্যিই বিরল: আইজিপি

করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের প্রচেষ্টা সত্যিই বিরল: আইজিপি

টিকা কার্যক্রমে স্বচ্ছতা বজায় রাখার পরামর্শ

টিকা কার্যক্রমে স্বচ্ছতা বজায় রাখার পরামর্শ


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.