X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

লঞ্চটিতে ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী, ছিল না অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা

আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮:০১

সদরঘাট থেকে অভিযান-১০ লঞ্চটি বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় বরগুনার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। এরপর থামে চাঁদপুর, বরিশাল ও দপদপিয়া ঘাটে। তিন ঘাটেই যাত্রীরা ওঠানামা করেছেন। দপদপিয়া থেকে লঞ্চটি ছাড়ে বেতাগীর উদ্দেশে। আরও কয়েকটি ঘাট ঘুরে এই যাত্রার শেষ গন্তব্য বরগুনাই ছিল লক্ষ্য। এর মাঝেই বাদে বিপত্তি। রাত ৩টায় সুগন্ধা নদীতে চলমান লঞ্চের ইঞ্জিন কক্ষে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে আগুন। শীতের রাতে লঞ্চে আগুন আর নিচে সুগন্ধা নদীর ঠান্ডা পানি যাত্রীদের মনে ‘অনিবার্য মৃত্যুর’ ভীতি সঞ্চার করেছে মুহূর্তেই। তবে আগুনে নির্ঘাত মৃত্যুর চেয়ে প্রাণ বাঁচাতে  ঠান্ডা  পানিকে বেছে নেন যাত্রীরা। ঝাঁপ দিতে থাকেন সুগন্ধায়। এতে অনেকে প্রাণে বাঁচলেও এখন পর্যন্ত ৪০টি লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে। আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন শতাধিক। এরমধ্যে অনেকের অবস্থা গুরুতর।

ভয়াবহ এ দুর্ঘটনা থেকে প্রাণে বেঁচে ফেরা যাত্রীদের অভিযোগ, লঞ্চটি ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে রওনা হয়েছিল। লঞ্চে ছিল না অগ্নিনির্বাপণের কোনও ব্যবস্থা। অগ্নিনির্বাপক গ্যাস সিলিন্ডার থাকলেও সেগুলো ছিল বিকল।

তবে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) থেকে জানানো হয়েছে, ৩১০ যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে বরগুনা যাচ্ছিল লঞ্চটি। যাত্রীরা বলছেন, প্রায় এক হাজারের মতো মানুষ ছিল লঞ্চে।  লঞ্চটি ৯০০ যাত্রী বহনে সক্ষম।

লঞ্চটিতে ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী, ছিল না অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা

প্রাণে বেঁচে ফেরা সাদিক জানান, লঞ্চটি ঢাকা থেকে ছাড়ার পরপরই ডেকের ফ্লোর গরম হতে থাকে। তখন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি যাত্রীরা জানালেও তারা কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের নিবৃত করতে কম্বল বিছিয়ে দিয়েছিল ফ্লোরে। এরপর ক্রমান্বয়ে গরম হতে থাকলেও শীতের তীব্রতায় তা টের পাননি যাত্রীরা। শুরুতেই যখন ফ্লোর গরম হচ্ছিল, তখন ব্যবস্থা নিলে হয়তো এত প্রাণহানি দেখতে হতো না বলে দাবি করেন এই যাত্রী।

আরেক যাত্রী মোশারফ বলেন, ‘আমি ঢাকা থেকে বরগুনা যাচ্ছিলাম। লঞ্চে দেরিতে আসায় কেবিন না পেয়ে নিচতলার ডেকে অবস্থান নিয়েছিলাম। ফ্লোর যখন গরম হতে শুরু করে, তখন সরে লঞ্চের সম্মুখভাগে যাই। এরপর মাঝখানে একবার ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। হঠাৎ মানুষের চিৎকারে ঘুম ভেঙে যায়। আগুন লাগার কথা শোনার পরই লাফিয়ে নদীতে পড়ে তীরে উঠি। এরপর স্থানীয়দের মাধ্যমে স্বজনদের খবর দিলে তারা গিয়ে আমাকে নিয়ে আসে।’

লঞ্চটিতে ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী, ছিল না অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা

সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে ছাড়ার সময় ৩১০ যাত্রীর বহনের ঘোষণা দেয় অভিযান-১০। তবে এর ২/৩ গুণ বেশি যাত্রী ছিল লঞ্চটিতে, দাবি উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের। কর্তৃপক্ষের দাবি, লঞ্চটির ধারণ ক্ষমতা ৯০০ জন।

নৌপথে দক্ষিণাঞ্চলের ঢাকা-বরগুনা রুটের যাত্রী পরিবহনে বছর দুয়েক আগে চালু হয় বিলাসবহুল এমভি অভিযান-১০ লঞ্চ। বরিশালসহ, বরগুনার, বেতাগী, কাঁকচিড়া ঘাটে যাত্রী বহন করতো নৌযানটি। মাত্র ১৫ দিন আগে মেরামত কাজ হয় এটির। এরপর চারটি ট্রিপ সম্পন্ন করে।

অভিযান-১০ লঞ্চের বেশিরভাগ যাত্রী বরগুনা জেলা ও এর আশপাশের এলাকার। তাই আগুনের ঘটনায় হতাহতের বেশিরভাগই বরগুনা জেলার, বলছেন স্বজনেরা।

এ বিষয়ে জানতে লঞ্চ মালিক হাম জালালের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বরগুনা পাবলিক পলিসি ফোরামের আহ্বায়ক মো. হাসানুর রহমান ঝন্টু বলেন, ‘লঞ্চটি এর আগেও একবার চরে উঠিয়ে দিয়েছিল। আমার মনে হয়, লঞ্চ কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে এত প্রাণ একসঙ্গে গেলো।’

/এফআর/এমওএফ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
শ্রীলঙ্কার লিড
শ্রীলঙ্কার লিড
টিভিতে আজ
টিভিতে আজ
কলেজছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
কলেজছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
মারিউপোলে আরও ইউক্রেনীয় সেনা আত্মসমর্পণ করছে: রাশিয়া
মারিউপোলে আরও ইউক্রেনীয় সেনা আত্মসমর্পণ করছে: রাশিয়া
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
কক্সবাজার ঘুরতে যাওয়া তরুণীর মদপানে মৃত্যুর অভিযোগ
কক্সবাজার ঘুরতে যাওয়া তরুণীর মদপানে মৃত্যুর অভিযোগ
‘পিপি বড় কিছু না, আমি মহানগর আ.লীগের সভাপতি’
‘পিপি বড় কিছু না, আমি মহানগর আ.লীগের সভাপতি’
শ্বশুরের জানাজায় এসে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
শ্বশুরের জানাজায় এসে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার
ক্রেন ছিঁড়ে লোহা পড়ে কারখানায় কর্মকর্তার মৃত্যু
ক্রেন ছিঁড়ে লোহা পড়ে কারখানায় কর্মকর্তার মৃত্যু
ধর্ষণে অভিযুক্ত কাউন্সিলরের পক্ষে আদালতের পিপি 
ধর্ষণে অভিযুক্ত কাউন্সিলরের পক্ষে আদালতের পিপি