X
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪
৯ আষাঢ় ১৪৩১

শুঁটকি মৌসুম শেষে ঘরে ফিরছেন জেলেরা, অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ

হেদায়েৎ হোসেন, খুলনা
০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০১আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০১

বঙ্গোপসাগরের তীরে সুন্দরবনের দুবলার চরে বসা শুঁটকি মৌসুম শেষ হয়েছে ৩১ মার্চ। টানা পাঁচ মাস সেখানকার চরে থেকেছেন কয়েক হাজার জেলে। এখন ঘরে ফিরছেন তারা। কিন্তু ফেরার সময়ে বন বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ তুলেছেন জেলেরা।

জেলেরা জানিয়েছেন, সরকারিভাবে চার-পাঁচ হাজার টাকা রাজস্ব নেওয়ার কথা থাকলেও তাদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ১৮ হাজার টাকা। অথচ বাড়টি টাকা আদায়ের রসিদ দেওয়া হয় না। বন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা থেকে নিম্ন-শ্রেণির সব কর্মকর্তা-কর্মচারী রেশিও অনুযায়ী ওই ভাগ করে নিচ্ছেন।

অবশ্য বিষয়টি অস্বীকার করে সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ নুরুল কবির বলেছেন, ‘দুবলার চরের চার শুঁটকিপল্লি থেকে নিয়মতান্ত্রিকভাবে রাজস্ব আদায় করা হয়। বাড়তি অর্থ নেওয়ার কোনও অভিযোগ পাইনি। তবে জেলেরা সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিলে অবশ্যই কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

শুঁটকিপল্লি থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ছয় কোটি ১৭ লাখ ২১ হাজার ৮৭১ টাকা রাজস্ব আয় হয়েছিল জানিয়ে নুরুল কবির বলেন, ‘ওই বছর লক্ষ্যমাত্রা ছিল সাড়ে চার কোটি টাকা। তবে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং বেশি মাছ আহরণ হওয়ায় রাজস্ব বেড়েছিল। ২০২১-২২ অর্থবছরে রাজস্ব আদায় হয়েছিল চার কোটি ১৮ লাখ টাকা। এবারও রাজস্ব বাড়বে বলে আশা করছি আমরা।’

দুবলার চর সুন্দরবনের সংরক্ষিত এলাকা উল্লেখ করে নুরুল কবির আরও বলেন, ‘সেটি নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে রয়েছে সুন্দরবনের পূর্ব বন বিভাগ। জেলেরা বঙ্গোপসাগর থেকে মাছ আহরণ করলেও দুবলার চরে অবস্থান করায় রাজস্ব আদায় করে বন বিভাগ। ওই চরে যেতে সাধারণত পশুর নদী ব্যবহার করার জন্য জেলেদের উৎসাহিত করা হয়। এক্ষেত্রে জেলেদের শিবসা হয়ে যাওয়া সাশ্রয়ী ও সহজ হলেও বন বিভাগের সঙ্গে জেলেরা আলোচনা করেনি। আলোচনা হলে অবশ্যই জেলেদের জন্য ওই পথ অনুমোদন করা হবে।’

বন বিভাগের তথ্যমতে, গত ৩ নভেম্বর থেকে বঙ্গোপসাগরের পাড়ের সুন্দরবনের দুবলার চরে শুরু হয়েছিল শুঁটকির মৌসুম। শুঁটকির মৌসুম চলেছে ৩১ মার্চ পর্যন্ত। টানা পাঁচ মাস ধরে সেখানকার চরে থেকেছেন অন্তত ১৫ হাজার জেলে। সাগরপাড়ের এই চরে তাদের থাকতে হয়েছে অস্থায়ী কাঁচা ঘরে। জ্বালানি, মাছ শুকানোর চাতাল, মাচাসহ সব ধরনের কাজে সুন্দরবনের কোনও গাছপালা ব্যবহার নিষিদ্ধ হওয়াতে চরে যাওয়া জেলেরা সঙ্গেই নিয়ে গেছেন প্রয়োজনীয় সব সামগ্রী। 

