আদালতে হাঙ্গামা করে বিএনপি ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছে: তথ্যমন্ত্রী

Send
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
প্রকাশিত : ০০:৩৮, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:৪৩, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯







তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদসুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের আদালতের এজলাসে হাঙ্গামা করে বিএনপির আইনজীবীরা ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, গত পরশুদিন তারা (বিএনপি’র আইনজীবীরা) খালেদা জিয়ার জামিন চাইতে আদালতে গিয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টে, যেখানে দেশের প্রধান বিচারপতি উপস্থিত ছিলেন। বিচারপতির এজলাসে তারা যেভাবে হাঙ্গামা করেছে দেশের ইতিহাসে এ ধরনের ঘটনা আর ঘটেনি। অবশ্য তারা এটি প্রথমবার ঘটায়নি। ইতোপূর্বে তারা প্রধান বিচারপতির দরজায় লাথিও মেরেছে।’



শনিবার (৭ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বিশেষ অতিথি ছিলেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, ‘গত পরশু তারা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে, কারণ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি এক সপ্তাহ পিছিয়ে আগামী বৃহস্পতিবার করতে চেয়েছিলেন। এক সপ্তাহ শুনানি পেছানোর জন্য যেভাবে বিচারকদের প্রতি হুমকি প্রদর্শন করা হলো, যেভাবে আদালতের প্রতি হুমকি প্রর্দশন করা হলো- এটি চরম আদালত অবমাননা। আইন এবং আদালতের প্রতি চরম অবজ্ঞা প্রদর্শন। এটি করে তারা ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘দেশের বিচার ব্যবস্থার মর্যাদা সমুন্নত রাখতে এবং প্রধান বিচারপতিসহ জ্যেষ্ঠ বিচারপতিদের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া প্রয়োজন। তাই আমি মনে করি এই বিষয়টি আদালত বিবেচনা করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।’
মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ করে মন্ত্রী বলেন, ‘গতকাল মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব সব চিকিৎসকের প্রতি হুমকি প্রদর্শন করেছেন। তিনি বলেছেন, ডাক্তারদের ঘাড়ে কয়টি মাথা। এটি বলে তিনি বাংলাদেশের সমস্ত ডাক্তারদেরকে অবজ্ঞা করেছেন। ডাক্তারদেরকে হুমকি প্রদর্শন করেছেন। তিনি নিশ্চয়ই জানেন, আমার আপনার মতো ডাক্তারদের ঘাড়েও একটি মাথা। তাদের ঘাড়ে একাধিক মাথা নেই। এই কথা বলে তিনি ডাক্তারদের প্রতি হুমকি প্রদর্শন করেছেন।’
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফঅনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ। তিনিও তার বক্তব্যে আদালত অবমাননার বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘গত পরশুদিন আদালত প্রাঙ্গণে বিএনপি যে তাণ্ডব চালিয়েছে, প্রধান বিচারপতির এজলাসে যে হট্টগোল করেছে এটি ছিল নজিরবিহীন। এর আগে প্রধান বিচারপতির এজলাসে এ ধরনের ঘটনা আর কোনও দিন ঘটেনি। মেডিক্যাল রিপোর্ট না আসার কারণে আদালত শুনানি এক সপ্তাহ পিছিয়েছেন। এই সামান্য বিষয়ের জন্য তারা তাণ্ডব চালিয়েছে। অথচ এই বেগম খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলা যখন চলছিল, তখন সেই মামলা পথভ্রষ্ট করার জন্য খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বার বার সময় চেয়েছে। দুর্নীতির মামলায় বেগম খালেদা জিয়া ১০৮ বারের বেশি সময় নিয়েছিলেন। সময় নেওয়াটা কোনও দোষের নয়, এটি কোনও বেআইনি নয়। এটা কোনও অপরাধ নয়। এটি কোনও দুরভিসন্ধি নয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা যদি একশ বারের বেশি সময় নিতে পারেন। সেখানে সরকারি কৌঁসুলি ডাক্তারি রিপোর্ট আসেনি বলে একবার সাত দিনের সময় চেয়েছেন। আর আদালত এটি গ্রহণ করার কারণে তারা এই তাণ্ডব চালিয়েছেন। এটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। এই ঘটনার মধ্যদিয়ে বিএনপি প্রমাণ করেছে তারা আইনের শাসনে বিশ্বাসী নয়। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে বিএনপি আইনের প্রতি অবজ্ঞা করেছে। বিএনপি গণতন্ত্রের প্রতি অশ্রদ্ধা দেখিয়েছে। তারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে, আইনের কথা বলে। আর বে-আইনি কাজ করে। মুখে আইনের কথা বলবেন আর বে-আইনি কাজ করবেন এটি বরদাস্ত করা হবে না। আমরা আশা রাখি সংশ্লিষ্টরা এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।’

/টিটি/টিএন/

লাইভ

টপ