X
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
২০ আষাঢ় ১৪২৯

রেডিসন ব্লু’র শেয়ার কিনে টাকা দেননি পি কে হালদার

আপডেট : ১৭ মে ২০২২, ১২:০২

এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আদালতে ঝুলছে দুই মামলা। এক হাজার সাত কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে করা পৃথক দুই মামলার আসামি হিসেবে রয়েছেন পি কে হালদারসহ তার চার সহযোগীকে।

চট্টগ্রাম আদালত সূত্র জানায়, প্রতারণার মাধ্যমে রেডিসন ব্লু কক্সবাজার-এর শেয়ার আত্মসাতের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে ৯৩০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে একটি মামলা করা হয়। ২০২১ সালের ৯ মে চট্টগ্রামের প্রথম যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ খাইরুল আমীনের আদালতে মামলাটি করেন নগরের দক্ষিণ খুলশী এলাকার ক্লইস্টন গ্রুপের মালিক আব্দুল আলিম চৌধুরীর পক্ষে তার কর্মচারী সোয়াইব উর রশীদ।

মামলার অন্য চার আসামি হলেন- ঢাকার বনানী এলাকার মো. জাহাঙ্গীর আলম, উত্তরার সিদ্দিকুর রহমান, পি অ্যান্ড এল ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী ও পিরোজপুরের বাসিন্দা রতন কুমার বিশ্বাস।

এজাহারে বলা হয়েছে, চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আবদুল আলীম কক্সবাজারের রেডিসন ব্লু হোটেলের ৬৪ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছিলেন পি কে হালদারের কাছে। কিন্তু ২০১৪ সালে বিক্রি করলেও এখন পর্যন্ত পি কে হালদার শেয়ারের ৭৭ কোটি টাকা দেননি। তাই মামলাটি করা হয়েছে। মামলা দায়েরের দিন পর্যন্ত আট বছরে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ সুদসহ দাঁড়িয়েছে ৯৩০ কোটি টাকা।

আদালত এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে নোটিস জারি করেছেন বলে জানিয়েছেন বাদীর আইনজীবী রুবেল পাল। আগামী ২৯ মে এ মামলার পরবর্তী দিন ধার্য রয়েছে। ওই দিন আসামিদের পক্ষ থেকে আদালতে জবাব দেওয়া সম্ভাবনা রয়েছে।

এর আগে, ২০২১ সালের ৪ এপ্রিল এই পাঁচ জনের বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে কক্সবাজারের পাঁচ তারকা হোটেল রেডিসন ব্লু’র ৭৭ কোটি টাকার শেয়ার হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে চট্টগ্রামের আদালতে আরেকটি মামলা করা হয়। একই ব্যক্তি বাদী হয়ে মহানগর দায়রা জজ সরওয়ার জাহানের আদালতে মামলাটি করেন।  

মামলায় দণ্ডবিধির ৪০৬/৪২০/৫০৬/১০৯ ধারায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্তের নির্দেশ দেন।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেছেন, আব্দুল আলিম চৌধুরীর মালিকানাধীন ক্লইস্টন ফুডস অ্যান্ড একোমোডেশন লিমিটেডের অধীনে ২০১০ সালে কক্সবাজারে পাঁচ তারকা হোটেল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের আশ্বাসে নিজের মালিকানাধীন অন্য প্রতিষ্ঠান থেকে এই প্রকল্পে তিনি বিনিয়োগ করেন।

এর আগে, ২০০৭ সালের দিকে পি কে হালদারের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এরপর পি কে হালদার রিলায়েন্স ফিন্যান্স লিমিটেডের এমডি হন। তখন রিলায়েন্স ফিন্যান্স থেকে আব্দুল আলিম চৌধুরীর মালিকানাধীন অন্য প্রতিষ্ঠানে কিছু ঋণ অনুমোদন দেওয়া হয়।

পাঁচ তারকা হোটেল প্রকল্পে যখন আব্দুল আলিম চৌধুরী ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েন এবং বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ পরিশোধে চাপ দিতে থাকে তখন পি কে হালদারও রিলায়েন্স ফিন্যান্সের দেওয়া ঋণ পরিশোধে চাপ দিতে শুরু করেন। আর্থিক প্রতিষ্ঠানটির ৯৮ শতাংশের মালিক পি কে হালদার। একপর্যায়ে পি কে হালদার ওই পাঁচ তারকা হোটেলটির শেয়ার কেনার প্রস্তাব দেন। ওই কোম্পানির মোট ৯ লাখ ৫০ হাজার শেয়ারের মধ্যে আব্দুল আলিম চৌধুরীর নামে ছিল ছয় লাখ আট হাজার, যা মোট শেয়ারের ৬৪ শতাংশ।

