X
রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
২১ মাঘ ১৪২৯
কাভার্ডভ্যানচাপায় নিহত ৫

খাঁ খাঁ করছে কাভার্ডভ্যানচাপায় নিহত চিরকুমার শামসুর রহমানের বাড়ি

তৌহিদ জামান, যশোর
০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬:০৫আপডেট : ১৩ ডিসেম্বর ২০২২, ২০:০৩

৬৮ বছর বয়সী শামসুর রহমান মীর বিয়ে করেননি। বাড়িতে একাই থাকতেন। কখনও হোটেলে, কখনও আবার রান্না করে খেতেন। তবে সকালের নাশতা তিনি হোটেলেই করতেন। আজ (শুক্রবার) সকালেও বাড়ির কাছে সড়কের পাশের একটি হোটেলে বসে ছোট ভাইয়ের নাতি তৌহিদুল ইসলাম মীর (৩৮) ও তিনি নাশতা খাচ্ছিলেন। এ সময় নিয়ন্ত্রণ হারানো একটি কাভার্ডভ্যান হোটেলে ঢুকে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই শামসুর ও তৌহিদুলসহ পাঁচ জন প্রাণ হারান।

শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টায় যশোরের মণিরামপুর উপজেলার যশোর-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়কের বেগারীতলা এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। ‍এতে পাঁচ জন নিহত হয়েছেন। 

নিহত অন্যরা হলেন—মণিরামপুর উপজেলার টুনিয়াঘরা গ্রামের কৃষক হাবিবুর রহমান (৪৮), তার ছেলে তাওহিদ হাবিব তাওসি (৬) এবং জয়পুর গ্রামের আব্দুল মমিনের ছেলে জিয়ারুল ইসলাম (৩৫)।

খাঁ খাঁ করছে কাভার্ডভ্যানচাপায় নিহত চিরকুমার শামসুর রহমানের বাড়ি

ঘটনাস্থলের পাশেই টুনিয়াঘরা গ্রাম। ওই গ্রামের মীর পাড়ার রফিজ মীরের ছেলে শামসুর রহমান। প্রায় ছয় কাঠা জমিতে সেমিপাকা ঘর তুলে একাই বসবাস করতেন তিনি। এক সময় গ্রামের স্কুলে বদলি শিক্ষক হিসেবে শিক্ষার্থীদের পড়িয়েছেন শামসুর রহমান। পরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিউশনি করে এবং বাড়িতে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। 

আরও পড়ুন: নাশতার জন্য হোটেলে ঢোকার আগেই প্রাণ গেলো বাবা-ছেলের

দুর্ঘটনার পর তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, চারপাশে লেবু, লিচু, আম, গাছ, কাঁঠাল, পেয়ারা ও পেঁপেসহ বিভিন্ন ধরনের কিছু ছোট-বড় গাছ। অল্প একটু জায়গায় বেগুনের চারা লাগানো। সেগুলো কেবল বড় হচ্ছে।  বেগুনের ক্ষেতের চারপাশ নেট দিয়ে ঘেরা। ছোটখাটো জঙ্গল বলা যায়—এরকম জায়গার মধ্যে একটি মাত্র টিনের ঘরে টালির ছাউনি দেওয়া। বাড়িতে কেউ নেই। যিনি থাকতেন তার মৃত্যুতে ছায়াঘেরা বাড়িটি যেন খাঁ খাঁ করছে।

খাঁ খাঁ করছে কাভার্ডভ্যানচাপায় নিহত চিরকুমার শামসুর রহমানের বাড়ি

দরজা ঠেলে ঘরে ঢুকতেই চোখে পড়লো, খাটের ওপর কাঁথা-বালিশ, বই ও ছোট একটি আয়নাসহ বেশকিছু জিনিস ছড়িয়ে আছে। ঘুম থেকে উঠে হাত-মুখ ধুয়েই হয়তো নাশতা করতে চলে গিয়েছিলেন শামসুর রহমান, তাই কিছু গোছানো হয়নি। ঘরের বাইরে দুটি গাছে বাঁধা দড়ির আড়ায় একটি লুঙ্গি, গামছা ও পাঞ্জাবি ঝুলছে। পাশে একটি ছোট কবুতরের ঘর। সেখানে ঘুর ঘুর করছে কয়েকটি কবুতর।

এই বাড়ির পাশেই ছোট্ট একটি ঘর তুলে বসবাস করতেন শামসুর রহমানের ভাতিজার ছেলে তৌহিদুল ইসলাম মীর। আজ সকালে দাদা-নাতি দুই জন গিয়েছিলেন বাজারে চা-নাশতা খেতে। কাভার্ডভ্যানের চাপায় দুই জনই মারা গেছেন।

আরও পড়ুন: নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে কাভার্ডভ্যান, বাবা-ছেলেসহ নিহত ৫

শামসুর রহমানের ছোট ভাই মশিয়ার রহমান মীর বলেন, ‘বেগারীতলার দুর্ঘটনায় সেজো ভাই শামসুর রহমান মীর ও আমাদের নাতি তৌহিদুল ইসলাম মীর মারা গেছে। সেজো ভাই বিয়ে করেননি। তিনি একা  আলাদা বাড়িতে থাকতেন। সেখানেই বাচ্চাদের পড়াতেন এবং নিজে রান্না করে খেতেন।’