এবার জেলেদের থাকা ও শুঁটকি সংরক্ষণের জন্য বন বিভাগের অনুমতি নিয়ে দেড় হাজার ঘর, ৬৩টি ডিপো এবং শতাধিক দোকান স্থাপন করা হয়। বঙ্গোপসাগরের সৈকতঘেঁষা কুঙ্গা নদীর পূর্ব পাড়ের দ্বীপটি দুবলার চর নামে পরিচিত। প্রতি বছর খুলনা অঞ্চলের জেলেরা সেখানে গিয়ে বঙ্গোপসাগর থেকে নানা প্রজাতির মাছ আহরণ করেন। সেই মাছ চরের রোদে শুঁটকি করে বাজারজাত করেন তারা।

বন বিভাগ জানায়, সুন্দরবনে এখন ডাকাতের উৎপাত না থাকায় দুবলার চরসহ সাগরে জেলেরা নিরাপদে মাছ আহরণ করতে পারেন। মৌসুমের শুরুতে তারা এখানে এসে ঘর নির্মাণ ও মাছ শুকানোর জন্য মাচা তৈরি করেন। এসব তৈরির জন্য লোকালয় থেকে বাঁশ ও সুপারি গাছসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে আসেন। তাদেরকে সুন্দরবনের কোনও গাছ কাটার অনুমতি দেওয়া হয় না। চাতালে দিনে দুবার টহল দেয় বন বিভাগ। 

বন বিভাগের তথ্যমতে, প্রতি কেজি মাছ আহরণের জন্য জেলেদের কাছ থেকে ১০ টাকা হারে রাজস্ব আদায় করা হয়। জেলেরা প্রতি ১৫ দিনের মধ্যে সাত দিন মাছ আহরণ করেন। বাকি সাত দিন সেই মাছ শুঁটকি করেন। ১৫ দিন পর পর প্রত্যেকে কী পরিমাণ মাছ আহরণ করলেন, তার হিসাব করে রাজস্ব আদায় করা হয়।

দুবলার চর সুন্দরবনের সংরক্ষিত এলাকা

খুলনার পাইকগাছার হিতামপুরের জেলে সুবল বিশ্বাস বলেন, ‘আমার বহরে চার নৌকায় ১৮ জেলে রয়েছেন। এ বছর আমার ৬০ লাখ টাকার মতো খরচ হয়েছে। কিন্তু মাছ পেয়েছি কম। তাই ১৫ লাখ টাকার মতো লোকসান হবে। ঋণ পরিশোধ করতে পেরেছি। কিন্তু নিজস্ব বিনিয়োগ এখন পর্যন্ত তুলতে পারিনি।’

অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ করে মাহমুদকাঠির জেলে জিহাদুল ইসলাম বলেন, ‘মৌসুমের শুরুতে ২০ জনের টিম নিয়ে দুবলার চরে যেতে আমার খরচ হয়েছে ১৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে কিছু ঋণ, কিছু মহাজনের কাছ থেকে ও কিছু সুদে নিয়েছিলাম। ১৭ কর্মচারীর প্রত্যেকের বেতন ছিল আট থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত। এবার জ্বালানি তেলের দামও বেশি ছিল। খাবার খরচও বেশি হয়েছে। প্রতি বছর রাজস্ব নেওয়ার সময় অনিয়ম হয়। তবে মাত্রা কম ছিল। এবার চার হাজারের জায়গায় ১৮ হাজার টাকা নেওয়া হচ্ছে। এতে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।’

মাহমুদকাঠি জেলেপল্লির বিশ্বজিৎ বিশ্বাস বলেন, ‘আর্থিক দুরবস্থা, উন্নত প্রযুক্তির সংকট রয়েছে। তার মধ্য দিয়েও আমরা সমুদ্রে গিয়েছি। নৌকা, জাল, খাবার, পানি—সব কিছু মিলিয়ে ১৫ লাখ টাকা খরচ হয়, যা দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুদে নিতে হয়। ১০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে বছরে ১৩ লাখ টাকা দিতে হয়। সাগরপাড়ের চরগুলোতে শুঁটকির কাজ চলাকালে পানি সঙ্কট ও চিকিৎসা সঙ্কটে থাকি আমরা। প্রতি বছরই দায়িত্বশীলদের কাছে এসব সমস্যা সমাধানের দাবি জানাই। তবে এ বছর প্রশাসন থেকে খাবার পানির জন্য ফিল্টার দিয়েছে। কিন্তু তা পর্যাপ্ত ছিল না। রাজস্ব প্রতি বছরই বাড়ছে। আবার নির্ধারিত রাজস্বের বাইরেও অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। কিন্তু বাড়তি টাকা নেওয়া হলেও রসিদ দেওয়া হচ্ছে সরকার নির্ধারিত টাকার। এসব টাকা ভাগ করে নিয়ে যান বন বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা ও পল্লির লোকজন।’