২০১৪ সালের ৪ জুন পি কে হালদার ও তার সহযোগীদের কাছে পাঁচ লাখ ২২ হাজার ৫০০ শেয়ার হস্তান্তরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন আব্দুল আলিম চৌধুরী। যা প্রতিষ্ঠানটির মোট শেয়ারের ৫৫ শতাংশ। এর মধ্যে পি অ্যান্ড এল ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের নামে ৩৫, পি কে হালদার নিজের নামে ৯, জাহাঙ্গীর আলম ও সিদ্দিকুর রহমান প্রত্যেকে পাঁচ শতাংশ করে এবং রতন কুমার সরকারের নামে এক শতাংশ শেয়ার হস্তান্তর করা হয়। শেয়ার বিক্রির টাকা কিস্তিতে পরিশোধ করার কথা থাকলেও কোনও টাকা পরিশোধ করা হয়নি।

হোটেল প্রকল্পের ৫৫ শতাংশের শেয়ার সাড়ে ৭৭ কোটি টাকা মূল্য ধরে হস্তান্তরের চুক্তি হয়েছিল। আর রিলায়েন্স ফিন্যান্স লিমিটেডে আব্দুল আলিম, তার ভাই ও স্ত্রীর নামে ৭৪ কোটি টাকা আগে থেকে ঋণ ছিল।

মামলার আইনজীবী রুবেল পাল জানান, রিলায়েন্স ফিন্যান্স লিমিটেডে আব্দুল আলিম চৌধুরী, তার ভাই ও স্ত্রীর নামে থাকা ঋণ সমন্বয় করে বাকি টাকা শেয়ার বাবদ পরিশোধ করবেন বলে জানিয়েছিলেন পি কে হালদার। সেটিও করেননি। মামলাটি তদন্ত করছে সিআইডি। এখনও সিআইডি তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়নি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সিআইডির এসআই মোজাহেদুল হাসান বলেন, ‘মামলার তদন্ত চলছে। ইতিমধ্যে কিছু তথ্যের জন্য বিভিন্ন সংস্থার কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। এসব তথ্য পাওয়া গেলে মামলাটি তদন্ত শেষ করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দিতে পারবো।’

দুই মামলার বাদী সোয়াইব উর রশীদ বলেন, ‘দুই মামলার মধ্যে একটি সিআইডি তদন্ত করছে। এ মামলায় আগামী ১৩ জুনের মধ্যে তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দিতে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। তবে তদন্ত কর্মকর্তা চাইলে সময় বৃদ্ধির জন্য আদালতে আবেদন করতে পারবেন। অপরটি সিভিল মামলা। সেই মামলায় বিবাদীদের নোটিস করা হয়েছে। আগামী ২৯ মে শুনানির দিন ধার্য রয়েছে। ওই দিন আসামিরা আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে জবাব দিতে পারেন।’

জানা গেছে, পি কে হালদারের দখল করা চারটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে তিনি ও তার সহযোগীরা প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচার করেন। দুদক পি কে হালদারের প্রায় এক হাজার কোটি টাকা মূল্যের জমি, বাড়ি, ফ্ল্যাটসহ অন্যান্য স্থাবর সম্পদ ক্রোক করেছে। এ ছাড়া সহযোগী ও তার বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ৩৪টি মামলা করেছে দুদক। এসব মামলায় আসামি করা হয়েছে ৮০ জনকে। এর মধ্যে ১২ জন গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন। শুক্রবার (১৪ মে) বিকালে পি কে হালদার ও তার পাঁচ সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। এরপর তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। ২০১৯ সালে তিনি বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ভারতে যান, পরে কানাডায় যান বলেও জানা গেছে।

/এফআর/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
কৃষাঙ্গ ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে ৬০টির বেশি গুলি করে মার্কিন পুলিশ
কৃষাঙ্গ ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে ৬০টির বেশি গুলি করে মার্কিন পুলিশ
ভাবিকে হত্যায় দেবরের যাবজ্জীবন
ভাবিকে হত্যায় দেবরের যাবজ্জীবন
শুটিংয়ে চ্যাম্পিয়ন মুন, আর্চারিতে সেরা মিথুন
শুটিংয়ে চ্যাম্পিয়ন মুন, আর্চারিতে সেরা মিথুন
নোয়াখালীতে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত ২
নোয়াখালীতে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত ২
এ বিভাগের সর্বশেষ
নোয়াখালীতে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত ২
নোয়াখালীতে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষে নিহত ২
প্যারোলে কারাগার থেকে বেরিয়ে শপথ নেবেন ২ কাউন্সিলর
প্যারোলে কারাগার থেকে বেরিয়ে শপথ নেবেন ২ কাউন্সিলর
ভাসানচর থেকে পালিয়ে সুবর্ণচরে ৫ রোহিঙ্গা আটক
ভাসানচর থেকে পালিয়ে সুবর্ণচরে ৫ রোহিঙ্গা আটক
কালোবাজারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি, ২ নিরাপত্তাকর্মী আটক
কালোবাজারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি, ২ নিরাপত্তাকর্মী আটক
২৩ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার সার্ভেয়ার ৫ দিনের রিমান্ডে
২৩ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার সার্ভেয়ার ৫ দিনের রিমান্ডে