খাঁ খাঁ করছে কাভার্ডভ্যানচাপায় নিহত চিরকুমার শামসুর রহমানের বাড়ি

শামসুর রহমানের প্রতিবেশী এবং তারই এক সময়ের ছাত্রী নুসরাত শারমীন মীরা বলেন, ‘দাদুর কাছে আমি ক্লাস ফাইভ পর্যন্ত পড়েছি। তিনি আমাদের সব বিষয়ে পড়াতেন। ইংরেজি ও বাংলা উচ্চারণও শেখাতেন খুব যত্ন করে। আমার ছোটবোন জান্নাতুল মাওয়া তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। সেও দাদুর কাছে পড়তো। তিনি আমাদের বাসায় এসে পড়াতেন। আর তার বাসায় সকালে ৪-৫ জনের একটি ব্যাচ পড়তো। দাদুর এমন মৃত্যু মেনে নেওয়া যায় না।’

শামসুর রহমানের ভাইয়ের ছেলে আজমত আলী মীর বলেন, ‘খুব ছিমছাম ছিল মানুষটি। একা একাই কাটিয়ে দিয়েছেন পুরো জীবন। ভাগের ভাগ যে ৫-৬ কাঠা জমি পেয়েছেন, সেখানে একটি ঘর করে থাকতেন। নিজেই রান্না করে খেতেন, বাচ্চাদের পড়াতেন। চাচার ভিটেয় কত রকমের সবজি ও ফল হতো, এখন আর দেখার কেউ থাকলো না।’

তৌহিদুল ইসলামের বাড়িতে কেউই ছিলেন না। খোঁজ নিয়ে জানা গেলো, পাশেই তার বাবা মীর আসাদ আলী ওরফে বাবু মীরের বাড়িতে রয়েছেন সবাই। বাবু মীরের বাড়িতেও ভিড় করেছেন প্রতিবেশীরা।  আত্মীয়-স্বজনরা সবাই কাঁদছেন।

সেখানে কথা হয় তৌহিদুল ইসলামের বাবা মীর আসাদ আলী ওরফে বাবু মীরের সঙ্গে। দুই ভাইয়ের মধ্যে তৌহিদুল মীর বড়। বাবু মীরেরও বেগারীতলা বাজারে একটি চায়ের দোকান রয়েছে।  

তৌহিদুল ইসলাম দিনমজুর। বাঁশের হাটে কাজ করেন। তার চার ছেলে মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে হাবিবার বিয়ে হয়ে গেছে। মেজো মেয়ে সোহানা তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। ছোট ছেলে শাওনের বয়স ছয় বছর এবং ছোট মেয়ে মনির বয়স ৬ মাস। 

যশোরের মণিরামপুরে হোটেলে ঢুকে পড়ে কাভার্ডভ্যান

তৌহিদুলের বাবা বাবু মীর বলেন, ‌‘ফজরের নামাজ শেষে আমরা বাজারের দিকে যাই। দোকান খোলার সময় বাজারের দিকে চিৎকার শুনে এগিয়ে দেখি, আমাদের পাড়ার আবু তালেব খানের (হোটেল মালিক) দোকানের কারিগর দৌড়াচ্ছে। সে কোনও কথা বলতে পারছে না। আরেকটু এগিয়ে গিয়ে দেখি হোটেলের সামনে মানুষের জটলা। কাভার্ডভ্যানের নিচে আমার ছেলে পড়ে রয়েছে। জামা-কাপড় দেখেই তাকে চিনে ফেলি। এরপর শুনি চাচা শামসুর রহমানসহ পাঁচ জন গাড়ির চাকার নিচে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা গেছে। লোকজন কাভার্ডভ্যানটি উল্টে লাশ বের করতে চেয়েছিল। কিন্তু ততক্ষণে দমকল বাহিনীর গাড়ি চলে আসে।’

মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মো. মনিরুজ্জামান জানান, কাভার্ডভ্যান আটক করা হয়েছে। তবে চালক ও চালকের সহকারী পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

/এসএইচ/
সর্বশেষ খবর
‘কাগজের মূল্য বৃদ্ধির কারণে মানুষের বই কিনতে কষ্ট হচ্ছে’
‘কাগজের মূল্য বৃদ্ধির কারণে মানুষের বই কিনতে কষ্ট হচ্ছে’
আজকের নির্বাচিত বই
অমর একুশে গ্রন্থমেলাআজকের নির্বাচিত বই
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটরিয়াম উদ্বোধনের আগেই ভাড়া
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটরিয়াম উদ্বোধনের আগেই ভাড়া
শোক সংবাদে শুরু, নবীন শিল্পীদের অপূর্ব পরিবেশনায় শেষ
‘কর্মশালা ও সংগীতে নবীনবরণ’শোক সংবাদে শুরু, নবীন শিল্পীদের অপূর্ব পরিবেশনায় শেষ
সর্বাধিক পঠিত
দিনদুপুরে তালা ভেঙে ব্যাংক থেকে ৪ লাখ টাকা লুট
দিনদুপুরে তালা ভেঙে ব্যাংক থেকে ৪ লাখ টাকা লুট
ক্রাইম প্যাট্রল থেকে কৌশল শিখে ৫ কিশোরের এক রোমহর্ষক কিলিং মিশন
ক্রাইম প্যাট্রল থেকে কৌশল শিখে ৫ কিশোরের এক রোমহর্ষক কিলিং মিশন
শাকিব ও জোভান প্রসঙ্গে মুখ খুললেন পূজা!
শাকিব ও জোভান প্রসঙ্গে মুখ খুললেন পূজা!
রডের টন লাখ ছুঁই ছুঁই
রডের টন লাখ ছুঁই ছুঁই
সড়কে লাশ হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী
সড়কে লাশ হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী