রামেক হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু

Send
রাজশাহী প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০২:৩৫, জুন ০৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:৩৮, জুন ০৫, ২০২০

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজিজুর রহমান (৭৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। বুধবার (০৩ জুন) রাতে তিনি মারা যান। তার বাড়ি নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলায়। করোনা আক্রান্ত হয়ে রামেক হাসপাতালে করোনা ইউনিটে গত ২ জুন হতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রামেক হাসপাতালের উপ পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস জানান, গত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে তিনি মারা যান। মৃত্যুর পর তার লাশ দাফনের সার্বিক দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনকে।

করোনা রোগীর তথ্য গোপন: চিকিৎসকসহ ৬ কর্মী কোয়ারেন্টিনে

এদিকে করোনা পজিটিভ থাকার বিষয়টি গোপন করে রামেক হাসপাতালে এক মুমূর্ষু রোগীকে আনার মুহূর্তে তার মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতালের ৬ কর্মীকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন চিকিৎসক, তিনজন নার্স এবং একজন ওয়ার্ড বয়।

রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, ওই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন তা গোপন করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেন। তাই হাসপাতালের দুই চিকিৎসকসহ ছয়জনকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ওই রোগীকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনা হয়। তবে তাকে মৃত মনে হচ্ছিল। নিশ্চিত হতে ইসিজি করার জন্য ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেখানে বেশিক্ষণ রাখা হয়নি। এরপর তার পরিবার সদস্যরা রোগীর করোনার কথা জানায়। এ কারণে সংক্রমণের আশঙ্কায় ছয়জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। আগামী ১৪ দিন তারা বাড়িতে থাকবেন। তাদের নমুনাও পরীক্ষা করা হবে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ওই মৃত রোগীর নাম রবিউল ইসলাম (৪৫)। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নয়াগোলা এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। বুধবার (৩ জুন) বেলা ১১টার দিকে রবিউল ইসলামকে (৪৫) মুমূর্ষু অবস্থায় অ্যাম্বুলেন্সে করে রামেক হাসপাতালে আনা হয়। রবিউল ঢাকা থেকে ফিরেছিলেন। পরে তার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ এসেছিল। কিন্তু পথেই তার মৃত্যু হয়। হাসপাতালে তা নিশ্চিত হওয়ার পর তার করোনা আক্রান্ত থাকার বিষয়টি পরিবারের সদস্যরা স্বীকার করে। তারা আগে এ তথ্য জানায়নি। মরদেহ কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিয়ে গিয়ে দাফন করেছে।

রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, বুধবার তাদের ল্যাবে ৯৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট পাঁচজনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। এর মধ্যে দুইজনের বাড়ি নাটোর সদর উপজেলায়। আর তিনজন রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার বাসিন্দা। বিষয়টি দুই জেলার সিভিল সার্জনকে জানানো হয়েছে।

শনাক্ত আরও ৫: নাটোর ২, বাকিরা রাজশাহীর

রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক জানান, বাগমারা উপজেলায় নতুন শনাক্ত তিনজনের মধ্যে দুইজন স্বামী-স্ত্রী। আক্রান্ত অন্যজন পুরুষ। তারা বাইরে থেকে রাজশাহী এসেছেন। তাদের বাড়ি লকডাউন করা হচ্ছে।

এর আগে মঙ্গলবার রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার আরও দুইজনের করোনা শনাক্ত হয়। নতুন তিনজন শনাক্ত হওয়ায় জেলায় সংখ্যাটি বেড়ে ৬৬ জনে দাঁড়ালো। বৃহস্পতিবার দুপুর (০৪ জুন) পর্যন্ত রাজশাহী নগরীতে শনাক্ত হয়েছেন ১২ জন। জেলার ৯ উপজেলার মধ্যে গোদাগাড়ীতে ১, তানোরে ১২, বাঘায় ৬, চারঘাটে ৬, পুঠিয়ায় ৯, দুর্গাপুরে ৩, বাগমারায় ৬, মোহনপুরে ৭ এবং পবায় ৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন তিনজন। আর সুস্থ হয়েছেন ১৩ জন।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