রামনাথপুরের জেলে পাচু বিশ্বাস বলেন, ‘ধারদেনা মাথায় নিয়ে সাগরে যাই। ফিরে এসেও ধারদেনায় থাকি। আসলে আমাদের জীবনের কোনও পরিবর্তন হয় না।’

জেলেদের সমস্যা সমাধানে কাজ করা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অওসেড’র নির্বাহী পরিচালক শামীম আরেফিন বলেন, ‘দুবলার চরে জেলেপল্লিতে আবাসন, পানি, পয়োনিষ্কাশনে রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা প্রয়োজন। সেখানে কোনও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বেশি কিছু করার সুযোগ নেই। কক্সবাজার ও ভোলার জেলেরা দিনে দিনে ফিরতে পারে বা এক-দুদিন থাকতে হয়। কিন্তু দুবলার চরে আবাসন দরকার। সরকার সেখানে জেলেদের বিনামূল্যে থাকতে দেয়। তাঁবুর ব্যবস্থা জেলেদেরই করতে হয়। জেলেরা রাজস্ব দেয়, দেশের মানুষের জন্য আমিষ জোগান দেন। কিন্তু জেলেদের চাহিদা পূরণ হচ্ছে না।’ 

তিনি বলেন, ‘খুলনা অঞ্চলের জেলেদের দুবলার চরে যাতায়াত সহজ ও সাশ্রয়ী করতে শিবসা খুলে দেওয়ার দাবি পুরোনো। কিন্তু জনবল সংকট ও নিরাপত্তাহীনতার কারণে বন বিভাগের অনুমতি পান না জেলেরা। এখন সুন্দরবন দস্যুমুক্ত। বনে আধুনিক স্মার্ট পেট্রোল টিম রয়েছে। কোস্টগার্ড রয়েছে। কাজেই শিবসা জেলেদের জন্য খুলে দেওয়ার দাবি জানাই।’

/এএম/
সম্পর্কিত
সুন্দরবনে কুমিরের আক্রমণে প্রাণ গেলো মৌয়ালের
ঘূর্ণিঝড় রিমালে তলিয়ে যাওয়া সুন্দরবনে মিঠাপানির চরম সংকট
ঘূর্ণিঝড় আঘাতের পর সুন্দরবন থেকে ১৩৪ মৃত হরিণ উদ্ধার
সর্বশেষ খবর
স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন-শপথ নিয়ে আ.লীগের সৃষ্টি: ওবায়দুল কাদের
স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন-শপথ নিয়ে আ.লীগের সৃষ্টি: ওবায়দুল কাদের
যেভাবে গঠিত হয় আওয়ামী লীগ
যেভাবে গঠিত হয় আওয়ামী লীগ
টিভিতে আজকের খেলা (২৩ জুন, ২০২৪)
টিভিতে আজকের খেলা (২৩ জুন, ২০২৪)
বরগুনায় বিয়ে বাড়িতে এখন শোকের মাতম
বরগুনায় বিয়ে বাড়িতে এখন শোকের মাতম
সর্বাধিক পঠিত
দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেমিফাইনালে ওঠার সমীকরণ
দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেমিফাইনালে ওঠার সমীকরণ
নায়িকার বিয়ে মাদ্রাসায়, দেনমোহর ৯ টাকা
নায়িকার বিয়ে মাদ্রাসায়, দেনমোহর ৯ টাকা
তিস্তা প্রকল্পে যুক্ত হওয়ার ঘোষণা ভারতের
তিস্তা প্রকল্পে যুক্ত হওয়ার ঘোষণা ভারতের
দীর্ঘায়ু পেতে চাইলে এই ৭ সুপার ফুড রাখুন পাতে
দীর্ঘায়ু পেতে চাইলে এই ৭ সুপার ফুড রাখুন পাতে
ইন্দো-প্যাসিফিক ওশেনস ইনিশিয়েটিভে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের
ইন্দো-প্যাসিফিক ওশেনস ইনিশিয়েটিভে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের