নারায়ণগঞ্জ থেকে টেকনাফে ফেরত তাবলিগের ১১ জন কোয়ারেন্টিনে

Send
টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৯:১৬, এপ্রিল ০৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২২, এপ্রিল ০৭, ২০২০

কক্সবাজারে অস্থায়ী কোয়ারেন্টিন সেন্টার

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে নারায়ণগঞ্জ থেকে ফেরত আসা তাবলিগ জামাতের ১১ জন মুসল্লিকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। সোমরার (৬ এপ্রিল) রাতে উখিয়ার ইনানী প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টারে তাদের কোয়ারেন্টিন করা হয়। এর আগে তাদের চকরিয়া পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে আটকানো হয়েছিল। তাদের সবার বাড়ি টেকনাফের শামলাপুর গ্রামে। এদের মধ্যে অধিকাংশ ছাত্র।

এই বিষয়টি নিশ্চিত করে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, ‘যেহেতু নারায়ণগঞ্জ জেলা ইতোমধ্যে করোনা সংক্রমণ এলাকা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে তাই ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে তাদেরকে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এসময় তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। কারও শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে, সে অনুযায়ী চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর সুস্থভাবে কোয়ারেন্টিন শেষ হলে তারা বাড়ি ফিরে যাবে।’

পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে পিকআপ ভ্যানে করে তাবলিগ জামাতের ১১ জন মুসল্লি নারায়ণগঞ্জ থেকে টেকনাফে আসছিলেন। এসময় চকরিয়া এলাকায় পুলিশের তল্লাশি চৌকির কাছে এলে পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। মুসল্লিরা জানান, তারা নারায়ণগঞ্জে থেকে তাবলিগ জামাত শেষে এলাকায়  (টেকনাফে)  ফিরছিলেন। গত মার্চের মাঝামাঝি সময়ে টেকনাফ থেকে কিছু ছাত্রসহ এই তাবলিগ জামাতটি বের হয়। বর্তমানে তাদের উখিয়ার ইনানী এলাকায় অবস্থিত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টারে রাখা হয়েছে। এর আগে এই সেন্টারে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ফেরত ৬ রোহিঙ্গা কোয়ারেন্টিনে ছিল। তার মধ্যে একজন ভালো হয়ে ফিরে গেছে। এখন সেখানে মোট ১৬ জন কোয়ারেন্টিনে আছেন।

জানতে চাইলে উখিয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মর্জিনা আক্তার বলেন, ‘ নারায়ণগঞ্জ থেকে টেকনাফে ফেরত আসা তাবলিগ জামাতের ১১ জন মুসল্লিকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। তাদের সেখানে পর্যবেক্ষণ চলছে।

এদিকে কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান জানিয়েছেন এর আগে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ফেরত ৬ রোহিঙ্গার একজনের কোয়ারেন্টিন শেষ হয়েছে। বর্তমানে ৫ রোহিঙ্গাসহ ১৬ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। এছাড়া কক্সবাজারে এপর্যন্ত ৪৯২ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছিল তারমধ্যে ৪২৩ জন কোয়ারেন্টিন শেষ করেছে। বাকি ৬৯ জনের কোয়ারেন্টিন চলছে।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া জানান, কক্সবাজারে মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ৫০ জনের পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কাউকে কোভিড-১৯ পজিটিভ পাওয়া যায়নি। এর আগে গত ২৪ মার্চ ঢাকায় আইইডিসিআর ল্যাবে সৌদি ফেরত এক নারীর করোনা পজিটিভ পাওয়া গিয়েছিল, তিনি চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