‘সাইফুল জঙ্গি নয় প্রমাণ হয়েছে, এবার লাশ ফেরত চাই’

Send
শরীয়তপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৫:৫৫, নভেম্বর ২৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:০৫, নভেম্বর ২৭, ২০১৯

নিহত হলি আর্টিজানের পিৎজা শেফ সাইফুল ইসলাম চৌকিদারের স্ত্রী ও সন্তানরা


‘মামলার এজাহার ও রায়ে কোথাও সাইফুলকে জঙ্গি হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়নি। সে হলি আর্টিজানের নিরপরাধ কর্মচারী ছিল। যেহেতু সাইফুল জঙ্গি না, প্রমাণ হয়েছে, এবার লাশটা ফেরত চাই। আমার স্বামীর লাশ আমি তার নিজের বাড়িতে দাফন করতে চাই। আমার তিন শিশু সন্তান তাদের বাবাকে ফেরত না পেলেও বাবার কবরটা যেন ছুঁয়ে দেখতে পারে।’ আজ হলি আর্টিজান হামলা মামলার রায় ঘোষণার পর এক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন হামলার নিহত হলি আর্টিজানের পিৎজা শেফ সাইফুল ইসলাম চৌকিদারের স্ত্রী সোনিয়া বেগম।
তিনি আরও বলেন, জঙ্গি হামলার ঘটনায় যারা নিহত হয়েছিলেন তাদের পরিবারকে সরকার ক্ষতিপূরণ দিয়েছে। যদিও তারা সবাই ছিল স্বচ্ছল পরিবারের সন্তান। কিন্তু আমার স্বামী পেটের দায়ে সেখানে পিৎজা শেফ হিসেবে কাজ করতো। অথচ, আমরা বেঁচে আছি, না মরে গেছি সেই খবরও কেউ নেয়নি। রিজিকের মালিক আল্লাহ। এই অভাব অনটনের মাঝেও আমি আমার সন্তানদের নিয়ে এক সময় মাথা উঁচু করে দাঁড়াবো।’

সোনিয়া বেগম আরও বলেন,‘পরিচয় থাকার পরও আমার স্বামীকে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করে আমাদের প্রতি অবিচার করা হয়েছে। এখন লাশটা ফেরত পেলে আমাদের আর কোনও দুঃখ থাকবে না। সরকারি আর্থিক কোনও সহায়তা বা ক্ষতিপূরণ আমি চাই না।’
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে হলি আর্টিজান রেস্তোরায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় নিহত হয় রেস্তোরার পিৎজা শেফ সাইফুল ইসলাম চৌকিদার। প্রথমে তাকে জঙ্গি হিসেবে সন্দেহ করা হলেও পরবর্তীতে প্রমাণ হয় সে জঙ্গিদের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। মামলার এজাহারেও পুলিশ উল্লেখ করে, ২০১৬ সালের ২ জুলাই সকালে হলি আর্টিজানে যে কমান্ডো অভিযান চালানো হয়, তাতে ৫ জঙ্গি ও ওই বেকারির এক কর্মীসহ ৬ জন নিহত হয়। নিহত বেকারির কর্মীর নাম সাইফুল চৌকিদার।

 আরও পড়ুন: ‘পরিচয় থাকার পরও আমার স্বামীকে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করেছে’

/জেবি/

লাইভ

টপ